• Categories

  • Archives

  • Join Bangladesh Army

    "Ever High Is My Head" Please click on the image

  • Join Bangladesh Navy

    "In War & Peace Invincible At Sea" Please click on the image

  • Join Bangladesh Air Force

    "The Sky of Bangladesh Will Be Kept Free" Please click on the image

  • Blog Stats

    • 307,664 hits
  • Get Email Updates

  • Like Our Facebook Page

  • Visitors Location

    Map
  • Hot Categories

A Cute Letter From a Muslim Girl to Her Christian Parents

Hello Mami and Papa,

I don’t know how else to approach you in order to explain my reasoning behind my life changing decision and have you listen and understand at the same time.

Since I can long remember I have not be a strong believer of Christianity, there was a lot that did not make sense to me, for example, why I have to beg for forgiveness to a priest? Why I have to pray to saints and not straight to God, why is Jesus the SON of God, why are their SOO many versions of the bible?

The religion became a fascination to me, and I truly wanted to know more. I purchased a few books in the UK and read some pamphlets on the religion. I did not make any decisions but I continued to read and become more familiar to Islam.

Islam began making sense to me, the idea that we pray only to Allah, that we ask Allah for help and for forgive us, how a book (the Quran) that was written thousands of years ago remains unchanged as of today (there are different translations but no different versions) . Also how a book that was written years ago managed to explain scientific situations that was only discovered by man kind only a couple of year ago. Or how the Quran has managed to explains how babies develop in the womb? How would anyone thousands of years ago know this and in such detail? Especially since scientist discovered the explanation of these situations less that 100 years ago?? How can we explain those wonders of the book?

Also how can I deny the holy book when it has been so clear in explaining advanced technology, how the day turns into the night, the creation of human beings by water (as we know scientifically to be known that we came from cells) layers of heaven (which we describe now in scientific terms as the atmospheric levels?). Furthermore, the beginning of the universe and the movement of tectonic plates (there are numerous other examples of the science behind the Quran).

What also has touched me is that Islam believes in ALL THE PROPHETS – JESUS MOSES DAVID ABRAHAM AND MOHAMMAD (pbuh) they all coexist in he Quran, the Quran also tells us that we must respect ALL religions. Mami and Papa, I can not explain how many times I have made my self clear to you of what I believed in, I could not have given myself away anymore! Every time I spoke hours and hours on end about Islam, and how I knew so much.

Also I began of interacting more with Muslim friends; I felt that they would be able to give me a clear explanation of Islam. Also Islam played a major part in self respect, and it helped my appreciate my self more, and realize that I should stay away from harmful situation such as drinking, smoking, going out with people that only meant trouble. I told you what my friends were like, they were heading the wrong direction, and I did not want to be in that direction and believing in Islam made it easier for me to walk away from the powers of shaytaan and do better.

Also Islam was and has been the reason for my success in school. I have placed my mind in my studies instead of going out all the time as my old friends did, and trust me you would not like me to be like them, because if I had been than you would have every single reason to think I was a bad person, that I was irresponsible and that I was a disgrace to the family.
After almost one year of studying Islam I had no doubt in my mind that it was not the right religion.

I was prepared to become a Sunni Muslim. In early June 2006 I attended the mosque in Westbury NY to ask further questions about Islam and after speaking to a sister and the imam of the mosque I knew that it was time to make the right decision. I did shahada around 2 weeks later which is the Islamic creed; it means to testify or to bear witness in Arabic, the declaration of the belief. I stated in front of 80- 100 Muslimsash hadu anla ilaha illallah, wa ash hadu anla Mohammad roosul Allah” which translates to “I believe in one and only God and Mohammad is his messenger” It was such a beautiful experience.

I had been accepted into the Islam. I was welcomed by every single Muslim at the mosque with open arms, I felt too special, it felt so right, I knew I had made the best decision in my life, and it was something that was going to bring positive sides of me. It is so hard to explain the rush, and the emotional and faith satisfaction that I had at that moment, but I knew there was something wrong, that I was not able to celebrate my happiness with the people in my life that I loved the most, the meant to most to me, and that was you and papi. The moment was wonderful but not complete. I really wish you could have been as proud of me as I was for myself.

It hurt so much to think and feel that my biggest challenge would be to openly tell you about me and Islam, about me and my faith, about me and my happiness. I know that you both want the best for me, you want me to be happy and you want me to be responsible, and you want me to be independent and make the RIGHT decisions. I have done the right decision, and I made it all by myself, and I read about Islam all by myself, I discovered Islam in me all by myself, IT WAS ME who made every decision from the point were I began in the Islamic interest to the point where I am now.

I can’t lie to you and tell you I had no influences because how else would I have been influenced by wanting to know more about Islam? Well from observing other people. How do we know as humans whether eating a chocolate cake taste good or not? We taste it, we try others to compare and then we make a final decision and if we like it we continue to eat if we don’t then we disregard it.

Mami and Papa, I know I might seem weak sometimes in certain situations, and I know I display signs of vulnerability , but converting into Islam was decided by me, its hard and it hurts to think that all this studying, research of Islam and me converting has been credited to someone else, but at the end of the day the only one that knows the truth is God and it is to him that I will be standing in front of on the day of Judgment, and it is him that knows everything.
It is stated in the Quran that all the prophets were messengers of God, they all came to spread the news and religion of God, but that they all came in their own time, and that Mohammad (pbuh) was the last messenger of God.

I know my word is hard to believe after the incidents these past two days, but there is nothing more that I can do to prove to both of you when it comes to the decisions that I made about Islam.

And most importantly I want you both to understand that it is virtually impossible to explain ALL of my reasoning behind my belief in Islam, this email is not even 1/100th of it all, I have spent hours and hours and hours speaking to others about my feeling towards Islam, and I wish and pray to Allah that one day I will be able to express everything I feel about Islam with both of you.

I still remain to be the daughter that you had almost 21 years ago, it has not changed the way I feel about you, you still are the most important people in my life, I love you both more than anything, I just have a different belief and its one which will bring you no shame, it will not physically hurt you, and I will not patronize our relationship.

I love you both very much and I only pray for the best,

Carolina Amirah DeFonseca

 

Source :

https://i1.wp.com/www.faithofmuslims.com/blog/wp-content/uploads/2011/07/fantasy_banner.jpg

কুখ্যাত সাব্রা-শাতিলা গনহত্যা………

১৯৮২ সালের ১৬,১৭ ও ১৮ অক্টোবর……
লেবাননের বৈরুতে অবস্থিত ফিলিস্তিনিদের আশ্রয়কেন্দ্র সাব্রা শাতিলা রিফিউজি ক্যাম্পে চালানো হয় শতাব্দীর অন্যতম ভয়াবহ হত্যাকাণ্ড। ইসরাইলী বাহিনীর প্রত্যক্ষ মদদে উগ্র খ্রিস্টবাদী লেবানীজ ফোর্স মিলিশিয়া ভয়াবহ এই হত্যাকাণ্ড পরিচালিত করে। তিনদিন ব্যাপী চালানো এই হত্যাকাণ্ডে প্রায় ৩৫০০ নিরীহ ফিলিস্তিনী নিহত হয়। নৃশংস এই হত্যাকাণ্ডের বীভৎসতার কিছু চিত্র………

আচ্ছা আমরা কী আমাদের ফিলিস্তিনী মজলুম ভাই বোনদের কথা একটিবারও মনে করি???
তাদের জন্য কি একটিবারও দুআ করি???

কিয়ামাতের দিন যখন ফিলিস্তিনী শিশুটি মুসলিম উম্মাহর অকর্মণ্য সদস্য হিসেবে আমাদের দিকে অভিযোগের আঙ্গুল তুলবে তখন আল্লাহর কাছে কি জবাব দিব????

হে আল্লাহ্‌! আপনি আমাদের ক্ষমা করুন। আমাদের অসহায় ভাইদের আপনি রক্ষা করুন। মুসলিম উম্মাহর একজন সদস্য হিসেবে নিজ অবস্থান থেকে যতটুকু সম্ভব ইসলামের খেদমত করার তাওফিক দান করুন। সর্বোপরি এই পৃথিবীতে ইসলামী খিলাফাত প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে আপনার শত্রুদের দাঁতভাঙ্গা জবাব দেয়ার তাওফিক দান করুন………

‘Indeed the Imam (Khalifah) is a shield, from behind whom one would fight, and by whom one would protect oneself.’ (Muslim narrated from Al-Araj on the authority of Abu Hurairah).”

 

Source : https://i0.wp.com/sonarbangladesh.com/blog/images/sbblogheader_sako.jpg

3 NATO Ships Sunk, 15 Senior NATO Personnel Held Captive In Benghazi

Leonor conveys the degree of censorship we are under, how little we are actually being told, from NATO atrocities to NATO losses.

The 15 NATO personnel abducted are talked about at 8 min 35.

 

 

Source: Pakalert Press

অমর্ত্য সেনের আরগুমেন্টেটিভ ইন্ডিয়ান : ইসলাম ত্যাগ করে দ্বীন-ই ইলাহি গ্রহণের আহ্বান : ধর্মনিরপেক্ষতাবাদের উত্স হিন্দু ধর্ম

 

নোবেলবিজয়ী ভারতীয় অর্থনীতিবিদ অধ্যাপক ড. অমর্ত্য সেন তার ‘আরগুমেন্টেটিভ ইন্ডিয়ান’ বইয়ে কোরআন ও হাদিস নির্দেশিত ইসলামকে প্রত্যাখ্যান করতে মুসলমানদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। এগুলো হাজার বছরেরও বেশি পুরনো হওয়ায় তা পরিত্যাগ করে হিন্দু ধর্ম থেকে উদ্ভব সম্রাট আকবরের ‘দ্বীন-ই-ইলাহি’কে মূলনীতি হিসেবে গ্রহণ করার পরামর্শ দেন তিনি। ধর্মনিরপেক্ষতাবাদের (সেক্যুলারিজম) ব্যাখ্যা করতে গিয়ে তিনি এ মত দেন।

অন্যদিকে সেক্যুলারিজমকে হিন্দু ধর্ম থেকে উদ্ভব বলে যুক্তি দেন তিনি। তার মতে, হিন্দু ধর্ম কোনোভাবেই ধর্মনিরপেক্ষতাবাদ-বিরোধী নয়। কেউ ধর্মনিরপেক্ষতাকে বিশ্বাস করলে তাকে ইসলাম ধর্ম ত্যাগ করতে হবে। আর বিশ্বাসী হয়ে উঠতে হবে হিন্দু ধর্মের প্রথায়।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. হাসানুজ্জামান চৌধুরী ‘আরগুমেন্টেটিভ ইন্ডিয়ান’ বইয়ের সমালোচনা করে ‘বাংলাদেশ পলিটিক্যাল সায়েন্স রিভিউ’ নামের গবেষণা জার্নালে একটি প্রবন্ধ লিখেছেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগ প্রকাশিত ওই জার্নালের ৭ম সংখ্যায় এটি প্রকাশিত হয়েছে। অধ্যাপক ড. শওকত আরা হোসেন সম্পাদিত গবেষণা জার্নালে ওই প্রবেন্ধের শিরোনাম হলো ‘অর্থনীতিবিদ অমর্ত্য সেন ও দৈশিক দোষের আবর্তে ভারতীয় সেক্যুলারিজম : বিভ্রান্তিকর একটি ব্যাখ্যা’।

অধ্যাপক ড. হাসানুজ্জামান চৌধুরী লিখেছেন, ‘নোবেলবিজয়ী অর্থনীতিবিদ ড. অমর্ত্য সেনের মতামত দৈশিক দোষে দুষ্ট। সেক্যুলারিজম মূলতই একটি অগ্রহণীয় মতবাদ। ধর্ম ও সেক্যুলারিজম পারস্পরিক বিপরীত মত। ইসলাম ধর্ম নিয়ে তিনি যে মত দিয়েছেন, তা সর্বতোভাবে বিভ্রান্তিকর। আর সেক্যুলারিজম যদি হিন্দু ধর্ম থেকে উদ্ভবই হয়, তাহলে তা প্রকৃত ধর্মমত বাদ দিয়ে মুসলমানরা গ্রহণ করতে পারেন না।’

ড. হাসানুজ্জামান চৌধুরী তার প্রবন্ধের শুরুতে নোবেলবিজয়ী ড. অমর্ত্য সেনের ১১টি বইয়ের বিষয়বস্তু প্রশংসা করেন। অসমতা, দারিদ্র্য, দুর্ভিক্ষ, সক্ষমতা ও উন্নয়ন সম্পর্কিত ড. সেনের বইগুলো পাঠকপ্রিয় ও অগ্রগতির জন্য সহায়ক বলে মনে করেন তিনি। তবে ভারতীয় ইতিহাস, সংস্কৃতি ও পরিচয় নিয়ে লেখা অমর্ত্য সেনের ‘আরগুমেন্টেটিভ ইন্ডিয়ান’ বইটি একদেশদর্শিতা ও সাম্প্রদায়িক দোষে দুষ্ট হওয়ার কারণে সমালোচনার যোগ্য বলে ড. চৌধুরী মনে করেন। তিনি বলেন, বাইরে খাঁটি মনে হলেও অমর্ত্য সেন প্রকৃতপক্ষে হিন্দুত্ববাদের বশ্যতা স্বীকার করেই এ বইটি লিখেছেন।

ড. হাসানুজ্জামান চৌধুরী বলেন, আমি বইটির পুরোটা পড়েছি। তার লেখা থেকে নানা প্রশ্ন জেগে ওঠায় সমালোচনা লিখতে বাধ্য হয়েছি।

বইটির প্রথমাংশে ড. অমর্ত্য সেন ভারতের প্রাচীন ইতিহাস ও সমকালীন প্রসঙ্গ তুলে ধরেন। এতে তিনি বলতে চেষ্টা করেছেন, ধর্মের বিভিন্নতায় সাহিত্য, রাজনীতি, সংস্কৃতি, বিজ্ঞান ও গণিতের উন্নতির পথ ধরে ভারতীয় সেক্যুলারিজমের উত্পত্তি হয়েছে। ভারতীয় গণতন্ত্র, উন্নয়ন ও সেক্যুলারিজম মূলতই হিন্দু ধর্মের ধারাবাহিক বিবর্তনে হয়েছে। মুসলমানদের মুঘল ও পাঠান শাসনও এক্ষেত্রে প্রভাবিত করেছে। বিশেষ করে সম্রাট আকবরের ‘দ্বীন-ই-ইলাহী’ ভারতীয় ঐতিহ্য ও সেক্যুলারিজমকে গড়ে উঠতে সহায়তা করেছে।

গবেষণা প্রবন্ধের উপসংহারে ড. হাসানুজ্জামান চৌধুরী বলেন, নোবেলবিজয়ী অমর্ত্য সেন একজন সম্মানিত ও জ্ঞানী ব্যক্তি হলেও তিনি ইসলাম ধর্ম নিয়ে আপত্তিকর মন্তব্য করেছেন। পৃথিবীর যে কোনো ধর্মপ্রাণ মুসলমান এর বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করবেন। ড. হাসানুজ্জামান বলেন : ‘Islam can be accepted when Amartya’s prescriptions of destroying Islam by disobeying Allah and Rasul (SM) are carried out. Quraan and Sunnah should be rejected (nauzbillah), with the excuse that they are traditions of the past of more than 1000 years. …Amartya in his ‘The Argumentative Indian’ has repeatedly mentioned that (Islamic and Muslim) tradition should be rejected and ‘rahi aqbal’ theory given by Emperor Akbar should be accepted as the main principle. He has even gone to the extent of saying that this demon tradition should and must be fought and rejected by the society.’ অর্থাত্, ‘অমর্ত্যের মতামত অনুযায়ী আল্লাহ ও রাসুল (সা.)-এর নির্দেশিত পথকে প্রত্যাখ্যান করার মাধ্যমে যে ‘ইসলাম’ আসবে সেটাকে গ্রহণ করা যেতে পারে। হাজার বছরেরও বেশি পুরনো মতাদর্শ হওয়ায় কোরআন ও সুন্নাহ বর্জন করা উচিত (নাউজুবিল্লাহ)। …অমর্ত্য তার ‘আরগুমেন্টেটিভ ইন্ডিয়ান’-এ বলেছেন, ইসলামের মৌলিক আদর্শ হিসেবে পুরনো মতাদর্শ (ইসলাম ও মুসলিম) বর্জন করে সম্রাট আকবরের ‘রাহি আকবল’কে গ্রহণ করা উচিত। তিনি আরও এক ধাপ এগিয়ে বলেন, সমাজের অবশ্যই উচিত এই দানবীয় ঐতিহ্যের বিরুদ্ধে অবস্থান নেয়া ও প্রত্যাখ্যান করা।’

ড. হাসানুজ্জামান চৌধুরী বলেন, ‘ড. অমর্ত্য সেন ধর্মনিরপেক্ষতাবাদকে হিন্দুত্ববাদ হিসেবে দেখিয়েছেন। এমনকি দেখিয়েছেন, ধর্মনিরপেক্ষতাবাদ অর্থ হলো ইসলাম ত্যাগ করা এবং প্রকৃতপক্ষে হিন্দুত্ববাদকে গ্রহণ করা। কেননা হিন্দুত্ববাদ যে কোনো ধর্মের চেয়ে প্রচলিত মতের বিরোধিতার কারণে শ্রেষ্ঠ।’ (বাংলাদেশ পলিটিক্যাল সায়েন্স রিভিউ, পৃষ্ঠা-৪৪) ড. অমর্ত্য সেন ধর্মনিরপেক্ষতাবাদ হিন্দুধর্ম থেকে উদ্ভব বলে চিত্রায়িত করেছেন। এ বিষয়ে ড. হাসানুজ্জামান চৌধুরী বলেন : ্তুঅসধত্ঃুধ নড়ধংঃং ংবপঁষধত্রংস, নঁঃ ধষষ রঃং ত্ড়ড়ঃং ধত্ব ঁষঃরসধঃবষু ফরংপড়াবত্বফ নু যরস ভত্ড়স ঐরহফঁ ঢ়যরষড়ংড়ঢ়যু, ঐরহফঁ ত্বষরমরড়হ ধহফ ঐরহফঁরংস.্থ অর্থাত্, অমর্ত্য ধর্মনিরপেক্ষতাবাদের দম্ভোক্তি করেছেন, কিন্তু এর মূল হিসেবে তিনি হিন্দু দর্শন, হিন্দু ধর্ম ও হিন্দুত্ববাদকে আবিষ্কার করেছেন।’ (বাংলাদেশ পলিটিক্যাল সায়েন্স রিভিউ, পৃষ্ঠা-২৮)

আবার, আকবরের পরিচালিত মুসলিম শাসনের অনেকটা হিন্দু ধর্মের দ্বারা প্রভাবিত বলে মনে করেন ড. অমর্ত্য সেন। এ বিষয়ে তিনি বলেন : ‘Akbar not only made unequivocal pronouncements on the priority of tolerance, but also laid the formal foundations of a secular legal structure and of religious neutrality of the state. …Despite his deep interest in other religions and his brief attempt to launch a new religion, Din-ilahi (God’s religion), based on a combination of good points chosen from different faiths, Akbar did remain a good Muslim himself.’ অর্থাত্, আকবর কেবল ধৈর্যের প্রাধান্যের দ্ব্যর্থহীন ঘোষণাই দেননি, তিনি রাষ্ট্রের ক্ষেত্রে ধর্মের নিরপেক্ষতা ও ধর্মনিরপেক্ষতাবাদের আনুষ্ঠানিক ভিত্তিও রচনা করেন। …অন্য ধর্ম সম্পর্কে গভীর আগ্রহ এবং সংক্ষিপ্ত উদ্যোগে তিনি বিভিন্ন বিশ্বাসের (ধর্ম) ভালো দিকগুলো সমন্বয় করে নতুন ধর্ম দ্বীন-ইলাহীর (ঈশ্বরের ধর্ম) উদ্ভাবন করেন। আর এভাবে আকবর একজন ভালো মুসলমান হয়ে থাকেন। (আরগুমেন্টেটিভ ইন্ডিয়ান, পৃষ্ঠা-১৮)

ইসলামের প্রকৃত বিশ্বাসের (কোরআন-সুন্নাহ) নীতিমালা সময়ের বিবর্তনে যৌক্তিক পর্যালোচনায় পরিবর্তন করার ওপর গুরুত্বারোপ করেন ড. অমর্ত্য সেন। আর এক্ষেত্রে সম্রাট আকবরের একটি মন্তব্য উদ্ধৃত করেন তিনি : ‘The pursuit of reason and rejection of traditionalism are so brilliantly patent as to be above the need of argument. If traditionalism were proper, the prophets would merely have followed their own elders (and not come with new messages).’ অর্থাত্, যৌক্তিকভাবেই যুক্তির অনুসরণ এবং ঐতিহ্যের প্রত্যাখ্যান সাহসিকতার (মেধার) সঙ্গে উন্মুক্ত করা দরকার। ঐতিহ্য যদি সঠিক হতোই, তবে নবীরা শুধুই তাদের পূর্ববর্তীদের অনুসরণ করতেন (এবং তারা নতুন বার্তা নিয়ে আসতেন না)।

এ উদ্ধৃতি দেয়ার পর ড. অমর্ত্য সেন বলেন : ‘Reason had to be supreme, since even in disputing the validity of reason we have to give reasons.’ অর্থাত্, যুক্তিকেই প্রধান হতে হবে, যুক্তির বৈধতা নিয়ে বিতর্ক থাকলে সেক্ষেত্রে আমাদের অধিকতর যুক্তি দিতে হবে।’

বইয়ের দ্বিতীয় অংশে ভারতীয় সেক্যুলারিজমের দীর্ঘ ইতিহাস তুলে ধরা হয়। এতে তিনি সেক্যুলারিজমকে তার নিজের ধর্মের (হিন্দু ধর্ম) সন্তান হিসেবে চিত্রায়িত করেন।

ড. অমর্ত্য সেনের মতে, সেক্যুলারিজম হিন্দু ধর্ম থেকে এসেছে। সম্রাট আকবর ভারতীয় সেক্যুলারিজমের অগ্রগতিতে সহায়তা করেছেন। আর সেক্ষেত্রে তিনিও হিন্দু ধর্ম দ্বারা প্রভাবিত। তবে সম্রাট আওরঙ্গজেব ইসলামী বিধি অনুযায়ী শাসন পরিচালনা করায় ড. অমর্ত্য সেনের সমালোচনার মুখোমুখি হয়েছেন। অমর্ত্য সেন মনে করেন, মুসলিম আর ইসলাম হলো সাম্প্রদায়িক। নিজেকে অজ্ঞেয়বাদী হিসেবে পরিচয় দিলেও তার বইয়ে তিনি হিন্দুদের তেত্রিশ কোটি ঈশ্বরের অস্তিত্বের বিষয়টি স্বীকার করেছেন।

গীতা ও ঋৃক বেদে তর্কপ্রিয় ঐতিহ্যের প্রাধান্য রয়েছে। যুক্তি, তর্ক, গণতান্ত্রিক ধারা হিন্দু ধর্মের আদর্শ। আর এ থেকেই ভারতে আধুনিক গণতান্ত্রিক সমাজ প্রতিষ্ঠা পেয়েছে বলে অমর্ত্যের ধারণা।

কিন্তু হিন্দু ধর্মে প্রচলিত বহু দেবতার জড়ীয় অস্তিত্ব এবং নিজেদের হাতে বানানো দেবতাকে পূজা করার পেছনে বৈজ্ঞানিক কোনো যুক্তি উপস্থাপন করা যায় না। একজন নোবেলজয়ী জ্ঞানী ব্যক্তি হয়েও অমর্ত্য সেন হিন্দু ধর্মের এই অসারতার বিষয়টি অনুধাবন করেননি। বরং সেক্যুলারিজমসহ অন্য ধর্মগুলোকেও তিনি হিন্দু ধর্মের মধ্যে গুলিয়ে ফেলার অভিপ্রায়ে লিপ্ত হন।

সমালোচনায় ড. হাসানুজ্জামান চৌধুরী বলেন, ড. অমর্ত্য সেন সেক্যুলারিজমে বিশ্বাসী হওয়ার কথা বললেও নিজের হিন্দু ধর্মকে তিনি ত্যাগ করতে চাইছেন না। এমনকি সেক্যুলারিজমের মূল সংজ্ঞা অনুযায়ী সব ধর্মকে রাষ্ট্র থেকে সম-দূরত্ব ও সম-মর্যাদা প্রদানের বিষয়টিও তার বইয়ে বিবেচিত হয়নি। হিন্দু ধর্মকে উলঙ্গভাবে সমর্থন করা হয়েছে। একদিকে তিনি হিন্দু ধর্মকে ইতিবাচকভাবে সমর্থন করেছেন, আবার ইসলাম ধর্মকে প্রত্যাখ্যান করেছেন। ধর্মীয় ঐতিহ্যের আলোচনায় হিন্দু ধর্ম থেকে আগত প্রথাকে তিনি শতভাগ গ্রহণীয় এবং ইসলাম ধর্ম থেকে আগত প্রথাকে আইনত অকার্যকর বলে চিহ্নিত করেছেন।

আরগুমেন্টেটিভ ইন্ডিয়ান বইয়ের ২১ পৃষ্ঠায় নোবেলবিজয়ী ড. অমর্ত্য সেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি সমাবর্তনে সব ধর্মের পবিত্র গ্রন্থ থেকে তেলাওয়াত করার সমালোচনা করেন। এমনকি তিনি এতে ‘আঘাত’ পেয়েছেন বলে উল্লেখ করেছেন। ১৯৯৯ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি সমাবর্তন অনুষ্ঠানে অধ্যাপক ড. অমর্ত্য সেন অতিথি হিসেবে অংশ নিয়েছিলেন। এ অনুষ্ঠানে সব ধর্মগ্রন্থ পাঠ করার মাধ্যমে ‘সেক্যুলার’ দৃষ্টিভঙ্গির প্রমাণ রাখা হয়েছিল। গত ১ ফেব্রুয়ারি বাংলা একাডেমীর একুশে বইমেলা উদ্বোধনেও ড. অমর্ত্য সেন অতিথি হিসেবে বক্তৃতা করেন। সেখানেও একই ধারায় সব ধর্মগ্রন্থের প্রতি সম্মান জানানো হয়। কিন্তু অমর্ত্য সেনের নিজ দেশ ভারতে সেক্যুলারিজম রাষ্ট্রনীতি হলেও সেখানে কেবল হিন্দু ধর্মগ্রন্থকে অধিকতর গুরুত্ব দেয়ার সমালোচনা করেন ড. হাসানুজ্জামান।

ইসলাম ধর্মে পর্দা প্রথার সমালোচনা করে অধ্যাপক ড. অমর্ত্য সেন তার বইয়ের ২০ পৃষ্ঠায় বলেন, পোশাক পরিধানে নিরপেক্ষতা এবং নিষেধাজ্ঞার দুটি বিষয় আছে। ব্যক্তি ইচ্ছা অনুযায়ী যে কোনো পোশাক পরিধান করতে পারে। আর রাষ্ট্র বা ধর্ম এক্ষেত্রে কোনো নিষেধাজ্ঞা দিতে পারে না। একথা বলার পরই তিনি ফ্রান্সে বোরকা পরা নিষিদ্ধ করার রাষ্ট্রীয় সিদ্ধান্তের পক্ষে অবস্থান নেন। মুসলমানদের মাথায় স্কার্ফ (পর্দা) পরাকে তিনি লিঙ্গবৈষম্য হিসেবে অভিহিত করেন।

ড. হাসানুজ্জামান চৌধুরী পর্দাপ্রথা সম্পর্কে ড. অমর্ত্য সেনের মতের সমালোচনা করেন। তিনি বলেন, কোরআনে পর্দাপ্রথার যে গুরুত্ব বর্ণনা আছে, সে সম্পর্কে তিনি কোনো ধারণা না নিয়েই মিথ্যা যুক্তি উপস্থাপন করেছেন। এক্ষেত্রে তিনি পবিত্র কোরআনের উদ্ধৃতি দেন। সুরাহ আল আহজাবে বলা হয়েছে, ‘হে নবী, আপনার স্ত্রী, কন্যা এবং মুমিন নারীদের বলে দিন, তারা যেন মাথাসহ শরীর ঢেকে রাখে। এটা ভালো হবে যে, তা বিশৃঙ্খলার (ডিস্টার্ব) হাত থেকে রক্ষা পেতে সহায়তা করবে। আল্লাহ সর্বক্ষমাশীল ও করুণাময়।’ ড. হাসানুজ্জামান চৌধুরী এ উদ্ধৃতি দিয়ে বলেন, কোরআনে যেখানে স্বয়ং আল্লাহ ‘পর্দা’ করার জন্য নির্দেশ দিয়েছেন, ড. অমর্ত্য তা প্রত্যাখ্যানের পরামর্শ দেন। এটা নিঃসন্দেহে বিভ্রান্তিকর মন্তব্য।

সেক্যুলারিজম ও প্রকৃত সত্য : ড. অমর্ত্য সেনের ব্যাখ্যার সমালোচনার পাশাপাশি ড. হাসানুজ্জামান চৌধুরী সেক্যুলারিজমের প্রকৃত ধারণা উপস্থাপন করেন। তার মতে, সেক্যুলারিজমের ধারণা মূলত ইউরোপে শুরু হয়। গির্জা ও ধর্মগুরুদের বিরুদ্ধে প্রতিবাদের পথ ধরে হজরত ঈসা (আ.)-এর ধর্ম বিবর্তিত হয়ে খ্রিস্টান ও পরবর্তীকালে সেক্যুলারিজমের ধারণার সৃষ্টি হয়। ধর্ম প্রচারের একপর্যায়ে উদ্ভূত পরিস্থিতিতে হজরত ঈসা (আ.)-এর অনুপস্থিতিতে তার প্রবর্তিত ধর্মকে ইচ্ছামত পরিবর্তন করেন পল। এ পরিস্থিতিতে ‘ইঞ্জিল’ পরিবর্তিত হয়ে ‘বাইবেল’ তৈরি করা হয়। মুসলমানদের ধর্মকে উপেক্ষা করে মানবরচিত রীতি নিয়ে খ্রিস্টান ধর্ম পরিচালনা শুরু হয়। কলুষিত খ্রিস্টান ধর্মকে মানুষ প্রত্যাখ্যান করে। রোমান ক্যাথলিক ধর্মের বিপরীতে প্রটেস্টান্ট নীতিবিদ্যার আদলে নানা ধর্মমত গড়ে ওঠে। পারস্পরিক দ্বন্দ্বে জড়িয়ে পড়ে এসব গোষ্ঠী। এতে জনজীবনে অশান্তি নেমে আসে। ক্যালভিন, লুথারসহ অনেকে এসব অশান্তি রোধে এগিয়ে আসেন। উইলিয়াম ওকাম, জন সেলিসবারি একটি নতুন আন্দোলন গড়ে তোলেন। ম্যাকাইভেলি রাষ্ট্র থেকে ধর্মকে বিচ্ছিন্ন করে বিদ্যমান অশান্তি রোধে ভূমিকা রাখেন। সংস্কার ও রেনেসাঁ সংঘটিত হয়। দ্বান্দ্বিক খ্রিস্টান ধর্মের নানারূপ রাষ্ট্র, অর্থনীতি, সমাজ, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির অগ্রগতিতে বাধা হিসেবে দেখা দেয়।

এ পরিস্থিতিতে ইউরোপে খ্রিস্টান ধর্ম উপেক্ষিত হয় এবং তা কেবল ব্যক্তিগত জীবনেই ব্যবহার করা হতে থাকে। বিবর্তনের এ ধারায় রাষ্ট্র ধর্মনিরপেক্ষ হয়ে ওঠে।

ড. হাসানুজ্জামান চৌধুরী সেক্যুলারিজমকে প্রত্যাখ্যাত মতবাদ হিসেবে প্রমাণের চেষ্টা করেন। এক্ষেত্রে তিনি কয়েকজন বিজ্ঞানীর গবেষণা ও তত্ত্ব উপস্থাপন করেন। তিনি বলেন, বিজ্ঞান এরই মধ্যে সেক্যুলারিজমকে প্রত্যাখ্যান করেছে; বিগ ব্যাং তত্ত্ব, দেশ-কাল-পদার্থ-শক্তি তত্ত্ব, বিশ্বতাত্ত্বিক তত্ত্বের বিস্তৃত রূপসহ নানা তত্ত্ব আবিষ্কারের মাধ্যমে সর্বশক্তিমান আল্লাহর অস্তিত্ব প্রমাণ করেছে। বিজ্ঞানী পল ডেভিস তার ‘সুপার ফোর্স’ এবং ‘কসমিক ব্লু প্রিন্ট’, পদার্থবিদ হেনস্্্্্ তার ‘প্যাগেলস্্্্্ ইদ কসমিক কোড’ এবং ‘পারফেক্ট সাইমেট্রি’, স্যামুয়েল ভিসকাউন্ট তার ‘বিলিফ অ্যান্ড অ্যাকশন’ গেরাল্ড শ্রয়ডার তার ‘দি হিডেন ফেস অব গড : সায়েন্স রিভিলস্্্্্ ইদ আলটিমেট ট্রুথ’ বইয়ে আল্লাহর অস্তিত্ব প্রমাণ করেছেন এবং ধর্মনিরপেক্ষতাবাদকে প্রত্যাখ্যান করেছেন।

Source : http://www.amardeshonline.com/pages/details/2011/04/05/75481

 

The Clash of Civilizations

Knowing that terrorism was contrary to the principles of Islam, the author began to investigate the dubious relationships between Islamic fundamentalism and Western imperialism. This study led him to the current book, completing the timeline of the first, by exploring its subject into modern times, but also expanding upon it, by shedding light on new and more profound discoveries.

This article is an excerpt from the book “Terrorism And The Illuminati” written by David Livingstone. We have chosen few pages from this book and hope we would gradually post them on this site.

DAVID LIVINGSTONE

Islam does not pose a threat to the West. It is the contrary that is correct. Islamic terrorist organizations are hotbeds of impostors in service of the West. It is well known that there are various dubious relationships that exist between Islamic radicals and Western powers. The truth is far more sinister. Islamic terrorists are connected with Western power through an intricate network of secret societies. While outwardly claiming to adhere to disparate religions, the Islamic terrorists follow a heretical version of the faith, ultimately rooted, like their counterparts in the West, in the same occult doctrine, the worship of Lucifer, and the belief in the use of religion as a disguise to deceive the masses.

Collectively, this web is headed by a nefarious cabal commonly identified as the “Illuminati”. The Illuminati was the name of a secret society, founded by Adam Weishaupt, in Germany, in 1776, with the goal of seeking world domination through subversive means. It’s existence is one of the few instances in history in which historians are willing to recognize the existence of the diabolical conspiracy, because the evidence is undeniable. However, in 1784, the order was exposed, and forced to disband. Scholars, therefore, have used the fact of the suppression of the order as justification to suppose that no conspiracy continues to exist into our time. Nevertheless, Weishaupt himself boasted, “I have considered every thing, and so prepared it, that if the Order should this day go to ruin, I shall in a year re-establish it more brilliant that ever.” [1]

The “Illuminati”, really, is merely a convenient term to refer to those individuals and secret organizations who continue to pursue the same goals in our time. In actuality, the order’s existence began long before the eighteenth century. The truth is it began in Babylon, in the sixth century BC, with the advent of the Jewish heresy of the Kabbalah. According to their own accounts though, the Illuminati represent the descendants of the Fallen Angels who inhabited the lost continent of Atlantis. These Fallen Angels interbred with humans, producing a supposedly superior race called “Aryans”, to whom they  taught the Ancient Wisdom.

Therefore, the Illuminati regard themselves as inheritors of a centuries-long tradition of preserving their occult knowledge, against the “tyranny” and “despotism” of “organized religion”. Ultimately, they perceive it their duty to institute a world order, to impose their cult as a one-word-religion, and governed by one of their own. Thus, throughout the centuries, the Illuminati have been carefully intermarrying with one another, to preserve their “sacred” bloodline, to transmit their esoteric knowledge from generation to generation, and from which their messiah is to issue. For this reason, they also refer to themselves as “the Family”.

Today, fronted by the powerful banking dynasties of Europe, the Illuminati exercise supremacy over the world’s governments, as well as their economies, and even their cultures. Ultimately, the Illuminati are an international network, existing in a parallel world, straddled between fronts of legitimacy, and activities on the black market and in the underground.

Their method of conquest is to wholly demoralize the societies of the world, wrecking their very fabric, by promoting every vice, including sexual depravity, greed and war. By enslaving the nations of the world through colossal debt, they ensure subservience, and guarantee the slow transfer of their sovereignty to global government. By encouraging stock market speculation they siphon off the wealth of the ignorant masses. In the end, by creating a global economic cataclysm of untold magnitude, they intend to demonstrate to humanity their own ineptitude, and offer their reign as salvation, by implementing a global fascist state, to be governed by their expected messiah.

Deprived of any moral restraint, they fund their covert activities by dominating the world of illegal arms dealing, narcotics trafficking, and prostitution. Their activities are intertwined with those of the world’s leading intelligence services, including the CIA, Mossad, and Britain’s M16, as well as international crime syndicates, like the Mafia and the Asian Triads, and the Yakuza of Japan. [2] Adopting any disguise to suit their collective objectives, they work hand in hand with the Freemasons and numerous other secret societies, and are responsible for the emergence of numerous radical cults, from the Hare Krishna’s to the Moonies, of Christian and Muslim Fundamentalism, and most importantly, terrorism.

By wielding inordinate financial and political power, the plan of the Illuminati is to foment a global war, or World War III, from which will emerge, out of the ashes of the expired civilizations of our time, like a phoenix from the fire, a New World Order. The coming confrontation is being presented as a “Clash of Civilizations”, between the “Liberal Democratic West” and “Islamic fundamentalism”.

Despite all the fear mongering, however, the Muslims do not pose a threat. The Muslim world has been sufficiently weakened due to their own internal corruption, in addition to the subversive activities the Western powers that, by WWI, the Allied powers were able to brush aside the forces of the Ottoman Empire, which by that time had crumbled to near dust. Since, the Muslim world has been in disarray, incapable of uniting to even represent Islam, let alone defend its cause.

This fact was acknowledged by Zbigniew Brzezinski himself, the primary architect of the fabricated threat. As to whether or not such a phenomenon is a menace to the world today, he responded:

Nonsense! It is said that the West had a global policy in regard to Islam. That is stupid. There isn’t a global Islam. Look at Islam in a rational manner and without demagoguery or emotion. It is the leading religion of the world with 1.5 billion followers. But what is there in common among Saudi Arabian fundamentalism, moderate Morocco, Pakistan militarism, Egyptian pro-Western or Central Asian secularism? Nothing more than what unites the Christian countries. [3]

Therefore, so as to rile the masses of the Western world against Islam, it has been necessary to artificially foment militancy in the Muslim world, by creating terrorist groups, to create the illusion of Islam’s competition with the “democratic” West.

What is meant by democracy, however, is secularism. Originally, in the eighteenth century, the goal of the Illuminati had been to separate religion from the state, to replace it with a rule of their own. Through the widespread propaganda of the eighteenth century, they discredited Christianity as conflicting with the findings of science, and defined the Christian Church as an organization rife with corruption and greed. While it is certainly true that the Church was fraught with abuse, the citizens of the West were told to throw the proverbial baby out with the bathwater, for it was not its moral teachings, or the common worshipper, that were inherently corrupt, but the upper echelons of its politically minded hierarchy.

Paradoxically, the secularism of the Illuminati is based not on atheism, but on ancient occult teachings. To the upper levels of the Illuminati, it was Lucifer who “liberated” man, showing him the truth that there is no truth. Rather, all morality is mere convention, invented by the dull masses. To them, there is only Will, and therefore, man triumphs by overcoming all apprehension, otherwise regarded as morality, that prevents him from achieving what he desires. Or, the “ends justify the means”. The program of the Illuminati, beginning in the eighteenth century, has been to disparage all religion as superstition, and the enemy of “Liberty”, that is, the freedom to do whatever they will.

To inculcate the veneration of such a principle in the minds of the gullible masses of the West, history has been rewritten to present modern secular states as the culmination of centuries of progress towards “Liberty”, which is upheld as the fundamental characteristic defining the Western superiority over the East, where “despotism” supposedly perpetually reigns. Throughout “Western” history, we are taught, from Greece, to the Roman Empire, the Renaissance, and finally the Enlightenment, European thinkers have been progressively distancing themselves from “superstition”, or religion. The culmination of this supposed progress were the French and American Revolutions, and their implementation of secular rule, seen as the triumph of “Liberty”.

In reality, these revolutions were coup d’etats effected through the machinations of the Illuminati. And, the first priority of the Illuminati, following the revolutions, as propounded by its prominent members, like the Marquis de Condorcet in France, Johann Fichte in Germany, and Thomas Jefferson in America, was the establishment of compulsory education. The first to articulate the need to interpret history as the progress of “Liberty” was Georg Hegel, German professor and member of the Illuminati. [4] Based on Kabbalah, Hegel proposed that history was the unfolding of an idea, as God coming to know himself. To Hegel, it is man who becomes God, as Western civilization overcomes superstition, by progressively advancing towards the implementation of “Liberty.”

However, it was not until World War I that Hegel’s mythology of Western civilization was fully established. America, to justify its entry into the War, presented itself and the Allied Powers as, not disparate nation-states, but members of a single “Western” civilization, and capitalized on the notion of “Liberty” and “Freedom”, to cloak its imperial strategies in high ideals. Known as General Education, or the Western Civ. Course, the Hegelian interpretation of history was then imposed on the American university system. The mission was accomplished through the influence of two Illuminati front organizations, boards of trustees acting as benefactors of the educational system, the General Board of Education (GEB) chartered by the John D. Rockefeller, and the Carnegie Foundation for the Advancement of Teaching (CFAT).

As revealed by William H. McIlhany, in The Tax-Exempt Foundations, from minutes of their meetings, these foundations asked themselves the following: “is there any means known to man more effective than war, assuming you wish to alter the life of an entire people?” They could not find one, and so helped to precipitate WWI. Following the Great War, however, recognizing the need to maintain the control of the “diplomatic machinery” of the United States they had achieved, the foundations determined that “they must control education”. Together, as William McIlhany described, the Rockefeller and Carnegie foundations “decided the key to it is the teaching of American history and they must change that. So they then approached the most prominent of what we might call American historians at that time with the idea of getting them to alter the manner in which they presented the subject.” [5]

Through their influence, the entire American educational system was coordinated to serve a centralized command. Control of this system would be two-pronged, dividing study into pure and social sciences. The pure or applied sciences were to serve the emerging Military-Industrial-Complex, while the social sciences, like psychology, sociology, and anthropology, were designed to study the behaviour of human beings, towards achieving means of controlling or modifying that behaviour. Lastly, the remaining fields, like history of political science, were to inculcate a proper “interpretation” of history.

Because, according to the boards’ directives, “history, properly studied or taught, is constantly reminding the individual of the larger life of the community… This common life and the ideals which guide it have been built up through the sacrifice of individuals in the past, and it is only by such sacrifices in the present that this generation can do its part in the continuing life of the local community, the State, and the Nation.” In Universities and the Capitalist State, Clyde Barrow commented that:

The full-scale rewriting of history under state supervision not only facilitated a short-term justification of American participation in the war, but also helped to institutionalize a much broader and more permanent ideological conception of the United States in the social sciences and humanities. [6]

The first recommendations to educators, during WWI, were careful to warn them that using outright lies or false information was a “mistaken view of patriotic duty”, that was likely to be counterproductive in the long run. These recommendations went on to provide detailed suggestions on what to teach, and how to teach history “properly”. They urged teachers to stress the difference between Germany on the one hand, and France, Britain, and the United Sates on the other, as a conflict originating in the struggle between despotism and democracy. This was a continuation of the same revolutionary struggle for Liberty, which America had initiated in the American Revolution. If it had been America’s destiny to perfect democracy, it was now America’s responsibility to defend democracy wherever it was threatened and bring it to the rest of the world.

This myth of America’s role in the preservation of “democracy” and its struggle against “despotism”, is again being resorted to, towards the build up to World War III, or the so-called War on Terror. Ultimately, according to Francis Fukuyama, in deliberate reference to Hegel, we are at the “End of History”. That is, we have achieved the pinnacle of human intellectual progress. We cannot advance further, and Western style “liberal democracy” is the final product. However, one bastion of medievalism is preventing our final step forward: “militant” Islam. Therefore, according to Samuel Huntington, as first published in Foreign Affairs of the Council on Foreign Relations, a front group of the secretive and elusive Illuminati, the West is headed for an inevitable confrontation with Islam, or a Clash of Civilizations.

Endnotes

1 Robison, John, Proofs of a Conspiracy, p. 84.
2 Svali. Ritual Abuse – How the Cult Makes Money. <http://www.suite101.com/article.cfm/ritual_abuse/40931&gt;
3 Interview in Le Nouvel Observateur (France), Jan 15-21, 1998, p. 76 Translated by Bill Blum <http://www.globalresearch.ca/articles/BRZ110A.html&gt;
4 Magee, Glenn Alexander. Hegel and the Hermetic Tradition.
5 The Tax-Exempt Foundations, Westport, CT: Arlington House, 1980. p. 60-61.
6 Barrow, Clyde W. Universities and the Capitalist State: Corporate Liberalism and the Reconstruction of American Higher Education. 1894-1928. Madison, Wisconsin: The University of Wisconsin Press, 1990. p. 144.

DAVID LIVINGSTONE – The author converted to Islam in 1991, and has since committed himself to further understanding the true meaning of the religion. After thirteen years of research, he completed his first book, The Dying God: The Hidden History of Western Civilization, which studies the evolution of the occult from ancient times to the French Revolution.

আল-কোরআনের আলোকে মানবজীবন (কৃষি বিজ্ঞান)

মহান আল্লাহ সকল প্রাণীর খাদ্যের ব্যবস্থা করে থাকেনঃ

আমি তোমাদের জন্য জীবিকার ব্যবস্থা করেছি । আর তোমরা যাদের জীবিকাদাতা নয় তাদের জন্যও। আমার নিকট প্রত্যেক বস্তুর ভান্ডার এবং তা আমি প্রয়োজরন মোতাবেক সরবরাহ করি । (হিজরঃ ২০-২১)

খাদ্যের উৎসঃ
জীবিকার উৎস আকাশ ও পৃথিবী । গাছপালা আকাশ থেকে গ্রহণ করে কার্বন, হাইড্রোজেন, অক্সিজেন, সূর্যের অলো আর মাটি থেকে গ্রহণ করে, পটাশিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম, ফসফরাস, সালফার, ম্যাঙ্গানিজ প্রভৃতি ।

তিনি তোমাদেরকে আকাশ ও পৃথিবী থেকে জীবিকা করেন । (নমলঃ ৬৩)

আল্লাহ ব্যাতীত কোন স্রষ্টা আছে কি ? যিনি তোমাদেরকে আকাশ ও পৃথিবী থেকে জীবিকা দান করেন । (ফাতেরঃ ৩)

খাদ্যেৎপাদন গবেষণা সাপেক্ষঃ

তিনি চার দিনে পৃথিবীতে ব্যবস্থা করেছেন খাদ্যের সমানভাবে সকলের জন্য যারা এ নিয়ে অনুসন্ধান করেন । (হামীম সাজদাঃ ১০)

আল্লাহ আকাশমন্ডলী ও পৃথিবী সৃষ্টি করেছেন যথাযথভাবে যাতে প্রত্যেক ব্যক্তি তার সাধ্যানুপাতে ফল লাভ করতে পারে। (জামিয়াঃ ২২)

আল্লাহ কিভাবে খাদ্য উৎপাদন করেনঃ

তিনি আকাশ থেকে পানি বর্ষণ করে তদ্বারা তোমাদের জীবিকার জন্য উৎপাদন করেন ফল-মূলাদি। (বাকারাঃ ২২)

তিনি আকাশ থেকে বৃষ্টি বর্ষণ করে তদ্বারা উদগত করেন সর্বপ্রকারের উদ্ভিদের চারা অতঃপর তা থেকে উৎপন্ন করেন সবুজ পাতা। পরে তা থেকে উৎপন্ন করেন ঘন সন্নিবিষ্ট শস্যদানা। (আন-আমঃ ৯৯)

তিনি আল্লাহ যিনি বায়ু প্রবাহিত করেন। ফলে তা মেঘগুলোকে সঞ্চারিত করে। অতঃপর একে আল্লাহর যেমন ইচ্ছা আকাশে ছড়িয়ে দেন। পরে একে খনড-বিখন্ড করেন এবং তুম দেখতে পাও এথেকে নির্গত হয় বারিধারা। অতঃপর যখন তিনিি নিজ বান্দাদের মধ্যে যার প্রতি ইচ্ছা পৌছে দেন। তখন তারা আনন্দ করতে থাকে। (রূমঃ ৪৮)

বৃষ্টি মাটির দোষ-ত্র“টি সংশোধন করেঃ

বৃষ্টিপাত মাটিতে সৃষ্ট আবর্জনা (দোষ-ত্র“টি) ধুয়ে মুছে নিয়ে যায়। আর যা কিছু মানুষের জন্য কল্যাণকর তা ভূ-পৃষ্ঠে থেকে যায়। (রাদঃ ১৭)

মিষ্টি পানি নিয়ে গবেষনাঃ

তোমরা যে পানি পান কর সে সম্বন্ধে কখনও চিন্তা-ভাবনা করে দেখেছ কি? তোমরা একে মেঘ থেকে নামিয়ে আন না আমি আনি? আমি ইচ্ছা করলে তা লবনাক্তও করতে পারি। এরপরেও কি তোমরা শোকর আদায় করবেনা? (ওয়াকিয়াঃ ৬৮-৭০)

বিদ্যুৎ নিয়ে গবেষণাঃ
বিজ্ঞানীদের গবেষনায় প্রমাণিত হয়েছে যে, আকাশে বিদ্যুৎ চমকের মাধ্যমে বায়ুমন্ডলের নাইট্রোজেন গ্যাস নাইট্রেেেট পরিণত হয় এবং তা বৃষ্টির মাধ্যমে মাটিতে আসে। আর এ নাইট্রেট হচ্ছে উদ্ভিদ জগতের প্রধান খাদ্য। আজকের বিশ্বে বিদ্যুৎ হচ্ছে উন্নয়নের মুল চাবিকাঠি যা পানি থেকে উৎপাদন হচ্ছে।

তিনি তোমাদেরকে বিদ্যুৎ প্রদর্শন করেন, যাতে আশংকা, আশা উভয়ই থাকে। (রাদঃ ১২)

বীজ নিয়ে গবেষনাঃ
বায়ু ও পনির সংস্পর্শে বীজ কিভাবে অঙ্কুরিত হয় সে ব্যাপারে ব্যাপক গবেষনা প্রয়োজন।

তোমরা যে বীজ বপন কর, সে সম্পর্কে চিন্তা-গবেষনা করেছ কি? তোমরা কি একে অঙ্কুরিত করনা আমি অঙ্কুরিত করি। (ওয়াকিয়াঃ ৬৩-৬৪)

বিচিত্র ধরনের ফল ও বৈসাদৃশ্য নিয়ে গবেষনাঃ
ফলের বিভিন্নতার সূত্র ধরে জন্ম নিয়েছে আজকের জেনেটিক্স বিজ্ঞান, যার ফলে উদ্ভাবিত হয়েছে উন্নত ও অধিক ফলনযুক্ত ফল।
বাগানের প্রতিটি গাছে সিঞ্চিত করা হয় একই পানি অথচ গুনের ও স্বাদের দিক দিয়ে এদের কতককে অন্য কতকের উপর শ্রেষ্ঠত্ব দিয়েছি। বুদ্ধিমান লোকদের জন্য এতে নিদর্শন রয়েছে। (রাদঃ ৪)

 

বাংলাদেশে ইসলাম

যে মুসলিম প্রধান দেশের সংবিধান প্রনয়ন কমিটির হর্তা-কর্তা হয় একজন হিন্দু!! সেটি কিভাবে মুসলিম প্রধান দেশ হয় ? ভাবতে অবাক লাগে বাংলাদেশের মত একটি মুসলিম প্রধান রাষ্ট্রের সংবিধানে বিসমিল্লাহ থাকবে, কি থাকবেনা তা নিয়ে নিয়মিত মন্তব্য করছে নন-মুসলিম, হায়রে বাংলাদেশের মুসলমানেরা! এখানেই কি শেষ ?? ফতোয়া ইসলামের একটি অবিচ্ছেদ্ধ অংশ অথচ বাংলাদেশে তা নিষিদ্ধ, এটিকে অস্বীকারকারী যে, প্রকারান্তে ইসলামকেই অস্বীকার করল তা এই দেশের মানুষ বুঝেও না বুঝার ভান করেন, এদেশের প্রধানমন্ত্রীর ছেলে থিসিস লেখেন খ্রিষ্টান কে সাথে নিয়ে ইসলামের বিরুদ্ধে, বাংলাদেশের বিরুদ্ধে, বাংলাদেশের সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে, বাংলাদেশ সেনাবাহীতে নাকি মৌলবাদি মাদ্রাসা ছাত্ররা ৩৫%!! সুতরাং সেনাবাহিনীকে পূনর্গঠন করারও প্রস্তাব দিয়েছেন, অবশ্য বিডিআর বিদ্রোহের নামে ইতিমেধ্য তা সম্পন্নও হয়েছে। একজন মুসলিম হিসেবে সব সময়ই ইসলামী রীতিনীতিকে শতভাগ পালন করার চেষ্টা করতে হবে, কিন্তু কষ্টে বুক ফেটে যায় যখন দেখি মুসলিম প্রধান দেশের প্রধানমন্ত্রী হিন্দুদের তিলক নিচ্ছেন তার কপালে, বৌদ্ধদের অনুকরনে স্মৃতিসৌধে মাথা ঝুকে শ্রদ্ধা করছেন!! কোরান তেলাওয়াতে আপত্তি করছেন বর্তমান সরকারের একজন মন্ত্রী, আবার উম্মতের নতুন সংজ্ঞা দিচ্ছেন মতিয়া চৌধুরী! কি আজব আমরা, যিনি নিজেই জানেন না উম্মত কি জিনিস তিনিই আবার মন্তব্য করছেন কে কার উম্মত। পাটমন্ত্রী আব্দুল লতিফ সিদ্দীকিতো বলেই বসলেন তামাক মদের মত ধর্ম একটি নেশা, রাষ্ট্রীয় দায়িত্বশীল পর্যায়ের মুখ থেকে এমন মন্তব্য ইসলাম সম্পর্কে! এ কেমন ধর্মনিরপেক্ষতা ? এরই নাম কি ধর্মনিরপেক্ষতা ? বাংলাদেশে ক্রিকেট বিশ্বকাপের উদ্ভোদন হলো কিছুদিন আগে, এখানে সংখ্যাগরিষ্ট মুসলমান বলে কোরান তেলাওয়াতের মাধ্যমেই অনুষ্ঠান শুরুর কথা ছিল, কিন্তু এই মুসলিম প্রধান রাষ্টে বিশ্বকাপের উদ্ভোদনী অনুষ্ঠান শুরু হলো হিন্দুদের মঙ্গল প্রদিপ জ্বালিয়ে, কি প্রগতিশীল আমরা! ভারতীয় দাদাদের খুশী করতে, আর কত কি না হয় করতে হয় বাকী জীবনে আল্লাহ-ই ভালো জানেন, বায়তুল মোকাররম মসজিদে তিন ওয়াক্ত নামাযের আযান মাইকে দেওয়া হয়নি, কি এমন ক্ষতি হতো যদি সারা বিশ্ব জানত মসজিদের শহর ঢাকা শহর, আজকে বাংলাদেশে মসজিদে তালা দেওয়ার মত ঘটনাও ঘটাচ্ছেন কতিপয় রাজনৈতিক নেতা কর্মী, চিন্তা করতেও লজ্জা লাগে আমরা কি আসলেই মুসলিম ? মসজিদ ভেঙে জায়গা দখল করছেন রাজনৈতিক নেতা। বায়তুল মোকাররম
মসজিদে পুলিশ জুতা পায়ে ঢুকে বেদড়ক পিটিয়েছে মুসল্লিদের, শুধু কি তাই,প্রকাশ্যে রাস্তায় উলঙ্গ করেছে আলেম-ওলামাদের, তবুও আমরা মুসলিম, নামের আগে পরে ইসলামী রীতি! ঈদের জামাতে প্রথম কাতারে ভারী সাজু-গুজু করে, কোরবানীতে লক্ষ টাকার গরু কিনে মিডিয়ার নজরে আসা, আরো কত কি ? ইসলামী ফাউন্ডেশনের সরকারের অধিনে একটি ইসলামী প্রতিষ্ঠান হিসেবেই জানেন এদেশের জনগণ, অথচ সেখানেই করা হলো মার্কিন তরুন তরুনীর অশ্লীন নাচ,
ভাবতে খুব ভালো লাগে আমরা দিন দিন খুব বেশী আধুনিক হচ্ছি মনে হয়! নারী পুরুষের সম-অধিকারের নামে কোরানের আইনকে বৃদ্ধাঙ্গুল দেখাচ্ছে সরকার, এর পরও আমরা মুসলিম, বাংলাদেশ মুসলিম প্রধান রাষ্ট ?

ধর্মনিরপেক্ষ আবার সাথে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম! মহান আল্লাহর উপর আস্থা রাখা যাবেনা, আবার সাথে বিসমিল্লাহ! মনে হচ্ছে ইসলাম যেন শুধু তৃতীয় তম নয়, ১০১তম পার্সেন সিংগুলার নাম্বার। অনেকটা করুনার মত! যে দেশে ৮৮% মুসলিম সে দেশে ইসলাম কে নিয়ে এত টানা হেঁছড়া কেন ? যে দেশটি পৃথিবীর দ্বিতীয় মুসলিম রাষ্ট সে দেশটিতে ইসলামের এত অবমাননা কেন ? এবং “মহান আল্লাহর উপর আস্থা”  সংবিধান থেকে বাদ দেওয়া হলো কেন ?

http://www.sonarbangladesh.com/blog/vision2021/30982

 

%d bloggers like this: