• Categories

  • Archives

  • Join Bangladesh Army

    "Ever High Is My Head" Please click on the image

  • Join Bangladesh Navy

    "In War & Peace Invincible At Sea" Please click on the image

  • Join Bangladesh Air Force

    "The Sky of Bangladesh Will Be Kept Free" Please click on the image

  • Blog Stats

    • 313,975 hits
  • Get Email Updates

  • Like Our Facebook Page

  • Visitors Location

    Map
  • Hot Categories

Dhaka-Delhi Ties: ‘Imposed Treaties’ Cannot Bring Peace, Security

M. Shahidul Islam


The lopsided treaty of Versailles that was imposed upon Germany at the conclusion of the First World War brought Hitler to power and sparked another Great War two decades later. Likewise, the 25- year treaty of friendship which Delhi foisted upon Dhaka at the conclusion of the 1971 Indo-Pak war is liable for much of the bloody turmoil that had pulverized Bangladesh in the late 1970s, and continues to do so until now.

https://i0.wp.com/cdn1.beeffco.com/files/poll-images/normal/manmohan-singh_2187.jpg

At least four different uneven treaties/agreements are being prepared for signing during the Indian PM Manmohan Singh's upcoming visit to Dhaka on September 6-7

It was only recently that Dhaka and Delhi have begun to look eye ball to eye ball. Yet, as if the lessons of history were meant to be brushed aside as nonsense, Bangladesh is once again turning into a satellite state. At least four different uneven treaties/agreements are being prepared for signing during the Indian PM Manmohan Singh’s upcoming visit to Dhaka on September 6-7. Excepting the Teesta water sharing agreement, of which little in specific is known as yet, all other agreements are uneven and detrimental to regional peace and stability.

Too much, too fast

Especially the transit deal has moved too fast, despite its onerous geopolitical and economic ramifications. The persistent brinkmanship since it first demanded in 2009 a slew of concessions from Dhaka have finally compelled Bangladesh to capitulate to unreasonable and unfair Indian demands.
While moving with a break-neck speed to secure transit/corridor through Bangladesh, Delhi has also decided to flood our streets with otherwise not-export-worthy Indian vehicles and locomotives, and, to make us energy dependent by finalizing a handful of power connectivity schemes.
Foreign Minister Dipu Moni said on July 18 that Bangladesh and India have taken a “political decision” on transit (read corridor) for India and a number of protocols regarding the transit would be finalized before the Indian PM’s scheduled visit to Bangladesh on September 6-7, which, Moni said, ‘are expected to be signed.’

Power & transportation

That message received a glowing reception in Delhi. The same day, Delhi gave mandate to its state-run power producers-NTPC and its appendix the Vidyut Vypar Nigam Ltd. (NVVN) – the mandate to export 250 MW of power to Bangladesh. “We are going to export 250 MW to Bangladesh from the 15 per cent unallocated power we have, and will develop 1,320 MW at Khulna,” NTPC Chairman and Managing Director, Arup Roy Choudhury, said on the sidelines of an energy seminar.

This particular move seems too hypocritical and unrealistic due to over 400 million Indian consumers still having no access to electricity; a fact that should have compelled Delhi to focus on providing electricity to its own people first before moving aggressively to set up transmission lines with Bangladesh under a dubious pact signed in July 2010 between the Power Grid Corporation of India Ltd and the BPDB of Bangladesh. This power connectivity is expected to be commissioned by early 2013, at a cost of US$ 190 million (around Rs 907 crore).

Already knee-deep into our telecommunication and RMG sectors with over $2 billion stakes, the Indian dash to overtake the transportation and the power sectors is as alarming as is the transit deal.

Yet, finance minister AMA Muhith disclosed last week that his government would spend $960 million of the $1 billion loan committed by the Indian Exim Bank to procure from India 300 double-decker buses, 50 single-decker, 50 articulated, 50 flat wagons, 180 oil tankers and a host of other vehicles and locomotives, in phases.

All these procurements remind one of the sordid memories created by the Indian Maruti taxicab procurement scam of 1998-2000, all those vehicles finding their places in junkyards in less than five years time. This time, the loans must be paid irrespective of the quality of the merchandise provided by India. More loans also mean more tax burden on ordinary people.

Diplomatic shamble

That’s not all. The Bangladesh ambassador in Kathmandu, Neem Chandra Bhowmik, was found by the Nepalese authorities to have indulged in a range of non-diplomatic activities, prompting the Nepalese foreign ministry to urge Dhaka for his immediate withdrawal from the Himalayan kingdom. One source said, some of the allegations against Bhowmik involved spying on behalf of India, something the Maoist-dominated Nepalese elites found utterly reprehensible, undiplomatic and damaging to their national interest. “Dhaka has launched an investigation to verify those allegations,” according to the source.

https://i0.wp.com/www.ittefaq.tv/Pic/Profneemchandrabhowmik.jpg

Neem Chandra Bhowmik involved spying on behalf of India

A former teacher of the Dhaka University, Bhowmik has been a leading stalwart in the Hindu-Buddhist-Christian Association of Bangladesh prior to his hand-picked, mysterious nomination in 2009 to serve as Bangladesh’s High Commissioner in Nepal. The army-backed caretaker regime once arrested and imprisoned him for stirring trouble between soldiers and students in August 2007.

If that was not enough, another hand-picked émigré academician cum diplomat had caused further embarrassment to the government by meeting last week with the exiled Tibetan leader, Dalai Lama, in New York. Dr. A.K. Abdul Momen, who too was chosen as a blue-eyed buddy of the PM to become Bangladesh’s Permanent Representative to the UN, did not even bother to ponder how his meeting with the Tibetan exiled leader would throw a deadly spanner on Bangladesh’s long-held one-China policy.

Free transit

For too long, an agile and doggedly arrogant pro-Indian cabal has showcased the transit deal as a cash cow for Bangladesh. Now, weeks before the deal is set to be inked and wrapped, the economic gains seem negative when the cost of maintaining and securing the infrastructure is subtracted from whatever may be levied as transit royalty from the ferrying Indian vehicles. Besides, not only our limited road infrastructures will be overcrowded-and the venomous wrath of secessionist forces of Indian north east, the Chinese anger notwithstanding, will be drawn into-there is no other tangible quid pro quo laced with the deal. Compare this with how diplomacy got conducted in the past. Soon after the partition of India in 1947, Nehru wrote to Jinnah seeking transit facilities from the Chittagong port to the Indian North Eastern states. Jinnah replied, “Excellency, this request can be honoured in a mutually beneficial manner. Please allow Pakistan to ferry goods from the Karachi port to East Pakistan via India.” Nehru never responded to that counter-offer.

Border dispute

That old-fashioned Indian bluff is called once again due to Delhi showing no intention of resolving the outstanding border demarcation issues with Bangladesh. The euphoria expressed on July 14 by Kamal Uddin Ahmed, a Bangladesh government official involved in the bilateral survey of population living in adverse possessions in both countries, that the so-called head count survey by 125 surveyors from both the countries would be completed in 7 days to prepare ground for the boundary dispute settlement during the Indian PM’s Dhaka visit, has turned sour within days.

On July 17, survey at the Mehgalaya-Bangladesh border had to be abandoned due to what the state-controlled Press Trust of India (PTI) said “difference of opinion between the two sides regarding the location of the international border.” Of course there is difference of opinion, but how long this stalemate can linger?

The decision to jointly verify the enclave population was taken last September and a Joint Boundary Working Group (JBWG) was created to resolve disputes along the Dibirhaor, Sripur, Tamabil, Sonarhat, Bichnakandi, Protappur and Lalakhal in Sylhet, abutting Meghalaya. Other enclaves slated for the survey and demarcation abut the Cooch Behar and Jalpaiguri districts of West Bengal, and, some are along the Kurigram, Nilphamari, Lalmonirhaat and Pachagarh districts of Bangladesh. The survey on hold, no deal on border dispute settlement is expected sooner.

Bitter past

That Delhi is reluctant to settle this combustive matter became clear from other indications. Indian officials claim the population of 111 Indian enclaves is around 100,400 while the 51 Bangladeshi enclaves inside India have 44,000 residents only. Bangladesh, on the other hand, claims it has 55 enclaves inside India and the population of those enclaves is about 150,000 to 300,000. The two nations share over 4,000 km of border, of which about 6.1 km was thought to have remained un-demarcated. Upon closer look, over 15 km of border is found un-demarcated.

Besides, according to Bangladeshi officials, 7,000 acres of Bangladeshi land is inside India and only 3,500 acres of Indian land inside Bangladesh, which India claims to be 17,000 acres. From these wide variations, one can deduce the prospect of additional danger, unless some agreements are arrived at sooner.

That notwithstanding, the tactic being applied by Delhi is reminiscent of what it did in the 1970s. Dhaka and Delhi signed a land border agreement in 1974 and Dhaka expeditiously executed, ratified and handed over the Tin Bigha corridor to India, in return for the Indian commitment to hand over Berubari to Bangladesh. But Delhi never bothered to return Berubari to Bangladesh.
Thus the border demarcation issue remained on the ice, and, for four decades, the residents of Berubari and other enclaves, who are virtually stateless refugees, crossed the international border every day for cultivation and other chores by enduring strict official formalities enforced by the Indian border security personnel.

Things turned further painful when, since 2003, India started to encircle Bangladesh by constructing barbed wire fencing at a cost of $ 3 billion, and, the killing and maiming of thousands of Bangladeshis by the BSF continued unabated. Faced with such hard facts, how Dhaka can concede to unreasonable pressures from Delhi is beyond a sane person’s comprehension.

In politics, permanent interest is more important than cosmetic friendship cloaked under a deceptive blend of hoodwink, guile and blackmailing. There are proxy wars in the Indian North East and they must conclude through political means. If the US can conciliate with the Taliban, Delhi should do the same with the ULFA and the others. Only then a transit through Bangladesh will be risk free.

সপ্তাশ্চর্য নির্বাচন নিয়ে বিশ্বব্যাপী প্রতারণা

আব্দুন নূর তুষার: প্রাকৃতিক সপ্তাশ্চর্য নির্বাচন নিয়ে বিশ্বব্যাপী প্রতারণা শুরু হয়েছে। এর সঙ্গে জড়িত কোটি কোটি টাকার ফাঁদ। প্রতারণার বিষয়টি জানতে পেরে ইতিমধ্যে দু’টি দেশ তাদের নাম প্রত্যাহার করে নিয়েছে। জানা যায়, নিউ সেভেন ওয়ান্ডার্স ফাউন্ডেশন নাম দিয়ে সুইস চলচ্চিত্রনির্মাতা ও সংগ্রাহক বার্নার্ড ওয়েবার এই সংগঠনটি প্রতিষ্ঠা করেন। এর সঙ্গে সুইস সরকারেরও সম্পর্ক আছে। পর্তুগালের লিসবনে তারা তাদের প্রথম প্রতিযোগিতার ফল ঘোষণা করেন ২০০৭ সালের জুলাই মাসে। তারা দাবি করেন, প্রায় ১০ কোটি ভোটার এসএমএস ও ইন্টারনেটের মাধ্যমে প্রতিযোগিতায় ভোট দিয়েছিলেন। ইন্টারনেট ভিত্তিক একটি সংস্থা অনলাইন ভোটিংয়ের মাধ্যমে ওই তালিকা ২০০৭ সালে প্রকাশ করে। ওই তালিকায় পিরামিড ছিল না। তাতে দক্ষিণ আমেরিকার তিনটি, এশিয়ার তিনটি ও ইউরোপের একটি প্রাচীন নির্মাণকে ভোটাভুটি করে আশ্চর্য বানিয়ে দিয়ে তারা সপ্তাশ্চর্যের পুরনো তালিকাটি বদলে দিতে চেষ্টা করেছিল। পুরনো তালিকায় ছিল দ্য কলোসাস অব রোডস, গির্জার পিরামিড, ব্যাবিলনের শূন্যোদ্যান, আলেক্সান্দ্রিয়ার বাতিঘর, হ্যালিকার্নেসাসের সমাধি, অলিম্পিয়ার জিউসের মূর্তি এবং ইফেসাসে আর্টেমিসের মন্দির।  এই আশ্চর্যগুলোর সব ক’টি এখন আর দেখা যায় না। তাই নতুন তালিকার উদ্যোগ নেয় সংস্থাটি। আর এখানেই নানা প্রশ্ন। পিরামিড বাদ পড়ার পর অনেকেই এটিকে নিয়ে অসন্তুষ্টি প্রকাশ করেন। একটি সুপ্রাচীন স্থাপত্য হঠাৎ ব্রাজিলের রিডিমারের মতো একটি কুদর্শন ঢ্যাংগা মূর্তির কাছে বাদ হয়ে যাবে এটা কেউ মেনে নিতে পারেননি। অ্যাংকরভাট নিয়েও অনেক কথা হয়েছে। অনেকে বলেছেন, চীনের প্রাচীরের চেয়ে অ্যাংকরভাট অনেক বেশি দাবিদার ছিল আশ্চর্য হিসেবে ঘোষিত হওয়ার। প্রথম দিকে, বিভিন্ন ছোট ছোট দেশ এই প্রতিযোগিতার ব্যাপারে বিরাট আগ্রহ দেখায়। তবে একপর্যায়ে তাজমহল কম ভোট পেয়ে বাদ হওয়ার আশঙ্কা দেখা দিলে ভারতে এ নিয়ে বিরাট হৈচৈ শুরু হয়। মিডিয়ায় গুরুত্ব দেয়ায় ভারত থেকে কোটি কোটি ভোট পড়তে থাকে। জর্ডানের রানী নিজে প্রচারণায় নেমে পড়েন এবং ৭০ লাখ লোকের দেশ জর্ডান থেকে এক কোটি ৪০ লাখ ভোট পড়ে পেট্রার পক্ষে। ব্রাজিলের ফোন কোম্পানিগুলো ফ্রি এসএমএস ও কল করতে দিয়ে তাদের রিডিমার স্ট্যাচুকে জিতিয়ে দেয়। ভারতেও একই রকম কাণ্ড হয়। শুরুতে মনোনয়ন দেয়ার সময় ইউনেসকো তাদের সহযোগিতা করলেও পরে তারা ঘোষণা দিয়ে নিজেদের প্রত্যাহার করে নেয়। ইউনেসকো থেকে বলা হয়, এই প্রতিযোগিতা একটি ব্যক্তিগত উদ্যোগ। এর সঙ্গে ইউনেসকোর কোন সম্পর্ক নেই। প্রথম প্রতিযোগিতার পর প্রতিষ্ঠানটি বলেছিল, এই কাজে আয়োজকদের কোন আর্থিক লাভ হয়নি। বরং তারা এটা বিভিন্ন দাতাদের সহযোগিতায় সম্পন্ন করেছে। তবে তারা নানা রকম প্রচারণা স্বত্ব বিক্রি করে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়। তারা ভোটের সংখ্যা প্রকাশ করেনি এবং টাকা পয়সার হিসাবের বিষয়েও নীরব ছিল। এর পরপরই তারা শুরু করে দেয় প্রাকৃতিক আশ্চর্য নির্বাচনের প্রতিযোগিতা। শুরুতে বাংলাদেশের কক্সবাজার ও সুন্দরবন- দু’টোই তালিকায় থাকলেও পরে তারা সুন্দরবনকে রেখে কক্সবাজারকে বাদ দেয়। অথচ প্রথমে তারা সুন্দরবনকেই বাদ দিতে চাইছিল। কেননা এটি দু’টি দেশে অবস্থিত এবং দু’টি দেশ থেকে সরকারিভাবে যৌথ মনোনয়ন না পেলে তারা এটাকে তালিকায় রাখবে না বলে জানিয়েছিল। এটি ছিল কৌশল। এসএমএস ও টিভি স্বত্ব বিক্রির জন্য ভারত অনেক বেশি লোভনীয়। তাই ভারতকে এই খেলায় ঢোকানোটাই ছিল মূল উদ্দেশ্য। বাংলাদেশসহ ২৭টি দেশে তারা এই এসএমএস ভোটিংয়ের আয়োজন করছে। পরিবেশ ও বন প্রতিমন্ত্রী হাছান মাহমুদ এই প্রতিযোগিতার জন্য এসএমএস পাঠানোর বিষয়ে একটি সংবাদ সম্মেলন করে বলেছেন, প্রতিটি সিম থেকে বিশটি এসএমএস পাঠালে বাংলাদেশ ১০০ কোটি ভোট পাবে। এই প্রতিযোগিতার আয়োজকেরা ভোটের কম-বেশি দিয়ে বিজয়ী নির্বাচন করেন বলে স্বীকার করেন না। ভোটের সংখ্যাও প্রকাশ করেন না। প্রতিটি এসএমএসের জন্য খরচ হবে দুই টাকা। এ হিসাবে আয় হবে প্রায় ২০০ কোটি টাকা। এর থেকে ৬৮ পয়সা পাবে আয়োজক সেভেন ওয়ান্ডার্স ফাউন্ডেশন। এভাবে মোট ৬৮ কোটি টাকা পাবে তারা। সরকার আবার এই এসএমএসের জন্য ভ্যাট মাফ করে দিতে চেয়েছে। ফলে সরকারের ক্ষতি হবে ৩০ কোটি টাকা। ১৬৩৩৩ নম্বরটিতে এসএমএস পাঠাতে হবে। কিন্তু এ নম্বরটির মালিক কে বা কারা সে বিষয়ে সরকার নীরব থেকেছে। নম্বরটির মালিক কোম্পানিগুলো হলে তারা পাবে বাকি ১৩২ কোটি টাকা। আর নম্বরটির মালিক কোন ব্যক্তি হলে তিনি ১৩২ কোটি টাকার কমপক্ষে ৪০ ভাগ পাবেন। এর পরিমাণ ৫২ কোটি ৮০ লাখ টাকা। মালদ্বীপ সরকার এরই মধ্যে এ প্রতিযোগিতা থেকে তাদের নাম প্রত্যাহার করেছে। ২৪শে এপ্রিল তাদের মন্ত্রিসভার বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেয়। আয়োজকেরা তাদের কাছে প্রায় ৫ লাখ ডলার ফি দাবি করায় তাদের পর্যটন মন্ত্রণালয় তা প্রত্যাখ্যান করে। তারা এই প্রতিযোগিতার স্বচ্ছতা ও জবাবদিহি নিয়ে আশ্বস্ত হতে পারেনি। ইন্দোনেশিয়াও এটি প্রত্যাখ্যান করেছে। তাদের পর্যটন মন্ত্রণালয়কে এই আয়োজকেরা পুরস্কার বিতরণীর সব খরচ বহন করে হোস্ট নেশন হতে চাপ দেয়। সরকার রাজি না হওয়ায় তারা কমোডো ন্যাশনাল পার্কের প্রস্তাবকারী হিসেবে মন্ত্রণালয়ের নাম কেটে দেয় এবং এটিকে বাদ দেয়ার হুমকি দেয়। তাদের মন্ত্রী  জিরো ওয়াচিক এই সংগঠনের বিরুদ্ধে ইন্দোনেশিয়ার ভাবমূর্তি নষ্ট করার চেষ্টার দায়ে মামলা করার কথাও বলেছেন। সংস্থাটি ইন্দোনেশীয় সরকারের কাছে চেয়েছিল ১০ মিলিয়ন বা এক কোটি ডলার।  এ প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশের লাভের পরিমাণ অতি অল্প। প্রথমত এই সংগঠনের কোন আন্তর্জাতিক গ্রহণযোগ্যতা নেই। এর মূল অফিস সুইজারল্যান্ডে হলেও কোন অফিস ঠিকানা নেটে নেই। রয়েছে স্পেনের একটি ঠিকানা। ওয়েবসাইটে নিজেদের বিষয়ে বক্তব্যও অস্পষ্ট। সংস্থাটির অর্জিত অর্থের পরিমাণও হিসাববিহীন। শুধু বাংলাদেশ ও ভারত থেকে এসএমএস আসবে ২০০ কোটির বেশি। এই টাকা থেকে কত ভাগ তারা ব্যয় করবে বিজয়ী দেশগুলোতে, তার কোন বর্ণনা নেই। উল্টো তারা টাকা চাইছে। মালদ্বীপ ও ইন্দোনেশিয়া এরই মধ্যে সরকারিভাবে অন্তত ১৫ লাখ ডলারের কথা বলেছে। বাংলাদেশী টাকায় এর পরিমাণ ১০০ কোটি টাকারও বেশি। এ সংস্থা না বললেও সুন্দরবন পৃথিবীর সবচেয়ে বড় এবং প্রাকৃতিকভাবে সৃষ্ট ম্যানগ্রোভ বন। ইউনেসকো একে এরই মধ্যে পৃথিবীর সম্পদ বা ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ হিসেবে ঘোষণা করেছে। সংগঠনটির কর্মকর্তারা দুবাই গিয়ে সেখানের একটি দ্বীপকে এই প্রতিযোগিতায় এনেছেন। তারা দেশে দেশে ঘুরছেন। সেভেন ওয়ান্ডার্স সংগঠনটি যারা ব্যক্তিগত লাভের জন্য প্রচারণা চালিয়ে এরই মধ্যে স্বীকৃত কিছু প্রাকৃতিক আশ্চর্যকে প্রতিযোগিতায় নামিয়ে পয়সা কামাচ্ছেন।

বিস্তারিত জানতে :

Indonesia Under ‘Attack’ by New7Wonders Foundation: Tourism Ministry

Komodo may be off 7Wonders list after RI nixes payment

Source : https://i2.wp.com/4.bp.blogspot.com/_hSzD2oC0NJw/S5NP-8eXhUI/AAAAAAAAAAs/llbzpfmB3lk/s200/manob.gif

 

Proposed 22 Points for Ending Terrorism, Establishing Human Rights and Ensuring Lasting Peace in CHT

(The opinions and statements contained in the article are those of the author Mr. M.F. Ahmed and do not necessarily reflect the views of DeshCalling.  Similarly DeshCalling is not responsible or accountable for any allegations or accusations contained in the piece. All queries or objections should be referred to the author at bdpatriotbd@yahoo.com)

Introduction:

With the motive of getting Nobel Prize, Sheikh Hasina, the then Prime Minister of Bangladesh, signed an anti-state treaty with the armed separatist group named PCJSS (Parbotto Chottogram Jono Shonghoti Samity) of CHT (Chittagong Hill Tracts) on the 2nd December of 1997 by surrendering the govt’s legitimate rights and citizenship rights of Bangladeshi people on CHT which is one-tenth portion of Bangladesh. This treaty has established PCJSS on the ruling seat in CHT and deprived Bangalee inhabitants from their basic citizenship and human rights. Racist attacks, killings, abductions, kidnappings, torture, collection of tolls, threat of eviction etc continues against helpless CHT Bengalis and tribals who oppose terrorism and racism conducted by JSS leader Shantu Larma.

The country’s security and sovereignty is now at stake because of the immature and anti-state policy of Hasina govt. The whole region is now being controlled by JSS armed gangs compelling people to live in a suffocating situation.

The High Court has given verdict declaring Regional Council as unconstitutional and illegal but the Govt has obstructed the implementation of the verdict by submitting an appeal. This paper will briefly highlight the post-treaty situation and Human Rights violation in CHT.

Wrong claim against CHT Bangalis:

Bangladesh being world’s most densely populated country (area only 1,44000 sq km) of more than 164 million people; CHT, which is one-tenth portion of the country cannot be reserved for only 5 lac tribals. There are about 13 different tribes who have migrated to this area from various parts of India and Myanmar and settled here, they are now accepted as citizens of Bangladesh. Surprisingly, some racist tribals term Bengalis as ‘infiltrators’, settlers, bohiragoto etc. which is fabrication of truth aimed at misleading the foreigners. No citizen, in his or her own country, can be termed as ‘settler’.

Shantu Larma is not a true representative of CHT people:
https://i2.wp.com/www.priyo.com/files/photo/2010/Nov/Santu_Larma3.jpg

The vital question is- Is Shantu Larma a legitimate representative of all people living in CHT area? Is he an elected person or has he ever participated in any kind of election to show his popularity in CHT ? Do the 7 lac Bengalis living in CHT also support him as their true representative? No. If so, how, in the treaty, he was accepted as a representative of all people of CHT? Through this treaty Awami League govt surrendered many legitimate rights of the country to JSS and deprived Bangalees from all sorts of rights in CHT. Mind it, how many people does Shantu represent ? 7 lac Bengalis do not support him, again, out of 5 lac tribals more than 50% do not support him. So, he cannot be imposed on CHT people as their true representative. In any two of the plain area Upazillas of Bangladesh, more people live than the total population of 3 districts of CHT.

Illegitimacy of signatories of the treaty:

Again, Awami League leader Mr Abul Hasnat Abdulla, Chairman of CHT Affairs National Committee, signed the treaty as a representative of Bangladesh Govt. Question is, does a committee formed by a Govt be termed as a National Committee when the opposition party(s) did not recognize it as a national committee representing whole nation? Deduction is, the so called CHT Peace Treaty was signed between these two illegitimate parties, one is PCJSS (not representative of all CHT people) and another is termed National Committee.

Absurdity of entering into a treaty:

only 1300 Shanti bahini members surrendered depositing only 600 unusable arms and where Shanti bahini could not capture even a single inch land of CHT, so how can a govt enter into such an anti-state treaty with such a negligible group and with such an illegitimate leader when govt maintains a vast security forces and whole nation is against such treaty?

Terrorism by Shantibahini:
https://i2.wp.com/www.marxist.com/images/stories/bangladesh/Shanti_Bahini_camp.jpg

By conducting armed insurgency since 1985, achievement of Shantibahini was that it killed more than 30,000 CHT Bengalis, raped hundreds Bangalee women, burnt hundreds of Bangalee villages, kidnapped hundreds of Bengalis, tortured thousands, bayoneted pregnant Bengali women and extracted tolls from every person living in CHT by terrorizing people with weapons. Around 5 lac Bengalis were internally displaced, some took shelter in Guchcho gram, more than a lac fled from CHT. They also succeeded in driving away one lac tribals as refugee to India to create pressure on Bangladesh by showing refugees.

Reasons for JSS’s surrendering weapons:

JSS started this armed separatism to gain ruling power on CHT. By this treaty, absolute ruling power is given to JSS and all clauses of the treaty framed to ensure systematic eviction of all Bengalis from CHT. The staged drama of surrendering weapons did not prevent JSS from taking up arms again and continue their killings and kidnappings on CHT Bengalis. Moreover, now it has become easier for Shantu Larma to conduct insurgency sitting at Regional Council Office itself. Those who opposed JSS are now demoralised and brought under control of JSS. Areas which were under domination of Security Forces have come under JSS domination once the Security camps have been withdrawn. They could successfully include in the treaty how many security camps will be there in CHT; thus govt’s legitimate right of establishing security camps – could be denied. Hundred crores of Taka allotted by govt for CHT and huge amount of tolls collected from CHT people – have become a big source of earning for JSS. Thus, armed insurgency in CHT- is a very big profitable business. All these power and facilities given to JSS now being used to establish Chakma dominated Jummoland.

Some detrimental clauses of the treaty:

a. Deprivation of Bangladeshi citizens from citizenship rights on CHT:

It is an irony of fact that Bengalis being the original sons of the soil are deprived of their legitimate citizenship rights on the area of CHT which is one-tenth portion of Bangladesh. Any Bengali living in CHT has to collect certificate from tribal Headman/Chairman and Circle Chief to be able to get a Citizenship Certificate and be included in the voter list. Thus CHT Bengalis have been made dependent and subordinate to tribals through the treaty.

b. Restriction on Bangladeshi citizens imposed by CHT Treaty:

Considering Bangladesh as a densely populated country of more than 16 crores people, in average 1.6 crore or 160 lacs people should live in CHT. But now by signing the treaty, Awami League Govt imposed restriction on all Bangladeshi citizens regarding settling, buying land or taking lease of land in CHT without permission of tribal Regional Council. Thus, a country within a country has been created by this treaty.

c. All vital posts are reserved for tribals making Bengalis as second class citizens in own country.

By this treaty, all major posts like Regional Council Chairman, 3 Dist Council Chairmen, CHT Affairs Minister, CHT Development Board Chairman, Circle Chiefs in 3 dists, Refugee Rehabilitation Chairman etc are reserved for only tribals and Bengalis are totally deprived from all these posts.

What is the justification of maintaining an Army of 1.5 lac strength?

If our govt has to surrender one-tenth portion of the country to such an anti-state mini armed group like Shani Bahini (around 400 armed members only), why our nation should feed an Army like this if the Army cannot suppress such a minor separatist group ? Fact is- that our Security Forces fought valiantly and successfully contained the Shanti Bahini for many years; they could not totally eliminate JSS because Shanti Bahini took shelter in neighbouring country where they got training and material support. Many Shanti Bahini members surrendered to our Security Forces including Central Committee members of JSS. Preeti group of JSS surrendered to our Army along with hundreds of it’s members and arms on 29 April 1985. It was expected that very shortly- all members of Shanti Bahini would surrender and leave JSS, but Awami League govt failed to appreciate the ground reality. If the govt has to surrender 1/10th portion of the country to a group of only 400 armed cadres, what will the govt do if another party of more than 4000 armed cadres starts an insurgency?

Neglect to our Intelligence Organization’s assessment:

Awami Govt without assessing the situation, surrendered CHT to JSS sitting at the dialogue table. Even Awami Govt has not taken any intelligence assessment from country’s Security Forces (Army, DGFI) and did not ask for any assessment/recommendation from them; thus Awami govt neglected the dedication and sacrifices of our Security Forces who have been fighting terrorism for more than a decade and contained it successfully.

Deprivation of Bangalees from jobs, education and loans :

Though 5 lac tribals of CHT do not constitute even 0.50% of the total population of Bangladesh (160 million plus), in spite of that- 5% jobs are reserved for tribals. Every year hundreds of tribal students are given admission under Tribal Quota into all Cadet Colleges, Universities, Engineering University (BUET), Engineering colleges etc; but no Bangalee student of CHT is given such quota which is a clear discrimination.

Unending demands of Shantu Larma:

In spite of above, now again, Shantu Larma demands 3 MP posts reserved for tribals. Is Bangladesh a Moger Mulluk ? Can any govt give lease this country to a terrorist group?

Who is Shantu Larma?

Shantu Larma is an anti-Bengali racist person and leads an armed separatist group called Shanti bahini (armed wing of JSS). He conducted armed terrorism in CHT with support from outside the border. He maintained several camps outside Bangladesh border. Though he signed a treaty with Awami govt on 2nd December of 1997, he has not abandoned his separatist ideology, he is now reorganizing once dissolved Shantibahini in another name.

Shantu Larma who is behind genocide and armed terrorism in CHT. Shantu Larma’s hand is wet with blood of more than 32000 CHT people of whom maximum are Bengalis. Through the treaty, he gained the post of Regional Council Chairman and still continuing this post illegitimately without any election though this council has been declared illegal by the High Court. His present propagation is to ensure withdrawal of all Security Forces from CHT and bring CHT under full control of his armed wing. He developed a vast network abroad to mislead international Human Rights organizations including UNO. He spreads continuous racial hatred against CHT Bengalis and plans to evict all CHT Bengalis. In the name of full implementation of the treaty, Shantu Larma is pressurizing the govt to give him more power and authority.

Shantu Larma’s armed wing extracts tolls from every shopkeeper, contractor and businessman worth hundred crores of Taka per year. He is a mass murderer, a known terrorist, racist and foreign agent whose cruelty does not even spare any tribal; Kina Mohon Chakma was eliminated by JSS for opposing the racial ideology of Shantu Larma.

Kina Mohon Chakma, an ex Shanti bahini member, was killed by JSS on 1st December 2006 at Rangamati, his body was mercilessly disfigured. Question is- how far Awami League will be allowed to go against the Bangalees and national interest. How long the nation will tolerate and Awami League supporters will support this Awami regime in going against Bengalis and national interests? How long Shantu Larma will be allowed to spread anti-Bengali racist sentiment and dominate CHT by his armed cadres ? The killing of 28 woodcutters at Langadu of Rangamati dist by chopping up, mass killings at different Bengali villages bears the testimony of the barbaric racism of JSS led by Shantu Larma.

JSS’s propaganda against Security Forces:

JSS activists always propagate that Army soldiers are killing them, torturing them and raping their women but they cannot show any evidence in favour of their claims. One thing that JSS hides is – the massive development activities being conducted in CHT by Security Forces. Hundreds of primary and secondary schools, dozens of colleges, student hostels, religious Kiangs, cultural centres have been established by Security Forces. Lacs of tribal students received scholarships from Army. Hundreds of engines for boats, power tillers and huge relief materials and cash worth crores of Taka donated to tribals by the Security Forces. Hundreds of roads and culverts have been constructed by Security Forces in CHT facilitating the communication and transportation system of CHT. But JSS never lets the foreigners to know this fact rather misleads them with fabricated propaganda.

Deprivation of CHT Bengalis:

On the other hand, Army has not done anything significant for CHT Bengalis. More than 95% donation and assistance given by Army went to tribals. Army even showed reluctance in finding the killers and kidnappers of Bangalee victims. CHT Bengalis are NOT even entitled to compete for the posts of Dist Council and Regional Council Chairman posts. No CHT Bangalee student has access to student quota for admission into university and medical colleges. No quota for CHT Bengalis in govt jobs. Thus the inhuman discrimination against CHT Bengalis is going on and on including threat of eviction. In own country, CHT Bengalis have become a second class citizen due to this illegal treaty and discriminatory policy of Security Forces and Administration.

JSS’s plan for a Jummoland comprising Mizoram and CHT:

JSS has a master plan of establishing Jummoland for Chakmas comprising India’s Mizoram and CHT area. It is to be noted that around 5 lac Chakma living inside Mizoram who are not accepted as citizens of India. As per JSS plan, all other tribes will be driven away to Mayanmar and India once they can establish so called Jummoland.

Partiality of Amnesty International and some section of the UN to JSS:

Learned readers will note that recent Human Rights report of Amnesty International has accused Bangladesh Security Forces but kept mum about the killings and kidnappings being conducted by JSS and UPDF. The reporter of Amnesty International is either biased or influenced by JSS who did not hesitate to term CHT.

Bengalis as ‘Settlers’. He did not feel to respect the citizenship rights of every citizen of Bangladesh; irrespective of tribal or Bangalee’ to live, settle or purchase land anywhere of Bangladesh. CHT being an integral part of Bangladesh, should any international organization show their biasness towards any group of people disrespecting rights of others?

May we humbly ask Amnesty International to collect reports on how many killings and kidnappings so far conducted by JSS since the treaty and how the CHT Bangalees are deprived from Human Rights by this treaty?

Biased recommendation of Lord Eric Avebury of the UK:

Human Right is not for any particular community rather it is for all human kind. But unfortunately, Lord Avebury, being such a knowledgeable person showed his partiality towards JSS demands. He also termed CHT Bengalis as Settlers and proposed to the govt to relocate all CHT Bengalis from CHT and stop their ration. If Amnesty International and Human Rights activists such as Lord Avebury abandons the 7 lac CHT Bengalis who are subjected to endless killings, kidnappings and torture in the hands of JSS armed terrorists; should human right have a separate definition? May we also appeal to Lord Avebury to see the inhuman life-condition of crores of poor Bengalis of plain area or of at least all slum dwellers of Dhaka City ? That will give him a wider view of Human Rights in Bangladesh.

Violation of the CHT Treaty by JSS itself:

Though JSS was supposed to abandon all sorts of terrorism but since the treaty it has killed more than 700 people and kidnapped more than 1300 people in CHT. There are severe armed camps maintained by JSS and there have been several fire exchanges between the Security Forces and JSS, many arms recovered. Threat of eviction against Bengalis continued by Shantu Larma. Racial violence instigated by armed JSS cadres in Khagrachari, Rangamati etc. More than 100 security camps abandoned by Army are now being dominated by JSS armed cadres. There have been several armed clash between the Security Forces and armed group of JSS and UPDF, many arms and ammunition have been recovered by Army and dozens of armed terrorists have been captured. Dozens of Army soldiers including Officer got injured and killed in these clashes. Thus JSS itself has violated the treaty.

Post-Treaty situation and terrorism by JSS:

Since signing of the treaty, Shantu Larma’s armed group and UPDF (United People’s Democratic Front) killed more than 700 persons and kidnapped more than 1300 persons in CHT of whom maximum are Bengalis. JSS also instigated several violence between tribals and Bengalis. CHT Bengalis facing deaths and kidnappings almost every day in the hands of JSS and UPDF terrorists. Since the treaty, several tribals also have died due to power clash between JSS and UPDF. Gun fight between JSS and UPDF is a regular incident in CHT as both of them wants to control huge toll collection and area domination.

In order to establish justice for both tribals and Bengalis, followings are the proposal to Bangladesh Govt:

1) All anti Bangalee and anti state clauses must be cancelled from the treaty. Equal rights of all CHT people, irrespective of Bangalee or tribal, must be ensured.

2) CHT must not be called Tribal Area but Hilly Area.

3) Verdict of the High Court regarding the Regional Council has to be respected and implemented.

4) All tribal and Bengali persons must be given freedom to buy land, settle anywhere and take lease of land anywhere in Bangladesh including CHT.

5) For equal distribution of population, at least one crore people should be facilitated to settle in CHT. There must not be any restriction on settling in CHT by any Bangladeshi citizen.

6) JSS must be tried for mass killings, rape, abduction, taking arms against the country and all other terrorist crimes. General Amnesty given to JSS should not be considered as a free licence to conduct further killings and kidnappings in CHT which they are continuing.

7) CHT Regional Council Chairman post must be given to both tribal and Bangalee people; for example: one term tribal Chairman and next term Bangalee Chairman.

8) A Vice Chairman of Regional Council must be formed, one term from tribal and next term from Bangalee. But at the same time only one post for each group.

9) Another CHT Dist Council to be formed in Kaptai region by declaring Kaptai as a dist. So all posts in 4 dist councils to be distributed equally among tribals and Bengalis. But in each council, if a tribal is a Chairman, then a Bangalee should be the Vice Chairman and vice versa.

10) None should be evicted from his/her land. All CHT Bengalis should be allowed to return to their land outside the cluster villages. All tribals and Bengalis should be allocated with land. Land disputes should be solved by legal way. But 50% land of CHT must be kept in govt’s hand to distribute to increased population in future. All internally displaced Bengalis must be rehabilitated in their earlier places.

11) No discrimination regarding job and educational quotas between tribal and Bengalis. Education rate must be brought to equal to both groups. Equal number of student hostels for Bengali students have to be established.

12) Cultural Centres to be established for CHT Bengalis in all Dist and Upazilla level. Presently, there are only ‘Tribal Cultural Centres’ in every dist town where CHT Bengalis are excluded by the racist name of the institution itself. Alternately, existing tribal cultural centres’ may be renamed as Cultural Centre Rangamati, Khagrachari, Bandarban, Kaptai etc to facilitate access of all types of people.

13) Circle Chiefs to be formed for Bengalis in all dists. Or, there should be 2 tribal Circle Chiefs and 2 Bangali Circle Chiefs and one Vice Circle Chief in each dist where if the Circle Chief is from tribal then Vice Circle Chief should be from Bangalee and vice versa.

14) Security Forces cannot be withdrawn from terrorist-dominated CHT so long racial violence and separatist armed groups are operational in CHT. Positioning of Security Forces must not be a part of the treaty as it is the legitimate right of the govt to site security camps as per country’s security requirement.

15) CHT Treaty must be amended and Bangalee representatives from all dists must be included to represent their people.

16) No racist ideology of Shantu Larma to be tolerated. He should be brought to justice for violating the treaty and restarting armed terrorism in CHT including killing and kidnapping CHT people. All crimes against humanity conducted by JSS must be brought to justice.

17) CHT Affairs Minister and Deputy Minister to be appointed- one from Bengalis and one from tribals, not two posts to one group at a time and it should be rotated.

18) CHT Tribal and Bangalee Conscious Committee should be formed who will discuss and settle their issues. Govt to act as a moderator or referee. Any decision on CHT must not be taken unilaterally and without inclusion of CHT Bangalee representation.

19) Zilla Parishod (Dist council) Vice Chairman posts to be formed in all dists, one Chairman from tribal and one Vice Chairman from Bengalis and vice versa. By declaring Kaptai as another dist, there should be two Zilla Parishad Chairmen from Bengalis and tribals in any two of the dists. The position to be changed cycle-wise between Bengalis and tribals so that no community is deprived from leadership.

20) Security for both tribal and Bengalis in CHT must be ensured. Security camps need to be rearranged based on the armed groups trail and activities. All anti-state activities of JSS and UPDF has to be monitored and necessary action taken to prevent further escalation.

21) Border of CHT must be sealed to prevent infiltration of any foreign groups.
22) Election should be held immediately in CHT for electing Dist Council,Chairmen and Regional Council Chairmen in 4 regions (Khagrachari, Rangamati, Bandarban and proposed Kaptai); unelected persons must not be imposed on CHT people to rule them.

Conclusion:

Above is just a glimpse of the situation in CHT. The High Court has already declared the Regional Council as unconstitutional, illegal and anti-state. The govt should pay respect to the verdict of the High Court by dissolving the present JSS dominated Regional Council and ensure equal rights of every Bangalee or tribal citizen living in CHT.

May we also expect that all international organizations and Human Right organizations will talk and act impartially without taking side of JSS? As the biasness of any of their representatives will seriously hamper their organization’s credibility and acceptability as neutral organization, we hope that Amnesty International, UN and Lord Avebury will reflect on the damage done by the biased recommendations of their representatives and review their role respecting the security, sovereignty of Bangladesh and equal citizenship rights of all tribal and Bangalee communities living in CHT. None of their recommendations should spread communal violence and instigate racism in CHT.

All killings and kidnappings conducted since the treaty- must not be left without trial. Crimes against humanity must not be left spared. CHT, being an integral part of Bangladesh; any citizen of Bangladesh must be free to settle in CHT and Bengalis must not be made second class citizens in CHT.

All terrorist camps must be demolished and CHT people must be protected from armed terrorists. Border with India and Myanmar must be sealed to prevent infiltration of armed terrorists and illegal foreign migrants who come to settle in CHT.

All Bangalee and tribal victims of JSS and UPDF violence – must be compensated and rehabilitated.

All sorts of discrimination against CHT Bengalis and peace-loving tribes in education and employment must be stopped. There should be a survey on education and employment opportunities and equality must be brought based on population of each tribe and Bengalis.

CHT people must be freed from the rule of un-elected illegitimate rulers.

I strongly believe that above measures will ensure justice, equality, brotherhood and development for both tribals and Bengalis living side by side in CHT and bring lasting peace for all.

References:
a. Prathom Alo, 28 March 2011.
b. Amar Desh 18 April 2011.
c. Noya Digonto 22 May 2011.
d. Amar Desh 23 May 2011.
e. CHT Treaty between Awami leader Abul Hasnat Abdullah and Shantu Larma.
f. Discussion with several tribal and Bangalee inhabitants of CHT.

MF Ahmed

 

 

 

বাংলাদেশের দুর্দশার কারণ

সুনন্দ কে দত্ত-রায়

ইএম ফরস্টারের একটি বিখ্যাত উক্তি হচ্ছে, দেশ ও কোন বন্ধুকে বেছে নিতে বলা হলে ‘দেশের সঙ্গে প্রতারণা করার মতো সাহস থাকতে হবে’। সেটাই আজ আমাকে এমন একজন সম্পর্কে লিখতে অনুপ্রাণিত করেছে যে, যার বিষয়ে ভারত ও বাংলাদেশে অনেকেরই শিরঃপীড়া রয়েছে। বাংলাদেশের ঘটনাবলী ভারতের মূল্যায়নের একটি প্রবণতা হচ্ছে দ্বিপক্ষীয় নীতিতে দেখা। সালাহউদ্দিন কাদের চৌধুরী একজন ব্যারিস্টার। ৩২ বছর ধরে তিনি সংসদ সদস্য। তিনি বন্ধু হিসেবে স্বীকৃত নন। সে কারণে তিনি দুঃখ-দুর্দশায় নিপতিত হলে সেটাকে স্বাগত জানানো হয়।

এ ধরনের বোকামি আমেরিকার ঐতিহ্যবাহী নীতিকেই স্মরণ করিয়ে দেয়। ফ্রাঙ্কলিন ডি রুজভেল্ট ক্ষুদ্র রাষ্ট্রগুলোর প্রতি মার্কিন দৃষ্টিভঙ্গি ব্যক্ত করেছিলেন। বিশেষ করে নিকারাগুয়ার নির্দয় স্বৈরশাসক সমোজা সম্পর্কে তার উক্তি ছিল- ‘এ সন অব এ বিচ’, কিন্তু ‘আমাদের সন অব এ বিচ’। ভারতের শ্রেষ্ঠ বন্ধু হতে পারে বাংলাদেশ। কিন্তু তা সত্ত্বেও পুরনো হিসাব চুকেবুকে যাবে না। বরং অতীতের আলোকেই সেটা পরীক্ষিত হবে। শান্তি প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রেও একই কথা।
সেই কালো রাতের বয়োবৃদ্ধ চক্রান্তকারী, যাদের ফাঁসিতে ঝোলানো হয়েছে, তারা কেউ শুধু আততায়ী ছিল না, তারা দেশটির মনস্তত্ত্বের প্রতিনিধিত্ব করেছে। খোন্দকার মোশ্‌তাক আহমেদের দায়মুক্তি অধ্যাদেশও সেটাই করেছিল। ১৯৯৬ সালের ২রা অক্টোবরের আগ পর্যন্ত ১৯৭৫ সালের ১৫ই আগস্টের হত্যাকাণ্ডের একটি পুলিশ প্রতিবেদন পর্যন্ত ছিল না। জিয়াউর রহমান সাম্প্রদায়িক দল নিষিদ্ধ থাকার বিধান সংবিধান থেকে বিলোপ করেছিলেন। ধর্মনিরপেক্ষ চরিত্র মুছে দিয়েছিলেন। এবং হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ ইসলামকে রাষ্ট্রধর্ম করেছিলেন।
অন্য একটি পর্যায়ে বেগম খালেদা জিয়া, জামায়াতে ইসলামী ও জাতীয় পার্টি যাদের ভোট টানতে পেরেছিল তার সবটাই কি গোঁজামিল ছিল? বিএনপি নেতৃত্বাধীন জোট এখনও ৩২টি সংসদীয় আসনে জয়ী হতে সক্ষম। ১৮ আসন থেকে জামায়াতে ইসলামী যদিও মাত্র দু’টিতে নেমে এসেছে, কিন্তু তারা প্রায় ৬৫ হাজার মাদরাসা স্থাপন করেছে। তারা যতটা না একটি রাজনৈতিক দল তার চেয়ে বেশি এক চিন্তাধারা- যার অনুরণন কখনও কখনও পাওয়া যায় আওয়ামী লীগের এক শ্রেণীর নেতাকর্মীর মধ্যেও।
শেখ মুজিবুর রহমানের দ্বিতীয় বিপ্লব আদর্শবাদীদের অন্তর জয় করতে পারেনি- যারা স্বপ্ন দেখেছিলেন স্বাধীনতা একটি নতুন সভ্যতার সূচনা ঘটাবে। একদলীয় স্বৈরশাসন, স্বাধীন সংবাপত্রের দলন এবং দক্ষতা নষ্ট করে দেয়া একটি বিচার বিভাগ- সেই স্বপ্নকে দুঃস্বপ্নে পরিণত করেছিল। ১৯৭৪ সালে লরেন্স লিফশুলজ ‘ফার ইস্টার্ন ইকোনমি রিভিউ’তে লিখেছিলেন ‘মুজিবের অধীনে দুর্নীতি, ক্ষমতার অপব্যবহার এবং জাতীয় সম্পদের অপচয় ছিল নজিরবিহীন’।
এই হলো প্রেক্ষাপট। আমি সাইফুদ্দিন ও হুমাম কাদের চৌধুরীর কাছ থেকে ই-মেইল বার্তা পেয়েছি। তারা যথাক্রমে সাকা চৌধুরীর ভাই ও ছেলে। সাকা নিশ্চিত যে তার পিতা মুসলিম লীগ নেতা ও পাকিস্তানের জাতীয় সংসদের স্পিকার ফজলুল কাদের চৌধুরীকে স্বাধীনতার বিরোধিতার কারণেই ঢাকার কারাগারে হত্যা করা হয়েছিল। তবে স্বাধীনতা প্রশ্নে তিনিও যে পিতার অনুসারী ছিলেন না, তা না বলাটা ঠিক হবে না।
একটা বিষয় আমি স্মরণ করতে পারি। তখন আমি হোটেল ইন্টার কন্টিনেন্টালে অবস্থান করছিলাম। তার ড্রাইভার অভ্যর্থনা কক্ষে একটি চিরকুট  রেখে যান। অভ্যর্থনাকারী তরুণটি পরে আমাকে বলেছিল, সাকা চৌধুরী ব্যক্তিগতভাবে অনেক মুক্তিযোদ্ধা হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত। এটা সত্য কিনা তা আমার জানা নেই। ঢাকা তখন গুজব ও উড়ো কথায় ভরপুর। তবে এসব অভিযোগের বহু আগেই বিচার বিভাগীয় পরীক্ষা হওয়া উচিত ছিল। বাংলাদেশ দক্ষিণ এশিয়ার প্রথম দেশ, যারা আন্তর্জাতিক ফৌজদারী আদালতের রোম সংবিধি সই করেছেন। আর তাতে মানবতার বিরুদ্ধে অভিযুক্তদের বিচার সম্পর্কে নিয়মকানুন বলে দেয়া আছে। কিন্তু সাকা চৌধুরী যুদ্ধাপরাধের জন্য অভিযুক্ত নন। তাকে একটি অগ্নিসংযোগের মামলায় অভিযুক্ত করা হয়েছে। নয় মাসে আগে সেই মামলাটি দায়ের করা হয়, যখন সেই মামলায় তার নাম ছিল না।
হুমামের চিঠি পড়তে আমার কষ্ট হলো। তাতে লেখা: ‘২০১০ সালের ১৬ই ডিসেম্বরের প্রথম প্রহরে সশস্ত্র বাহিনী ও গোয়েন্দা কর্মকর্তাদের ১২ সদস্যের একটি দল তার পিতার অ্যাপার্টমেন্টে প্রবেশ করে। এবং নির্দয়ভাবে তাকে নির্যাতন শুরু করে। তারা তাকে অব্যাহতভাবে লাঞ্ছিত করে এবং তাদের সঙ্গে আনা যন্ত্রপাতি দিয়ে প্রায় ৫ ঘণ্টা ধরে নির্যাতন চালায়। তারা অবশ্য সঙ্গে করে একজন চিকিৎসক নিয়েছিল। তার একমাত্র দায়িত্ব ছিল এটা নিশ্চিত করা যে তিনি যাতে সংজ্ঞাহীন না হয়ে পড়েন। আর দরকার হলে যাতে তাকে চাঙ্গা করতে পারেন। তিনি তিনবার সংজ্ঞাহীন হয়ে পড়েন এবং প্রতিবারই ইনজেকশন দিয়ে তার সংজ্ঞা ফেরানো হয়।’
আরও বর্ণনা এরকম: ‘প্রায় ১০ ঘণ্টা নির্যাতনের পর আদালতে তাকে নেয়া হয়, কিন্তু তার রক্তে ভেজা জামাকাপড়ও তাকে আরও পাঁচ দিনের জন্য রিমান্ডে পাঠাতে বিচারককে নিবৃত্ত করেনি।’
সালাহউদ্দিন দাবি করেছিলেন,

১৯৭৩ সালে তার পিতার মৃত্যুর পর তিনি তাজউদ্দিন আহমেদ এবং আওয়ামী লীগের তার অন্যান্য সহকর্মীর পরামর্শ দিয়েছিলেন যে তাদের  জন্যও একদিন আসবে। তাই কারাগারে যেন শীতাতপ নিয়ন্ত্রণ ও অন্যান্য সুবিধা নিশ্চিত করা হয়। সেটা এসেছিল বর্বরোচিত নিষ্ঠুরতায়।

এ ধরনের প্রতিশোধপরায়ণ হত্যাকাণ্ডের শৃঙ্খল ভাঙা সম্ভব না হলে সোনার বাংলা গঠনের স্বপ্ন কখনওই বাস্তবায়িত হবে না।

লেখক প্রবীণ ভারতীয় সাংবাদিক, কলকাতার দ্য স্টেটসম্যান পত্রিকার  সাবেক সম্পাদক।

Source : http://www.mzamin.com/index.php?option=com_content&view=article&id=4948:2011-03-13-16-39-34&catid=51:2010-09-02-11-25-57&Itemid=86

১৯৭৪ সালের দূর্ভিক্ষ : Wikipedia বনাম বাস্তবতা

১৯৭৪ সালের ভয়াবহ দূর্ভিক্ষে ১০ লাখের বেশি মানুষ মারা গেছে। অথচ, উইকি অত্যন্ত দায়সারা ভাবে ভুল তথ্য দিয়ে বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে। আমরা এখানে প্রমাণ সহকারের বাস্তবতাকে তুলে ধরার চেষ্টা করবো।

Wiki information

ইংরেজী উইকির ১৯৭৪ সালের বাংলাদেশের এই দূর্ভিক্ষের উপর Bangladesh famine of 1974 শীর্ষক ৫-৬ লাইনের ছোট লেখাটি পড়ে যে কেউ ৭৪ এর দুর্ভিক্ষের ঘটনাকে গুরুত্বহীন মনে করবেন এবং ভূল তথ্য পাবেন। এর পেছনে যে প্রকৃতপক্ষে সদ্য স্বাধীনতা প্রাপ্ত বাংলাদেশ সরকার ও প্রশাসনের সীমাহীন দূর্নীতি ও লুটপাট, দ্রব্যমূল্যের উর্ধগতি, মুক্তিযুদ্ধে সাহায্যকারী ভারত সরকারের লুটপাট – এরকম কারণগুলো মূলত দায়ী – উইকির নিবন্ধে সে সব কিছুই আসেনি।

উইকির নিবন্ধে দূর্ভিক্ষের জন্য দায়ী করা হয়েছে দু’টি কারণ:১) a combination of natural disasters (cyclones, droughts and floods) in the early 1970’s: আশ্চর্য ব্যাপার! ১৯৭০ এর ঘুর্নিঝড়ের পরপর ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধের ৯ মাসে এদেশের মানুষ না খেয়ে মরেনি। তাহলে ১৯৭০ সালের ঘুর্নিঝড়ের কারণে কেন ১৯৭৪ সালে মানুষ মরবে। পাগলেও একথা বিশ্বাস করবে না। আর কারণ যদি তাই হয়ে থাকে, তাহলে ১৯৭২-৭৪ পর্যন্ত ৩ বছরে বাংলাদেশ সরকার কি করেছিল? (এ আলোচনায় পরে আসছি)২) various local and internationally influenced socio-political factors: the U.S. had withheld 2.2 million tonnes of food aid: মানুষ এতো কান্ডজ্ঞানহীন কিভাবে হয়? আমেরিকর সাহায্যের জন্য কেন আমাদের বসে থাকতে হবে? এরা ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের বিরুদ্ধে ছিল, হেনরী কিসিন্জার বাংলাদেশকে তলাবিহীন ঝুড়ি উপাধি দিয়েছে, তারা পাকিদের দোসর — কেন বাংলাদেশ সরকার আমেরিকার সাহায্যের আশায় বসেছিল? কেন ভারত-রাশিয়া-ইসরাঈল-ভুটান, যারা বাংলাদেশের প্রাথমিক স্বীকৃতিদাতা, সাহায্য নিয়ে এগিয়ে এলনা? এরাই তো তৎকালীন বাংলাদেশের পরীক্ষিত বন্ধু!

মজার ব্যাপার হলো, socio-political factors গুলোর মধ্যে প্রকৃত কারণগুলো উইকি লিখেনি!

বাস্তবতা:

এবার আসুন দেখি ১৯৭৪ সালের দূর্ভিক্ষের জন্য তৎকালীন বাংলাদেশ সরকার ও ভারতীয় আগ্রাসন কতটুকু দায়ী।

১) ৫০০০ কোটি টাকার সম্পদ ভারতে পাচার:

দুইশ বছরের ব্রিটিশ সাম্রাজ্যবাদ যা পারেনি, ২৫ বছরে পাকিরা যা করার সাহস পায়নি, মাত্র ৩ বছরে হিন্দুস্হানী মাড়োয়ারী বঙ্গবন্ধুরা (!) তাই করেছে। লুটপাটের খতিয়ান:ক. ধান-চাল-গম (৭০-৮০ লাখ টন, গড়ে ১০০ টাকা ধরে): ২১৬০ কোটি টাকা।

খ. পাট (৫০ লাখ বেলের উপরে): ৪০০ কোটি টাকা।

গ. ত্রাণ-সামগ্রী পাচার: ১৫০০ কোটি টাকা।

ঘ. যুদ্ধাস্ত্র, ঔষধ, মাছ, গরু, বনজ সম্পদ: ১০০০ কোটি টাকা।

————————————-

সর্বমোট: ৫০০০ কোটি টাকা (প্রায়) (সূত্র: জনতার মুখপত্র, ১ নভেম্বর ১৯৭৫)ভারতীয় অমৃতবাজার দৈনিক (১২ মে ১৯৭৪) থেকে, ভারত সরকার ২-২.৫ শত রেলওয়ে ওয়াগন ভর্তি অস্ত্র-শস্ত্র স্হানান্তর করেছে, যার বাজার মূল্য আনুমানিক ২৭০০ কোটি টাকা। এছাড়াও, চীন থেকে জয়দেবপুর অর্ডিনেন্স ফ্যাক্টরী থেকে অস্ত্র নির্মানের কোটি কোটি টাকার যন্ত্রপাতি ভারতে স্হানান্তরিত হয়। (অলি আহাদ: জাতীয় রাজনীতি ১৯৪৫ থেকে ‘৭৫, পৃ:৫২৮-৫৩১)

২) পাটের মুকুট স্হানান্তর:

বাংলাদেশের পরিবর্তে রাতারাতি আন্তর্জাতিক বাজারে পাটের মুকুট পরল ভারত। ফারাক্কা চুক্তির নামে বাংলাদেশকে মরুভূমি করার চক্রান্ত, টাকা বদলের নামে অর্থনীতি ধ্বংস, বর্ডার বাণিজ্যের নামে ভারতের বস্তপঁচা মালের বাজার। বাংলাদেশের শিল্প কারখানা থেকে যন্ত্রাংশ চুরি করে আগরতলায় পাঁচটি নতুন পাটকল স্হাপন! (আখতারুল আলম, দু:শাসনের ১৩৩৮ রজনী, পৃ: ১১৫-১১৬)

৩) সৌখিন দেশপ্রেমিকদের অর্থনৈতিক শোষণ:

স্বাধীনতার পর কি হলো? এক সংঘবদ্ধ প্রচেষ্টা চলল অর্থনীতি ধ্বংসের। উৎপাদন কমে গেল, শ্রমিক অসন্তোষ বেড়ে গেল। কলকারখানা ধ্বংস হলো। গুপ্ত হত্যা শুরু হল। কোন এক অশুভ শক্তি যেন বাংলার মানুষকে নিয়ে রক্তের হোলি খেলায় মেতে উঠল। সেসব সৌখিন মানুষ চারখার করে দিল বাংলার মানুষের স্বপ্নসাধ। চোরা কারবারের লাইন তারা আগেই করে রেখেছিল। প্রত্যক্ষভাবে জড়িত সরকারী কর্মচারী, অসাধু ব্যবসায়ী ও রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ। সরকারী সমর্থনপুষ্ট না হলে এমন অবৈধ ব্যবসা সম্ভব না … শুধু তাই নয়, ভেজালে চেয়ে গেল সারা দেশ।

দীর্ঘ ৩ টি বছর আমরা এমনটি প্রত্যক্ষ করেছি। আমাদের চোখের সামনে চাল-পাট পাচার হয়ে গেছে সীমান্তের ওপারে, আর বাংলার অসহায় মানুষ ভিক্ষার ঝুলি নিয়ে বিশ্বের দ্বারে দ্বারে। (মেজর অব: মো: রফিকুল ইসলাম বীরোত্তম: :শাসনের ১৩৩৮ রজনী, পৃ: ১১৯-১২৬)

৪) শক্তিশালী চোরাচালানী সিন্ডিকেট:

সীমান্তের ১০ মাইল এলাকা ট্রেডের জন্য উম্মুক্ত করে দেয়া হলো। এর ফলে ভারতের সাথে চোরাচালানের মুক্ত এলাকা গড়ে উঠে। পাচার হয়ে যায় দেশের সম্পদ। (আবুল মনসুর আহমদ: আমার দেখা রাজনীতির ৫০ বছর, পৃ: ৪৯৮)

এর ফলে চোরাচালানীদের যে শক্তিশালী সিন্ডিকেট গড়ে উঠেছিল, তা আজও আছে এবং তা দেশের অনুন্নত অর্থনীতির জন্য দায়ী।

৫) তাজুদ্দীন কর্তৃক মুদ্রামান হ্রাস:

এক অভাবনীয় ও অচিন্তনীয় ঘটনা। ১ জানুয়ারী ১৯৭২ সালে তাজুদ্দিন এক আদেশ বলে দেশের মুদ্রামান ৬৬% হ্রাস করেন। এর আগে বাংলাদেশের মুদ্রামান ভারতের চেয়ে বেশি ছিল। তাজুদ্ধীনের আদেশে দেশের অর্থনীতি মুদ্রাস্ফিতি বেড়ে গেল ও জনজীবনে দ্রব্যমূল্য হল আকাশচুম্বী।

এছাড়া ভারত-বাংলাদেশের অর্থনীতি সম্পূরক আখ্যা দিয়ে ভারতে পাট বিক্রির নিষেধাজ্ঞা উঠে গেল। নাম মাত্রমূল্যে বা জালটাকায় পাট পাচার শুরু হল। (অলি আহাদ: জাতীয় রাজনীতি ১৯৪৫ থেকে ‘৭৫, পৃ:৫২৮-৫৩১)

৬) ভারত জালনোট ছেপে অর্থনীতি ধ্বংসের আয়োজন করে:

বাংলাদেশ থেকে পাচার হয়ে যাওয়া ধনসম্পদের পরিবর্তে আরো যে সব মহামূল্যমান (!) ধনসম্পদ আসত সেগুলোর মধ্যে ছিল ভারতে ছাপা বাংলাদেশী জাল নোট। এর পরিণাম এতই ভয়াবহ যে তাজুদ্দীন বলতে বাধ্য হয়েছেন, ‘জালনোট আমাদের অর্থনীতি ধ্বংস করিয়া দিয়াছে’। (আব্দুর রহিম আজাদ: ৭১ এর গণহত্যার নায়ক কে: পৃ: ৫২)

৬) ক্ষমতাসীনদের স্বীকারোক্তি:

বাংলাদেশের কতিপয় নেতার বিদেশে ব্যাংক ব্যালান্স রয়েছে, তারা অনবরত দেশ থেকে মুদ্রা পাচার করে দিচ্ছে। ফলে দেশের অর্থনৈতিক মেরুদ্ন্ড ভেঙ্গে পড়ছে। দেশের মানুষ কাপড়ের অভাবে মরছে, আর এক শ্রেণীর মানুষ লন্ডনে কাপড়ের কল চালু করছে। (তাজুদ্দীন, জনপদ ১১ মার্চ ১৯৭৪)দেশ স্বাধীনের দুদিনেই শুরু হল হরিলুট। শিল্প কারখানায় অস্তিত্বহীন শ্রমিকের নামে মাহিনা লুট, পাটকলগুলিতে যন্ত্রাংশ ক্রয়ের নামে লুট, বস্রশিল্পে তুলা ও সুতা কেনায় কোটি কোটি টাকা লুট, ১৯৭১ এর অবাঙ্গালীদের পরিত্যক্ত সম্পত্তিতে লুট, ১৬ ডিভিশন নামের ভূয়া মুক্তিযোদ্ধার নামে সরকারী সম্পদ লুট। (এম এ মোহায়মেন: বাংলাদেশের রাজনীতিতে আওয়ামীলীগ, পৃ ১৪, ৪৪)

৭) কলকাতায় রাজনৈতিক নেতাদের যৌন ট্রিপ, গায়ক ও নর্তকী আমদানী:

‘কয়েকদিন আগে তোমাদের কিছু নেতা কলকাতা এসেছিল কিছু নমকরা গায়ক-নর্তকী ভাড়া করার জন্য। যুদ্ধ বিধ্বস্ত দেশে এরকম কাজ শুধু অনৈতিকও নয়, অমার্জনীয়। দু:খ হয়, তোমাদের স্বাধীনতা সংগ্রামে আমারও কিছু অবদান ছিল।’ (কবি বুদ্ধদেব বসু, আমার দেশ : আমার স্বাধীনতা, পাক্ষিক পালাবদল)লুটপাট সমিতির সদস্যরা তখন কোলকাতার অভিজাত পাড়ার হোটেল, বার, রেস্তোরায় বেহিসেবী খরচের জন্য ‘জয় বাংলার শেঠ’ উপাধী পেয়েছিল। সেখানে মুক্তহস্তে খরচ করতো, বিলাসবহুল ফ্লাটে থাকতো। সন্ধ্যের পরে হোটেল গ্র্যান্ড, প্রিন্সেস, ম্যাগস, ব্লু ফক্স, মলিন র্যু, হিন্দুস্হান ইন্টারন্যাশনালে দামী পানীয় ও খাবারের সঙ্গে পাশ্চাত্য সংস্কৃতি উপভোগ করতো। সারার রাত পার করে ভোর বেলা ফিরতো নিজেছের বিলাসবহুল ফ্লাটে। (শরীফুল হক ডালিম, যা দেখেছি যা বুঝেছি যা করেছি, পৃ ১২০-১২২। নোট: ডালিম বঙ্গবন্ধুর স্বঘোষিত খুনি, বিতর্কিত। তার বক্তব্যের সাথে কবি বুদ্ধদেব বসুর বক্তব্য মিলে যাওয়ায় এই সূত্র রাখা হলো।)পরিশেষে, উইকি কি ১৯৭৪ সালের দূর্ভিক্ষের উপরের প্রকৃত কারণগুলো লিখবে, নাকি গঁদবাঁধা দু-একটি দূর্বল ও মিথ্যা তথ্য দিয়ে মানুষদের বিভ্রান্ত করবে? তবে উইকি যাই করুক, আমাদের আমাদের ইতিহাস জেনে শিক্ষা নিতে হবে।

(লেখক.গবেষক)

http://www.facebook.com/topic.php?uid=33138223345&topic=6784

Israeli Agent Salah Uddin Shoaib Choudhury & His Boycotting Bangladesh

গত ২৬ সেপ্টেম্বর ২০০৮ জায়নবাদী ইসরাইলের স্বঘোষিত বন্ধু সালাউদ্দিন শোয়েব চৌধুরী ২০০৩ সালে ২৯ নভেম্বর ইসরাইল যাওয়ার পথে জিয়া বিমান বন্দরে আটক হন। উল্লেখ্য, বাংলাদেশের পাসপোর্ট নিয়ে কোন নাগরিক ইসরাইল ভ্রমন করতে পারেন না।সেই সময় ইসরাইলী গোয়েন্দা সংস্থার পক্ষে গোয়েন্দাগিরির অভিযোগে রাষ্ট্রদ্রোহিতার মামলায় তাকে গ্রেফতার করা হয় । ১ ডিসেম্বর ২০০৩ ডেইলী স্টার লিখে, বিমানবন্দরে তাকে গ্রেফতার করার সময় তার কাছে একটি প্রজেক্ট প্রোফাইল পাওয়া যায়, যাতে তিনি ইসরাইলের কাছে তিনটি দৈনিক পত্রিকা যথা দৈনিক সোনালী দিন, দৈনিক রূপান্তর, দৈনিক পরিবর্তন প্রকাশের জন্য ১২ কোটি টাকা সাহায্যের আবেদন করেছিলেন। তিনি তার আবেদনে ইসরাইলী বন্ধুদের মুসলিম প্রধান দেশে মিডিয়া গড়ে তোলার জন্য আহবান জানিয়ে বলেন, কোটি কোটি ডলার খরচ করে যুদ্ধবিমান ক্রয়ের চেয়ে মিডিয়া সৃষ্টি করুন, এতে ইসরাইল বেশি লাভবান হবে। সালাউদ্দিন শোয়েব চৌধুরী তার বিরুদ্ধে আনিত সব অভিযোগ অস্বীকার করেন।

 

তিনি ইহুদী প্রভাবিত নিম্নলিখিত পত্রিকাকগুলির সাথে জড়িতঃ

Editor and Publisher, Weekly Blitz, Dhaka, Bangladesh (English)

Chief Editor, Weekly Jamjamat, Dhaka, Bangladesh (Bangla)

Chief Editor, Daily Frontline, Dhaka, Bangladesh (English) (debuts Fall 2006)

Chairman, Blitz Publications Limited, Dhaka, Bangladesh

Chairman, Blitz Printers Limited, Dhaka, Bangladesh

Chairman, Vibgyor Entertainment Limited, Dhaka, Bangladesh

Chairman, Vibgyor Films Limited, Dhaka, Bangladesh

Chairman, Vibgyor Fashions Limited, Dhaka, Bangladesh

Member, IFLAC, Israel

Advisory Board Member, Islam-Israel Fellowship

 

মুসলিম বিদ্বেষি লেখার জন্য তিনি ইহুদী প্রভাবিত নিম্নলিখিত প্রতিষ্ঠানগুলি থেকে এওয়ার্ড লাভ করেনঃ

Courageous Journalism Award 2005, Bangladesh Lokgeeti Shipi Goshthi

Freedom to Write Award 2005, PEN USA

Moral Courage Award 2006, American Jewish Committee

Courageous Journalism Award 2006, Bangladesh Minority Lawyer’s Association

ইসরাইলী গোয়েন্দা সংস্থার পক্ষে গোয়েন্দাগিরির অভিযোগে রাষ্ট্রদ্রোহিতার মামলায় গ্রেফতারে আর্ন্তজাতিক ইহুদী মহলে তোলপাড় শুরু হয়ে যায়। তার মামলা তুলে নেওয়ার জন্য বাড়তে থাকে আর্ন্তজাতিক চাপ।

পাঠক নিম্নলিখিত ওয়েবসাইট গুলোতে ঢুকলে পিলে চমকানোর মত তথ্য পাবেন। বাংলাদেশের নাগরিক হয়েও আর্ন্তজাতিক মহলকে বাংলাদেশী পণ্য বর্জনের ডাক দিয়েছেন এই ওয়েবসাইটে http://boycottbangladesh.org/2008/08/11/why-are-we-boycotting-bangladesh/

সেখানে লিখেছেনঃ

Below is a list of known buyers of Bangladeshi products. Other lists of influential people and organizations will be added below. Please write them. You can use the text above in your letter. Demand boycott of all Bangladeshi goods and services until all charges against Salah Uddin Shoaib Choudhury are dropped.

If you know of any other buyers of Bangladeshi products in Europe, Asia, Africa, Australia, etc., please write me and I will add them to the list.

আরও দেখুন এই ওয়েবসাইটি Sunita Paul এর ছদ্মনামে Salah Uddin Shoaib Choudhury

Click This Link Our Hero Salah Uddin Shoaib Choudhury attacked again: How long we can remain silent?

তার মামলার খরচ মেটানোর জন্য আকুতি-

Please Advertise on WeeklyBlitz.net

Shoaib’s legal defense expenses are more than he can bear. If you can please buy an ad on his online publication http://www.weeklyblitz.net/ :

পাঠক, ইন্টারনেটে Click This Link এই ওয়েবসাইটটিতে দেখতে পাবেন ‘আপনি কি ইসরাইলের বন্ধু?’(I am a proud friend of Israel, Are you?) শিরোনামের এই সাইটটির ৩য় পেজের ২৭১ নম্বরটিতে দেখবেন সালাউদ্দিন শোয়েব চৌধূরীর (Salah Uddin Shoaib Choudhury) নাম।

তিনি http://think-israel.org/march.bloged.html Israel’s daily online news magazine March 30, 2006. ‘ISLAMIC INSURGENTS IN BANGLADASH’ ‘বাংলাদেশে ইসলামী অভ্যুত্থানকারীরা’ তিনি ইসরাইল ইন্সাইডার (Israel Insider) নামক একটি ইসরাইলী দৈনিকের অনিয়মিত কলাম লেখক। গত ০৬ জুন ২০০৬ তারিখে Israel Insider পত্রিকায় ‘বাংলাদেশে অগ্রগতির লক্ষন (Bangladesh: signs of progress)’ শিরোনামে একটি কলামে তিনি লিখেছেন,

’Previously, the people of Bangladesh received only anti-Israeli news, and certainly nothing about the tiny openings of interfaith dialogue between Jews and Muslims. That began to change recently with the appearance of such pieces in the pages of Dhaka daily Amader Shomoy. Amader Shomoy is published in Bangladesh’s vernacular language of Bangla, and now to a limited extent in English as well (বাংলাদেশের মানুষ এতদিন শুধুমাত্র ইসরাইল বিরোধী সংবাদগূলোই পেত, ইয়াহুদী-মুসলমানদের আন্তধর্মীয় সংলাপের কোন খবরই পেতনা। কিন্তু সম্প্রতি এ পরিস্থিতির পরিবর্তন হতে শুরু করে ঢাকার দৈনিক আমাদের সময়ে এ সম্পর্কিত কিছু সংবাদ প্রকাশের মাধ্যমে)’। উল্লেখ্য, সালাউদ্দিন শোয়েব চৌধুরী দৈনিক আমাদের সময়ের বিশেষ সংবাদদাতা।

অপরদিকে, এখানে আরেকটি গুরুত্বপূর্ন সংবাদ উল্লেখ করা যেতে পারে। ‘গভীর অন্ধকারে ঢাকা (darkness in dhaka) শীর্ষক ওয়াল স্ট্রীট জার্নালের ১৫ অক্টোবর ২০০৬ এর কলামে বলা হয় মি. চৌধুরীকে গ্রেফতার করা হয় মূলত ইসরাইলের পক্ষাবলম্বন এবং পাসপোর্টে অনুমতি না থাকার পরেও ইসরাইল ভ্রমনের চেষ্টা করার জন্য।পত্রিকাটি মি. চৌধুরীর উদ্বৃতি দিয়ে লিখে,

“When I began my newspaper [the Weekly Blitz] in 2003 I decided to make an end to the well-orchestrated propaganda campaign against Jews and Christians and especially against Israel. In Bangladesh and especially during Friday prayers, the clerics propagate jihad and encourage the killing of Jews and Christians (আমি যখন প্রথম সাপ্তাহিক ব্লিতস (weekly blitz) প্রকাশ করি তখন সিদ্ধান্ত নেই ইয়াহুদী খৃষ্টানদের বিরুদ্ধে বিশেষত ইসরাইলের বিরুদ্ধে বাংলাদেশে যে সংঘবদ্ধ প্রচারনা চলছে তার অবসান ঘটাতে। বাংলাদেশে শুক্রবারের খুতবায় মোল্লারা মূলত জিহাদের বানী প্রচার করে এবং ইয়াহুদী খৃষ্টানদের হত্যা করতে উদ্বুদ্ধ করে)’।

তিনি ইসরাইল ভিত্তিক সংগঠন ইফলাক (IFLAC, international forum for literature and culture for peace) এর সদস্য এবং ইসরাইল-ইসলাম বন্ধুত্বের একজন উপদেষ্টা । তার জেলমুক্তির জন্য জোর লবিং চালাতে এগিয়ে আসেন স্বঘোষিত ইয়াহুদী মানবাধিকার (?)কর্মী ড. রিচার্ড বেনকিন। তিনিও দৈনিক আমাদের সময়ের আন্তর্জাতিক সংবাদদাতা । ড. বেনকিন ও সালাউদ্দীন শোয়েব চৌধুরী মিলে http://www.interfaithstrength.com/ এই ওয়েবসাইটটি চালান । উক্ত ওয়েবসাইটটির বিষয়বস্তু বিশ্লেষন করলে কথিত ইয়াহুদী মানবাধিকার কর্মীর (?) ও তার এদেশিয় সাগরেদের আসল উদ্দেশ্য সম্পর্কে আর সন্দেহের অবকাশ থাকেনা ।এখানে বাংলাদেশকে মূলত একটি মৌলবাদি রাষ্ট্র এবং ইসলামী উগ্রপন্থী ও জঙ্গিবাদীদের অভয়ারন্য হিসেবে দেখানো হয়েছে। উপস্থাপন করা হয়েছে বহু মিথ্যা ও আধাসত্য বিকৃত তথ্য। টার্গেট একটাই, বাংলাদেশকে বিশ্ববাসীর সামনে সন্ত্রাসী, মৌলবাদী, তালেবানী রাষ্ট্র হিসেবে পরিচিত করানো।

ওয়েবসাইটটির কয়েকটি সংবাদ শিরোনাম এরকম ‘ইসলামী সন্ত্রাসীদের নতুন আখড়া’, ‘বাংলাদেশ কি ইসলামী সন্ত্রাসীদের হাতে চলে যাচ্ছে?, ‘ইসলামী উগ্রবাদীদের কবলে বাংলাদেশ’, ‘বাংলাদেশ কি আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসীদের অভয়ারন্য?, ‘ইরান বাংলাদেশে সন্ত্রাসীদের মদদ দিচ্ছে’, ‘বাংলাদেশ কি মৌলবাদি রাস্ট্র হছে?’ ইত্যাদি ।

http://www.sonarbangladesh.com/blog/ba1kolom/31572

 

7 Secret Places Banned to the Public !

 

1, Secretive Russian town of Mezhgorye

image credits

There is a town in Russia, called Mezhgorye, which is barred to anyone, except for those believed to work at the highly secretive Mount Yamantaw site, thought by many to be either a ultra-secret research facility, or be nuclear. Founded in 1979. The town is at the foot of the mountain, the highest in the Urals, at 5,381ft, where US satellites have recorded excavation projects, on a huge scale, though repeated enquiries about the nature of operations, at this maddeningly closely watched community, have been met by bland responses, such as it being a mine of some kind, or a repository for Russian treasures, and even as somewhere for government, in case of disaster, but nobody knows.

2. The mysterious Moscow metro2

image credits

Moscow, capital city of Russia, supposedly has a secondary, secret underground metro system, known as Metro-2, running parallel to the public Metro. Built, it is thought, during Stalin’s time, KGB codename for the project being  D-6. The existence of this phantom system has never been confirmed, nor denied, by the FSB –Federal Security Service of the Russian Federation, or indeed the Moscow Metro administration themselves. Rumored to be much longer, in length, than the public Metro.  and  to consist of four lines, running between 50 and 200m below ground It connects the Kremlin with the FSB headquarters, Vnukovo-2 government airport, plus underground town Ramenki, as well as other, undisclosed locations.

3. The super secret Area 51 Groom Lake facility

image credits

Area 51, a phrase well known around the world, is a military base, Groom Lake, in the southern portion of Nevada, USA, 83 miles from Las Vegas. Found along the southern shore of Groom Lake, the large, secretive, military airfield appears to be involved in the development, and testing of experimental aircraft, as well as advanced weapons systems research.  So closely guarded is this place, and so well monitored, that it has been the subject of conspiracy theory for decades. Even the U.S. governmentonly reluctantly admits to the existence of this place, and the fact that deadly force can, and has been used against people trying to get into the Area 51 zone, really does make you wonder

4. The ultra secretive Room 39 of North Korea

image credits

North Korea, that most oppressive of states, is infamous for Room 39, sometimes called Bureau 39, one of the most secretive of thier organizations, dedicated to seeking methods of obtaining foreign currency for North Korea’s leader. Established in the late 1970s and described, by some in the west, as the lynchpin of the dynastic Kim family dealings. Room 39 is such a secretive institution that none are sure exactly what goes on there, though it is widely believed  that ten to twenty bank accounts, in Switzerland and China, are used in illegalities such as counterfeiting, money laundering, drug smuggling and illicit weapon sales. The organization has, reportedly, 120 foreign trade companies that it operates, under the direct control of the ruling family, who obviously deny any illegal activities. Room 39 is believed to be l inside a ruling Workers’ Party building in Pyongyang, the capital city of North Korea, but nobody knows for sure

5. The Inaccessible Ise Grand Shrine of Japan

image credits

Japan has an amazing series of over 100 shrines, known as the Ise Grand Shrine,  the most sacred shrine in the country. Dedicated to Amaterasu, the Sun goddess, this wondrous place has existed since 4BC, and it is thought that the main shrine contains the single, most important item in Japanese imperial history, the Naikū . This is the mirror, from Japanese mythology, which graced the hands of the first emperors of Japan. Demolished, purely to enable rebuilding, every 20 years, honoring Shinto ideas of death and rebirth, the shrine is barred to anyone but the priest or priestess, who has to a member of the Japanese imperial family Everyone else is kept away by very alert guards.

6. The terrifying Mount Weather Emergency operations center.

image credits

Mount Weather is not somewhere that that the US public ever really want to go to. This is the genuine article, as in the disaster films, where  some highly classified area has been prepared, to accept the lucky few destined to survive. Mount Weather Emergency Operations Center  truly is the real thing,  set up in the 1950s, during the cold war, it still operates today, as a “last hope” area, though naturally highly classified. Federal Emergency Management Agency staff, FEMA., are in charge of it, and already, when required much of US telecommunications traffic can be routed through it, so that emergency services operate well

7. The incredibly intrusive RAF Menwith Hill

image credits

The global ECHELON spy network, much employed by US and British governments, is the reason why Royal Air Force station Menwith Hill exists. Containing extensive satellite tracking ground systems, this communications intercept, and missile warning site, has been called the largest electronic monitoring station on earth. Ground station for satellites, of the US National Reconnaissance Office, serving the US National Security Agency, the station is famous for having antennae contained in highly distinctive white radomes. Believed by some to be part of the ECHELON system, reportedly created for the purpose of monitoring military and diplomatic communications, from Soviet Union and Eastern Bloc allies, during the Cold War, and these days i believed to search also for terrorist plots, drug dealering information, as well as political and diplomatic intelligence. Also believed to be involved filtering all telephone and radio communications in the western world, though not proven, this is an incredibly secretive and well guarded place that the public can never get into.

All images used with permission.

 

%d bloggers like this: