• Categories

  • Archives

  • Join Bangladesh Army

    "Ever High Is My Head" Please click on the image

  • Join Bangladesh Navy

    "In War & Peace Invincible At Sea" Please click on the image

  • Join Bangladesh Air Force

    "The Sky of Bangladesh Will Be Kept Free" Please click on the image

  • Blog Stats

    • 290,238 hits
  • Get Email Updates

  • Like Our Facebook Page

  • Visitors Location

    Map
  • Hot Categories

Let`s Eliminate Indian Terrorists in Bangladesh

By: Abu Zafar Mahmood, USA

Hasina-Monmohan cry wolf jointly. As they could not eliminate the Mosques and transform the Islamic nation in Deen-e-Elahee, Could not impose Hindi instead of Bangla in Bangladesh. Indian interests are to keep Muslim countries unstable as it needs Bangladesh-Pakistan-Afghanistan under their knees for grabbing wealth. Moreover the rapid growth of Bangladesh in terms of modernization and wealth influences over the North-East border Indian districts. It also bring the Delhi`s discrimination to that huge region too. So, Indian strategy of collapsing Bangladesh becomes their one of prime Military agenda. That matches Indian expansionist design. But the USA-European flows of winds turn for Bangladesh. A slogan, “Let`s eliminate Indian Terrorists in Bangladesh” shines on posters.

https://i2.wp.com/www.topyaps.com/wp-content/uploads/2010/04/raw.jpeg

The Bangladesh administration is controlled by Indian Intelligence-RAW. It already collapsed BDR, weakened Armed-forces. Highest to lowest courts run under the same control. Prime Minister office is treated as RAW regional co-coordinating office. Ministry of Home-Foreign Affairs are directly dictated by the Indian officers. Indian trained Four Lac Eighty six thousand Nine Hundred Sixty (4, 86,960) Fanatic Hindu terrorists are the key fighters that are engaged in Government positions to collapse the sovereignty and Independence at the time sabotage in USA interests. These terrorists are all Indian trained. They instigate the instability of Bangladesh from inside the government. A surprising technique!

India has a long history of using terrorists and sending the hordes across borders. It captured Hyderabad, Junagarh and Manvadar illegally through police actions. It forced many smaller states to join the Indian Union by force of arms. It sent its forces to illegally capture Srinagar, using a fake article of accession which it now claims is lost–as if it ever existed. It sent militants to Tibet and Aksai Chin instigating a ferocious attack from China. It sent terrorists into Sikkim, and Bhutan and eventually illegally occupied Sikkim. It sent LTTE terrorists into Lanka trying to bifurcate the small peaceful Buddhist Island. It even tried terrorism in Myanmar and Maldives. It motivated the Hindu youths in Refugee camps, armed and engaged the Mukti Bahinee guerrilla groups across the border into East Pakistan in 1971. It than tried to incorporate Bangladesh using the Rakshi Bahinee after Awami League climbed on the government.

Now, Whatever Hasina, Rehana, Sajeeb Joy, Dipu Moni, Sahara and Ashraf are painting as friendlier relation with India is in real annexation procedure with India that the Fakhruddin-Moinuddin-Iftekharinitiated. Obviously, India needs terrorist regiments as Pakistani Army and ISI are rock to them  to defeat whereas Bangladesh is so rootless to them that it purchases the pillars as it needs. Indian officers train and control the civil and military officers in Bangladesh.

An article in one of Canada’s national magazines, Macleans, reported on an interview with a Pakistani ISI spy Farouk, who claimed that

India’s intelligence services, Research and Analysis Wing (RAW), have “tens of thousands of RAW agents in Pakistan.”

Many officials inside Pakistan were convinced that,

“India’s endgame is nothing less than the breakup of Pakistan. And the RAW is no novice in that area. In the 1960s, it was actively involved in supporting separatists in Bangladesh, at the time East Pakistan. The eventual victory of Bangladeshi nationalism in 1971 was in large part credited to the support the RAW gave the secessionists.”http://www2.macleans.ca/2009/04/23/new-delhi%E2%80%99s-endgame/


In September of 2008, the editor of Indian Defence Review wrote an article explaining that a stable Pakistan is not in India’s interests:

“With Pakistan on the brink of collapse due to massive internal as well as international contradictions, it is matter of time before it ceases to exist.” He explained that Pakistan’s collapse would bring “multiple benefits” to India, including preventing China from gaining a major port in the Indian Ocean, which is in the mutual interest of the United States. The author explained that this would be a “severe jolt” to China’s expansionist aims, and further, “India’s access to Central Asian energy routes will open up.”http://www.indiandefencereview.com/2008/09/stable-pakistan-not-in-indias-interest.html

In August of 2009, Foreign Policy Journal published a report of an exclusive interview they held with former Pakistani ISI chief Lieutenant General Hamid Gul, who was Director General of the powerful intelligence services (ISI) between 1987 and 1989, at a time in which it was working closely with the CIA to fund and arm the Mujahedeen. Once a close ally of the US, he is now considered extremely controversial and the US even recommended the UN to put him on the international terrorist list. Gul explained that he felt that the American people have not been told the truth about 9/11, and that the 9/11 Commission was a “cover up,” pointing out that, “They [the American government] haven’t even proved the case that 9/11 was done by Osama bin Laden and al Qaeda.” He said that the real reasons for the war on Afghanistan were that:

“The U.S. wanted to “reach out to the Central Asian oilfields” and “open the door there”, which “was a requirement of corporate America, because the Taliban had not complied with their desire to allow an oil and gas pipeline to pass through Afghanistan. UNOCAL is a case in point. They wanted to keep the Chinese out. They wanted to give a wider security shield to the state of Israel, and they wanted to include this region into that shield. And that’s why they were talking at that time very hotly about ‘greater Middle East’. They were redrawing the map.” http://www.foreignpolicyjournal.com/2009/08/12/ex-isi-chief-says-purpose-of-new-afghan-intelligence-agency-rama-is-%E2%80%98to-destabilize-pakistan%E2%80%99/

He also stated that part of the reason for going into Afghanistan was “to go for Pakistan’s nuclear capability,” as the U.S. “signed this strategic deal with India, and this was brokered by Israel. So there is a nexus now between Washington, Tel Aviv, and New Delhi.” When he was asked about the Pakistani Taliban, which the Pakistani government was being pressured to fight, and where the financing for that group came from; Gul stated:

“Yeah, of course they are getting it from across the Durand line, from Afghanistan. And the Mossad is sitting there, RAW is sitting there — the Indian intelligence agency — they have the umbrella of the U.S. And now they have created another organization which is called RAMA. It may be news to you that very soon this intelligence agency — of course, they have decided to keep it covert — but it is Research and Analysis Milli Afghanistan. That’s the name. The Indians have helped create this organization, and its job is mainly to destabilize Pakistan.”

He explained that the Chief of Staff of the Afghan Army had told him that he had gone to India to offer the Indians five bases in Afghanistan, three of which are along the Pakistani border. Gul was asked a question as to why, if the West was supporting the TTP (Pakistani Taliban), would a CIA drone have killed the leader of the TTP. Gul explained that while Pakistan was fighting directly against the TTP leader, Baitullah Mehsud, the Pakistani government would provide the Americans where Mehsud was, “three times the Pakistan intelligence tipped off America, but they did not attack him.” So why all of a sudden did they attack?

Because there were some secret talks going on between Baitullah Mehsud and the Pakistani military establishment. They wanted to reach a peace agreement, and if you recall there is a long history of our tribal areas, whenever a tribal militant has reached a peace agreement with the government of Pakistan, Americans have without any hesitation struck that target.

… there was some kind of a deal which was about to be arrived at — they may have already cut a deal. I don’t know. I don’t have enough information on that. But this is my hunch, that Baitullah was killed because now he was trying to reach an agreement with the Pakistan army. And that’s why there were no suicide attacks inside Pakistan for the past six or seven months.

Further, there were Indian consulates set up in Kandahar, the area of Afghanistan where Canadian troops are located, and which is strategically located next to the Pakistani province of Baluchistan, which is home to a virulent separatist movement, of which Pakistan claims is being supported by India. Macleans reported on the conclusions by Michel Chossudovsky, economics professor at University of Ottawa, that,

“the region’s massive gas and oil reserves are of strategic interest to the U.S. and India. A gas pipeline slated to be built from Iran to India, two countries that already enjoy close ties, would run through Baluchistan. The Baluch separatist movement, which is also active in Iran, offers an ideal proxy for both the U.S. and India to ensure their interests are met.”

Even an Afghan government adviser told the media that India was using Afghan territory to destabilize Pakistan. http://www.app.com.pk/en_/index.php?option=com_content&task=view&id=72423&Itemid=2

In September of 2009, the Pakistan Daily reported that captured members and leaders of the Pakistani Taliban have admitted to being trained and armed by India through RAW or RAMA in Afghanistan in order to fight the Pakistani Army. http://www.daily.pk/proof-captured-ttp-terrorists-admit-to-being-indian-raw-agents-11015/

The Council on Foreign Relations published a backgrounder report on RAW, India’s intelligence agency, founded in 1968

“primarily to counter China’s influence, [however] over time it has shifted its focus to India’s other traditional rival, Pakistan.” For over three decades both Indian and Pakistani intelligence agencies have been involved in covert operations against one another. One of RAW’s main successes was its covert operations in East Pakistan, now known as Bangladesh, which “aimed at fomenting independence sentiment” and ultimately led to the separation of Bangladesh by directly funding, arming and training the Pakistani separatists. Further, as the Council on Foreign Relations noted, “From the early days, RAW had a secret liaison relationship with the Mossad, Israel’s external intelligence agency.”http://www.cfr.org/publication/17707/

https://i1.wp.com/im.rediff.com/news/2003/sep/08spec.gif

Bangladesh is in the endgame of destabilization. The Indian trained militants are already positioned to damage and eliminate the patriotic elements and collapse the sovereignty and independence of Bangladesh. The next scene is waiting to appear as it faces challenges. Indian terrorization and collapsing Bangladesh is far different than Pakistan-Afghan battle field in more cases.

Of course, the Obama administration has opened a new strategy on Bangladesh and it`s near that the real Bangladeshi nationalists are sourcing supports recently. Ex-Prime Minister Khaleda Zia`s significant visit in Washington DC, NewJersy and New York as the leader of the opposition in Bangladesh National parliament in last week will bring face to face the Indian terrorists and Bangladeshi nationalists in Dhaka. The professionals and Journalists are desperate under the leadership of renowned Journalist Mahmudur Rahman called for up rise to topple down the government. The World super power prefers to see the down fall of the Hasina government soon that`s the observers assumption. India is taken in partnership on Afghanistan and Pakistan sector with NATO and on the other hand the Bangladesh and up to China will be controlled by USA direct. That will come up.

(Writer is free-lancer Journalist and political analyst.E-mail:rivercrossinternational@yahoo.com & azmnyc@gmail.com Date: Washington DC, June 04, 2011.)

Source:

https://i0.wp.com/newsfrombangladesh.net/images/a1_04.gifhttps://i0.wp.com/newsfrombangladesh.net/images/a1_05.gif

দেশ ও ইসলাম বিরোধী প্রচারণায় বাংলাদেশী সিনেমা ‘ব্ল্যাক’

মুহাম্মদ আমিনুল হক

বিতর্কিত লেখক ও সাংবাদিক সালাউদ্দীন শোয়েব চৌধুরী দেশ ও ইসলাম বিরোধী প্রচারণায় এবার তৈরী করছেন ব্ল্যাক (Black) নামে একটি সিনেমা। যার মাধ্যমে তিনি শরীয়া আইন, জিহাদ, বোরখা, পাথর ছুঁড়ে মারা, বহু বিবাহ, বাল্য বিবাহ ও শিরচ্ছেদের প্রসঙ্গ টেনে ইসলামের বিরুদ্ধে দেশ বিদেশে জনমত তৈরী করতে চাচ্ছেন। ব্ল্যাক সিনেমার প্রতিপাদ্য বিষয় নিয়ে কথা বলার আগে এ ছবির নির্মাতা সম্পর্কে কিছু তথ্য জাতিকে জানানোর প্রয়োজন বোধ করছি।

https://i2.wp.com/www.ishr.org/uploads/RTEmagicC_Bangladesch-Shoaib_Choudhury-durdesh.net.jpg.jpg

বিতর্কিত লেখক ও সাংবাদিক সালাউদ্দীন শোয়েব চৌধুরী দেশ ও ইসলাম বিরোধী প্রচারণায় এবার তৈরী করছেন ব্ল্যাক (Black) নামে একটি সিনেমা

https://i0.wp.com/www.weeklyblitz.net/images/logo.gif

''Weekly Blitz' এর মাধ্যমেই সালাউদ্দীন শোয়েব চৌধুরী তার ইসলাম বিদ্বেষী মনোভাব প্রকাশ করতে থাকেন

https://i0.wp.com/www.follow-islam.com/wp-content/uploads/2011/07/Jihad-In-Islam3.jpg

বিশেষকরে ইসলামের অন্যতম বিধান জিহাদের বিরুদ্ধে বিষোদগারমূলক বিভিন্ন লেখার মাধ্যমে সালাউদ্দীন শোয়েব চৌধুরীর সাপ্তাহিক পত্রিকাটি মানুষের কাছে ইসলাম বিরোধী পত্রিকা (Anti-Islamic Newspaper) হিসেবে পরিচিতি পায়

‘Weekly Blitz’ পত্রিকার সম্পাদক হিসেবে সালাউদ্দীন শোয়েব চৌধুরী বেশ পরিচিত। ”Weekly Blitz’ এর মাধ্যমেই তিনি তার ইসলাম বিদ্বেষী মনোভাব প্রকাশ করতে থাকেন। ইসলামের বিভিন্ন বিষয়ের বিরুদ্ধে তার লেখনীতে কখনো ছেদ পড়েনি। বিশেষকরে ইসলামের অন্যতম বিধান জিহাদের বিরুদ্ধে বিষোদগারমূলক বিভিন্ন লেখার মাধ্যমে তার সাপ্তাহিক পত্রিকাটি মানুষের কাছে ইসলাম বিরোধী পত্রিকা (Anti-Islamic Newspaper) হিসেবে পরিচিতি পায়।

তিনি ১৯৮৯ সনে সাংবাদিকতা শুরু করেন সোভিয়েট ইউনিয়নের ’তাস’ (TASS) নিউজ এজেন্সিতে। ১৯৯১ সনে তিনি ইটার তাস (Iter-Tass) নিউজ এজেন্সির বাংলাদেশ শাখার প্রধান সংবাদদাতা হিসেবে পদোন্নতি লাভ করেন। সোভিয়েট ইউনিয়নের পতনের পর বিভিন্ন দেশে ইটার তাসের কার্যক্রম বন্ধ হয়ে গেলে তিনি ১৯৯৬ সনে ওখান থেকে চাকুরী ছেড়ে বাংলাদেশে প্রথম প্রাইভেট টিভি চ্যানেল ২১শে টিভি প্রতিষ্ঠা করেন। তখনকার সময়ে একুশে টিভিও ইসলাম বিরোধী টিভি হিসেবে পরিচিতি পায়। বাংলা ও ইংরেজীতে তার কয়েকটি বই প্রকাশিত হয়েছে। তার মধ্যে ২০০৭ সালে প্রকাশিত হওয়া একটি বইয়ের শিরোণাম হচ্ছে- “Injustice & Jihad” (অবিচার এবং জিহাদ)। বইয়ের নাম দিয়েই অনুধাবন করা যায় ইসলাম নিয়ে তার কত জ্বালাপোড়া! বইটি ২০০৮ সালে Non Sono Colpevole নামে ইতালিয়ান ভাষায়ও প্রকাশিত হয়। ২০০৯ সনে Inside Madrassa (মাদরাসার অভ্যন্তরে) নামক বইটি প্রকাশিত হয়। উক্ত বইয়ের মাধ্যমে তিনি মাদরাসার বিরুদ্ধে বিভিন্নভাবে বিষোদগার করেন।

তিনি বাংলাদেশে ইসরাইল ভিত্তিক আন্তর্জাতিক সাহিত্য ফোরাম গঠন করেন। বাংলাদেশে আল-কায়েদা সংগঠনের বিস্তার সম্পর্কে তিনি অনেক আজগুবি লেখাও উপহার দেন। তার লেখনীতে বিভিন্ন মুসলিম দেশে ইসরাইল বিরোধীদের মনোভাব সম্পর্কেও তথ্য উঠে আসে। ইসলাম বিদ্বেষী এই বাম সাংবাদিকের আসল বন্ধু হচ্ছে- ইসরাইল ও তার দোসররা। এদেশে চৌধুরী সাহেব নিন্দিত হলেও ইসলাম বিরোধী শক্তি তাকে স্বীকৃতি দিয়েছে এবং দিচ্ছে। ২০০৫ সনে PEN USA তাকে মুক্ত লেখনীর জন্য পুরুস্কৃত করে। ২০০৬ সনের মে মাসে American Jewish Committee তাকে পুরুস্কৃত করতে চাইলে তৎকালীন সরকার তাকে যুক্তরাষ্ট্র যেতে বাধা প্রদান করে। ২০০৭ সনে তাকে Prince Albert of Monaco এওয়ার্ড প্রদান করা হয়।

https://i2.wp.com/www.darkgovernment.com/news/wp-content/uploads/2009/02/mossad-seal.jpg

ইসরাইলের একান্ত দোসর শোয়েব চৌধুরীকে ইসরাইল-মোসাদ কানেকশন ও দেশ বিরোধী তৎপরতার দায়ে ২৯ নভেম্বর ২০০৩ সনে তৎকালীন জিয়া আন্তর্জাতিক বিমান বন্দর (বর্তমানে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমান বন্দর) থেকে গ্রেফতার করা হয়। তিনি ১ ডিসেম্বর ২০০৩ তেলআবিবে অনুষ্ঠিতব্য এক কনফারেন্সে যোগদানের উদ্দেশ্যে ঢাকা ত্যাগ করার চেষ্টা করছিলেন। বিমান বন্দরে ইমিগ্রেশন পুলিশ তার লাগেজে বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ তথ্য সম্বলিত অনেক ডকুমেন্ট ও সিডি উদ্ধার করে। বাংলাদেশে সংখ্যালঘুদের উপর অত্যাচার ও আল-কায়েদার নেটওয়ার্ক সম্পর্কিত নানান ভৌতিক তথ্যও ছিল তাতে। তার গ্রেফতার সম্পর্কিত খবর পরের দিন ইংরেজী পত্রিকা Daily Star পত্রিকায় ফলাও করে ছাপা হয়।

Man with ‘Mosad links’ held at ZIA শিরোনামের খবরে বলা হয় :

A man was arrested at Zia International Airport yesterday morning on his way to Tel Aviv for his alleged Mossad connection. A leader of Bangladesh chapter of ‘Iflaq’, a Haifa-based organisation, Salauddin Shoib Chowdhury was carrying compact discs (CD‘s) and papers containing write-ups on some sensitive issues including ‘minority repression and the al Qaeda network in Bangladesh’, police said. Shoaib was managing director of the planned Inquilab Television until he was sacked last year…….

এরপর চৌধুরী সাহেব একাধারে ১৭ মাস জেল খাটেন। চৌধুরী সাহেব কিছুদিন ইনকিলাব পত্রিকার সাংবাদিক হিসেবেও কাজ করেছেন। তিনি ইনকিলাব টিভি প্রতিষ্ঠা করার জন্যও কাজ করেছেন। তিনি ইনকিলাব টিভির এম.ডি হিসেবে নিযুক্ত হন। ইনকিলাব টিভিতে তার প্রায় এক মিলিয়ন টাকার মোট ৩০% শেয়ার ছিল বলে দাবী করেন। ইনকিলাব পত্রিকা যখন জাতীয়তাবাদী ও ইসলামী শক্তির পক্ষে কাজ করছিল, ঠিক সেই মুহূর্তেও ইনকিলাব টিভির সর্বোচ্চ পদে ঘাপটি মেরে ছিল দেশ ও জাতির শত্রু এবং ইসরাইলের এ চর! এ ঘটনা থেকে কি বি.এন.পি. ও ইসলামী সংগঠন বা প্রতিষ্ঠানগুলো কোনো শিক্ষা নেবে?

https://i2.wp.com/www.dailyinqilab.com/images/name.gif

১৯৬৫ সনে সিলেটে জন্ম নেয়া এ নরাধম, পাপিষ্ট, দেশদ্রোহী ও তার সাঙ্গপাঙ্গরা এখনও নির্বিঘ্নে তাদের কলুষিত কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। এবার তারা তৈরী করতে যাচ্ছে ব্ল্যাক (Black) নামে একটি সিরিজ সিনেমা। যা তার ভাষ্যমতে, এ বছরের এপ্রিল মাসে (১৪১৮ বাংলা নববর্ষে) পশ্চিমবঙ্গে মুক্তি পেয়েছে। যার মূল লক্ষ্য হচ্ছে ইসলামকে বিশ্ববাসীর কাছে বিকৃতভাবে তুলে ধরা। বাংলা ভাষায় সিনেমাটি নির্মাণ করা হলেও ইংরেজী, হিন্দি, উর্দূ ও ফ্রেন্স ভাষায় এর সাব টাইটেল লিখে আন্তর্জাতিক বাজারে ছাড়া হয়েছে। ছবিতে নায়িকা হিসেবে কাজ করেছেন মডেল কন্যা শতাব্দি।

https://i0.wp.com/www.washingtonbanglaradio.com/images03/bengali-actress-shatabdi.jpg

ব্ল্যাক ছবিতে নায়িকা হিসেবে কাজ করেছেন মডেল কন্যা শতাব্দি

ছবিটি নিয়ে নায়িকা শতাব্দি বলেন:

“ছবির স্ক্রিপ্টে খুবই ভালো লেগেছে আমাকে। শোয়েব চৌধুরী ও তার দলের মত আন্তর্জাতিক মানের টিমের সাথে কাজ করতে পারা আমার জন্য অত্যন্ত সম্মানের”।

ছবিতে গান গেয়েছেন সংগীত শিল্পী রুনা লায়লা, আগুন, এস.আই টুটুল, অনিমা ডি কস্তা ও ফকির শাহাবুদ্দিন।

কী আছে এই সিনেমায়?

শান্তিগ্রাম বাংলাদেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলের একটি গ্রাম। পয়ত্রিশ বছর আগে এখানে বিভিন্ন ধর্ম-বর্ণের লোকজন বেশ শান্তিতে বসবাস করত। কিন্তু কয়েক দশক থেকে পুরো গ্রামে ইসলাম পন্থীদের ইসলামী কর্মকান্ড ব্যাপকভাবে বৃদ্ধি পাচ্ছে। মসজিদ মাদরাসার হুজুরদের প্রভাব দিন দিন ব্যাপকভাবে বৃদ্ধি পাচ্ছে। এরা নিজেরাই শরীয়া আইন চালু করে জনগণের জীবন যাত্রা বিভীষিকাময় করে তুলেছে। মোল্লারা গ্রামের পুরুষদের একাধিক বিবাহে উৎসাহ দিচ্ছে। এভাবে একাধিক স্ত্রী যাদের আছে তারা সেইসব স্ত্রীদের সাথে দাসীর মতো আচরণ করছে এবং সেই একাধিক স্ত্রীদের কৃষিকাজসহ নানা কাজে লাগাচ্ছে। কিন্তু যখন কোন মহিলা অসুস্থ হচ্ছে, তখন তাকে হাসপাতাল বা ডাক্তারের কাছে যেতে দেওয়া হচ্ছে না এই অজুহাতে যে হাসপাতালগুলো শয়তানের আড্ডাখানা যেখানে নারী-পুরুষ পর্দা ছাড়াই অবাধে মেলামেশা করে। গ্রামে মোল্লা ও মাতব্বরদের সমন্বয়ে শরীয়া কমিটি করে দোররা মারাসহ বিভিন্ন শারীরিক শাস্তির ব্যবস্থা করা হচ্ছে নিয়মিত। এই গ্রামেই বাস করে কিছু বাউল সম্প্রদায়ের লোক। এরা মূলত: হিন্দু ও সূফী মুসলিম গোত্রের মানুষ। বাউলরা ধর্মের সম্প্রীতির বাণী শুনাতো। গ্রামের উগ্র ইসলামপন্থীদের প্রভাবে তাদের জীবনেও নেমে আসে বিভীষিকা। মোল্লারা তাদের আল্টিমেটাম দেয়, হয় মুসলিম হও না হয় এই এলাকা ত্যাগ কর। এদিকে গ্রামে ইসলামী এনজিওদের প্রভাব দিন দিন বৃদ্ধি পায়। তারা হিন্দু, খৃষ্টান, বৌদ্ধসহ অন্যান্য অমুসলিমদের ইসলাম গ্রহণের জন্য আর্থিক প্রলোভন দেয়, ঋণ দেয়। তাতে কাজ না হলে ইসলাম গ্রহণ করতে চাপ দেয়। এতেও কাজ না হলে ঐসব অমুসলিম পরিবারের যুবক-যুবতীদের অপহরণ করে জোরপূর্বক ইসলাম গ্রহণে বাধ্য করে। এভাবে একদিন দেখা যায় যে, গ্রামটি অমুসলিমশূন্য হয়ে গেল। ব্ল্যাক সিনেমায় দেখানো হচ্ছে কিভাবে জোরপূর্বক চাপিয়ে দেয়া শরীয়া আইন মানুষের জীবনকে দুর্বিষহ করে তুলছে সাথে সাথে সংখ্যালঘু অমুসলিম সম্প্রদায়কে নির্মূল করছে।

https://i1.wp.com/www.weeklyblitz.net/pics/1170.jpg

শোয়েব চৌধুরীর এই সিরিজ সিনেমাটি যে দেশ ও ইসলাম বিরোধী ভয়ানক প্রোপাগান্ডার অংশ, এতে কোন সন্দেহ নেই। বিশ্বের দরবারে বাংলাদেশ ও মুসলিম জনগোষ্ঠিকে হেয় করার জন্য এই জঘন্য ঘৃণ্য প্রচেষ্টা। ইসলাম সম্পর্কে যার বিন্দুমাত্র একাডেমিক জ্ঞান নেই তার দ্বারা ইসলামের গুরুত্বপূর্ণ বিধান নিয়ে সিনেমা নির্মাণ করা কূপমণ্ডুকতার শামিল। তিনি ডাহা মিথ্যা কথা দিয়ে এ সিনেমাটি নির্মাণ করেছেন। যে সমস্ত তথ্য এ সিনেমাটিতে দেয়া হয়েছে তার সাথে বাস্তবতার কোন মিল নেই।

গত ১২ জানুয়ারী ওয়াশিংটন বাংলা রেডিওতে শোয়েব চৌধুরী তার নির্মিতব্য ব্ল্যাক সিনেমা নিয়ে যে খোলামেলা সাক্ষাৎকার দেন তাও মিথ্যা দিয়ে ভরা। তিনি বলেন,

“A secular government came to power in the year 2008 but things really didn’t change much at Bangladesh. Every year almost sixteen thousand Hindu Women in Bangladesh are kidnapped and converted to Islam forcefully. The numbers have not changed in the year 2011 also”.

অর্থাৎ-

“২০০৮ সনে বাংলাদেশে সেক্যুলার সরকার ক্ষমতায় এলেও বাংলাদেশের অধিকাংশ অবস্থার বাস্তবিক কোন পরিবর্তন আসেনি। বাংলাদেশে প্রত্যেক বছর প্রায় ১৬ হাজার হিন্দু মহিলা অপহৃত হয় এবং তারা বাধ্য হয়ে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করে। ২০১১ তে এসেও এই সংখ্যা কমেনি মোটেও”।

এর চেয়ে জঘন্য মিথ্যাচার আর কি হতে পারে! সেক্যুলার সরকার ক্ষমতায় আসার পরে পরিবর্তনের নামে ইসলাম ধ্বংসের মহোৎসবকে আড়াল করা কিংবা এর মাত্রা আরও বৃদ্ধির জন্যই কি তার এ আয়োজন? শোয়েব চৌধুরী কি নির্দিষ্ট করে ঐ প্রত্যেক বছর অপহৃত হওয়া এবং বাধ্য হয়ে মুসলিম হয়ে যাওয়া হিন্দু মহিলার নাম বলতে পারবেন? তারা কোন গ্রামের এবং কোন বাপের সন্তান তার তথ্য কি চৌধুরীর কাছে আছে? বিশ্ব বিখ্যাত পপশিল্পী ক্যাট স্টিভেন (ইউসুফ ইসলাম), টনি ব্লেয়ারের শ্যালিকা লরা বুথসহ উন্নত বিশ্বের লাখো লাখো অমুসলিমকে কোন বাংলাদেশী মুসলিমরা ইসলাম গ্রহণে বাধ্য করছে?

তিনি এরকম আজগুবি আরো অনেক কথা বলেছেন। তিনি বলেন:

The oppression of the religious minorities at Bangladesh continues unabated. There were many incidents of attacks on the Hindu mandirs during the Durga puja, this year. None were reported and the governments at Bangladesh is least bothered to take up the causes for minorities.

তিনি সাক্ষাৎকারে আশা প্রকাশ করে বলেন:

The purpose of making the film is not at all commercial but to make people aware of what happens with the woman; once she is abducted and converted. The girl’s family is not aware of what the girl goes through after kidnapping. The film tries to answer this and in the process make people aware of the evil of this practice and the suffering of humanity.

শয়তানের ভালো কথার মধ্যে যেরকম শয়তানীতে ভরপুর থাকে; কল্যাণের কিছু থাকে না, তেমনি শোয়েব চৌধুরীও তার দোসরদের নিয়ে বাংলাদেশ ও এদেশের সংখ্যাগরিষ্ঠ জনগণের ধর্ম নিয়ে বিশ্ববাসীকে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করছে। ধর্মদ্রোহী এই কুলাঙ্গারের চোখের সামনে শত শত মানবতা বিরোধী কর্মকান্ড হলেও তা তার চোখকে স্পর্শ করে না। ভারতে মুসলিম জনগোষ্ঠী যে অবর্ণনীয় দু:খ-কষ্টের মধ্যে দিনাতিপাত করছে তা নিয়ে তিনি কি কোনদিন ভেবেছেন? সভ্যতার এই চরম উৎকর্ষের যুগে গুজরাটে কয়েক হাজার মুসলিমকে পুড়িয়ে মারলেও চৌধুরীদের রক্ত পিপাসা মেটে না, উসকানিমূলক বক্তব্য দিয়ে বাংলাদেশকে আরেক গুজরাট বানাতে চান। বাবরী মসজিদ ভেঙ্গে গুড়িয়ে দেয়াকে অসাম্প্রদায়িক(?) চৌধুরী সাহেব কী বলবেন? কাশ্মীর, আফগানিস্তান, ফিলিস্তিন, ইরাকে প্রতিদিন শতশত নর-নারী যে নির্মমতার শিকার হয় তা কি এই বিকৃত মস্তিস্কওয়ালা বিপথগামী সাংবাদিককে কখনো ব্যাথিত করে? জারজ রাষ্ট্র ইসরাইল যখন ফিলিস্তিনী নাগরিকদেরকে নির্বিচারে হত্যা করে, নারীদের ধর্ষণ করে, শান্তির জনপদকে অশান্ত করে, অবরোধ করে ও মানুষের বেঁচে থাকার অধিকার নষ্ট করে তখন তা নিয়ে চৌধুরী সাহেব সিনেমা তৈরী করেন না কেন? বসনিয়া, কসোভোর কসাইদের নিয়ে তার কেন মাথা ব্যথা নেই? ইসলামবিরোধীচক্র বিশেষত ইসরাইলের পালকপুত্রের কাছে ওগুলো কোন অন্যায় নয়। ওগুলোর বিরুদ্ধে বললেতো আর প্রভূদের থেকে ভিক্ষা পাওয়া যাবে না!

বাংলাদেশের পার্বত্য অঞ্চলে কারা উপজাতীয়দের খ্রীষ্টান বানায় তা সবাই জানে। শুধু তাই নয় অনেক এনজিওর বিরুদ্ধে সারা বাংলাদেশে মুসলমান বালক-বালিকাদেরকে ধর্মান্তরিত করার অভিযোগ আছে। স্কুলে বালক-বালিকাদের চোখ বন্ধ করে চকলেট দিয়ে আবার চোখ খোলার পরে জিজ্ঞেস করা হয় কে এই চকলেট দিল? সবাই যখন উত্তর দেয় ম্যাডাম দিয়েছে; তখন তাদেরকে চোখ বুজে আল্লাহর কাছে চকলেট চাইতে বলা হয় এবং চকলেট না পাওয়া গেলে বলা হয় আল্লাহ বলতে কিছু নেই। কিন্তু এসব দৃশ্যকে এড়িয়ে গিয়ে ইসলামী এনজিওর বিরুদ্ধে সর্বৈব মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে যে সিনেমা বানানো হলো তা এ দেশের সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতিকে বিনষ্ট করবে। বিশ্বের কাছে বাংলাদেশ সম্পর্কে ভুল ম্যাসেজ যাবে। ভারত, যুক্তরাষ্ট্র ও ইসরাইলসহ অন্যরাষ্ট্রগুলো আমাদের উপর ক্ষিপ্ত হবে। চৌধুরী সাহেব জিহাদের কি বোঝেন? জিহাদ মানে যুদ্ধ ও হত্যা নয়। জিহাদ অর্থ হচ্ছে- জন্ম থেকে মৃত্যু পর্যন্ত মুসলিমকে ইসলামের উপর টিকে থাকার চেষ্টা করা। নফস, শয়তান ও তাগুতের বিপক্ষে সত্যের পক্ষে অটল থাকার প্রাণান্তকর প্রচেষ্টার নাম জিহাদ। জিহাদ হচ্ছে- ব্যক্তি, পরিবার ও রাষ্ট্রিয় পর্যায়ে ইসলামকে প্রতিষ্ঠিত করার জন্য জান মাল ও সবকিছু দিয়ে একান্ত চেষ্টা করা। হিজাব নারীর অলংকার। এটি নারীকে শোয়েব চৌধুরীর মত শয়তানদের কু-দৃষ্টি থেকে রক্ষা করে। হিজাব কখনো নারীর কোন অধিকারকে ক্ষুন্ন করে না। তবে হ্যাঁ হিজাব চৌধুরী সাহেবদের মতো ভোগবাদীদের লাম্পট্যকে বাধাগ্রস্থ করে।

ইসলাম পুরুষের চরিত্রকে পবিত্র রাখার জন্য বিবাহের ব্যবস্থা করেছে। প্রয়োজন হলে শর্ত সাপেক্ষে একসাথে চারটি বিয়ের অনুমতিও দেয়া হয়েছে। তবে ইসলামের শর্ত মেনে একসাথে চারজন স্ত্রী ঘরে রাখা মোটামুটি অসম্ভব। শোয়েব চৌধুরী মূলত: বহু বিবাহের নামে ইসলামের বিবাহ নামক পবিত্র প্রথাকে বিলোপ করার চেষ্টা করছেন। ঘরে বৈধ বৌ থাকলে যে অবাধে নাইট ক্লাবে গমন, বহু নারীর সংস্পর্শ পাওয়া খুব কঠিন তা তিনি ভালো করে জানেন বিধায় বিবাহ উচ্ছেদের এই পরিকল্পনা। তার আরেক দোস্ত তসলিমা নাসরিন তার এক বইতে চৌধুরীর মতো বাবার বয়সী প্রগতিশীল পুরুষদের মহৎ(?) চরিত্রের বয়ান লিখে হৈ চৈ ফেলে দিয়েছিলেন। বাংলা সাহিত্যের আরেক দিকপাল তার মেয়ের বান্ধবীর সৌন্দর্য দেখে মুগ্ধ হয়ে সকল লাজ লজ্জা ফেলে বিয়েই করে ফেললেন। আরেক বিখ্যাত বৃদ্ধ কবির (এখন মরহুম) কাছে নাকি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রীরা রাত যাপন করার আবদার করতেন এবং তা তিনি ফেলতে পারতেন না তার মহত্বের গুণে। শোয়েব চৌধুরী কি বলতে পারবেন বাংলাদেশের কোন কোন মোল্লা একাধিক স্ত্রী রেখে তাদেরকে দিয়ে কৃষি কাজ করান? কোন মোল্লার বউ চিকিৎসার অভাবে ঘরে বসে মারা গেছেন? অবশ্য অভাবগ্রস্থ সাধারণ বাংলাদেশীদের অনেকেই চিকিৎসার অভাবে মারা যেতে পারেন, সেটি কোন বিশেষ গেষ্ঠির জন্য নির্দিষ্ট নয়। তিনি যে কাল্পনিক শান্তিগ্রামের কথা বলেছেন সে রকম কি কোন বাস্তবিক গ্রামের অস্তিত্ব এদেশে আছে?

বাংলাদেশে আবহমান কাল ধরে হিন্দু, খ্রীষ্টান, উপজাতি ও অন্যান্য সম্প্রদায়ের সাথে মুসলমানদের যে সদ্ভাব বিদ্যমান আছে তার নজির বিশ্বের কোথাও নেই। এদেশে উপজাতির জন্য সরকারীভাবে কোটা পদ্ধতি চালু আছে। হিন্দুরা এদেশে মন্ত্রিত্ব করছে, এম.পি হচ্ছে। পুলিশ অফিসার, ডিসি, এসপিসহ বিভিন্ন অফিস আদালতে হিন্দুদের উপস্থিতি কম নয়। বরং কখনো কখনো তাদের ভাব দেখলে মনে হয় না তারা এদেশে সংখ্যালঘু। তারপরও শোয়েব চৌধুরীর হিন্দুদের নিয়ে যে এত উদ্বেগ তার পিছনে রহস্য কি? তিনি শুধু সংখ্যালঘু নির্যাতনের কথা বলে সংখ্যাগুরু নির্যাতনের বিষয়টিও এড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছেন। মিশর, তিওনিসিয়াসহ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে যুগের পর যুগ সংখ্যাগরিষ্ঠ মুসলিম জনগোষ্ঠি সেক্যুলার শক্তির দ্বারা নির্যাতিত হলেও ওদিকে তাকানোর সুযোগ চৌধুরীর নেই। সংখ্যাগরিষ্ঠ মুসলিম দেশ হলেও বাংলাদেশেও আজ কী ঘটছে? গুটিকয়েক নাস্তিক ও ইসলাম বিদ্বেষীদের ক্ষমতার দাপটে ইসলামী চেতনা, ইসলামী শিক্ষা, ইসলামী রাজনীতি ও ইসলামী সংগঠন আজ ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে। সংখ্যাগরিষ্ঠ জনগণের বিশ্বাস ও চেতনার প্রতীক মাহমুদুর রহমানরা আজ বন্দীশালায় ধুকেধুকে মরছে, আর তাদের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রকারী সাংবাদিক তৌহিদী জনতার চোখে ধুলা দিয়ে বাংলাদেশে বসেই ইসলামের বিরুদ্ধে ছবি নির্মাণ করে তামাশা দেখছে! এরা মূলত সংখ্যালঘুর দোহাই তুলে সংখ্যাগরিষ্ঠকে নির্মূলের আয়োজন করছে। পরিসংখ্যান বলছে, যে এলাকায় মাদরাসা বেশী সেই এলাকায় শান্তি ও নিরাপত্তা বেশী। সে এলাকায় তুলনামূলকভাবে অপরাধ সংঘটিত কম হয়। সারাদেশে এত ইভটিজিং, নারী-ধর্ষণ, এসিড সন্ত্রাস ও নারী নির্যাতন কারা করছে? ঐসব ঘটনায় কয়জন মাদরাসার ছাত্র জড়িত? রেকর্ড বলছে মাদরাসার ছাত্ররা এসব কাজে জড়িত নেই বললেই চলে। তারপরও মাদরাসার বিরুদ্ধে এত বিষোদগার কেন? কারণও সবার জানা। হান্টিংটনের গবেষণায় আগামী শতাব্দীতে পাশ্চাত্যের সামনে বড় চ্যালেঞ্জ হচ্ছে ইসলাম ও মুসলমান। অতএব বিভিন্ন ছলনায় এদেরকে নির্মূল করা চাই। বিশ্বব্যাপী মুসলিম নিধন করতে তথাকথিত মুসলিম সহযোদ্ধাদের বিকল্প নেই। শোয়েব চৌধুরীরাতো ঐ দলেরই গর্বিত সদস্য।

যাইহোক ব্ল্যাক ছবিতে শোয়েব চৌধুরী যে বিষয়গুলোর অবতারণা করেছেন তার সাথে বিচ্ছিন্ন দু একটি ঘটনা ছাড়া বাস্তবতার কোন মিল নেই। শুধুমাত্র বিকৃত মস্তিস্ক সম্পন্ন বিবেকহীন নির্বোধ দিয়েই এরকম বাস্তবতা বিবর্জিত দেশ ও ইসলাম বিরোধী ছবি নির্মাণ করা সম্ভব। গত ১লা বৈশাখ তিনি ছবিটি মুক্তি দিয়েছেন। বাংলাদেশের ইসলামপ্রিয় জনতাকে তার এই হীন প্রচেষ্টাকে রুখে দিতে হবে। দেশ ও ইসলাম বিরোধী সকল অপতৎপরতাকে ঐক্যবদ্ধভাবে প্রতিহত করতে হবে। বাংলাদেশ সরকারের কাছে অনুরোধ তারা যেন এ বিষয়টিকে গুরুত্ব দিয়ে ব্ল্যাক সিনেমাকে নিষিদ্ধ করে দেশ ও ইসলামের ভাবমূর্তি রক্ষায় এগিয়ে আসেন।

লেখক: সহকারী অধ্যাপক, আন্তর্জাতিক ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় চট্টগ্রাম।

 

 http://www.sonarbangladesh.com/articles/MuhammadAminulHaque
 

সূত্রঃ

https://i2.wp.com/www.sonarbangladesh.com/images/sbheader_village_sun.jpg

 

Israel Reported ‘Behind Blast’ That Killed Iran’s Missile Chief

Time magazine quotes ‘western intel source’ as saying Mossad carried out blast at missile base near Tehran

A test in Iran during 2006 of the Shahab-3 missile, built with North Korean technology

Clerics watch a 2006 test of Iran's Shahab-3 missile, Photograph: Sipa Press/Rex Features

https://i0.wp.com/www.gilad.co.uk/storage/mossad-seal1.jpg

Time’s correspondent in Jerusalem, Karl Vick, is reporting that Israel was responsible for the huge blast on Saturday at a Revolutionary Guard missile base, about 35 km west of Tehran. Vick quotes a western intelligence source as saying that Mossad carried out the sabotage attack, adding that more such attacks are to be expected

“There are more bullets in the magazine.”

Blast: Brigadier General Hassan Moghaddam was fatally injured in the blast, which killed 17 people in total, at a Revolutionary Guard compound 25 miles east of the capital Tehran
Blast: Brigadier General Hassan Moghaddam was fatally injured in the blast, which killed 17 people in total, at a Revolutionary Guard compound 25 miles east of the capital Tehran

If true, it would be the most damaging blow to date in the covert war against Iran‘s nuclear weapons programme. It killed 17 Iranian revolutionary guardsmen, including the head of the missile programme, General Hasan Moghaddam, decribed in the Iranian press as “a pioneer” of Iran’s missile project [Farsi]. His official job description was head of the ‘self-sufficiency department” for munitions. The Supreme Leader, Ayatollah Ali Khamenei, was at the funeral today.

Last week’s IAEA report [pdf] included a range of evidence that Iranian technicians had explored ways of making a warhead small enough to put on top of a Shahab-3 missile, which has a 2000 km range variant, the Shahab-4.

https://i1.wp.com/static.guim.co.uk/sys-images/Guardian/Pix/pictures/2011/11/14/1321229789312/iran-explosion-missile-ex-007.jpg

Dead: Brigadier General Hassan Moghaddam was fatally injured in the blast

https://i1.wp.com/www.csmonitor.com/var/ezflow_site/storage/images/media/images/1114-iran-blast-funeral/10997350-1-eng-US/1114-IRAN-BLAST-FUNERAL_full_600.jpg

Iranians carry a picture and coffin of General Hassan Moghaddam, a Revolutionary guards commander, who was killed during a blast in a military base, in Tehran, Iran, Monday.

 

The base that was bombed was reported to be a storage site for Shahab-3 missiles, and the official media reported that the explosion took place when munitions were being moved. There was no explanation why General Moghaddam was present at the time.

Press TV quotes the head of the revolutionary guard public relations department, Lt General Ramezan Sharif, as ruling out sabotage, but then adding that an investigation into the cause of the blast is still underway.

Source: https://i1.wp.com/static.guim.co.uk/static/38f68c8db992ae9e86ad55353f1efa12793379a6/common/images/logos/the-guardian/news.gif

 

Israeli Intelligence Sources: NATO Killed Qaddafi

German Intelligence played a behind the scenes role on behalf of NATO

 

by Julie Lévesque

An article released by the Israeli intelligence news service DEBKAfile reveals NATO allies are competing “over who will take credit for his termination and therefore for ending the alliance’s military role in Libya”. (DEBKAfile, US and NATO allies vie over “kudos” for Qaddafi’s termination, October 24, 2011.)

According to DEBKA,

“American sources are willing to admit that US drones operated by pilots from Las Vegas pinpointed the fugitive ruler’s hideout in Sirte and kept the building under surveillance for two weeks, surrounded by US and British forces.

Both therefore had boots on the ground in breach of the UN mandate which limited NATO military intervention in Libya to air strikes.” (DEBKAfile, op.,cit.)

This contradicts NATO’s claims: “No NATO ground troops have participated in the operation – NATO’s success to date has been achieved solely with air and sea assets.” (NATO, NATO and Libya – Operation Unified Protector.)

DEBKA adds:

https://i2.wp.com/www.foreignpolicy.com/files/fp_uploaded_images/110223_qaddafi8resized.jpg

According to the London Daily Telegraph, his [Qaddafi’s] presence in the convoy was first picked up by the USAF River Joint RC-135V/W intelligence signals plane, which passed the information to French warplanes overhead who then carried out the strike on Qaddafi’s vehicle. (DEBKAfile, op.,cit.)

The Israeli website also points out that the Germany’s Secret Service the Bundesnachrichtendienst (BND) “played an important role in intelligence-gathering” in revealing where Qaddafi was hiding.

The report further states:

It was generally believed in Tripoli that the strongmen ruling the capital, Abdel Hakim Belhaj, ex-al Qaeda, and Ismail and Ali al-Sallabi, heads of the Libyan Muslim Brotherhood, only granted [Libya’s transitional leader] Abdul-Jalil’s wish for a big liberation rally in Benghazi after he agreed to declare the new Libya a Sharia state. (Ibid.)

This would mean that in reality, Libya’s new leaders are not the members of the National Transitional Council officially backed by NATO and promoted in the Western media as democrats. DEBKAfile‘s sources claim “the transitional leader will be little more than a figurehead”.

NATO’s stated objective in Libya has been “protecting civilians under threat of attack in Libya”. The Alliance declared that in early September “’Friends of Libya’ – heads of state and government as well as representatives of key international and regional organizations – met in Paris to discuss ways to aid Libya’s transition to a functioning democracy”. (NATO, op.,cit.)

However, Western “Friends of Libya” generally see Sharia law as incompatible with democracy.

DEBKA’s report concludes:

A primary objective of the Arab Spring as promoted by the United States and the Western Alliance is the substitution of those dictatorships by fundamental Muslim regimes whose leaders quite frankly usher Sharia law in to the liberated countries. (DEBKAfile, op.,cit.)

It should be noted that, in terms of public relations, Israel would profit from the presence of another Islamic regime, since Israel’s propaganda is largely based on the exisitence of  an alleged “hostile Muslim environment” in the Middle East.

অবৈধ আয় হারাবে বলে পুলিশ র‍্যাবে আসতে চায় না: বারী

https://i1.wp.com/www.bdreport24.com/wp-content/uploads/2010/12/wikileaksEditB201012041557132.jpg

আড়াই লাখ মার্কিন তারবার্তা ফাঁস করেছে উইকিলিকস। মার্কিন কূটনীতিকদের ভাষ্যে এসব তারবার্তায় বেরিয়ে এসেছে বাংলাদেশের রাজনীতি ও ক্ষমতার অন্দরমহলও

সামরিক গোয়েন্দা সংস্থা ডিজিএফআইয়ের সাবেক কর্মকর্তা ব্রিগেডিয়ার জেনারেল চৌধুরী ফজলুল বারী বলেছিলেন, ঘুষসহ অন্যান্য আয়ের সুযোগ কমে যাবে বলে পুলিশ থেকে র‍্যাব বাহিনীতে আসার আগ্রহ কম।

[prabasher_news_06102009_0000001_gen_bari.png]

ব্রিগেডিয়ার জেনারেল চৌধুরী ফজলুল বারী

২০০৬ সালে ডিজিএফআইএর কাউন্টার ইন্টেলিজেন্স ব্যুরোর পরিচালক হিসেবে যুক্তরাষ্ট্রে এক সম্মেলনে যোগদানের সময় মার্কিন এক কর্মকর্তাকে এ কথা বলেছিলেন ব্রিগেডিয়ার বারী। উইকিলিকসের ফাঁস করা মার্কিন দূতাবাসের কূটনৈতিক তারবার্তায় এ কথা বলা হয়েছে। ফাঁস হওয়া ওই তারবার্তার ভাষ্য অনুযায়ী, ২০০৬ সালের এপ্রিলে হাওয়াইতে অনুষ্ঠিত পিএএসওসি সম্মেলন চলার সময় মূল অনুষ্ঠানের বাইরে সম্মেলনে অংশগ্রহণকারী দূতাবাস কর্মকর্তার সঙ্গে বারীর খোলামেলা কথাবার্তা হয়। বারী এ সময় র‍্যাব গঠনের সময় থেকে এ বাহিনীর বিষয়ে তাঁর বিভিন্ন অভিজ্ঞতা ও জঙ্গিগোষ্ঠী জেএমবির তৎপরতা নিয়ে কথা বলেন। প্রসঙ্গত, ব্রিগেডিয়ার জেনারেল বারী একসময় র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‍্যাব) উপপ্রধান ছিলেন।

তারবার্তার তথ্যমতে, মার্কিন দূতাবাসের কর্মকর্তার সঙ্গে আলোচনায় বারী উল্লেখ করেন, র‍্যাব গঠনের প্রাথমিক পরিকল্পনার সময় তিনিও উপস্থিত ছিলেন। প্রাথমিক পরিকল্পনা ছিল র‍্যাব সামরিক বাহিনী থেকে ৪৪ শতাংশ, পুলিশ বাহিনী থেকে ৪৪ শতাংশ ও বাংলাদেশ রাইফেলস (বিডিআর) থেকে ১২ শতাংশ জনবল নেওয়া হবে। কিন্তু পুলিশ বাহিনীতে এই কোটা পূরণে অনীহা ছিল। কারণ, ঘুষ ও অন্যান্য অবৈধ কার্যকলাপের মাধ্যমে তারা ‘বাইরে থেকে আরও বেশি অর্থ আয় করে’। বারী দাবি করেন, জ্যেষ্ঠ পুলিশ কর্মকর্তারা তাঁদের দপ্তরে বসে থাকতেই বেশি আগ্রহী।

https://i1.wp.com/media.somewhereinblog.net/images/sammobadiblog_1260524740_1-rab.jpg

র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‍্যাব)

বারী বলেন, পুলিশ বাহিনী একটি ‘বিশাল পিরামিড স্কিমের’ মতো কাজ করে, যাতে মাঠপর্যায়ের কর্মীরা অবৈধভাবে উপার্জিত অর্থ ঊর্ধ্বতন পর্যায়ে পৌঁছে দেন। জেএমবির প্রধান শায়খ আবদুর রহমানকে গ্রেপ্তার করতে পুলিশের ব্যর্থ হওয়ার একটি কারণ দুর্নীতি বলে মন্তব্য করেন তিনি। বারী অভিযোগ করেন, র‍্যাবে অনেক সময় পুলিশের এমন জনবল দেওয়া হয়, যাঁদের সঠিকভাবে গুলি চালানোর মতো মৌলিক দক্ষতাও নেই। বিশেষ অভিযানের জন্য তাঁদের নেই কোনো প্রশিক্ষণ। অনেকে শারীরিকভাবেও উপযুক্ত নন।

https://i2.wp.com/www.sonarbangladesh.com/blog/uploads/Tirzok201107231311415065_nnb2195147.jpg

বাংলাদেশ পুলিশ

তারবার্তায় আরও বলা হয়, এর আগে ২০০৫ সালের জুন মাসে মার্কিন দূতাবাসের কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলোচনায় বারী বলেছিলেন, ক্রসফায়ার ‘দরকারি এবং স্বল্প মেয়াদে উপযোগী এক কৌশল’। তারবার্তায় বলা হয়, বারী জানান, তিনি ডিজিএফআইয়ের কর্মকর্তা হিসেবে জেএমবির নেতা শায়খ আবদুর রহমানকে জিজ্ঞাসাবাদের সময় অনেকবার উপস্থিত ছিলেন। তিনি জেএমবি প্রসঙ্গে মার্কিন কর্মকর্তাকে বলেন, এর নেতা শায়খ আবদুর রহমান পাকিস্তানের গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআইয়ের কাছে বিস্ফোরক তৈরি এবং একে ৪৭ রাইফেল চালনার প্রশিক্ষণ নেন। আইএসআই শায়খ রহমানকে কাশ্মীরে ব্যবহার করতে চেয়েছিল।

https://i0.wp.com/samakal.com.bd/admin/news_images/676/image_676_152160.jpg

বারী জানান, জিজ্ঞাসাবাদে শায়খ রহমান ১৭ আগস্ট দেশব্যাপী বোমা হামলা প্রসঙ্গে বলেন, ‘পটকাবাজির বিরুদ্ধে কোনো আইন নেই। এসব বোমার ভেতরে কোনো স্প্লিন্টার ছিল না, কীভাবে আমার বিরুদ্ধে অভিযোগ আনবেন?’ তারবার্তায় বলা হয়, শায়খ রহমানের এই যুক্তিতে সহানুভূতি প্রকাশ করে বারী মার্কিন কর্মকর্তাকে বলেন, বিস্ফোরণের আঘাতে নয়, ওই দিন আতঙ্কিত হয়ে দুজন নিহত হয়।

বারী আরও বলেন, দেশব্যাপী বোমা হামলার ঘটনায় ৭০ জনকে গ্রেপ্তার করা হলে জেএমবির নেতা-কর্মীরা ক্ষুব্ধ হয়। এর জবাব দেওয়ার জন্য প্রচণ্ড চাপ আসে শায়খ রহমানের ওপর। এর পরিপ্রেক্ষিতেই অক্টোবরে আদালতে হামলা চালায় জেএমবি।

পুলিশের বিষয়ে ব্রিগেডিয়ার বারীর কথিত এই অভিযোগের ব্যাপারে গতকাল পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজি) হাসান মাহমুদ খন্দকারের বক্তব্য জানতে চাওয়া হলে তিনি কোনো মন্তব্য করতে অস্বীকৃতি জানান।

সূত্রঃ

https://i2.wp.com/www.prothom-alo.com/secured/theme/public/newdesign/style/images/prothom-alo-logo.jpg

U.S. Invented Soviet Threat

Kurt Nimmo

photo

According to former CIA agents and historians participating in a forum held at the John F. Kennedy Library in Boston, in the early 1960s the U.S. government invented the so-called “Missile Gap” and wildly over-estimated the number of ICBMs the Soviet Union had.

https://i1.wp.com/blog.kievukraine.info/uploaded_images/5565-788557.jpg

A Russian SS-27 Topol-M mobile ICBM

How many ICBMs did the Soviets actually have? Four, according to declassified documents.

The Eisenhower administration used aerial reconnaissance and imaging satellites like the Corona Satellite to discover that the Soviets did not have the advanced technology to threaten the U.S.

As a growing number of historians have realized for years, the so-called Cold War was largely an illusion – known as “policy by press release” – invented by the military industrial complex, the same folks who are selling us new wars and conjured-up threats from the likes of al-Qaeda and now the so-called Haqqani network.

“The study of the Missile Gap period is especially relevant because it relates to today’s situation in Iraq, North Korea, and Iran, said historian and author Fred Kaplan and Timothy Naftali, director of the Richard Nixon Presidential Library and Museum and a former Harvard student,” writes Laya Anasu for The Crimson.

The invented Missile Gap – an extension of the supposed Bomber Gap – is part of a larger reality that we never hear about and is not revealed in most history books: the entire Soviet threat was invented by Wall Street and the international bankers.

In Western Technology and Soviet Economic Development 1945 to 1965 written by the late Antony Sutton, we discover that if not for a massive transfer of technology and money to the Bolsheviks in the 1920s and later, Russia would have remained an isolated and backwards rural society. Sutton drew his conclusions after reviewing State Department documents.

 

Antony Sutton: The Best Enemies Money Can Buy.

 

“Soviet exports in the late sixties were still those of a backward, underdeveloped country. They consisted chiefly of raw materials and semi-manufactured goods,” Sutton writes in the conclusion of his trilogy. “When manufactured goods were exported they were simple machine tools and vehicles based on Western designs, and they were exported to underdeveloped areas,” he writes.

And yet we were expected to believe at the time that the Soviet Union had developed and manufactured a burgeoning arsenal of sophisticated nuclear weapons.

“In the Bolshevik Revolution we see many of the same old faces that were responsible for creating the Federal Reserve System, initiating the graduated income tax, setting up the tax-free foundations and pushing us into WWI,” writes Gary Allen.

It was “a tiny oligarchical clique at the top” that created the Soviet Union, not because the elite are communists, but because communism is “a method to consolidate and control the wealth” and ultimately build ”an all-powerful world, socialist super-state,” a state we are now beginning to see as the bankers take down the global economy.

We need to keep this in mind as the elite, through their academics and corporate media, try to sell us new threats, for instance the Haqqani terror network recently pushed by the chairman of the joint chiefs of staff, Mike Mullen, as he lectured the Senate Armed Services Committee last week.

 

 

The corporate media reports that Haqqani is a veritable arm of Pakistan’s ISI, but what they don’t tell you is that the ISI is a creation of British intelligence – shepherded by Major General Walter Joseph Cawthorn, working for MI-6 – and the terror organizations now supposedly threatening the United States (and subsequently replacing the facile threat of the Soviet Union) were created through a collaboration between the ISI and the CIA, beginning in the early 1980s, a fact admitted by none other than the New York Times.

The elite invent scary threats and push them off on us, knowing that we will usually take the bait, as the mass hysteria – and curtailment of our liberties – demonstrated after we were sold the fairy tale that a gaggle of Muslim cave dwellers made NORAD stand down and waved a magic wand that suspended the laws of physics of September 11, 2011.

Source:

https://i0.wp.com/static.infowars.com/2010/templateimages/header4.jpg

Pakistan and “The Haqqani Network” : The Latest Orchestrated Threat to America and The End of History

by Dr. Paul Craig Roberts | Global Research,

Have you ever before heard of the Haqqanis? I didn’t think so. Like Al Qaeda, about which no one had ever heard prior to 9/11, the “Haqqani Network” has popped up in time of need to justify America’s next war–Pakistan.

President Obama’s claim that he had Al Qaeda leader Osama bin Laden exterminated deflated the threat from that long-serving bogyman. A terror organization that left its leader, unarmed and undefended, a sitting duck for assassination no longer seemed formidable. Time for a new, more threatening, bogyman, the pursuit of which will keep the “war on terror” going.

Now America’s “worst enemy” is the Haqqanis. Moreover, unlike Al Qaeda, which was never tied to a country, the Haqqani Network, according to Admiral Mike Mullen, chairman of the US Joint Chiefs of Staff, is a “veritable arm” of the Pakistani government’s intelligence service, ISI. Washington claims that the ISI ordered its Haqqani Network to attack the US Embassy in Kabul, Afghanistan, on September 13 along with the US military base in Wadak province.

https://i0.wp.com/www.tiptoptens.com/wp-content/uploads/2011/02/ISI-Best-Intelligence-Agency.jpg

Washington claims that the ISI ordered its Haqqani Network to attack the US Embassy in Kabul, Afghanistan.

https://i2.wp.com/iprd.org.uk/wp-content/uploads/2010/08/US-war-state1.jpg

Senator Lindsey Graham, a member of the Armed Services committee and one of the main Republican warmongers, declared that “all options are on the table” and gave the Pentagon his assurance that in Congress there was broad bipartisan support for a US military attack on Pakistan.

As Washington has been killing large numbers of Pakistani civilians with drones and has forced the Pakistani army to hunt for Al Qaeda throughout most of Pakistan, producing tens of thousands or more of dislocated Pakistanis in the process, Sen. Graham must have something larger in mind.

The Pakistani government thinks so, too. The Pakistani prime minister,Yousuf Raza Gilani, called his foreign minister home from talks in Washington and ordered an emergency meeting of the government to assess the prospect of an American invasion.

 Meanwhile, Washington is rounding up additional reasons to add to the new threat from the Haqqanis to justify making war on Pakistan: Pakistan has nuclear weapons and is unstable and the nukes could fall into the wrong hands; the US can’t win in Afghanistan until it has eliminated sanctuaries in Pakistan; blah-blah.

Washington has been trying to bully Pakistan into launching a military operation against its own people in North Waziristan. Pakistan has good reasons for resisting this demand. Washington’s use of the new “Haqqani threat” as an invasion excuse could be Washington’s way of overcoming Pakistan’s resistance to attacking its North Waziristan province, or it could be, as some Pakistani political leaders say, and the Pakistani government fears, a “drama” created by Washington to justify a military assault on yet another Muslim country.

Over the years of its servitude as an American puppet, the Pakistan government has brought this on itself. Pakistanis let the US purchase the Pakistan government, train and equip its military, and establish CIA interface with Pakistani intelligence. A government so dependent on Washington could say little when Washington began violating its sovereignty, sending in drones and special forces teams to kill alleged Al Qaeda, but usually women, children, and farmers. Unable to subdue after a decade a small number of Taliban fighters in Afghanistan, Washington has placed the blame for its military failure on Pakistan, just as Washington blamed the long drawn-out war on the Iraqi people on Iran’s alleged support for the Iraqi resistance to American occupation.

Some knowledgeable analysts’ about whom you will never hear in the “mainstream media,” say that the US military/security complex and their neoconservative whores are orchestrating World War III before Russia and China can get prepared. As a result of the communist oppression, a signifiant percentage of the Russian population is in the American orbit. These Russians trust Washington more than they trust Putin. The Chinese are too occupied dealing with the perils of rapid economic growth to prepare for war and are far behind the threat.

War, however, is the lifeblood of the profits of the military/security complex, and war is the chosen method of the neoconservatives for achieving their goal of American hegemony.

Pakistan borders China and former constituent parts of the Soviet Union in which the US now has military bases on Russia’s borders. US war upon and occupation of Pakistan is likely to awaken the somnolent Russians and Chinese. As both possess nuclear ICBMs, the outcome of the military/security complex’s greed for profits and the neoconservatives’ greed for empire could be the extinction of life on earth.

The patriots and super-patriots who fall in with the agendas of the military-security complex and the flag-waving neoconservatives are furthering the “end-times” outcome so fervently desired by the rapture evangelicals, who will waft up to heaven while the rest of us die on earth.

This is not President Reagan’s hoped for outcome from ending the cold war.

Source: Pakalert Press

%d bloggers like this: