• Categories

  • Archives

  • Join Bangladesh Army

    "Ever High Is My Head" Please click on the image

  • Join Bangladesh Navy

    "In War & Peace Invincible At Sea" Please click on the image

  • Join Bangladesh Air Force

    "The Sky of Bangladesh Will Be Kept Free" Please click on the image

  • Blog Stats

    • 315,259 hits
  • Get Email Updates

  • Like Our Facebook Page

  • Visitors Location

    Map
  • Hot Categories

Let`s Eliminate Indian Terrorists in Bangladesh

By: Abu Zafar Mahmood, USA

Hasina-Monmohan cry wolf jointly. As they could not eliminate the Mosques and transform the Islamic nation in Deen-e-Elahee, Could not impose Hindi instead of Bangla in Bangladesh. Indian interests are to keep Muslim countries unstable as it needs Bangladesh-Pakistan-Afghanistan under their knees for grabbing wealth. Moreover the rapid growth of Bangladesh in terms of modernization and wealth influences over the North-East border Indian districts. It also bring the Delhi`s discrimination to that huge region too. So, Indian strategy of collapsing Bangladesh becomes their one of prime Military agenda. That matches Indian expansionist design. But the USA-European flows of winds turn for Bangladesh. A slogan, “Let`s eliminate Indian Terrorists in Bangladesh” shines on posters.

https://i1.wp.com/www.topyaps.com/wp-content/uploads/2010/04/raw.jpeg

The Bangladesh administration is controlled by Indian Intelligence-RAW. It already collapsed BDR, weakened Armed-forces. Highest to lowest courts run under the same control. Prime Minister office is treated as RAW regional co-coordinating office. Ministry of Home-Foreign Affairs are directly dictated by the Indian officers. Indian trained Four Lac Eighty six thousand Nine Hundred Sixty (4, 86,960) Fanatic Hindu terrorists are the key fighters that are engaged in Government positions to collapse the sovereignty and Independence at the time sabotage in USA interests. These terrorists are all Indian trained. They instigate the instability of Bangladesh from inside the government. A surprising technique!

India has a long history of using terrorists and sending the hordes across borders. It captured Hyderabad, Junagarh and Manvadar illegally through police actions. It forced many smaller states to join the Indian Union by force of arms. It sent its forces to illegally capture Srinagar, using a fake article of accession which it now claims is lost–as if it ever existed. It sent militants to Tibet and Aksai Chin instigating a ferocious attack from China. It sent terrorists into Sikkim, and Bhutan and eventually illegally occupied Sikkim. It sent LTTE terrorists into Lanka trying to bifurcate the small peaceful Buddhist Island. It even tried terrorism in Myanmar and Maldives. It motivated the Hindu youths in Refugee camps, armed and engaged the Mukti Bahinee guerrilla groups across the border into East Pakistan in 1971. It than tried to incorporate Bangladesh using the Rakshi Bahinee after Awami League climbed on the government.

Now, Whatever Hasina, Rehana, Sajeeb Joy, Dipu Moni, Sahara and Ashraf are painting as friendlier relation with India is in real annexation procedure with India that the Fakhruddin-Moinuddin-Iftekharinitiated. Obviously, India needs terrorist regiments as Pakistani Army and ISI are rock to them  to defeat whereas Bangladesh is so rootless to them that it purchases the pillars as it needs. Indian officers train and control the civil and military officers in Bangladesh.

An article in one of Canada’s national magazines, Macleans, reported on an interview with a Pakistani ISI spy Farouk, who claimed that

India’s intelligence services, Research and Analysis Wing (RAW), have “tens of thousands of RAW agents in Pakistan.”

Many officials inside Pakistan were convinced that,

“India’s endgame is nothing less than the breakup of Pakistan. And the RAW is no novice in that area. In the 1960s, it was actively involved in supporting separatists in Bangladesh, at the time East Pakistan. The eventual victory of Bangladeshi nationalism in 1971 was in large part credited to the support the RAW gave the secessionists.”http://www2.macleans.ca/2009/04/23/new-delhi%E2%80%99s-endgame/


In September of 2008, the editor of Indian Defence Review wrote an article explaining that a stable Pakistan is not in India’s interests:

“With Pakistan on the brink of collapse due to massive internal as well as international contradictions, it is matter of time before it ceases to exist.” He explained that Pakistan’s collapse would bring “multiple benefits” to India, including preventing China from gaining a major port in the Indian Ocean, which is in the mutual interest of the United States. The author explained that this would be a “severe jolt” to China’s expansionist aims, and further, “India’s access to Central Asian energy routes will open up.”http://www.indiandefencereview.com/2008/09/stable-pakistan-not-in-indias-interest.html

In August of 2009, Foreign Policy Journal published a report of an exclusive interview they held with former Pakistani ISI chief Lieutenant General Hamid Gul, who was Director General of the powerful intelligence services (ISI) between 1987 and 1989, at a time in which it was working closely with the CIA to fund and arm the Mujahedeen. Once a close ally of the US, he is now considered extremely controversial and the US even recommended the UN to put him on the international terrorist list. Gul explained that he felt that the American people have not been told the truth about 9/11, and that the 9/11 Commission was a “cover up,” pointing out that, “They [the American government] haven’t even proved the case that 9/11 was done by Osama bin Laden and al Qaeda.” He said that the real reasons for the war on Afghanistan were that:

“The U.S. wanted to “reach out to the Central Asian oilfields” and “open the door there”, which “was a requirement of corporate America, because the Taliban had not complied with their desire to allow an oil and gas pipeline to pass through Afghanistan. UNOCAL is a case in point. They wanted to keep the Chinese out. They wanted to give a wider security shield to the state of Israel, and they wanted to include this region into that shield. And that’s why they were talking at that time very hotly about ‘greater Middle East’. They were redrawing the map.” http://www.foreignpolicyjournal.com/2009/08/12/ex-isi-chief-says-purpose-of-new-afghan-intelligence-agency-rama-is-%E2%80%98to-destabilize-pakistan%E2%80%99/

He also stated that part of the reason for going into Afghanistan was “to go for Pakistan’s nuclear capability,” as the U.S. “signed this strategic deal with India, and this was brokered by Israel. So there is a nexus now between Washington, Tel Aviv, and New Delhi.” When he was asked about the Pakistani Taliban, which the Pakistani government was being pressured to fight, and where the financing for that group came from; Gul stated:

“Yeah, of course they are getting it from across the Durand line, from Afghanistan. And the Mossad is sitting there, RAW is sitting there — the Indian intelligence agency — they have the umbrella of the U.S. And now they have created another organization which is called RAMA. It may be news to you that very soon this intelligence agency — of course, they have decided to keep it covert — but it is Research and Analysis Milli Afghanistan. That’s the name. The Indians have helped create this organization, and its job is mainly to destabilize Pakistan.”

He explained that the Chief of Staff of the Afghan Army had told him that he had gone to India to offer the Indians five bases in Afghanistan, three of which are along the Pakistani border. Gul was asked a question as to why, if the West was supporting the TTP (Pakistani Taliban), would a CIA drone have killed the leader of the TTP. Gul explained that while Pakistan was fighting directly against the TTP leader, Baitullah Mehsud, the Pakistani government would provide the Americans where Mehsud was, “three times the Pakistan intelligence tipped off America, but they did not attack him.” So why all of a sudden did they attack?

Because there were some secret talks going on between Baitullah Mehsud and the Pakistani military establishment. They wanted to reach a peace agreement, and if you recall there is a long history of our tribal areas, whenever a tribal militant has reached a peace agreement with the government of Pakistan, Americans have without any hesitation struck that target.

… there was some kind of a deal which was about to be arrived at — they may have already cut a deal. I don’t know. I don’t have enough information on that. But this is my hunch, that Baitullah was killed because now he was trying to reach an agreement with the Pakistan army. And that’s why there were no suicide attacks inside Pakistan for the past six or seven months.

Further, there were Indian consulates set up in Kandahar, the area of Afghanistan where Canadian troops are located, and which is strategically located next to the Pakistani province of Baluchistan, which is home to a virulent separatist movement, of which Pakistan claims is being supported by India. Macleans reported on the conclusions by Michel Chossudovsky, economics professor at University of Ottawa, that,

“the region’s massive gas and oil reserves are of strategic interest to the U.S. and India. A gas pipeline slated to be built from Iran to India, two countries that already enjoy close ties, would run through Baluchistan. The Baluch separatist movement, which is also active in Iran, offers an ideal proxy for both the U.S. and India to ensure their interests are met.”

Even an Afghan government adviser told the media that India was using Afghan territory to destabilize Pakistan. http://www.app.com.pk/en_/index.php?option=com_content&task=view&id=72423&Itemid=2

In September of 2009, the Pakistan Daily reported that captured members and leaders of the Pakistani Taliban have admitted to being trained and armed by India through RAW or RAMA in Afghanistan in order to fight the Pakistani Army. http://www.daily.pk/proof-captured-ttp-terrorists-admit-to-being-indian-raw-agents-11015/

The Council on Foreign Relations published a backgrounder report on RAW, India’s intelligence agency, founded in 1968

“primarily to counter China’s influence, [however] over time it has shifted its focus to India’s other traditional rival, Pakistan.” For over three decades both Indian and Pakistani intelligence agencies have been involved in covert operations against one another. One of RAW’s main successes was its covert operations in East Pakistan, now known as Bangladesh, which “aimed at fomenting independence sentiment” and ultimately led to the separation of Bangladesh by directly funding, arming and training the Pakistani separatists. Further, as the Council on Foreign Relations noted, “From the early days, RAW had a secret liaison relationship with the Mossad, Israel’s external intelligence agency.”http://www.cfr.org/publication/17707/

https://i0.wp.com/im.rediff.com/news/2003/sep/08spec.gif

Bangladesh is in the endgame of destabilization. The Indian trained militants are already positioned to damage and eliminate the patriotic elements and collapse the sovereignty and independence of Bangladesh. The next scene is waiting to appear as it faces challenges. Indian terrorization and collapsing Bangladesh is far different than Pakistan-Afghan battle field in more cases.

Of course, the Obama administration has opened a new strategy on Bangladesh and it`s near that the real Bangladeshi nationalists are sourcing supports recently. Ex-Prime Minister Khaleda Zia`s significant visit in Washington DC, NewJersy and New York as the leader of the opposition in Bangladesh National parliament in last week will bring face to face the Indian terrorists and Bangladeshi nationalists in Dhaka. The professionals and Journalists are desperate under the leadership of renowned Journalist Mahmudur Rahman called for up rise to topple down the government. The World super power prefers to see the down fall of the Hasina government soon that`s the observers assumption. India is taken in partnership on Afghanistan and Pakistan sector with NATO and on the other hand the Bangladesh and up to China will be controlled by USA direct. That will come up.

(Writer is free-lancer Journalist and political analyst.E-mail:rivercrossinternational@yahoo.com & azmnyc@gmail.com Date: Washington DC, June 04, 2011.)

Source:

https://i0.wp.com/newsfrombangladesh.net/images/a1_04.gifhttps://i0.wp.com/newsfrombangladesh.net/images/a1_05.gif

বাংলাদেশের সীমান্ত নিরাপত্তা এবং জাতীয় সার্বভৌমত্ব

মেজর ফারুক (অবঃ)

ভূমিকা

 

নির্দিষ্ট সীমান্ত একটি রাস্ট্রের মৌলিক বৈশিষ্টের কয়েকটির মধ্যে অন্যতম। সুনির্দিষ্ট সীমান্ত বিহীন কোন রাস্ট্রের অস্তিত্বই কল্পনা করা যায়না। এজন্য একটি রাস্ট্রের পক্ষে – সীমান্ত চিহ্নিত করে তার যথাযথ সংরক্ষন যেমন জরুরী, তেমনি জরুরী – সে সীমান্তের মধ্য দিয়ে যে কোন বহিঃশক্তির আগ্রাসন, অনুপ্রবেশ, অবাধ চলাচল, চোরাচালান, মানব পাচার ইত্যাদি প্রতিরোধ এবং নিয়ন্ত্রন করা।

 

সাবেক পূর্ব পাকিস্তানের ভূখন্ডকেই আমরা মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে ১৯৭১ সালের ১৬ই ডিসেম্বর থেকে স্বাধীন ভূমি হিসেবে লাভ করেছি।

https://i1.wp.com/newsleaks.in/wp-content/uploads/2011/05/Indo-Bangladesh-flag.jpg

১৯৭৪ সালের মুজিব-ইন্দিরা স্বাক্ষরিত সীমান্ত চুক্তি মোতাবেক বাংলাদেশের বেরুবাড়ী ছিটমহলটি সংবিধান সংশোধন করে ভারতকে হস্তান্তর করা হয়; বিনিময়ে ভারত বাংলাদেশকে তার ছিটমহল আংগরপোতা-দহগ্রামে যাবার জন্য ৩ বিঘা করিডোর হস্তান্তরের কথা ছিল; কিন্তু গত ৪০ বছরেও ভারত সেই ৩ বিঘা করিডোর বাংলাদেশকে হস্তান্তর করেনি।

https://i0.wp.com/www.thedailystar.net/forum/2007/october/tin06.jpg

https://i2.wp.com/exclave.info/Tin-Bigha/tinbighamap.jpg

 

আন্তর্জাতিক পর্যায়ে চুক্তি স্বাক্ষর করেও সে চুক্তিকে অমান্য করা এবং প্রতিবেশী দেশের উপর অর্থনৈতিক, বাণিজ্যিক, প্রাকৃতিক, সামরিক, রাজনৈতিক, কুটনৈতিক ইত্যাদি নানাবিধ বৈরী আচরন করে লক্ষ্যস্হ প্রতিবেশীকে তার নিয়ন্ত্রনে রাখার কৌশল অবলম্বন – ভারতের ভূরাজনৈতিক স্বার্থ রক্ষার উদ্দেশ্য চানক্য কুটনীতির বিষয় বলেই প্রতীয়মান।

 

আর ভৌগোলিকভাবে ৩ দিক থেকেই ভারত দ্বারা পরিবেষ্টিত বিধায় ভারতের বৈরী আচরন ও আগ্রাসনের শিকার বাংলাদেশ।

 

সীমান্তে আগ্রাসন

 

সীমান্তে ভারতের কাছ থেকে বাংলাদেশ যে সব বৈরী আচরণের শিকার হচ্ছে- তার কিছু উদাহরন হলোঃ

 

(১) সীমান্তে বিএসএফ কর্তৃক বাংলাদেশী মানুষ হত্যা করা।

(২) সীমান্ত দিয়ে মাদক দ্রব্য ও বেআইনী অস্ত্র পাচার করা।

(৩) সীমান্ত দিয়ে ব্যাপক চোরাচালান।

(৪) সীমান্ত দিয়ে অনুপ্রবেশ করে অপহরণ, ধর্ষণ, নির্যাতন ইত্যাদি অপরাধ করা।

(৫) বাংলাদেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনীর নিরাপত্তা চৌকিতে হামলা করা যেমন- রৌমারীতে তকালীন বিডিআর পোস্টে আক্রমন করা হয়েছিল।

(৬) বাংলাদেশের সীমান্ত সংলগ্ন ভূমি দখল করা।

(৭) বাংলাদেশের সমূদ্র সীমায় জাগরিত তালপট্টি দীপ দখল করন।

(৮) বাংলাদেশের সমূদ্র সীমার দুই-তৃতীয়াংশ জুড়ে ভারতের অবৈধ দাবী উত্থাপন।

(৯) বছরে প্রায় ২২০০০ নারী ও শিশুকে পাচার করে তাদেরকে ভারতের বিভিন্ন পতিতালয়ে এবং কল-কারখানায় দাস হিসেবে ব্যবহার করা।

(১০) বেরুবারীর বদলে তিন বিঘা করিডোর হস্তান্তর না করা-ইত্যাদি।

 

বাংলাদেশের সার্বভৌমত্বের বিরুদ্ধে আঘাত স্বরুপ যে-সব কর্মকান্ড ভারত এ যাবত গ্রহণ করেছে সেগুলো হলোঃ

 

(১) ১৯৭১ সালেই মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন ভারত বাংলাদেশের প্রবাসী সরকারকে বাধ্য করে ৭ দফা চুক্তি স্বাক্ষরে- যার মাধ্যমে বাংলাদেশের মর্যাদা একটি সার্বভৌমত্বহীন রাস্ট্রে নামিয়ে আনা হয়।

 

(২) ১৯৭১ সালে ৯ মাস  ব্যাপী মুক্তিযুদ্ধে আমাদের লক্ষাধিক মুক্তিসেনা এবং পুরো জাতি যে সংগ্রাম ও ত্যাগ তিতীক্ষা বরন করেছে তাকে অস্বীকার করে পাকিস্তানী বাহিনীকে পরাজিত করার একক দাবীদার হিসেবে ভারত নিজেকে আবির্ভূত করে । কিন্তু বাস্তবতা হলো এই যে- বাংলাদেশের লক্ষাধিক মুক্তিযোদ্ধা এবং পুরো জাতি মিলে পাকিস্তানী বাহিনীকে পর্যুদস্ত না করলে এবং যৌথ বাহিনীকে সমর্থন না করলে – ভারত কোন দিনই পাকিস্তানী বাহিনীকে পরাস্ত করতে পারতো না।

 

(৩) মুজিব-ইন্দিরা স্বাক্ষরিত ২৫ বছরের গোলামী চুক্তির মাধ্যমে বাংলাদেশের প্রতিরক্ষা ও পররাস্ট্র নীতি ভারতের উপর নির্ভরশীল করা হয়েছিল।

 

(৪) ভারত ১৯৭৫ সালের পর কাদেরীয়া বাহিনীকে বাংলাদেশের সীমান্ত এলাকায় দীর্ঘদিন যাবত হামলা পরিচালনায় সহায়তা দিয়েছে।

 

(৫) ভারতের কোলকাতায় বসে ‘বঙ্গভুমি আন্দোলন’ নামক বাংলাদেশ বিরোধী বিচ্ছিন্নতাবাদী গ্রুপ মিটিং মিছিল ও সভা–সমাবেশ করে, যাদের দাবী – বাংলাদেশের দক্ষিন-পশ্চিমাঞ্চলে একটি হিন্দু রাস্ট্র গঠন করা।

 

(৬) ভারত বাংলাদেশের পার্বত্য চট্টগ্রামের বিচ্ছিন্নতাবাদী চাকমা সন্ত্রাসীদেরকে দীর্ঘদিন যাবত অস্ত্র, গোলাবারুদ, রসদ, আশ্রয় ও প্রশিক্ষণ দিয়ে পার্বত্য চট্টগ্রামে প্রায় ৩৫০০০ মানুষকে হত্যা করতে সহায়তা করেছে। ভারতের মাটিতে বসে তারা আজো বাংলাদেশ বিরোধী প্রপাগান্ডা চালাচ্ছে। বাস্তবে এটি হলো বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ভারতের প্রক্সি যুদ্ধ।

 

(৭)  ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী কর্তৃক পাখির মত গুলি করে বাংলাদেশী নাগরিকদের হত্যা করা হয়। মানবাধিকার সংগঠন ‘অধিকার’-এর রিপোর্ট অনুযায়ী – ২০০০ সালের জানুয়ারীর প্রথম থেকে চলতি ২০১১ সালের আগষ্টের ৩১ তারিখ পর্যন্ত ভারত ৯৯৮ জনকে হত্যা, ৯৯৬ জনকে আহত,  ৯৫৭ জনকে অপহরন, ২২৬ জনকে গ্রেফতার এবং ১৪ জনকে ধর্ষণ করেছে।

 

(৮) ভারত বাংলাদেশকে কাঁটাতারের বেড়া দ্বারা ঘিরে ফেলে পৃথিবীর বৃহত্তম কারাগারে পরিণত করেছে।

 

(৯) ভারত বাংলাদেশে প্রবেশকারী ৫৪ টি আন্তর্জাতিক নদীর উপর বাঁধ নির্মাণ করেছে এবং টিপাইমুখ বাঁধ নির্মাণের পরিকল্পনা হাতে নিয়েছে- যা বাংলাদেশের বৃহত্তম সিলেট অঞ্চলকে মরুভুমিতে পরিণত করবে।

 

(১০) ভারত ফারাক্কা বাঁধের মাধ্যমে গঙ্গা নদীর পানি উজানে প্রত্যাহার করে নিচ্ছে। ১৯৯৬ সালে আওয়ামী সরকার গ্যারান্টি ক্লজ ও আন্তর্জাতিক মধ্যস্ততার বিধান ছাড়াই গঙ্গা চুক্তিতে স্বাক্ষর করে কিন্তু এযাবত কোন বছরেই ভারত বাংলাদেশকে পানির ন্যায্য হিস্যা দেয়নি। এছাড়া, একসাথে ফারাক্কার সবগুলো গেইট খুলে দিয়ে প্রতি বছর বাংলাদেশে কৃত্রিম বন্যা সৃষ্টি করছে। ফারাক্কা বাঁধের কারনে বাংলাদেশের নদীতে নাব্যতা কমে অনেক নদী সরু খালে পরিনত হয়েছে; উত্তরাঞ্চলে দেখা দিয়েছে মরুকরণ,আর্সেনিকে আক্রান্ত হয়েছে প্রায় অর্ধ কোটি মানুষ।

 

(১১) ভারত হাসিনা সরকারের সহায়তায় বাংলাদেশকে তার গোয়েন্দা বাহিনীর বিচরণ ক্ষেত্রে পরিণত করেছে; বাংলাদেশের ভিতর থেকেই ‘র’ এর সদস্যরা এখন হরহামেশা মানুষ ধরে নিয়ে যায়।

 

(১২) ভারত ‘ব্যাগ ভরতি টাকা এবং মন্ত্রনা’ দিয়ে বাংলাদেশের গত নির্বাচন তথা রাজনীতিতে হস্তক্ষেপ করেছে বলে লন্ডনের ‘ইকোনোমিষ্ট’ পত্রিকা তথ্য বের করেছে।

 

(১৩) ভারত জেএমবি নামক উগ্রবাদী গোষ্ঠী তৈরীতে মদদ দিয়ে বাংলাদেশকে তথাকথিত ইসলামী জঙ্গীদের দেশ হিসেবে বহিঃর্বিশ্বে উপস্থাপন করতে চায়।

(১৪) ভারতের গোয়েন্দা সংস্থা বাংলাদেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানকে হত্যার পরিকল্পনা হাতে নিয়েছিল বলে ভারতীয় লেখকেরাই এখন স্বীকার করছেন।

https://i0.wp.com/www.zyzyo.com/wp-content/uploads/2010/11/Research-and-Analysis-Wing-of-India.jpg

ভারতের গোয়েন্দা সংস্থা 'র'

(১৫) বাংলাদেশের সার্বভৌমত্ব বিরোধী করিডোর সুবিধা আদায়ের উদ্দেশ্যে ভারত  ‘সহযোগিতার জন্য কাঠামো চুক্তি’ স্বাক্ষর করেছে এবং বাংলাদেশের সকল সেক্টরে অনুপ্রবেশের সুযোগ হাতিয়ে নিয়েছে। এর ফলে বাংলাদেশের অর্থনৈতিক স্বার্থ, নিরাপত্তা ও সার্বভৌমত্ব দারুনভাবে ব্যাহত হবে।

 

(১৬) ভারত তার উত্তর-পূর্বাঞ্চলের স্বাধীনতা আন্দোলন দমন এবং বিতর্কিত অরুণাচল প্রদেশ নিয়ে চীনের সাথে সম্ভাব্য সংঘর্ষে বাংলাদেশের ভূমিকে ব্যবহার করার পরিকল্পনা নিয়ে তার সামরিক কার্যক্রমে বাংলাদেশকে জড়িয়ে ফেলার পরিকল্পনা নিয়েছে- এবং এ উদ্দেশ্যে বাংলাদেশের বুক চিড়ে তার সামরিক বহর চলাচলের জন্য করিডোর সুবিধা আদায় করেছে।

 

(১৭) বিএসএফ কর্তৃক বাংলাদেশী নাগরিকদের হত্যা করা হলেও সেসব হত্যাকান্ডকে স্বাভাবিক মৃত্যু বলে আক্ষায়িত করার জন্য ভারতীয় বিএসএফ প্রধান ঢাকায় বসে নছিহত করে গেছেন।

 

সরকারের প্রতি প্রস্তাবিত আহবানঃ

 

ভারতের উপরোল্লেখিত আচরনের প্রেক্ষিতে বাংলাদেশের সীমান্ত নিরাপত্তা এবং জাতীয় সার্বভৌমত্ব রক্ষার জন্য সরকারের প্রতি নিম্নোক্ত আহবান জানানো জরুরীঃ

 

(ক) সীমান্তে হত্যা, নির্যাতন, অপহরন, ধর্ষণ ইত্যাদি মানবাধিকার লংঘনের বিরুদ্ধে শক্ত কুটনৈতিক প্রতিবাদ জানানো এবং এসব অপরাধ বন্ধ না হলে জাতিসংঘের শরণাপন্ন হওয়া;

https://i1.wp.com/www.shahidulnews.com/wp-content/uploads/2011/01/felani.jpg

(খ) সীমান্তে ভূমি দখল, সশস্ত্র আগ্রাসন এবং সামরিক স্থাপনা নির্মান থেকে ভারতকে বিরত রাখা এবং কোন ভূমি ভারতের কাছে হস্তান্তরকরণ থেকে বিরত থাকা;

 

(গ) বাংলাদেশের অর্থনীতি, কৌশলগত নিরাপত্তা এবং জাতীয় সার্বভৌমত্ব পরিপন্থী করিডোর প্রদানের কার্যক্রম থেকে ফিরে আসা;

 

(ঘ) গঙ্গা পানি চুক্তি অনুসারে পানির ন্যায্য হিস্যা আদায়ে কার্যকরী ব্যবস্থা গ্রহন, টিপাইমূখ বাঁধ নির্মানে ভারতকে বিরত রাখা, স্থল ও সমূদ্র সীমানায় ভারতকে অন্যায্য দাবী-দাওয়া তোলা থেকে বিরত রাখা এবং ফারাক্কা বাঁধের কারনে ক্ষতিপূরন আদায়ের ব্যবস্থা নেয়া;

https://i0.wp.com/beaverdamsss.com/wp-content/uploads/2011/09/Tipaimukh-Dam.jpg

প্রস্তাবিত টিপাইমূখ বাঁধ

 https://i2.wp.com/www.globalwebpost.com/farooqm/writings/bangladesh/farakka/farakka.jpg

(ঙ) মুজিব-ইন্দিরা চুক্তি অনুযায়ী ১৯৭৪ সালে বেরুবাড়ী হস্তান্তরের বিনিময়ে ৩ বিঘা করিডোর সম্পূর্নভাবে বিনিময় করতে এবং তালপট্টি দ্বীপ ভারতের দখলমুক্ত করতে কার্যকরী ব্যবস্থা গ্রহন;

https://wakeupbd.files.wordpress.com/2011/10/location.gif?w=226

(চ) সীমান্তে চোরাচালান ও মানব পাচার বন্ধকরণ; এযাবত বিএসএফ এর হাতে ক্ষতিগ্রস্থদের জন্য আন্তর্জাতিক নিয়মানুসারে ক্ষতিপূরন আদায়ের ব্যবস্থা করন;

 

(ছ) ভারতের উত্তর পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্যসমূহে চলমান স্বাধীনতা আন্দোলন দমনে এবং চীনের সাথে ভারতের সম্ভাব্য কোন সামরিক সংঘর্ষে বাংলাদেশের ভূমি ব্যবহারের ভারতীয় পরিকল্পনার অংশ হওয়া থেকে বিরত থাকা;

 

(জ) পার্বত্য চট্টগ্রামের সশস্ত্র বিচ্ছিন্নতাবাদীদেরকে সাহায্য-সহযোগিতা দান থেকে বিরত থাকতে প্রতিবেশী রাস্ট্রের সাথে দক্ষ কুটনৈতিক ব্যবস্থা গ্রহন;

 

(ঝ) তিস্তার পানি বন্টন চুক্তিকে করিডোর প্রদানের সাথে সম্পরকিত না করা এবং ভবিষ্যতে তিস্তা চুক্তিতে গ্যারান্টি ক্লজ ও আন্তর্জাতিক মধ্যস্থতার ব্যবস্থা রাখা;

 

(ঞ) পিলখানায় ৫৭ জন অফিসারকে হত্যার পেছনের ষড়যন্ত্রকারীদেরকে সনাক্ত করতে কার্যকরী ব্যবস্থা গ্রহন এবং সীমান্তের ৮ কিঃ মিঃ এলাকা থেকে পুলিশ-র‍্যাব তুলে এনে সীমান্তকে আরো অরক্ষিত করা থেকে বিরত থাকা;

 

( ট) বাংলাদেশে ভারতীয় গোয়েন্দা সংস্থা ‘র’ এর সকল কার্যক্রম বন্ধ করা এবং বাংলাদেশের অভ্যন্তরীন রাজনীতিতে ‘ব্যাগভরতি টাকা ও শলাপরামর্শ’ দিয়ে হস্তক্ষেপ করা থেকে ভারতকে বিরত রাখা।

 

(ঠ) সদ্য স্বাক্ষরিত ‘সহযোগিতার জন্য কাঠামো চুক্তি’ অনুসারে বাংলাদেশের সকল সেক্টরে ভারতীয় অনুপ্রবেশের সুযোগ সৃষ্টিকরন থেকে বিরত থাকা।

 

তারিখঃ ১৬ অক্টোবর ২০১১।

ইমেইলঃ farukbd5@yahoo.com

//  

 

Pakistan and “The Haqqani Network” : The Latest Orchestrated Threat to America and The End of History

by Dr. Paul Craig Roberts | Global Research,

Have you ever before heard of the Haqqanis? I didn’t think so. Like Al Qaeda, about which no one had ever heard prior to 9/11, the “Haqqani Network” has popped up in time of need to justify America’s next war–Pakistan.

President Obama’s claim that he had Al Qaeda leader Osama bin Laden exterminated deflated the threat from that long-serving bogyman. A terror organization that left its leader, unarmed and undefended, a sitting duck for assassination no longer seemed formidable. Time for a new, more threatening, bogyman, the pursuit of which will keep the “war on terror” going.

Now America’s “worst enemy” is the Haqqanis. Moreover, unlike Al Qaeda, which was never tied to a country, the Haqqani Network, according to Admiral Mike Mullen, chairman of the US Joint Chiefs of Staff, is a “veritable arm” of the Pakistani government’s intelligence service, ISI. Washington claims that the ISI ordered its Haqqani Network to attack the US Embassy in Kabul, Afghanistan, on September 13 along with the US military base in Wadak province.

https://i1.wp.com/www.tiptoptens.com/wp-content/uploads/2011/02/ISI-Best-Intelligence-Agency.jpg

Washington claims that the ISI ordered its Haqqani Network to attack the US Embassy in Kabul, Afghanistan.

https://i1.wp.com/iprd.org.uk/wp-content/uploads/2010/08/US-war-state1.jpg

Senator Lindsey Graham, a member of the Armed Services committee and one of the main Republican warmongers, declared that “all options are on the table” and gave the Pentagon his assurance that in Congress there was broad bipartisan support for a US military attack on Pakistan.

As Washington has been killing large numbers of Pakistani civilians with drones and has forced the Pakistani army to hunt for Al Qaeda throughout most of Pakistan, producing tens of thousands or more of dislocated Pakistanis in the process, Sen. Graham must have something larger in mind.

The Pakistani government thinks so, too. The Pakistani prime minister,Yousuf Raza Gilani, called his foreign minister home from talks in Washington and ordered an emergency meeting of the government to assess the prospect of an American invasion.

 Meanwhile, Washington is rounding up additional reasons to add to the new threat from the Haqqanis to justify making war on Pakistan: Pakistan has nuclear weapons and is unstable and the nukes could fall into the wrong hands; the US can’t win in Afghanistan until it has eliminated sanctuaries in Pakistan; blah-blah.

Washington has been trying to bully Pakistan into launching a military operation against its own people in North Waziristan. Pakistan has good reasons for resisting this demand. Washington’s use of the new “Haqqani threat” as an invasion excuse could be Washington’s way of overcoming Pakistan’s resistance to attacking its North Waziristan province, or it could be, as some Pakistani political leaders say, and the Pakistani government fears, a “drama” created by Washington to justify a military assault on yet another Muslim country.

Over the years of its servitude as an American puppet, the Pakistan government has brought this on itself. Pakistanis let the US purchase the Pakistan government, train and equip its military, and establish CIA interface with Pakistani intelligence. A government so dependent on Washington could say little when Washington began violating its sovereignty, sending in drones and special forces teams to kill alleged Al Qaeda, but usually women, children, and farmers. Unable to subdue after a decade a small number of Taliban fighters in Afghanistan, Washington has placed the blame for its military failure on Pakistan, just as Washington blamed the long drawn-out war on the Iraqi people on Iran’s alleged support for the Iraqi resistance to American occupation.

Some knowledgeable analysts’ about whom you will never hear in the “mainstream media,” say that the US military/security complex and their neoconservative whores are orchestrating World War III before Russia and China can get prepared. As a result of the communist oppression, a signifiant percentage of the Russian population is in the American orbit. These Russians trust Washington more than they trust Putin. The Chinese are too occupied dealing with the perils of rapid economic growth to prepare for war and are far behind the threat.

War, however, is the lifeblood of the profits of the military/security complex, and war is the chosen method of the neoconservatives for achieving their goal of American hegemony.

Pakistan borders China and former constituent parts of the Soviet Union in which the US now has military bases on Russia’s borders. US war upon and occupation of Pakistan is likely to awaken the somnolent Russians and Chinese. As both possess nuclear ICBMs, the outcome of the military/security complex’s greed for profits and the neoconservatives’ greed for empire could be the extinction of life on earth.

The patriots and super-patriots who fall in with the agendas of the military-security complex and the flag-waving neoconservatives are furthering the “end-times” outcome so fervently desired by the rapture evangelicals, who will waft up to heaven while the rest of us die on earth.

This is not President Reagan’s hoped for outcome from ending the cold war.

Source: Pakalert Press

পিলখানা হত্যাকান্ডঃ বাংলাদেশের প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা ধ্বংসের ভারতীয় ষড়যন্ত্র [অধ্যায়-২]

[১ম খন্ড] -এর পর

৩. ঘটনা-পরবর্তী ভারতীয় প্রতিক্রিয়া

বিডিআর হেডকোর্য়াটারে ঘটে যাওয়া নারকীয় হত্যাযজ্ঞের পরপরই ভারতীয় রাষ্ট্র সংশি−ষ্ট ব্যক্তিবর্গের উক্তি থেকে শুরু করে, তাদের সামরিক বাহিনীর ব্যাপক প্রস্তুতি এবং সে দেশের ইলেক্ট্রনিক ও প্রিন্ট মিডিয়াতে প্রকাশিত খবরগুলো যে কোন ব্যক্তিকে উদ্বিগ্ন করার জন্য যথেষ্টনির্মম এ হত্যাযজ্ঞের সুষ্ঠু তদন্তের স্বার্থে এ বিষয়গুলো যথেষ্ট গুরুত্বের সাথে বিবেচনার দাবি রাখে।

৩.১ ভারত সরকারের প্রতিক্রিয়া

ভারতের রাজনৈতিক নেতৃত্বের মনোভাব বলে দেয় যে তারা এই ঘটনার পরবর্তী পরিস্থিতি সম্পর্কে আগে থেকেই প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছে:

#ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী প্রণব মুখার্জী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ফোন করে পরিস্থিতি মোকাবিলায় যে কোন ধরনের সহায়তার আশ্বাস দেন এবং বিডিআরকে আর্থিক সহায়তার প্রস্তাব দেন।

https://wakeupbd.files.wordpress.com/2011/02/pranabmukherjee.jpg?w=300

ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী প্রণব মুখার্জী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ফোন করে পরিস্থিতি মোকাবিলায় যে কোন ধরনের সহায়তার আশ্বাস দেন এবং বিডিআরকে আর্থিক সহায়তার প্রস্তাব দেন।

#“…এই পরিস্থিতিতে বাংলাদেশকে সব ধরণের সহায়তা দিতে ভারত প্রস্তুত। … আমি তাদের উদ্দেশ্যে কঠোর সতর্কবাণী পাঠাতে চাই, যারা বাংলাদেশে শেখ হাসিনার সরকারকে দুর্বল করার চেষ্টা করছে, তারা যদি একাজ অব্যাহত রাখে, ভারত হাত গুটিয়ে বসে থাকবে না, প্রয়োজনে সরাসরি হস্তক্ষেপ করবে”। ভারতীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রী প্রণব মুখার্জী নয়া দিল্লীতে অনুষ্ঠিত কংগ্রেস নেতাদের বৈঠকে একথা বলেন, যা আউট লুক-এর একটি প্রতিবেদনে জানানো হয়।

https://i2.wp.com/omsnewsbd.com/wp-content/uploads/2011/02/1278693921031.jpg

শেখ হাসিনার সরকারকে রক্ষা করার প্রয়োজন কেন ভারতের? অবস্থাদৃষ্টে মনে হয় ২৫ফেব্রুয়ারীর ঘটনার পর বিডিআর এর যে সংস্কারের কথা বলা হচ্ছে তা ভারত শেখ হাসিনার মাধ্যমে করাতে চায়। এমনকি সম্ভব হলে তারা নিজেদের স্বার্থের অনুকূলে বাংলাদেশের সেনাবাহিনীর সংস্কারও করতে চাইবে।

৩.২ ভারতের সেনাবাহিনীর প্রতিক্রিয়া

ভারতীয় সেনাবাহিনীর ব্যাপক প্রস্তুতি দেশবাসীকে উদ্বিগ্ন করেছে। এই প্রস্তুতি সম্পর্কে মিডিয়ায় যা প্রকাশিত হয়েছে তা নিম্নরূপ:

https://i2.wp.com/www.mysarkarinaukri.com/files/images/Logo%20-%20Indian%20Army%20-%201.jpg

বিদ্রোহের পরপরই বাংলাদেশে humanitarian intervention বা মানবিক হস্তক্ষেপের জন্য ভারতীয় সেনাবাহিনীকে পুরোপুরি প্রস্তুত রাখা হয়েছিলো

১.ভারতের প্রখ্যাত ইংরেজী দৈনিক Hindustan Times এ গত ২ মার্চ প্রকাশিত একটি রিপোর্টে বলা হয়েছে, বিদ্রোহের পরপরই বাংলাদেশে humanitarian intervention বা মানবিক হস্তক্ষেপের জন্য ভারতীয় সেনাবাহিনীকে পুরোপুরি প্রস্তুত রাখা হয়েছিলো। পত্রিকাটি জানায় যে, বিদ্রোহের দিন ভারতের বিমান বাহিনী (আইএএফ) IL-76 হেভি লিফ্‌ট এবং AN-32 মিডিয়াম লিফ্‌ট এয়ারক্রাফট নিয়ে বাংলাদেশ সরকারকে পূর্ণ সহায়তা দিতে পুরোপুরি প্রস্তুত ছিলো। আসামের জোরহাটে অবস্থিত ভারতের সবচাইতে বড় বিমান ঘাটিকে এই সহায়তা মিশনের জন্য পুরোপুরি প্রস্তুত রাখা হয়েছিল।

২.বিএসএফ এর একজন ডাইরেক্টর জেনারেলের উক্তি থেকেও ভারতের সামরিক প্রস্তুতি সম্পর্কে ধারণা পাওয়া যায়।

গত ৪ মার্চ এক বিবৃতিতে তিনি বলেন,“বাংলাদেশে এই সঙ্কট (শুরু) হবার পর, আমরা ইন্দো-বাংলাদেশ সীমান্তে কর্তব্যরত আমাদের সকল সৈন্যদল ও অফিসারদের সর্বোচ্চ সতর্কতামূলক অবস্থায় থাকার নির্দেশ দিয়েছি।”

https://wakeupbd.files.wordpress.com/2011/02/bsf_logo.gif?w=289

ভারত সরকার মৈত্রী এক্সপ্রেসের নিরাপত্তার জন্য বিএসএফ-কে শান্তিরক্ষী বাহিনী হিসাবে বাংলাদেশে পাঠানোরও প্রস্তাব দিয়েছিল

৩.বিভিন্ন সংবাদ সংস্থার মাধ্যমে জানা যায় ঘটনার পরপরই সীমান্তে ভারতীয় কর্তৃপক্ষ বেনাপোলসহ বিভিন্ন স্থলবন্দর ও গুরুত্বপূর্ণ সীমান্ত এলাকায় ভারি অস্ত্রশস্ত্রসহ বিপুলসংখ্যক বিএসএফ সদস্যের পাশাপাশি বিশেষ কমান্ডো বাহিনী ব্লাকক্যাট মোতায়েন করে। একই সাথে সমস্ত সীমান্ত জুড়ে রেডএলার্ট জারি করে।

৪.ভারতের প্রিন্ট মিডিয়ার মাধ্যমে জানা যায় ভারত সরকার মৈত্রী এক্সপ্রেসের নিরাপত্তার জন্য বিএসএফ-কে শান্তিরক্ষী বাহিনী হিসাবে বাংলাদেশে পাঠানোরও প্রস্তাব দিয়েছে

স্বাভাবতই প্রশ্ন আসে, বাংলাদেশে ঘটে যাওয়া বিডিআর বাহিনীর অভ্যন্তরীণ এই বিদ্রোহকে ঘিরে ভারতের মতো একটি বিশাল রাষ্ট্রের এতো প্রস্তুতি কেন। আর যাই হোক এই বিদ্রোহ কোনভাবেই ভারতের জন্য নিরাপত্তা হুমকি ছিলো না। আর তাছাড়া যে বিদ্রোহের গুরুত্ব ও ভয়াবহতা (প্রধানমন্ত্রীর সংসদে প্রদত্ত ভাষ্য অনুযায়ী) প্রধানমন্ত্রী স্বয়ং বুঝতে ব্যর্থ হয়েছেন, যে জন্য তারা সেনা অফিসারদের রক্ষায় দ্রুত সামরিক অভিযানে না গিয়ে ৩৬ ঘন্টা যাবত হত্যাকারীদের সাথে একের পর এক বৈঠক করে ধীর স্থিরতার সাথে রাজনৈতিকভাবে সামরিক বিদ্রোহ দমন করলেন, সেই বিদ্রোহের গুরুত্ব বা ভয়াবহতা ভারত সরকারই বা কিভাবে বুঝে  ফেললো ? এছাড়া এ দেশের সামরিক বাহিনীর মধ্যকার যে কোন বিদ্রোহ দমনে এ দেশীয় দক্ষ সেনাবাহিনীই যথেষ্ট, এতে সন্দেহের কোন অবকাশ নেই। তাহলে, ভারতের মিশন কী? বাংলাদেশের বর্তমান বন্ধু সরকারকে রক্ষা করা? বাংলাদেশের সরকারকে রক্ষা করবে ভারতীয় বাহিনী। কেন? আমাদের নিরাপত্তা বাহিনী নেই?  নাকি প্রধানমন্ত্রী তাদের বিশ্বাস করেন না?

৩.৩ ভারতের মিডিয়ার প্রতিক্রিয়া

২৭ ফেব্রুয়ারীর পূর্ব পর্যন্ত এদেশের জনগণও পুরোপুরিভাবে তথাকথিত এই বিদ্রোহের আসল রূপ বুঝতে পারেনি। অথচ পুরো সময়ে ভারতীয় মিডিয়া ছিল অত্যন্ত তৎপর:

https://i2.wp.com/news.xinhuanet.com/english/2009-02/27/xin_232020627170629681248.jpg

আমাদের গোয়েন্দা সংস্থা যেখানে দুই দিনেও শাকিল আহমেদের মৃত্যু নিশ্চিত করতে পারেনি, সেখানে সুদূর ভারতে বসে ভারতীয় মিডিয়া জেনারেল শাকিল আহমেদসহ ১২ জন অফিসারের নিহত হবার বিষয়ে কি করে নিশ্চিত হলো?

১.বিডিআর জেনারেল শাকিল আহমেদসহ আরও ১১ জন সেনা কর্মকর্তার নিহত হবার সংবাদ ভারতীয় গোয়েন্দা সংস্থা নিয়ন্ত্রিত চ্যানেল এনডিটিভিতেই সর্বপ্রথম প্রচার করা হয়েছে। আমাদের গোয়েন্দা সংস্থা যেখানে দুই দিনেও শাকিল আহমেদের মৃত্যু নিশ্চিত করতে পারেনি, সরকারের মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রী ঘন ঘন বিডিআর হেডকোর্য়াটারে যাতায়াত করে হত্যাকারীদের সাথে দফায় দফায় দেনদরবার করেও যেখানে গণহত্যার খবর পায়নি, সেখানে সুদূর ভারতে বসে ভারতীয় মিডিয়া ১২ জন অফিসারের নিহত হবার বিষয়ে কি করে নিশ্চিত হলো? তাহলে কি তাদের গোয়েন্দা সংস্থার এজেন্টরা বিডিআর হেডকোর্য়াটারের ভেতরে অবস্থান করছিলো?

২.ভারতীয় গোয়েন্দা সংস্থা ‘র’ এর সাবেক শীর্ষ পর্যায়ের কর্মকর্তা বি. রমন ২৭ ফেব্রুয়ারী ভারতের বিখ্যাত ম্যাগাজিন আউটলুকে বলেন ভারতের প্রতি বিডিআর সদস্যদের বৈরী মনোভাব বাংলাদেশের সাথে সম্পর্কের ক্ষেত্রে বাধা।

৩.ঘটনার পরপরই ভারতের প্রিন্ট মিডিয়ায় বিডিআরকে একটি অত্যন্ত ভয়ঙ্কর বাহিনী হিসাবে উপস্থাপন করা হয়েছে।

৪.আর আনন্দবাজার, টেলিগ্রাফ এর মত পত্রিকাগুলো বাংলাদেশের বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলোকে আক্রমণ করে ধারাবাহিকভাবে সংবাদ প্রচার করেছে। এমনকি বিডিআর-এর ঘটনায় জঙ্গী কানেকশন ভারতীয় মিডিয়াই প্রথম আবিষ্কার করে। পরবর্তীতে একই ধরণের কথা আমরা এদেশের মন্ত্রীদের মুখে শুনতে পাই।

https://i0.wp.com/www.bangladeshrifles.com/--BDR_Logo-medium.jpg

ভারতীয় গোয়েন্দা সংস্থা ‘র’ এর সাবেক শীর্ষ পর্যায়ের কর্মকর্তা বি. রমন ২৭ ফেব্রুয়ারী বলেন ভারতের প্রতি বিডিআর সদস্যদের বৈরী মনোভাব বাংলাদেশের সাথে সম্পর্কের ক্ষেত্রে বাধা।

৪. সরকারের ভূমিকা

৪.১ ফেব্রুয়ারী ২৫-২৬

পরিস্থিতির বিশ্লে−ষণ থেকে বুঝা যায় ঘটনার শুরু থেকেই ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ সরকার রহস্যজনক ভূমিকা পালন করেছেএতো বড় ঘটনার পরিকল্পনা চলছিল আর সরকার তা জানে না, একথা মেনে নেয়া যায় না। তাছাড়া জাতীয় নিরাপত্তার সাথে সংশি−ষ্ট অতি গুরুত্বপূর্ণ এই পরিস্থিতিতে কেন শুরুতেই অনভিজ্ঞ প্রতিনিধিদের পাঠানো হয়েছে যারা কতিপয় বিদ্রোহীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করেছে? অথচ তারা সেনা সদস্য ও তাদের পরিবারের জান-মাল-ইজ্জতের নিরাপত্তা নিশ্চিত করেনি। সেনাসদস্য ও তাদের পরিবারবর্গের নিরাপত্তা নিশ্চিত না করেই সরকার কি উদ্দেশ্যে তড়িঘড়ি করে সাধারণ ক্ষমা ঘোষণা করলো? যে ঘোষণার সুযোগ নিয়ে তারা দেড় দিন ধরে লাশ গুম, ব্যাপক লুটতরাজ ও সেনা কর্মকর্তাদের পরিবারবর্গের উপর নির্যাতন করেছে। ২৬ ফেব্রুয়ারী বিকালে বিডিআর সদর দপ্তরের আশেপাশের লোকজনকে সরে যাওয়ার আহ্বান জানিয়ে এবং বিদ্যুত সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে প্রকৃতপক্ষে কি ঘাতকদের পালিয়ে যাওয়ার সুযোগ করে দেয়া হয়নি? সাহারা খাতুন ২৫ ফেব্রুয়ারী অস্ত্র জমা নিলেন, তারপরও বিপুল পরিমাণ অস্ত্র বাইরে গেল কিভাবে? যেসব বিদেশী নাগরিক আইডিসহ ধরা পড়েছিল, তাদেরকে ছেড়ে দেয়া হল কেন? বিমানে করে কারা পালালো? দেশবাসী ও সেনা কর্মকর্তারা এই রকম অসংখ্য প্রশ্নের উত্তর জানতে চায়। দেশবাসী ও সেনা কর্মকর্তাদের এই সব মৌলিক প্রশ্নের উত্তর এখনো পাওয়া যায়নি।

https://i0.wp.com/barta24.net/uploads/editoruploads/sahara-khatun-on-mobile-phone.jpg

সাহারা খাতুন ২৫ ফেব্রুয়ারী অস্ত্র জমা নিলেন, তারপরও বিপুল পরিমাণ অস্ত্র বাইরে গেল কিভাবে?

সেক্টর কমান্ডার লে. জে. মীর শওকত এক টকশোত বললেন, “সেনাবাহিনী আসতে পনের মিনিট, বিদ্রোহ দমন করতে পাঁচ মিনিট…”।

https://i2.wp.com/www.thedailystar.net/photo/2010/11/21/2010-11-21__fro22.jpg

সেক্টর কমান্ডার লে. জে. মীর শওকত এক টকশোত বলেছিলেন, “সেনাবাহিনী আসতে পনের মিনিট, বিদ্রোহ দমন করতে পাঁচ মিনিট...” এই অভিজ্ঞতাসম্পন্ন জেনারেল অনেকবার এর আগে সেনা বিদ্রোহ, বিমান বাহিনীর বিদ্রোহ দমন করেছেন।

লে. জে. শওকত অনেকবার এর আগে সেনা বিদ্রোহ, বিমান বাহিনীর বিদ্রোহ দমন করেছেন। একই ধরণের কথা আরো অনেকেই বলেছেন। তাহলে আধা ঘন্টার সামরিক সমাধানের পরিবর্তে ৩৬ ঘন্টার তথাকথিত রাজনৈতিক সমাধান হলো কেন? এর আগে জনাবা সাহারা খাতুন ও নানক সাহেব কয়টি বিদ্রোহ দমন করেছেন? ধানমন্ডির এমপি তাপস সাহেব মিডিয়ায় বললেন, ‘চমক আছে’! কী চমক? বাষট্টি সেনা কর্মকর্তার লাশ? নাকি সকল হত্যাকারীর পলায়ন! এখানে আরো একটি প্রশ্ন থেকে যায়। প্রধানমন্ত্রী সংসদে দাঁড়িয়ে বলেছেন যে বিদ্রোহের সংবাদ জানার পর তিনি সেনাপ্রধানকে প্রশ্ন করে জেনেছেন সেনাবাহিনী আসতে দুই ঘন্টা লাগবে? কোনটা সত্য? আধা ঘন্টা না দুই ঘন্টা? রাজনৈতিক সমাধানের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী নাকি ‘গৃহযুদ্ধ’ ঠেকিয়েছেন। আসলে কি তাই? প্রধানমন্ত্রীর সাথে যে ১৪ জন মিটিং করেছিল, তারা সবাই কি গ্রেফতার হয়েছে? তাদের তালিকা কোথায়? অনেকে বলেছে সরকার দক্ষতার সাথে পরিস্থিতি সামাল দিয়েছে। এর তুলনা করা যেতে পারে এভাবে – অপারেশন সাকসেস্‌ ফুল, কিন্তু রোগী মারা গিয়েছে। বাস্তবতা হলো বিদ্রোহ দমন করা যেত, দমন করা হয়নি। সেনা কর্মকর্তাদের বাঁচানো যেত, বাঁচানো হয়নি।

আমরা বীর সেনা কর্মকর্তা হারালাম, বিডিআরের চেইন অব কমান্ড ধ্বংস হলো, হত্যাকারীরা পালালো -এইসব কারণেই সরকারের ভূমিকা প্রশ্নবিদ্ধ।

৪.২ ঘটনা পরবর্তী সরকারের ভূমিকা

যে মন্ত্রী তথাকথিত বিদ্রোহীদের সাথে দর কষাকষি করেছে সে জাতির সামনে বলেছেন যে, বিডিআর সদর দপ্তরে ঘটে যাওয়া ঘটনার পিছনে একটি গভীর ষড়যন্ত্র ছিল এবং এই ষড়যন্ত্র বাস্ত বায়নের জন্য লক্ষ-কোটি টাকা ব্যয় করা হয়েছে। তিনি সকল তদন্ত শুরু হবার আগেই এবং ঘটনার দুই দিনের মাথায় প্রকাশ্য সমাবেশে এই বক্তব্য দিয়েছিলেন। স্বাভাবিকভাবে প্রশ্ন জাগে তবে কি তিনি আগে থেকেই ষড়যন্ত্রের বিষয়টি জানতেন। তার এই বক্তব্যের সূত্র ধরে এখন সরকার ক্রমাগত ষড়যন্ত্রের কথা বলে প্রকৃত দোষীদের আড়াল করার চেষ্টা করছে।

প্রধানমন্ত্রী সংসদসহ বিভিন্ন জায়গায় বিডিআরের ঘটনায় বক্তব্য দিয়ে যাচ্ছেন যা অসংলগ্নতায় পরিপূর্ণ এবং বাস্তব ঘটনার সাথে অসামঞ্জস্যপূর্ণ। এসবের উদ্দেশ্যই হচ্ছে জনগণকে বিভ্রান্ত করা। যেমন তিনি বলেছেন সরকারকে বিব্রত করতে এই ঘটনা ঘটানো হয়েছে অথচ জনগণের কাছে পরিষ্কার যে বাংলাদেশের প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা দূর্বল করার জন্যই এই ঘটনা ঘটানো হয়েছেপ্রধানমন্ত্রী সংসদে বলেছেন যে, সকাল ১১টার মধ্যে সেনা কর্মকর্তাদের হত্যাকান্ড ঘটানো হয়েছে। এটা জেনে প্রধানমন্ত্রী কিভাবে দু’দুবার সাধারণ ক্ষমা ঘোষণা করেন।

প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা এবং পুত্র সজীব ওয়াজেদ জয়, আল-জাজিরাকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে বলেন যে, বিডিআরের তথাকথিত বিদ্রোহের পিছনে বৈধ কারণ রয়েছে

https://i0.wp.com/neawamileague.com/elements/joy.jpg

প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা এবং পুত্র সজীব ওয়াজেদ জয়

যেভাবে তথাকথিত বিদ্রোহীরা প্রথম দিন টিভি ক্যামরার সামনে এসে তাদের দাবী দাওয়ার কথা বলে দেশবাসীকে বিভ্রান্ত করেছিল, একই প্রক্রিয়াই সজীব জয় দেশবাসীকে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করছেন

ঘটনা তদন্তের জন্য এফবিআই ও স্কটল্যান্ড ইয়ার্ড বাংলাদেশে এসেছে। অর্থাৎ আমেরিকা ও বৃটেন বাংলাদেশের ঘটনার তদন্ত করবে। অথচ এই মার্কিন-বৃটিশরা সারা বিশ্বে মুসলিম নিধনে ব্যস্ত। শুধু তাই নয়, এরা সবাই সরকারকে সমর্থন করার কথা ঘোষণা করেছে। উপরন্তু, এটা বিশ্বাসযোগ্য নয় যে এই বিদেশী গোয়েন্দা সংস্থাগুলো এই ঘটনার সাথে সংশি−ষ্ট ভারত ও ভারতের এদেশীয় দোসরদের ভূমিকার দিকে আঙ্গুলি নির্দেশ করতে পারে।

সরকার মিডিয়াকে দায়িত্বশীল আচরণের কথা বলে এখন সত্য প্রকাশের পথে বাধা সৃষ্টি করছে। প্রধানমন্ত্রীর সাথে সেনা কর্মকর্তাদের বৈঠকের একটি অংশ ইন্টারনেটের মাধ্যমে জনগণের কাছে পৌছে যাওয়ায় সরকার ঐ ওয়েব সাইটগুলো বন্ধ করে দিয়েছে। হিযবুত তাহ্‌রীর, বাংলাদেশ এই ঘটনার বিশে−ষণ করে ভারতকে দায়ী করায় ও সরকারের ভূমিকার সমালোচনা করায় সরকার ৩১ জনকে গ্রেফতার করে এবং তাদের বিরুদ্ধে মামলা করেছে। জনগণ এমনকি সেনা অফিসারদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে না পারলে কিছুই হয়না আর রাষ্ট্র রক্ষার জন্য রাজপথে নামলে হয় মামলা আর হয়রানি!

সরকার জনগণের দায়িত্ব নেয়ার কথা বলেছে, বর্তমান পরিস্থিতিতে সকলকে দায়িত্বশীল হতে বলছে, অথচ তারা অন্যের উপর দায় চাপানোর চেষ্টা করছে। আমরা দেখেছি সরকারের স্তাবকেরা বাংলাদেশের মিডিয়ায় ভারতীয় মিডিয়ার বক্তব্য হুবহু তুলে ধরছে, জঙ্গিবাদকে দায়ী করার চেষ্টা করছে, এমনকি সরকারের বয়স মাত্র পঞ্চাশ দিন ইত্যাদি বলে ঘটনার দায়দায়িত্ব অন্যের ঘাড়ে চাপানোর আপ্রাণ চেষ্টা করছে। তদন্ত কমিটির কোন রিপোর্ট প্রকাশ না হতেই সরকারের মন্ত্রীবর্গ ও মিডিয়া জঙ্গী গোষ্ঠীদেরকে এই ঘটনার জন্য দায়ী করা শুরু করেছে। আবার একই মন্ত্রী পরবর্তীতে বলছে যে জঙ্গীরা ছাড়া অন্যান্য গোষ্ঠীও এই ঘটনার সাথে জড়িত।

যেখানে ভারতে কিছু ঘটলেই ভারত সরকার পাশ্ববর্তী দেশের দিকে অঙ্গুলি নির্দেশ করে, সেখানে সরকার পরিকল্পনা করেই দেশের রাজনৈতিক অঙ্গনে বিভেদ সৃষ্টি করছে।

বিশ্লেণের উপসংহারে এসে আমরা বলতে পারি যে এই তথাকথিত বিদ্রোহ একটি দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনার অংশ, যার সাথে ভারত এবং সরকারের ভিতরে ও বাইরের ভারতীয় দোসর শক্তিসমূহ সংশি−ষ্ট। সেনাবাহিনীর মেধাবী কর্মকর্তাদের হত্যাযজ্ঞে লাভবান হবে মুশরিক শত্রু রাষ্ট্র ও তাদের দোসররা। বিভিন্ন দাবির আড়ালে বিডিআর এর চেইন অব কমান্ড ভেঙ্গে দেয়া হয়েছে এবং সেনাবাহিনীর কমান্ড থেকে বিডিআরকে বিচ্ছিন্ন করার নীলনক্‌শা বাস্তবায়নের প্রচেষ্টা চালাচ্ছে ষড়যন্ত্রকারীরা। এই দাবি বাস্তবায়িত হলে সামগ্রিকভাবে দেশের প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা হুমকির মধ্যে পড়বে। দেশের নিরাপত্তা রক্ষায় সেনা-বিডিআর এর যৌথ ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। বলার অপেক্ষা রাখে না যে বাংলাদেশের সেনাবাহিনী অথবা বাংলাদেশ রাইফেল্‌স এর যে কোন দুর্বলতা অথবা এই দুই প্রতিরক্ষা বাহিনীর পারস্পরিক সম্পর্কের দুর্বলতার সবচেয়ে বড় সুবিধাভোগী আমাদের শত্রু রাষ্ট্র ভারত। ……..(চলবে)

 

New ULFA strategy challenges Bangladesh foreign policy

Source : HOLIDAY, Google Image

M. Shahidul Islam

undefined

ULFA Commander-in-Chief Paresh Baruah posed with his soldier in a recent video footage.

Much like the sinking stock market, our foreign policy parameters too have hit the precipice. Those who wanted to write off the United Liberation Front of Assam (ULFA) by allowing Indian secret service members to capture and whisk out of Bangladesh the outfit’s leading personalities now find themselves boxed up and faced with a protracted dilemma involving major foreign policy implications.
Amidst a series of debacles since late 2009, the ULFA’s military command has re-organized its structure and strategy, posing enormous challenge to Bangladesh’s regional foreign policy pursuance and creating bitter acrimony with Delhi, despite the latter having succeeded so far in securing most of its desired concessions from the AL-led coalition regime.

Video footage
The re-organized senior command of ULFA, which that has been fighting a war of cessation since 1979 to liberate the Indian state of Assam from Delhi’s tutelage, has released on January 21 a video footage of its fighters from a remote hideout in Myanmar. Present among the guerrillas was their Commander-in-Chief, Paresh Baruah, who posed himself in battle fatigue to let the world know the group’s ability to outsmart Delhi and to carry on with its struggle to liberate Assam.
The orchestrated showmanship also had a lot to do with a series of decisions made by the AL-led coalition government since coming to power in early 2009. According to one source within the government, “process is underway to deport the outfit’s political guru and general secretary, Anup Chetia, from Bangladesh.” He seemed as yet unaware of the availability of the video footage of the outfit’s Commander- in- Chief.

ULFA political guru & General Secretary Anup Chetia

The source said the decision to handover Chetia to Indian authorities received a final nod during the recently concluded Home Secretary level meeting in Dhaka of the two neighbours.
Although much of what happened to the Dhaka -based ULFA leaders never got exposed to the public over the last two years. In December 2009 all hell broke loose following a spate of mysterious events resulting in the controversial apprehension from Dhaka – alleged by Indian law enforcers – of ULFA’s founding member, Arabinda Rajkhowa, his family members and a number of other leading personalities of the outfit.

India's notorious secret service Research and analysis wing (RAW) logo

Despite the uproars, Bangladesh authorities never confessed to carrying out those raids, resulting in Indian secret service members being blamed for forays inside Bangladesh, causing considerable embarrassment to a regime that has, by then, piqued enough suspicion of being blindly pro-Indian.
Besides, Bangladesh being a signatory to a number of international Conventions relating to the status of refugees, and, Chetia and his colleagues having applied for asylum pursuant to those conventions, the incidents spurred a number of legal complications.

Legal minefield
The issue began to degenerate into a major crisis during the army-backed caretaker (CT) regime when the Indian influence peddling multiplied and the CT tried to deport Chetia to India. In desperation and treading through a legal minefield, his counsel, Advocate Mohammad Abdus Sattar, formally applied to the UNHCR to have his client recognized as a convention refugee. Addressed to Antonio Guterres, head of the UNHCR, Chetia’s counsel wrote to the UNHCR, “Not only his prayer for asylum in Bangladesh did not make any headway, he was being detained beyond the statutory 7 years limit for illegally entering Bangladesh. He therefore needed UNHCR intervention as a person in need of protection.”
There is evidence to prove Chetia indeed had endured inhumane torture. He was first arrested in March 1991 in Assam, tortured in custody, but was later released by political intervention of then Chief Minister of Assam, Hiteswar Saikia. Fearing further arrest and threat to life, he fled to Bangladesh where he was again arrested on December 21, 1997 under the Foreigners Act and the Passports Act of Bangladesh. Sentenced to seven years of imprisonment, he was supposed to be freed in 2004, but still rots in Bangladesh prison without any justification.

Poisoned relations
Meanwhile, the Chetia factor had poisoned bilateral relations almost intermittently and the Indian request to extradite him remained stalled due to (1) his yet-to-be-disposed asylum application in Bangladesh court, and, (2) There being no extradition treaty between the two countries.
“Unless the court takes a decision denying Chetia’s claim for refugee status, or he himself withdraws his petition, the matter may not move further,” said a concerned source within the government. The crisis has meanwhile morphed into a major foreign policy headache, involving the compulsion to comply with international Conventions on one hand, and, adhering to the request of a friendly neighbour, on the other.
Sources say, Chetia is being approached and pressurized by mandated representatives of the Indian government to withdraw his asylum application in return for promise not to be harmed. But other ULFA leaders are not convinced.
Sensing an imminent danger to the outfit’s very existence, Paresh Barua, the military chief of the outfit, decided to re-cast the outfit and its stratagem from the mountain ranges astride Myanmar-China border. The latest video snapshot comes from one of those encampments where the temporary leadership of the outfit is currently based.
Curiously, Delhi never exerted the kind of pressure on Myanmar or China as it has been exerting on Bangladesh. This smacks of duplicity and dubiousness. May be the China factor is playing a major role in Delhi’s imbalanced attitude toward its smaller neighbours.
Be that what it may, our investigation shows, the 54-year-old Baruah has an anchor in China’s Yunnan province bordering Myanmar, and he often frequents between northern Myanmar’s Kachin areas and the Yannan of China. India’s external affairs minister, S M Krishna, had informed the Rajya Sabha last month that India had taken up with China the issue of Baruah’s presence in that country.
Meanwhile, a seemingly desperate Chief Minister of Assam, Tarun Gogoi, had said his government has received ‘encouraging signals’ from the ULFA for holding peace talks, something ULFA leadership never confirmed as yet.
All these prove one thing for certain: The Assam factor has internationalized to the level where a lasting peace with ULFA can only be achieved with cooperation from Bangladesh, Myanmar and China. Bangladesh is particularly pivotal to any peace deal due to the outfit’s political chief being inside Bangladesh prison and, Assam being sandwiched between China and Bangladesh.

BSF

BSF arrogance
Delhi may not be unaware of such realities, but its border force, the BSF, seems too haughty to acknowledge their ramifications. According to the Guardian newspaper (Jan. 23), killing of Bangladeshi citizens at the Indo-Bangladesh border ‘is endorsed by Indian officials.”
Any official endorsement of a policy makes that policy an official one, period. The Guardian report carries further evidence of that being the case; at a time when Indo-Bangladesh border shooting incidents created serious uproar in the global media outlets, especially since the brutal killing of a Bangladeshi teenager, Felani, last month.
Guardian reporter Brad Adams wrote, “India has the right to impose border controls. But India does not have the right to use lethal force except where strictly necessary to protect life. Yet some Indian officials openly admit that unarmed civilians are being killed.” The report adds, ” The head of the BSF, Raman Srivastava, says that people should not feel sorry for the victims, claiming that since these individuals were illegally entering Indian territory, often at night, they were “not innocent” and therefore were a legitimate target.” Even if one is goaded to accept such an illegitimate, foolhardy argument, can anyone show other example of unarmed civilians being shot to death in any other bordering areas of the world; in such huge numbers, so often, for so long?
That the government had failed to challenge Delhi on this particular count remains a matter of unmitigated shame and despair. It’s also a blot that can not be easily erased from the litany of undoing of a regime that knows not how to fashion a sustainable foreign policy.

Delhi’s Radar Control on Dhaka for Final Victory in the Great Game?

Source : news BD71

General Shankar’s warning is nothing new

Former Indian Chief of Indian Army General Shankar Roy Chowdhury in an interview published in the London edition of the Indian English daily on the 24th March has stated on a range of issues wherein two points seem to me to be critically important. One, in his verbatim, ‘Delhi can not afford to let Dhaka slip of its radar.’ Second, point there is what he termed as the issue of ‘Great Game’ at stake. The interview came at a time when Bangladesh has deeply been mourning the unprecedented savage killing of about five dozens of senior army officers in a mayhem for 33 hours at the BDR head quarter compound enclosure at the Peelkhana, Dhaka. Not only that the massacre was made in pre-planned way but also amazingly in full knowledge of the elected government, not excluding the P.M., Sheikh Hasina. In fact, she admitted to have known the news and appeal from the BDR DG Major General Shakil Ahmad right at the start of the killing started in frenzy that the DG was still alive and so sent a SOS to the P.M. Hasina at about 9 in the morning of 25 February to save his life and other army officers under attack. The killers happened to the BDR Jawans in the main who claimed to have some grievances of lower pay, poor service conditions, lack of full ration, and along with that misbehavior of the bosses who happened to be all from the regular army and not from the BDR cadre itself that also made one of their grievances.
The BDR massacre engineered not for petty demands

Could the grievances of the petty kind and demand to fulfill them might have led to the kind of unprecedented killing and massacre of about 60 brilliant and high ranking army officers, violating their women, looting of the valuables from the houses of those fell victims, defiling of the dead bodies, putting them into mass graves, throwing some dead bodies into sewerage manholes to flow down the drains all those brutality continued for 33 hours the BDR Jawans kept on hold and none, much less army commando permitted to intervene by the P.M., despite appeals from the army end to save lives of those being killed inside the BDR Head quarter enclosure. Who is to blame for the whole bits and pieces of the unprecedented brutal massacre? Only those who perpetrated the mayhem? None else is to blame anything for in the top of the administrative hierarchy?
Indian media’s propaganda galoreDelhi and Indian media, however, did pass on enough of information in regard to the their perception of who might have been behind the scene. They blamed the game on to the ISI or the Pakistan’s Inter Services Intelligence agency and their operatives. They further discovered that the whole brutality was engineered to destabilize the seven weeks old government of Bangladesh led by Sheikh Hasina, and so Pronob, the Foreign Affairs Minister of Delhi issued open threat for saving Hasina against any such machinations. General Shankar’s warning to Bangladesh is the latest one in the line. But may be Shankar an army person avoided mincing words, and instead was straight forward in warning Bangladesh and also clearly hinting at India that Delhi can’t afford to let Bangladesh slip of the radar control of Delhi or of full control and surveillance of bigger and powerful India. He reminded as well the issue of ‘Great Game’ of the past that gave India at times victory and at other defeat that happens in case of war between two powers.
Geographical disability and Indian evil design

The surveillance and all round control of Bangladesh by India are easily appreciable to all of average intelligence as she continued to do since the onset in 1972. But the other issue of Great game may not be clearly and readily understood by all of Bangladesh. As I understand, it is a matter of historical truth that the generation of the recent period is very much ignorant not for their own fault as the new generation turned helpless victims of truths of history for propaganda galore around than facts of truth even in school history books.
Akhanda BharatIndia’s Great Game is well known to be directed for reestablishing the AKHANDA BHARAT or reunited pre-Aryan India including Afghanistan in the western end to Thailand in the East and so with further eye in the far East Asia – Indonesia and the Philippines. Bangladesh is the immediate and the first target in the Great Game in continuing conflict of the regional history. That is why they foiled the newly created East Bengal and Assam Province in early twentieth century (1905-1911). Then again 1947 partition and creation of East Pakistan became eye swore for them for the mid twentieth century partition went against the same Great Game. General Shankar has been very candidly clear that the 1971 war victory for India happened to be the first of the Great Game. He also lamented though that in August 1975 India had a defeat in the continuing game when their own man, Hasina’s father, was toppled from the State power in Dhaka. Since then they have been looking for scope for victory here in Bangladesh. Shankar did not make any hide and seek, much less minced words, in the fact that they have now Hasina in Dhaka that must pave their victory following the defeat of 1975. The radar thus has been set in the finest tune. Whether the BDR massacre of the late February had been orchestrated for the game plan is not clear from his statement. But the fact that they would rescue Hasina at any cost that people have been hearing from the horse’s mouth and all media gave a clear signal to Dhaka that Delhi is in all way out for Hasina and not for Bangladesh, much les the overwhelming people’s deep feelings of wound for the unforgettable massacre of many of its highly decorated brilliant sons.
India’s interest for weak Bangladesh defense

Weakening of the defense of Bangladesh is for nobody’s interest but for Delhi and Delhi alone. During the first decade Bangladesh defense was at a dismal state. It then never had any self-confidence to fight for preservation of the country’s sovereignty in practically facing Indian big army. But since late 1970s onwards for the last three decades Bangladesh army including the BDR has been continually raised to such a position that it can confidently resist aggression against the sovereignty of Bangladesh. That the confidence so build up in Bangladesh and in the defense, in particular, can not escape notice of India’s AKHANDA BHARAT design that they may well consider it a sort of threat against their winning in the Great Game. That is why one would imagine that Delhi might have planned to weaken both of our regular armed forces and the BDR, the second line of defense.
RAW’s operation in Bangladesh

It is well known in intellectual circle that Indian central intelligence agency, R&AW, has had planned and implemented Delhi’s many operations in Bangladesh for the goal Delhi has in view for their hegemony and control in the region. Shankar has mentioned not many but one of such instance in the interview. That was that R&AW had tried to feed much information about the overthrow of Mujib from the State power. But Mujib hardly cared for them that brought tragically his down fall in August 1975. Curiously enough, Shankar did not say anything about President Zia’s killing in 1981 that the R&AW had not only planned for years but also implemented with all ferocity. That the R&AW first did not have nod in the matter from an Indian P.M. and then subsequently got the nefarious scheme for killing Zia approved by Indira Gandhi in early 1980, the successive P.M. in her second term, was later on made public in Indian media itself. Hasina’s six year training under R&AW’s care and protection in Delhi’s South Block during August 1975 to mid May 1981 is a record of history. That she tried to flee Bangladesh on the day President Zia was killed in Chittagong on the 30th May 1981 by some rebels just only after 17 days of Hasina’s homecoming from self exile in India made possible by Zia’s charity and broadmindedness is also a matter of authentic history of Bangladesh.

Indian hegemony against Bangladesh

India as she wished may not desist herself from the hegemonic game plan. But despite being a much smaller country, Bangladesh must preserve her independence and sovereignty against any adversary. I would have thus thought that India should start to respect the sovereignty of Bangladesh, and try to make friendship with Bangladesh and not with any particular party or a person. Hasina just like her father Mujib had has all vengeance against the army since the historic event of August 1975. That hatred psyche of Hasina against the army should not urge India to hate and attempt to destroy the patriotic Bangladesh Army. Despite death wishes of Delhi to directly and militarily interfere into the internal affairs of Bangladesh, I am sure, the patriotic army and people would teach the aggressor in the Great Game a good lesson, despite Hasina’s working as a fifth columnist and lackey from within.

RAW : An Instrument of Indian Imperialism

Source : thepeoplesvoice.org

Isha Khan

undefined
(RAW) headquarters New Delhi

The Research and Analysis Wing (RAW), created in 1968, has assumed a significant status in the formulation of India’s domestic and foreign policies, particularly the later. Working directly under the Prime Minister, it has over the years become an effective instrument of India’s national power. In consonance with Kautilya’s precepts, RAW’s espionage doctrine is based on the principle of waging a continuous series of battles of intrigues and secret wars.

RAW, ever since its creation, has always been a vital, though unobtrusive, actor in Indian policy-making apparatus. But it is the massive international dimensions of RAW operations that merit a closer examination. To the credit of this organization, it has in very short span of time mastered the art of spy warfare. Credit must go to Indira Gandhi who in the late 1970s gave it a changed and much more dynamic role. To suit her much publicized Indira Doctrine, (actually India Doctrine) Mrs. Gandhi specifically asked RAW to create a powerful organ within the organization which could undertake covert operations in neighboring countries. It is this capability that makes RAW a more fearsome agency than its superior KGB, CIA, MI-6, BND and the Mossad.

Its internal role is confined only in monitoring events having bearing on the external threat. RAW’s boss works directly under the Prime Minister. An Additional Secretary to the Government of India, under the Director RAW, is responsible for the Office of Special Operations (OSO), intelligence collected from different countries, internal security (under the Director General of Security), the electronic/technical section and general administration. The Additional Secretary as well as the Director General of Security is also under the Director of RAW. DG Security has two important sections: the Aviation Research Center (ARC) and the Special Services Bureau (SSB). The joint Director has specified desks with different regional divisions/areas (countries):

Area one. Pakistan: Area two, China and South East Asia: Area three, the Middle East and Africa: and Area four, other countries. Aviation Research Center (ARC) is responsible for interception, monitoring and jamming of target country’s communication systems. It has the most sophisticated electronic equipment and also a substantial number of aircraft equipped with state-of- the art eavesdropping devices. ARC was strengthened in mid-1987 by the addition of three new aircraft, the Gulf Stream-3. These aircraft can reportedly fly at an altitude of 52,000 ft and has an operating range of 5000 kms. ARC also controls a number of radar stations located close to India’s borders. Its aircraft also carry out oblique reconnaissance, along the border with Bangladesh, China, Nepal and Pakistan.

RAW having been given a virtual carte blanche to conduct destabilization operations in neighboring countries inimical to India to seriously undertook restructuring of its organization accordingly. RAW was given a list of seven countries (Bangladesh, Sri Lanka, Nepal, Sikkim, Bhutan, Pakistan and Maldives) whom India considered its principal regional protagonists. It very soon systematically and brilliantly crafted covert operations in all these countries to coerce, destabilize and subvert them in consonance with the foreign policy objectives of the Indian Government.

RAW’s operations against the regional countries were conducted with great professional skill and expertise. Central to the operations was the establishment of a huge network inside the target countries. It used and targeted political dissent, ethnic divisions, economic backwardness and criminal elements within these states to foment subversion, terrorism and sabotage. Having thus created the conducive environments, RAW stage-managed future events in these countries in such a way that military intervention appears a natural concomitant of the events. In most cases, RAW’s hand remained hidden, but more often that not target countries soon began unearthing those “hidden hand”. A brief expose of RAW’s operations in neighboring countries would reveal the full expanse of its regional ambitions to suit India Doctrine ( Open Secrets : India’s Intelligence Unveiled by M K Dhar. Manas Publications, New Delhi, 2005).

Bangladesh

Indian intelligence agencies were involved in erstwhile East Pakistan, now Bangladesh since early 1960s. Its operatives were in touch with Sheikh Mujib for quite some time. Sheikh Mujib went to Agartala in 1965. The famous Agartala case was unearthed in 1967. In fact, the main purpose of raising RAW in 1968 was to organise covert operations in Bangladesh. As early as in 1968, RAW was given a green signal to begin mobilising all its resources for the impending surgical intervention in erstwhile East Pakistan. When in July 1971 General Manekshaw told Prime Minister Indira Gandhi that the army would not be ready till December to intervene in Bangladesh, she quickly turned to RAW for help. RAW was ready. Its officers used Bengali refugees to set up Mukti Bahini. Using this outfit as a cover, Indian military sneaked deep into Bangladesh. The story of Mukti Bahini and RAW’s role in its creation and training is now well-known. RAW never concealed its Bangladesh operations.

Interested readers may have details in Asoka Raina’s Inside RAW: the Story of India’s Secret Service published by Vikas Publishing House of New Delhi.The creation of Bangladesh was masterminded by RAW in complicity with KGB under the covert clauses of Indo-Soviet Treaty of Friendship and Co-operation (adopted as 25-year Indo-Bangladesh Treaty of Friendship and Co-operation in 1972).

RAW retained a keen interest in Bangladesh even after its independence. Mr. Subramaniam Swamy, Janata Dal MP, a close associate of Morarji Desai said that Rameswar Nath Kao, former Chief of RAW, and Shankaran Nair upset about Sheikh Mujib’s assassination chalked a plot to kill General Ziaur Rahman. However, when Morarji Desai came into power in 1977 he was indignant at RAW’s role in Bangladesh and ordered operations in Bangladesh to be called off; but by then RAW had already gone too far. General Zia continued to be in power for quite some time but he was assassinated after Indira Gandhi returned to power, though she denied her involvement in his assassination( Weekly Sunday,Calcutta,18 September, 1988).

RAW was involved in training of Chakma tribals and Shanti Bahini who carry out subversive activities in Bangladesh. It has also unleashed a well-organized plan of psychological warfare, creation of polarisation among the armed forces, propaganda by false allegations of use of Bangladesh territory by ISI, creation of dissension’s among the political parties and religious sects, control of media, denial of river waters, and propping up a host of disputes in order to keep Bangladesh under a constant political and socio-economic pressure ( ” RAW and Bangladesh” by Mohammad Zainal Abedin, November 1995, RAW In Bangladesh: Portrait of an Aggressive Intelligence, written and published by Abu Rushd, Dhaka).

Sikkim and Bhutan

Sikkim was the easiest and most docile prey for RAW. Indira Gandhi annexed the Kingdom of Sikkim in mid-1970s, to be an integral part of India. The deposed King Chogyal Tenzig Wangehuck was closely followed by RAW’s agents until his death in 1992.

Bhutan, like Nepal and Sikkim, is a land-locked country, totally dependent on India. RAW has developed links with members of the royal family as well as top bureaucrats to implements its policies. It has cultivated its agents amongst Nepalese settlers and is in a position to create difficulties for the Government of Bhutan. In fact, the King of Bhutan has been reduced to the position of merely acquiescing into New Delhi’s decisions and go by its dictates in the international arena.

Sri Lanka

Post- independence Sri Lanka, inspire of having a multi-sectoral population was a peaceful country till 1971 and was following independent foreign policy. During 1971 Indo-Pakistan war despite of heavy pressure from India, Sri Lanka allowed Pakistan’s civil and military aircraft and ships to stage through its air and sea ports with unhindered re-fueling facilities. It also had permitted Israel to establish a nominal presence of its intelligence training set up. It permitted the installation of high powered transmitter by Voice of America (VOA) on its territory, which was resented by India.

It was because of these ‘irritants’ in the Indo-Sri Lanka relations that Mrs Indira Gandhi planned to bring Sri Lanka into the fold of the so-called Indira Doctrine (India Doctrine) Kao was told by Gandhi to repeat their Bangladesh success. RAW went looking for militants it could train to destabilize the regime. Camps were set up in Tamil Nadu and old RAW guerrillas trainers were dug out of retirement. RAW began arming the Tamil Tigers and training them at centers such as Gunda and Gorakhpur. As a sequel to this ploy, Sri Lanka was forced into Indian power-web when Indo-Sri Lanka Accord of 1987 was singed and Indian Peace-Keeping-Force (IPKF) landed in Sri Lanka.

The Ministry of External Affairs was also upset at RAW’s role in Sri Lanka as they felt that RAW was still continuing negotiations with the Tamil Tiger leader Parabhakran in contravention to the Indian government’s foreign policy. According to R Swaminathan, (former Special Secretary of RAW) it was this outfit which was used as the intermediary between Rajib Gandhi and Tamil leader Parabhakaran. The former Indian High Commissioner in Sri Lanka, J.N. Dixit even accused RAW of having given Rs. five corore to the LTTE. At a later stage, RAW built up the EPRLF and ENDLF to fight against the LTTE which turned the situation in Sri Lanka highly volatile and uncertain later on.

Maldives

Under a well-orchestrated RAW plan, on November 30 1988 a 300 to 400-strong well trained force of mercenaries, armed with automatic weapons, initially said to be of unknown origin, infiltrated in boats and stormed the capital of Maldives. They resorted to indiscriminate shooting and took high-level government officials as hostages. At the Presidential Palace, the small contingent of loyal national guards offered stiff resistance, which enabled President Maumoon Abdul Gayoom to shift to a safe place from where he issued urgent appeals for help from India, Pakistan, Sri Lanka, Britain and the United States.

The Indian Prime Ministe Rajiv Gandhi reacted promptly and about 1600 combat troops belonging to 50 Independent Para-Brigade in conjunction with Indian Naval units landed at Male under the code-name Operation Cactus. A number of IAF transport aircraft, escorted by fighters, were used for landing personnel, heavy equipment and supplies. Within hours of landing, the Indian troops flushed out the attackers form the streets and hideouts. Some of them surrendered to Indian troops, and many were captured by Indian Naval units while trying to escape along with their hostages in a Maldivian ship, Progress Light. Most of the 30 hostages including Ahmed Majtaba, Maldives Minister of Transport, were released. The Indian Government announced the success of the Operation Cactus and complimented the armed forces for a good job done.

The Indian Defense Minister while addressing IAF personnel at Bangalore claimed that the country’s prestige has gone high because of the peace-keeping role played by the Indian forces in Maldives. The International Community in general and the South Asian states in particular, however, viewed with suspicious the over-all concept and motives of the operation. The western media described it as a display of newly-acquired military muscle by India and its growing role as a regional police. Although the apparent identification of the two Maldivian nationals could be a sufficient reason, at its face value, to link it with the previous such attempts by the mercenaries, yet other converging factors, indicative of involvement of external hand, could hardly be ignored.

Sailing of the mercenaries from Manar and Kankasanturai in Sri Lanka, which were in complete control of IPKF, and the timing and speed of the Indian intervention proved their involvement beyond any doubt.

Nepal

Ever since the partition of the sub-continent India has been openly meddling in Nepal’s internal affairs by contriving internal strife and conflicts through RAW to destabilize the successive legitimate governments and prop up puppet regimes which would be more amenable Indian machinations. Armed insurrections were sponsored and abetted by RAW and later requests for military assistance to control these were managed through pro-India leaders. India has been aiding and inciting the Nepalese dissidents to collaborate with the Nepali Congress. For this they were supplied arms whenever the King or the Nepalese Government appeared to be drifting away from the Indian dictates and impinging on Indian hegemonic designs in the region. In fact, under the garb of the so-called democratization measures, the Maoists were actively encouraged to collect arms to resort to open rebellion against the legitimate Nepalese governments. The contrived rebellions provided India an opportunity to intervene militarily in Nepal, ostensibly to control the insurrections which were masterminded by the RAW itself. It was an active replay of the Indian performance in Sri Lanka and Maldives a few years earlier. RAW is particularly aiding the people of the Indian-origin and has been providing them with arms and ammunition. RAW has also infiltrated the ethnic Nepali refugees who have been extradited by Bhutan and have taken refuge in the eastern Nepal. RAW can exploit its links with these refugees in either that are against the Indian interest. Besides the Nepalese economy is totally controlled by the Indian money lenders, financiers and business mafia ( RAW’s Machination In South Asia by Shastra Dutta Pant, Kathmandu, 2003).

Afghanistan

Since December 1979, throughout Afghan War, KGB, KHAD (WAD) (former Afghan intelligence outfit) and RAW stepped up their efforts to concentrate on influencing and covert exploitation of the tribes on both sides of the Pakistan-Afghanistan border. There was intimate co-ordination between the three intelligence agencies not only in Afghanistan but in destabilization of Pakistan through subversion and sabotage plan related to Afghan refugees and mujahideen, the tribal belt and inside Pakistan. They jointly organized spotting and recruitment of hostile tribesmen and their training in guerrilla warfare, infiltration, subversion, sabotage and establishment of saboteur force/terrorist organizations in the pro-Afghan tribes of Pakistan in order to carry out bomb explosions in Afghan refugee camps in NWFP and Baluchistan to threaten and pressurize them to return to Afghanistan. They also carried out bomb blasts in populated areas deep inside Pakistan to create panic and hatred in the minds of locals against Afghan refugee mujahideen for pressurizing Pakistan to change its policies on Afghanistan.

Pakistan

Pakistan’s size, strength and potential have always overawed the Indians. It, therefore, always considers her main opponent in her expansionist doctrine. India’s animosity towards Pakistan is psychologically and ideologically deep-rooted and unassailable. India’s war with Pakistan in 1965 over Kashmir and in 1971 which resulted in the dismemberment of Pakistan and creation of Bangladesh are just two examples.

Raw considers Sindh as Pakistan’s soft under-belly. It has, therefore, made it the prime target for sabotage and subversion. RAW has enrolled and extensive network of agents and anti-government elements, and is convinced that with a little push restless Sindh will revolt. Taking fullest advantage of the agitation in Sindh in 1983 and the ethnic riots, which have continued till today, RAW has deeply penetrated and cultivated dissidents and secessionists, thereby creating hard-liners unlikely to allow peace to return to Sindh. Raw is also involved similarly in Balochistan.

RAW is also being blamed for confusing the ground situation is Kashmir so as to keep the world attention away from the gross human rights violations by India in India occupied Kashmir. ISI being almost 20 years older than RAW and having acquired much higher standard of efficiency in its functioning , has become the prime target of RAW’s designs, ISI is considered to be a stumbling block in RAW’s operations, and has, therefore, been made a target of all kinds of massive misinformation and propaganda campaign. The tirade against ISI continues unabated. The idea is to keep ISI on the defensive by fictionalising and alleging its hand is supporting Kashmiri Mujahideen and Sikhs in Punjab. RAW’S fixation against ISI has taken the shape of ISI-phobia, as in India everyone traces down the origin of all happenings and shortcomings to the ISI . Be it an abduction at Banglaore or a student’s kidnapping at Cochin, be it a bank robbery at Calcutta or a financial scandal in Bombay, be it a bomb blast at Bombay or Bangladesh, they find an ISI hand in it ( RAW :Global and Regional Ambitions” Edited by Rashid Ahmad Khan and Muhammad Saleem, Published by Islamabad Policy Research Institute, Asia Printers, slamabad, 2005).

RAW over the years has admirably fulfilled its tasks of destabilising target states through unbridled export of terrorism. The India Doctrine spelt out a difficult and onerous role for RAW. It goes to its credit that it has accomplished its assigned objectives due to the endemic weakness in the state apparatus of those nations and failure of their leaders.

-###-

%d bloggers like this: