• Categories

  • Archives

  • Join Bangladesh Army

    "Ever High Is My Head" Please click on the image

  • Join Bangladesh Navy

    "In War & Peace Invincible At Sea" Please click on the image

  • Join Bangladesh Air Force

    "The Sky of Bangladesh Will Be Kept Free" Please click on the image

  • Blog Stats

    • 321,387 hits
  • Get Email Updates

  • Like Our Facebook Page

  • Visitors Location

    Map
  • Hot Categories

When you say “I Love Allah”

When you say “I love Allah”, do you actually mean it? Do you fully understand the meaning of such love?  Do you know how to love Allah?

To know how to love God is very easy… Not everyone who says “I love Allah of course” sincerely does so. When you declare your love to Allah, then your actions should be in parallel with your words… Are they?

To sincerely love Allah, you must sincerely follow His messenger, for it is through Muhammad (PBUH) that we can learn how to love Allah. Allah told us Muslims that by following Muhammad (PBUH) we will be loved by Allah for seeking His love… (Al Imran)

So in order to fully love Allah, obeying His messenger is the golden key to unlock all doors towards salvation of the soul.

Obeying Allah is by obeying His messenger, since God ordered us to do so… How do we obey Muhammad (PBUH) if we neglect most of what ha had adivsed us to do, and then say that we do indeed love Allah? Obeying Muhammand (PBUH) is by doing what he had told us to do and avoiding what he prevented us from doing. This is following his “Sunnah”…

Prophet Muhammad is the only way to show us how Allah is pleased and what Allah likes. Through him, we can gain the ability to perform whatever is necessary to please Allah. Allah had given us the chance of knowing how to love Him through Muhammad (PBUH) who taught us in his daily life how to love Allah more than anyone or anything in this life.

Therefore, this is a continuous challenge, a struggle against the devil that tries by all means to disencourage us, to let us lose hope, to make us believe that it is a very hard thing to do, and to convince us that this obedience is a difficult task beyond our ability… Don’t let the devil disencourage you, or put you down… Be sure that Allah will always guide you to His path once you decide to walk that road towards Him…

To love Allah, to love His messenger is the true faith. In this concept, you can truly achieve the greatest happiness of the soul, which knows no boundaries at all… nothing can ever stand between you and this goal, because Allah Himself is guiding you and helping you… You make one step towards Allah,  He makes a lot more towards you… You change one little thing in yourself to please Allah, He will help you change more to gain His love… Further more, Allah will order his creatures, any kind of creatures to love you as well….

To truly love Allah, you need to get rid of any doubt that you are alone on this journey… Be patient and try tasting this little sweetness life can offer you and endure the little sadness it compells you to face… This struggle doesn’t mean at all that Allah is angry at you or does not love you… On the contrary, it does mean that Allah loves you and He chose you to see how much You love Him… How much are you willing to take and endure to pass the test of life with patience and by being satisfied with whatever Allah brings you and puts in your way.

After all, any pain we live, is a way of purification from sins… the slightest pain of a thorn in a finger is a way to erase sins… Imagine the more pain you face along your journey, the more sins are erased, the more faults are wiped off your page… We all make mistakes, we all commit things we can ‘t always be proud of, even between ourselves and our reflection in the mirror.. Allah knows everything done, the way you’ve felt while doing it and the circumstances while doing it… The point is not to be judged… but to see how can you make it up,…. will you wake up and discover that you should not just feel guilty about it but try to erase it… by the good deeds and going back to Allah, returning to His path and asking Him and only Him for forgiveness… You don’t need to tell anyone what you’ve done… Allah kept it a secret, why should you anounce it in public…. Allah will preserve the veil on your secret and simply forgive you, for you, slave, by asking Allah for forgivness, you acknowledge that there is indeed a God who punishes sinners and forgives them too, once they return to Him, with hands raised up to the sky asking for salvation and forgivness….Isn’t this to show how merciful He is…? Isn’t this a way to show us how easy it could be to be as pure as a baby without sins… once your forgiven…? This shows how Allah loves us….

To love Allah and through obeying His messenger (PBUH), you are following the correct path towards Jannah. Isn’t this what we all aspire… Paradise? Eternal paradise…? Don’t we all dream of its endless pleasure and joy?

It is costly to achieve… it is based upon patience and submitting to God’s will. To know how you truly love Allah you need to ask yourself a question everytime you do something:

Will Allah be pleased with this deed? Will this make Him happy with me? Will I make His messenger angry by doing it…?

Or you can simply ask yourself, if I meet Muhammad (PBUH) now, as I’m wearing this, doing that, saying that…. etc… will I be proud or ashamed..?

If you leave a prayer, will this please Allah? As long as you’re sure of the answer NO, then you know whether you are in this particular moment loving Allah the way you should or not.. Same concept in saying if I do my prayers on itme, will this make Allah pleased with my deeds? As long as your answer is YES, then be proud of loving Allah the way you should, the way He wants you to do so. This was a simple example of course there is a lot more than just the 5 prayers and the fasting and the dealing with people, and ….etc….it is always about deeds and hearts… along with the intentions for these deeds..

I believe that you should not fear what you say or do;  or say or do what you fear… Do what you can be facing the whole world while you’re doing it.. this only proves that you are brave enough to take responsibility for all your actions, and be confident that any deed you actually make is done for Allah’s satisfaction… and of course for loving it… don’t you lose this feeling of loving what you do while doing it… then and only then, you will have a cost for everything you do… nothing will be done for free,……. Yes.. the cost is little things in Paradise with each word, each gesture, each whisper, what you do alone or with people, anything will have a price… one minute can simply give you thousands of golden trees in Jannah without you being aware of it… one little deed, that you didn’t notice could be a great deal after life…

So when you say “I love Allah” be sure you sincerely mean it the way you are supposed to love Him.

Source:

https://i0.wp.com/www.faithofmuslims.com/blog/wp-content/uploads/2011/07/fantasy_banner.jpg

 

“This is My Will”: “Continue the Resistance, Fight any Foreign Aggressor against Libya,…”

Complete Text of Testament

by Muammar Gaddafi

Translated from Arabic by the BBC



“This is my will. I, Muammar bin Mohammad bin Abdussalam bi Humayd bin Abu Manyar bin Humayd bin Nayil al Fuhsi Gaddafi, do swear that there is no other God but Allah and that Mohammad is God’s Prophet, peace be upon him. I pledge that I will die as Muslim.

Should I be killed, I would like to be buried, according to Muslim rituals, in the clothes I was wearing at the time of my death and my body unwashed, in the cemetery of Sirte, next to my family and relatives.

I would like that my family, especially women and children, be treated well after my death. The Libyan people should protect its identity, achievements, history and the honorable image of its ancestors and heroes. The Libyan people should not relinquish the sacrifices of the free and best people.

I call on my supporters to continue the resistance, and fight any foreign aggressor against Libya, today, tomorrow and always.

Let the free people of the world know that we could have bargained over and sold out our cause in return for a personal secure and stable life. We received many offers to this effect but we chose to be at the vanguard of the confrontation as a badge of duty and honor.

Even if we do not win immediately, we will give a lesson to future generations that choosing to protect the nation is an honor and selling it out is the greatest betrayal that history will remember forever despite the attempts of the others to tell you otherwise.”

Source:

https://i0.wp.com/www.globalresearch.ca/site_images/topbanner.jpg

A Cute Letter From a Muslim Girl to Her Christian Parents

Hello Mami and Papa,

I don’t know how else to approach you in order to explain my reasoning behind my life changing decision and have you listen and understand at the same time.

Since I can long remember I have not be a strong believer of Christianity, there was a lot that did not make sense to me, for example, why I have to beg for forgiveness to a priest? Why I have to pray to saints and not straight to God, why is Jesus the SON of God, why are their SOO many versions of the bible?

The religion became a fascination to me, and I truly wanted to know more. I purchased a few books in the UK and read some pamphlets on the religion. I did not make any decisions but I continued to read and become more familiar to Islam.

Islam began making sense to me, the idea that we pray only to Allah, that we ask Allah for help and for forgive us, how a book (the Quran) that was written thousands of years ago remains unchanged as of today (there are different translations but no different versions) . Also how a book that was written years ago managed to explain scientific situations that was only discovered by man kind only a couple of year ago. Or how the Quran has managed to explains how babies develop in the womb? How would anyone thousands of years ago know this and in such detail? Especially since scientist discovered the explanation of these situations less that 100 years ago?? How can we explain those wonders of the book?

Also how can I deny the holy book when it has been so clear in explaining advanced technology, how the day turns into the night, the creation of human beings by water (as we know scientifically to be known that we came from cells) layers of heaven (which we describe now in scientific terms as the atmospheric levels?). Furthermore, the beginning of the universe and the movement of tectonic plates (there are numerous other examples of the science behind the Quran).

What also has touched me is that Islam believes in ALL THE PROPHETS – JESUS MOSES DAVID ABRAHAM AND MOHAMMAD (pbuh) they all coexist in he Quran, the Quran also tells us that we must respect ALL religions. Mami and Papa, I can not explain how many times I have made my self clear to you of what I believed in, I could not have given myself away anymore! Every time I spoke hours and hours on end about Islam, and how I knew so much.

Also I began of interacting more with Muslim friends; I felt that they would be able to give me a clear explanation of Islam. Also Islam played a major part in self respect, and it helped my appreciate my self more, and realize that I should stay away from harmful situation such as drinking, smoking, going out with people that only meant trouble. I told you what my friends were like, they were heading the wrong direction, and I did not want to be in that direction and believing in Islam made it easier for me to walk away from the powers of shaytaan and do better.

Also Islam was and has been the reason for my success in school. I have placed my mind in my studies instead of going out all the time as my old friends did, and trust me you would not like me to be like them, because if I had been than you would have every single reason to think I was a bad person, that I was irresponsible and that I was a disgrace to the family.
After almost one year of studying Islam I had no doubt in my mind that it was not the right religion.

I was prepared to become a Sunni Muslim. In early June 2006 I attended the mosque in Westbury NY to ask further questions about Islam and after speaking to a sister and the imam of the mosque I knew that it was time to make the right decision. I did shahada around 2 weeks later which is the Islamic creed; it means to testify or to bear witness in Arabic, the declaration of the belief. I stated in front of 80- 100 Muslimsash hadu anla ilaha illallah, wa ash hadu anla Mohammad roosul Allah” which translates to “I believe in one and only God and Mohammad is his messenger” It was such a beautiful experience.

I had been accepted into the Islam. I was welcomed by every single Muslim at the mosque with open arms, I felt too special, it felt so right, I knew I had made the best decision in my life, and it was something that was going to bring positive sides of me. It is so hard to explain the rush, and the emotional and faith satisfaction that I had at that moment, but I knew there was something wrong, that I was not able to celebrate my happiness with the people in my life that I loved the most, the meant to most to me, and that was you and papi. The moment was wonderful but not complete. I really wish you could have been as proud of me as I was for myself.

It hurt so much to think and feel that my biggest challenge would be to openly tell you about me and Islam, about me and my faith, about me and my happiness. I know that you both want the best for me, you want me to be happy and you want me to be responsible, and you want me to be independent and make the RIGHT decisions. I have done the right decision, and I made it all by myself, and I read about Islam all by myself, I discovered Islam in me all by myself, IT WAS ME who made every decision from the point were I began in the Islamic interest to the point where I am now.

I can’t lie to you and tell you I had no influences because how else would I have been influenced by wanting to know more about Islam? Well from observing other people. How do we know as humans whether eating a chocolate cake taste good or not? We taste it, we try others to compare and then we make a final decision and if we like it we continue to eat if we don’t then we disregard it.

Mami and Papa, I know I might seem weak sometimes in certain situations, and I know I display signs of vulnerability , but converting into Islam was decided by me, its hard and it hurts to think that all this studying, research of Islam and me converting has been credited to someone else, but at the end of the day the only one that knows the truth is God and it is to him that I will be standing in front of on the day of Judgment, and it is him that knows everything.
It is stated in the Quran that all the prophets were messengers of God, they all came to spread the news and religion of God, but that they all came in their own time, and that Mohammad (pbuh) was the last messenger of God.

I know my word is hard to believe after the incidents these past two days, but there is nothing more that I can do to prove to both of you when it comes to the decisions that I made about Islam.

And most importantly I want you both to understand that it is virtually impossible to explain ALL of my reasoning behind my belief in Islam, this email is not even 1/100th of it all, I have spent hours and hours and hours speaking to others about my feeling towards Islam, and I wish and pray to Allah that one day I will be able to express everything I feel about Islam with both of you.

I still remain to be the daughter that you had almost 21 years ago, it has not changed the way I feel about you, you still are the most important people in my life, I love you both more than anything, I just have a different belief and its one which will bring you no shame, it will not physically hurt you, and I will not patronize our relationship.

I love you both very much and I only pray for the best,

Carolina Amirah DeFonseca

 

Source :

https://i0.wp.com/www.faithofmuslims.com/blog/wp-content/uploads/2011/07/fantasy_banner.jpg

Muslim Well Known People In Pakistan Links With Freemasonry

The list in red confirms as a freemason and the list in blue confirms links with freemasons but can not be confirmed if the person himself is a freemason.

Sultan Mohammad Shah, Aga Khan (One of the founder and the first president of All Muslim league)
Syed Ahmed Ali Khan (The educator, politician, and islamic reformer)
Allama iqbal (Muslim poet and philosopher)
Muhammed Ali Jinnah (Politician lawyer and the leader of Pakistan)

So we have a small list of peoples of Pakistan so now we need a list from other Muslim nations such as Turkey, SyriaJordan, Egypt etc.

Source :

https://i0.wp.com/wup-forum.com/styles/CoDFaction108/imageset/banner.jpg

https://i1.wp.com/www.masonindia.org/images/logo1.gifhttps://i2.wp.com/www.masonindia.org/images/banner1.gif

 

 

অমর্ত্য সেনের আরগুমেন্টেটিভ ইন্ডিয়ান : ইসলাম ত্যাগ করে দ্বীন-ই ইলাহি গ্রহণের আহ্বান : ধর্মনিরপেক্ষতাবাদের উত্স হিন্দু ধর্ম

 

নোবেলবিজয়ী ভারতীয় অর্থনীতিবিদ অধ্যাপক ড. অমর্ত্য সেন তার ‘আরগুমেন্টেটিভ ইন্ডিয়ান’ বইয়ে কোরআন ও হাদিস নির্দেশিত ইসলামকে প্রত্যাখ্যান করতে মুসলমানদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। এগুলো হাজার বছরেরও বেশি পুরনো হওয়ায় তা পরিত্যাগ করে হিন্দু ধর্ম থেকে উদ্ভব সম্রাট আকবরের ‘দ্বীন-ই-ইলাহি’কে মূলনীতি হিসেবে গ্রহণ করার পরামর্শ দেন তিনি। ধর্মনিরপেক্ষতাবাদের (সেক্যুলারিজম) ব্যাখ্যা করতে গিয়ে তিনি এ মত দেন।

অন্যদিকে সেক্যুলারিজমকে হিন্দু ধর্ম থেকে উদ্ভব বলে যুক্তি দেন তিনি। তার মতে, হিন্দু ধর্ম কোনোভাবেই ধর্মনিরপেক্ষতাবাদ-বিরোধী নয়। কেউ ধর্মনিরপেক্ষতাকে বিশ্বাস করলে তাকে ইসলাম ধর্ম ত্যাগ করতে হবে। আর বিশ্বাসী হয়ে উঠতে হবে হিন্দু ধর্মের প্রথায়।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. হাসানুজ্জামান চৌধুরী ‘আরগুমেন্টেটিভ ইন্ডিয়ান’ বইয়ের সমালোচনা করে ‘বাংলাদেশ পলিটিক্যাল সায়েন্স রিভিউ’ নামের গবেষণা জার্নালে একটি প্রবন্ধ লিখেছেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগ প্রকাশিত ওই জার্নালের ৭ম সংখ্যায় এটি প্রকাশিত হয়েছে। অধ্যাপক ড. শওকত আরা হোসেন সম্পাদিত গবেষণা জার্নালে ওই প্রবেন্ধের শিরোনাম হলো ‘অর্থনীতিবিদ অমর্ত্য সেন ও দৈশিক দোষের আবর্তে ভারতীয় সেক্যুলারিজম : বিভ্রান্তিকর একটি ব্যাখ্যা’।

অধ্যাপক ড. হাসানুজ্জামান চৌধুরী লিখেছেন, ‘নোবেলবিজয়ী অর্থনীতিবিদ ড. অমর্ত্য সেনের মতামত দৈশিক দোষে দুষ্ট। সেক্যুলারিজম মূলতই একটি অগ্রহণীয় মতবাদ। ধর্ম ও সেক্যুলারিজম পারস্পরিক বিপরীত মত। ইসলাম ধর্ম নিয়ে তিনি যে মত দিয়েছেন, তা সর্বতোভাবে বিভ্রান্তিকর। আর সেক্যুলারিজম যদি হিন্দু ধর্ম থেকে উদ্ভবই হয়, তাহলে তা প্রকৃত ধর্মমত বাদ দিয়ে মুসলমানরা গ্রহণ করতে পারেন না।’

ড. হাসানুজ্জামান চৌধুরী তার প্রবন্ধের শুরুতে নোবেলবিজয়ী ড. অমর্ত্য সেনের ১১টি বইয়ের বিষয়বস্তু প্রশংসা করেন। অসমতা, দারিদ্র্য, দুর্ভিক্ষ, সক্ষমতা ও উন্নয়ন সম্পর্কিত ড. সেনের বইগুলো পাঠকপ্রিয় ও অগ্রগতির জন্য সহায়ক বলে মনে করেন তিনি। তবে ভারতীয় ইতিহাস, সংস্কৃতি ও পরিচয় নিয়ে লেখা অমর্ত্য সেনের ‘আরগুমেন্টেটিভ ইন্ডিয়ান’ বইটি একদেশদর্শিতা ও সাম্প্রদায়িক দোষে দুষ্ট হওয়ার কারণে সমালোচনার যোগ্য বলে ড. চৌধুরী মনে করেন। তিনি বলেন, বাইরে খাঁটি মনে হলেও অমর্ত্য সেন প্রকৃতপক্ষে হিন্দুত্ববাদের বশ্যতা স্বীকার করেই এ বইটি লিখেছেন।

ড. হাসানুজ্জামান চৌধুরী বলেন, আমি বইটির পুরোটা পড়েছি। তার লেখা থেকে নানা প্রশ্ন জেগে ওঠায় সমালোচনা লিখতে বাধ্য হয়েছি।

বইটির প্রথমাংশে ড. অমর্ত্য সেন ভারতের প্রাচীন ইতিহাস ও সমকালীন প্রসঙ্গ তুলে ধরেন। এতে তিনি বলতে চেষ্টা করেছেন, ধর্মের বিভিন্নতায় সাহিত্য, রাজনীতি, সংস্কৃতি, বিজ্ঞান ও গণিতের উন্নতির পথ ধরে ভারতীয় সেক্যুলারিজমের উত্পত্তি হয়েছে। ভারতীয় গণতন্ত্র, উন্নয়ন ও সেক্যুলারিজম মূলতই হিন্দু ধর্মের ধারাবাহিক বিবর্তনে হয়েছে। মুসলমানদের মুঘল ও পাঠান শাসনও এক্ষেত্রে প্রভাবিত করেছে। বিশেষ করে সম্রাট আকবরের ‘দ্বীন-ই-ইলাহী’ ভারতীয় ঐতিহ্য ও সেক্যুলারিজমকে গড়ে উঠতে সহায়তা করেছে।

গবেষণা প্রবন্ধের উপসংহারে ড. হাসানুজ্জামান চৌধুরী বলেন, নোবেলবিজয়ী অমর্ত্য সেন একজন সম্মানিত ও জ্ঞানী ব্যক্তি হলেও তিনি ইসলাম ধর্ম নিয়ে আপত্তিকর মন্তব্য করেছেন। পৃথিবীর যে কোনো ধর্মপ্রাণ মুসলমান এর বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করবেন। ড. হাসানুজ্জামান বলেন : ‘Islam can be accepted when Amartya’s prescriptions of destroying Islam by disobeying Allah and Rasul (SM) are carried out. Quraan and Sunnah should be rejected (nauzbillah), with the excuse that they are traditions of the past of more than 1000 years. …Amartya in his ‘The Argumentative Indian’ has repeatedly mentioned that (Islamic and Muslim) tradition should be rejected and ‘rahi aqbal’ theory given by Emperor Akbar should be accepted as the main principle. He has even gone to the extent of saying that this demon tradition should and must be fought and rejected by the society.’ অর্থাত্, ‘অমর্ত্যের মতামত অনুযায়ী আল্লাহ ও রাসুল (সা.)-এর নির্দেশিত পথকে প্রত্যাখ্যান করার মাধ্যমে যে ‘ইসলাম’ আসবে সেটাকে গ্রহণ করা যেতে পারে। হাজার বছরেরও বেশি পুরনো মতাদর্শ হওয়ায় কোরআন ও সুন্নাহ বর্জন করা উচিত (নাউজুবিল্লাহ)। …অমর্ত্য তার ‘আরগুমেন্টেটিভ ইন্ডিয়ান’-এ বলেছেন, ইসলামের মৌলিক আদর্শ হিসেবে পুরনো মতাদর্শ (ইসলাম ও মুসলিম) বর্জন করে সম্রাট আকবরের ‘রাহি আকবল’কে গ্রহণ করা উচিত। তিনি আরও এক ধাপ এগিয়ে বলেন, সমাজের অবশ্যই উচিত এই দানবীয় ঐতিহ্যের বিরুদ্ধে অবস্থান নেয়া ও প্রত্যাখ্যান করা।’

ড. হাসানুজ্জামান চৌধুরী বলেন, ‘ড. অমর্ত্য সেন ধর্মনিরপেক্ষতাবাদকে হিন্দুত্ববাদ হিসেবে দেখিয়েছেন। এমনকি দেখিয়েছেন, ধর্মনিরপেক্ষতাবাদ অর্থ হলো ইসলাম ত্যাগ করা এবং প্রকৃতপক্ষে হিন্দুত্ববাদকে গ্রহণ করা। কেননা হিন্দুত্ববাদ যে কোনো ধর্মের চেয়ে প্রচলিত মতের বিরোধিতার কারণে শ্রেষ্ঠ।’ (বাংলাদেশ পলিটিক্যাল সায়েন্স রিভিউ, পৃষ্ঠা-৪৪) ড. অমর্ত্য সেন ধর্মনিরপেক্ষতাবাদ হিন্দুধর্ম থেকে উদ্ভব বলে চিত্রায়িত করেছেন। এ বিষয়ে ড. হাসানুজ্জামান চৌধুরী বলেন : ্তুঅসধত্ঃুধ নড়ধংঃং ংবপঁষধত্রংস, নঁঃ ধষষ রঃং ত্ড়ড়ঃং ধত্ব ঁষঃরসধঃবষু ফরংপড়াবত্বফ নু যরস ভত্ড়স ঐরহফঁ ঢ়যরষড়ংড়ঢ়যু, ঐরহফঁ ত্বষরমরড়হ ধহফ ঐরহফঁরংস.্থ অর্থাত্, অমর্ত্য ধর্মনিরপেক্ষতাবাদের দম্ভোক্তি করেছেন, কিন্তু এর মূল হিসেবে তিনি হিন্দু দর্শন, হিন্দু ধর্ম ও হিন্দুত্ববাদকে আবিষ্কার করেছেন।’ (বাংলাদেশ পলিটিক্যাল সায়েন্স রিভিউ, পৃষ্ঠা-২৮)

আবার, আকবরের পরিচালিত মুসলিম শাসনের অনেকটা হিন্দু ধর্মের দ্বারা প্রভাবিত বলে মনে করেন ড. অমর্ত্য সেন। এ বিষয়ে তিনি বলেন : ‘Akbar not only made unequivocal pronouncements on the priority of tolerance, but also laid the formal foundations of a secular legal structure and of religious neutrality of the state. …Despite his deep interest in other religions and his brief attempt to launch a new religion, Din-ilahi (God’s religion), based on a combination of good points chosen from different faiths, Akbar did remain a good Muslim himself.’ অর্থাত্, আকবর কেবল ধৈর্যের প্রাধান্যের দ্ব্যর্থহীন ঘোষণাই দেননি, তিনি রাষ্ট্রের ক্ষেত্রে ধর্মের নিরপেক্ষতা ও ধর্মনিরপেক্ষতাবাদের আনুষ্ঠানিক ভিত্তিও রচনা করেন। …অন্য ধর্ম সম্পর্কে গভীর আগ্রহ এবং সংক্ষিপ্ত উদ্যোগে তিনি বিভিন্ন বিশ্বাসের (ধর্ম) ভালো দিকগুলো সমন্বয় করে নতুন ধর্ম দ্বীন-ইলাহীর (ঈশ্বরের ধর্ম) উদ্ভাবন করেন। আর এভাবে আকবর একজন ভালো মুসলমান হয়ে থাকেন। (আরগুমেন্টেটিভ ইন্ডিয়ান, পৃষ্ঠা-১৮)

ইসলামের প্রকৃত বিশ্বাসের (কোরআন-সুন্নাহ) নীতিমালা সময়ের বিবর্তনে যৌক্তিক পর্যালোচনায় পরিবর্তন করার ওপর গুরুত্বারোপ করেন ড. অমর্ত্য সেন। আর এক্ষেত্রে সম্রাট আকবরের একটি মন্তব্য উদ্ধৃত করেন তিনি : ‘The pursuit of reason and rejection of traditionalism are so brilliantly patent as to be above the need of argument. If traditionalism were proper, the prophets would merely have followed their own elders (and not come with new messages).’ অর্থাত্, যৌক্তিকভাবেই যুক্তির অনুসরণ এবং ঐতিহ্যের প্রত্যাখ্যান সাহসিকতার (মেধার) সঙ্গে উন্মুক্ত করা দরকার। ঐতিহ্য যদি সঠিক হতোই, তবে নবীরা শুধুই তাদের পূর্ববর্তীদের অনুসরণ করতেন (এবং তারা নতুন বার্তা নিয়ে আসতেন না)।

এ উদ্ধৃতি দেয়ার পর ড. অমর্ত্য সেন বলেন : ‘Reason had to be supreme, since even in disputing the validity of reason we have to give reasons.’ অর্থাত্, যুক্তিকেই প্রধান হতে হবে, যুক্তির বৈধতা নিয়ে বিতর্ক থাকলে সেক্ষেত্রে আমাদের অধিকতর যুক্তি দিতে হবে।’

বইয়ের দ্বিতীয় অংশে ভারতীয় সেক্যুলারিজমের দীর্ঘ ইতিহাস তুলে ধরা হয়। এতে তিনি সেক্যুলারিজমকে তার নিজের ধর্মের (হিন্দু ধর্ম) সন্তান হিসেবে চিত্রায়িত করেন।

ড. অমর্ত্য সেনের মতে, সেক্যুলারিজম হিন্দু ধর্ম থেকে এসেছে। সম্রাট আকবর ভারতীয় সেক্যুলারিজমের অগ্রগতিতে সহায়তা করেছেন। আর সেক্ষেত্রে তিনিও হিন্দু ধর্ম দ্বারা প্রভাবিত। তবে সম্রাট আওরঙ্গজেব ইসলামী বিধি অনুযায়ী শাসন পরিচালনা করায় ড. অমর্ত্য সেনের সমালোচনার মুখোমুখি হয়েছেন। অমর্ত্য সেন মনে করেন, মুসলিম আর ইসলাম হলো সাম্প্রদায়িক। নিজেকে অজ্ঞেয়বাদী হিসেবে পরিচয় দিলেও তার বইয়ে তিনি হিন্দুদের তেত্রিশ কোটি ঈশ্বরের অস্তিত্বের বিষয়টি স্বীকার করেছেন।

গীতা ও ঋৃক বেদে তর্কপ্রিয় ঐতিহ্যের প্রাধান্য রয়েছে। যুক্তি, তর্ক, গণতান্ত্রিক ধারা হিন্দু ধর্মের আদর্শ। আর এ থেকেই ভারতে আধুনিক গণতান্ত্রিক সমাজ প্রতিষ্ঠা পেয়েছে বলে অমর্ত্যের ধারণা।

কিন্তু হিন্দু ধর্মে প্রচলিত বহু দেবতার জড়ীয় অস্তিত্ব এবং নিজেদের হাতে বানানো দেবতাকে পূজা করার পেছনে বৈজ্ঞানিক কোনো যুক্তি উপস্থাপন করা যায় না। একজন নোবেলজয়ী জ্ঞানী ব্যক্তি হয়েও অমর্ত্য সেন হিন্দু ধর্মের এই অসারতার বিষয়টি অনুধাবন করেননি। বরং সেক্যুলারিজমসহ অন্য ধর্মগুলোকেও তিনি হিন্দু ধর্মের মধ্যে গুলিয়ে ফেলার অভিপ্রায়ে লিপ্ত হন।

সমালোচনায় ড. হাসানুজ্জামান চৌধুরী বলেন, ড. অমর্ত্য সেন সেক্যুলারিজমে বিশ্বাসী হওয়ার কথা বললেও নিজের হিন্দু ধর্মকে তিনি ত্যাগ করতে চাইছেন না। এমনকি সেক্যুলারিজমের মূল সংজ্ঞা অনুযায়ী সব ধর্মকে রাষ্ট্র থেকে সম-দূরত্ব ও সম-মর্যাদা প্রদানের বিষয়টিও তার বইয়ে বিবেচিত হয়নি। হিন্দু ধর্মকে উলঙ্গভাবে সমর্থন করা হয়েছে। একদিকে তিনি হিন্দু ধর্মকে ইতিবাচকভাবে সমর্থন করেছেন, আবার ইসলাম ধর্মকে প্রত্যাখ্যান করেছেন। ধর্মীয় ঐতিহ্যের আলোচনায় হিন্দু ধর্ম থেকে আগত প্রথাকে তিনি শতভাগ গ্রহণীয় এবং ইসলাম ধর্ম থেকে আগত প্রথাকে আইনত অকার্যকর বলে চিহ্নিত করেছেন।

আরগুমেন্টেটিভ ইন্ডিয়ান বইয়ের ২১ পৃষ্ঠায় নোবেলবিজয়ী ড. অমর্ত্য সেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি সমাবর্তনে সব ধর্মের পবিত্র গ্রন্থ থেকে তেলাওয়াত করার সমালোচনা করেন। এমনকি তিনি এতে ‘আঘাত’ পেয়েছেন বলে উল্লেখ করেছেন। ১৯৯৯ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি সমাবর্তন অনুষ্ঠানে অধ্যাপক ড. অমর্ত্য সেন অতিথি হিসেবে অংশ নিয়েছিলেন। এ অনুষ্ঠানে সব ধর্মগ্রন্থ পাঠ করার মাধ্যমে ‘সেক্যুলার’ দৃষ্টিভঙ্গির প্রমাণ রাখা হয়েছিল। গত ১ ফেব্রুয়ারি বাংলা একাডেমীর একুশে বইমেলা উদ্বোধনেও ড. অমর্ত্য সেন অতিথি হিসেবে বক্তৃতা করেন। সেখানেও একই ধারায় সব ধর্মগ্রন্থের প্রতি সম্মান জানানো হয়। কিন্তু অমর্ত্য সেনের নিজ দেশ ভারতে সেক্যুলারিজম রাষ্ট্রনীতি হলেও সেখানে কেবল হিন্দু ধর্মগ্রন্থকে অধিকতর গুরুত্ব দেয়ার সমালোচনা করেন ড. হাসানুজ্জামান।

ইসলাম ধর্মে পর্দা প্রথার সমালোচনা করে অধ্যাপক ড. অমর্ত্য সেন তার বইয়ের ২০ পৃষ্ঠায় বলেন, পোশাক পরিধানে নিরপেক্ষতা এবং নিষেধাজ্ঞার দুটি বিষয় আছে। ব্যক্তি ইচ্ছা অনুযায়ী যে কোনো পোশাক পরিধান করতে পারে। আর রাষ্ট্র বা ধর্ম এক্ষেত্রে কোনো নিষেধাজ্ঞা দিতে পারে না। একথা বলার পরই তিনি ফ্রান্সে বোরকা পরা নিষিদ্ধ করার রাষ্ট্রীয় সিদ্ধান্তের পক্ষে অবস্থান নেন। মুসলমানদের মাথায় স্কার্ফ (পর্দা) পরাকে তিনি লিঙ্গবৈষম্য হিসেবে অভিহিত করেন।

ড. হাসানুজ্জামান চৌধুরী পর্দাপ্রথা সম্পর্কে ড. অমর্ত্য সেনের মতের সমালোচনা করেন। তিনি বলেন, কোরআনে পর্দাপ্রথার যে গুরুত্ব বর্ণনা আছে, সে সম্পর্কে তিনি কোনো ধারণা না নিয়েই মিথ্যা যুক্তি উপস্থাপন করেছেন। এক্ষেত্রে তিনি পবিত্র কোরআনের উদ্ধৃতি দেন। সুরাহ আল আহজাবে বলা হয়েছে, ‘হে নবী, আপনার স্ত্রী, কন্যা এবং মুমিন নারীদের বলে দিন, তারা যেন মাথাসহ শরীর ঢেকে রাখে। এটা ভালো হবে যে, তা বিশৃঙ্খলার (ডিস্টার্ব) হাত থেকে রক্ষা পেতে সহায়তা করবে। আল্লাহ সর্বক্ষমাশীল ও করুণাময়।’ ড. হাসানুজ্জামান চৌধুরী এ উদ্ধৃতি দিয়ে বলেন, কোরআনে যেখানে স্বয়ং আল্লাহ ‘পর্দা’ করার জন্য নির্দেশ দিয়েছেন, ড. অমর্ত্য তা প্রত্যাখ্যানের পরামর্শ দেন। এটা নিঃসন্দেহে বিভ্রান্তিকর মন্তব্য।

সেক্যুলারিজম ও প্রকৃত সত্য : ড. অমর্ত্য সেনের ব্যাখ্যার সমালোচনার পাশাপাশি ড. হাসানুজ্জামান চৌধুরী সেক্যুলারিজমের প্রকৃত ধারণা উপস্থাপন করেন। তার মতে, সেক্যুলারিজমের ধারণা মূলত ইউরোপে শুরু হয়। গির্জা ও ধর্মগুরুদের বিরুদ্ধে প্রতিবাদের পথ ধরে হজরত ঈসা (আ.)-এর ধর্ম বিবর্তিত হয়ে খ্রিস্টান ও পরবর্তীকালে সেক্যুলারিজমের ধারণার সৃষ্টি হয়। ধর্ম প্রচারের একপর্যায়ে উদ্ভূত পরিস্থিতিতে হজরত ঈসা (আ.)-এর অনুপস্থিতিতে তার প্রবর্তিত ধর্মকে ইচ্ছামত পরিবর্তন করেন পল। এ পরিস্থিতিতে ‘ইঞ্জিল’ পরিবর্তিত হয়ে ‘বাইবেল’ তৈরি করা হয়। মুসলমানদের ধর্মকে উপেক্ষা করে মানবরচিত রীতি নিয়ে খ্রিস্টান ধর্ম পরিচালনা শুরু হয়। কলুষিত খ্রিস্টান ধর্মকে মানুষ প্রত্যাখ্যান করে। রোমান ক্যাথলিক ধর্মের বিপরীতে প্রটেস্টান্ট নীতিবিদ্যার আদলে নানা ধর্মমত গড়ে ওঠে। পারস্পরিক দ্বন্দ্বে জড়িয়ে পড়ে এসব গোষ্ঠী। এতে জনজীবনে অশান্তি নেমে আসে। ক্যালভিন, লুথারসহ অনেকে এসব অশান্তি রোধে এগিয়ে আসেন। উইলিয়াম ওকাম, জন সেলিসবারি একটি নতুন আন্দোলন গড়ে তোলেন। ম্যাকাইভেলি রাষ্ট্র থেকে ধর্মকে বিচ্ছিন্ন করে বিদ্যমান অশান্তি রোধে ভূমিকা রাখেন। সংস্কার ও রেনেসাঁ সংঘটিত হয়। দ্বান্দ্বিক খ্রিস্টান ধর্মের নানারূপ রাষ্ট্র, অর্থনীতি, সমাজ, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির অগ্রগতিতে বাধা হিসেবে দেখা দেয়।

এ পরিস্থিতিতে ইউরোপে খ্রিস্টান ধর্ম উপেক্ষিত হয় এবং তা কেবল ব্যক্তিগত জীবনেই ব্যবহার করা হতে থাকে। বিবর্তনের এ ধারায় রাষ্ট্র ধর্মনিরপেক্ষ হয়ে ওঠে।

ড. হাসানুজ্জামান চৌধুরী সেক্যুলারিজমকে প্রত্যাখ্যাত মতবাদ হিসেবে প্রমাণের চেষ্টা করেন। এক্ষেত্রে তিনি কয়েকজন বিজ্ঞানীর গবেষণা ও তত্ত্ব উপস্থাপন করেন। তিনি বলেন, বিজ্ঞান এরই মধ্যে সেক্যুলারিজমকে প্রত্যাখ্যান করেছে; বিগ ব্যাং তত্ত্ব, দেশ-কাল-পদার্থ-শক্তি তত্ত্ব, বিশ্বতাত্ত্বিক তত্ত্বের বিস্তৃত রূপসহ নানা তত্ত্ব আবিষ্কারের মাধ্যমে সর্বশক্তিমান আল্লাহর অস্তিত্ব প্রমাণ করেছে। বিজ্ঞানী পল ডেভিস তার ‘সুপার ফোর্স’ এবং ‘কসমিক ব্লু প্রিন্ট’, পদার্থবিদ হেনস্্্্্ তার ‘প্যাগেলস্্্্্ ইদ কসমিক কোড’ এবং ‘পারফেক্ট সাইমেট্রি’, স্যামুয়েল ভিসকাউন্ট তার ‘বিলিফ অ্যান্ড অ্যাকশন’ গেরাল্ড শ্রয়ডার তার ‘দি হিডেন ফেস অব গড : সায়েন্স রিভিলস্্্্্ ইদ আলটিমেট ট্রুথ’ বইয়ে আল্লাহর অস্তিত্ব প্রমাণ করেছেন এবং ধর্মনিরপেক্ষতাবাদকে প্রত্যাখ্যান করেছেন।

Source : http://www.amardeshonline.com/pages/details/2011/04/05/75481

 

বাংলাদেশে ইসলাম

যে মুসলিম প্রধান দেশের সংবিধান প্রনয়ন কমিটির হর্তা-কর্তা হয় একজন হিন্দু!! সেটি কিভাবে মুসলিম প্রধান দেশ হয় ? ভাবতে অবাক লাগে বাংলাদেশের মত একটি মুসলিম প্রধান রাষ্ট্রের সংবিধানে বিসমিল্লাহ থাকবে, কি থাকবেনা তা নিয়ে নিয়মিত মন্তব্য করছে নন-মুসলিম, হায়রে বাংলাদেশের মুসলমানেরা! এখানেই কি শেষ ?? ফতোয়া ইসলামের একটি অবিচ্ছেদ্ধ অংশ অথচ বাংলাদেশে তা নিষিদ্ধ, এটিকে অস্বীকারকারী যে, প্রকারান্তে ইসলামকেই অস্বীকার করল তা এই দেশের মানুষ বুঝেও না বুঝার ভান করেন, এদেশের প্রধানমন্ত্রীর ছেলে থিসিস লেখেন খ্রিষ্টান কে সাথে নিয়ে ইসলামের বিরুদ্ধে, বাংলাদেশের বিরুদ্ধে, বাংলাদেশের সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে, বাংলাদেশ সেনাবাহীতে নাকি মৌলবাদি মাদ্রাসা ছাত্ররা ৩৫%!! সুতরাং সেনাবাহিনীকে পূনর্গঠন করারও প্রস্তাব দিয়েছেন, অবশ্য বিডিআর বিদ্রোহের নামে ইতিমেধ্য তা সম্পন্নও হয়েছে। একজন মুসলিম হিসেবে সব সময়ই ইসলামী রীতিনীতিকে শতভাগ পালন করার চেষ্টা করতে হবে, কিন্তু কষ্টে বুক ফেটে যায় যখন দেখি মুসলিম প্রধান দেশের প্রধানমন্ত্রী হিন্দুদের তিলক নিচ্ছেন তার কপালে, বৌদ্ধদের অনুকরনে স্মৃতিসৌধে মাথা ঝুকে শ্রদ্ধা করছেন!! কোরান তেলাওয়াতে আপত্তি করছেন বর্তমান সরকারের একজন মন্ত্রী, আবার উম্মতের নতুন সংজ্ঞা দিচ্ছেন মতিয়া চৌধুরী! কি আজব আমরা, যিনি নিজেই জানেন না উম্মত কি জিনিস তিনিই আবার মন্তব্য করছেন কে কার উম্মত। পাটমন্ত্রী আব্দুল লতিফ সিদ্দীকিতো বলেই বসলেন তামাক মদের মত ধর্ম একটি নেশা, রাষ্ট্রীয় দায়িত্বশীল পর্যায়ের মুখ থেকে এমন মন্তব্য ইসলাম সম্পর্কে! এ কেমন ধর্মনিরপেক্ষতা ? এরই নাম কি ধর্মনিরপেক্ষতা ? বাংলাদেশে ক্রিকেট বিশ্বকাপের উদ্ভোদন হলো কিছুদিন আগে, এখানে সংখ্যাগরিষ্ট মুসলমান বলে কোরান তেলাওয়াতের মাধ্যমেই অনুষ্ঠান শুরুর কথা ছিল, কিন্তু এই মুসলিম প্রধান রাষ্টে বিশ্বকাপের উদ্ভোদনী অনুষ্ঠান শুরু হলো হিন্দুদের মঙ্গল প্রদিপ জ্বালিয়ে, কি প্রগতিশীল আমরা! ভারতীয় দাদাদের খুশী করতে, আর কত কি না হয় করতে হয় বাকী জীবনে আল্লাহ-ই ভালো জানেন, বায়তুল মোকাররম মসজিদে তিন ওয়াক্ত নামাযের আযান মাইকে দেওয়া হয়নি, কি এমন ক্ষতি হতো যদি সারা বিশ্ব জানত মসজিদের শহর ঢাকা শহর, আজকে বাংলাদেশে মসজিদে তালা দেওয়ার মত ঘটনাও ঘটাচ্ছেন কতিপয় রাজনৈতিক নেতা কর্মী, চিন্তা করতেও লজ্জা লাগে আমরা কি আসলেই মুসলিম ? মসজিদ ভেঙে জায়গা দখল করছেন রাজনৈতিক নেতা। বায়তুল মোকাররম
মসজিদে পুলিশ জুতা পায়ে ঢুকে বেদড়ক পিটিয়েছে মুসল্লিদের, শুধু কি তাই,প্রকাশ্যে রাস্তায় উলঙ্গ করেছে আলেম-ওলামাদের, তবুও আমরা মুসলিম, নামের আগে পরে ইসলামী রীতি! ঈদের জামাতে প্রথম কাতারে ভারী সাজু-গুজু করে, কোরবানীতে লক্ষ টাকার গরু কিনে মিডিয়ার নজরে আসা, আরো কত কি ? ইসলামী ফাউন্ডেশনের সরকারের অধিনে একটি ইসলামী প্রতিষ্ঠান হিসেবেই জানেন এদেশের জনগণ, অথচ সেখানেই করা হলো মার্কিন তরুন তরুনীর অশ্লীন নাচ,
ভাবতে খুব ভালো লাগে আমরা দিন দিন খুব বেশী আধুনিক হচ্ছি মনে হয়! নারী পুরুষের সম-অধিকারের নামে কোরানের আইনকে বৃদ্ধাঙ্গুল দেখাচ্ছে সরকার, এর পরও আমরা মুসলিম, বাংলাদেশ মুসলিম প্রধান রাষ্ট ?

ধর্মনিরপেক্ষ আবার সাথে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম! মহান আল্লাহর উপর আস্থা রাখা যাবেনা, আবার সাথে বিসমিল্লাহ! মনে হচ্ছে ইসলাম যেন শুধু তৃতীয় তম নয়, ১০১তম পার্সেন সিংগুলার নাম্বার। অনেকটা করুনার মত! যে দেশে ৮৮% মুসলিম সে দেশে ইসলাম কে নিয়ে এত টানা হেঁছড়া কেন ? যে দেশটি পৃথিবীর দ্বিতীয় মুসলিম রাষ্ট সে দেশটিতে ইসলামের এত অবমাননা কেন ? এবং “মহান আল্লাহর উপর আস্থা”  সংবিধান থেকে বাদ দেওয়া হলো কেন ?

http://www.sonarbangladesh.com/blog/vision2021/30982

 

Islamic Video Song : This Is Islam….

People of the world……..Do you know what is the truth about Islam ? It’s all about peace, love, family & praying to one God……..It doesn’t teach terrorism. And this is the truth about Islam.

পিলখানা হত্যাকান্ডঃ বাংলাদেশের প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা ধ্বংসের ভারতীয় ষড়যন্ত্র [অধ্যায়-২]

[১ম খন্ড] -এর পর

৩. ঘটনা-পরবর্তী ভারতীয় প্রতিক্রিয়া

বিডিআর হেডকোর্য়াটারে ঘটে যাওয়া নারকীয় হত্যাযজ্ঞের পরপরই ভারতীয় রাষ্ট্র সংশি−ষ্ট ব্যক্তিবর্গের উক্তি থেকে শুরু করে, তাদের সামরিক বাহিনীর ব্যাপক প্রস্তুতি এবং সে দেশের ইলেক্ট্রনিক ও প্রিন্ট মিডিয়াতে প্রকাশিত খবরগুলো যে কোন ব্যক্তিকে উদ্বিগ্ন করার জন্য যথেষ্টনির্মম এ হত্যাযজ্ঞের সুষ্ঠু তদন্তের স্বার্থে এ বিষয়গুলো যথেষ্ট গুরুত্বের সাথে বিবেচনার দাবি রাখে।

৩.১ ভারত সরকারের প্রতিক্রিয়া

ভারতের রাজনৈতিক নেতৃত্বের মনোভাব বলে দেয় যে তারা এই ঘটনার পরবর্তী পরিস্থিতি সম্পর্কে আগে থেকেই প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছে:

#ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী প্রণব মুখার্জী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ফোন করে পরিস্থিতি মোকাবিলায় যে কোন ধরনের সহায়তার আশ্বাস দেন এবং বিডিআরকে আর্থিক সহায়তার প্রস্তাব দেন।

https://wakeupbd.files.wordpress.com/2011/02/pranabmukherjee.jpg?w=300

ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী প্রণব মুখার্জী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ফোন করে পরিস্থিতি মোকাবিলায় যে কোন ধরনের সহায়তার আশ্বাস দেন এবং বিডিআরকে আর্থিক সহায়তার প্রস্তাব দেন।

#“…এই পরিস্থিতিতে বাংলাদেশকে সব ধরণের সহায়তা দিতে ভারত প্রস্তুত। … আমি তাদের উদ্দেশ্যে কঠোর সতর্কবাণী পাঠাতে চাই, যারা বাংলাদেশে শেখ হাসিনার সরকারকে দুর্বল করার চেষ্টা করছে, তারা যদি একাজ অব্যাহত রাখে, ভারত হাত গুটিয়ে বসে থাকবে না, প্রয়োজনে সরাসরি হস্তক্ষেপ করবে”। ভারতীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রী প্রণব মুখার্জী নয়া দিল্লীতে অনুষ্ঠিত কংগ্রেস নেতাদের বৈঠকে একথা বলেন, যা আউট লুক-এর একটি প্রতিবেদনে জানানো হয়।

https://i1.wp.com/omsnewsbd.com/wp-content/uploads/2011/02/1278693921031.jpg

শেখ হাসিনার সরকারকে রক্ষা করার প্রয়োজন কেন ভারতের? অবস্থাদৃষ্টে মনে হয় ২৫ফেব্রুয়ারীর ঘটনার পর বিডিআর এর যে সংস্কারের কথা বলা হচ্ছে তা ভারত শেখ হাসিনার মাধ্যমে করাতে চায়। এমনকি সম্ভব হলে তারা নিজেদের স্বার্থের অনুকূলে বাংলাদেশের সেনাবাহিনীর সংস্কারও করতে চাইবে।

৩.২ ভারতের সেনাবাহিনীর প্রতিক্রিয়া

ভারতীয় সেনাবাহিনীর ব্যাপক প্রস্তুতি দেশবাসীকে উদ্বিগ্ন করেছে। এই প্রস্তুতি সম্পর্কে মিডিয়ায় যা প্রকাশিত হয়েছে তা নিম্নরূপ:

https://i0.wp.com/www.mysarkarinaukri.com/files/images/Logo%20-%20Indian%20Army%20-%201.jpg

বিদ্রোহের পরপরই বাংলাদেশে humanitarian intervention বা মানবিক হস্তক্ষেপের জন্য ভারতীয় সেনাবাহিনীকে পুরোপুরি প্রস্তুত রাখা হয়েছিলো

১.ভারতের প্রখ্যাত ইংরেজী দৈনিক Hindustan Times এ গত ২ মার্চ প্রকাশিত একটি রিপোর্টে বলা হয়েছে, বিদ্রোহের পরপরই বাংলাদেশে humanitarian intervention বা মানবিক হস্তক্ষেপের জন্য ভারতীয় সেনাবাহিনীকে পুরোপুরি প্রস্তুত রাখা হয়েছিলো। পত্রিকাটি জানায় যে, বিদ্রোহের দিন ভারতের বিমান বাহিনী (আইএএফ) IL-76 হেভি লিফ্‌ট এবং AN-32 মিডিয়াম লিফ্‌ট এয়ারক্রাফট নিয়ে বাংলাদেশ সরকারকে পূর্ণ সহায়তা দিতে পুরোপুরি প্রস্তুত ছিলো। আসামের জোরহাটে অবস্থিত ভারতের সবচাইতে বড় বিমান ঘাটিকে এই সহায়তা মিশনের জন্য পুরোপুরি প্রস্তুত রাখা হয়েছিল।

২.বিএসএফ এর একজন ডাইরেক্টর জেনারেলের উক্তি থেকেও ভারতের সামরিক প্রস্তুতি সম্পর্কে ধারণা পাওয়া যায়।

গত ৪ মার্চ এক বিবৃতিতে তিনি বলেন,“বাংলাদেশে এই সঙ্কট (শুরু) হবার পর, আমরা ইন্দো-বাংলাদেশ সীমান্তে কর্তব্যরত আমাদের সকল সৈন্যদল ও অফিসারদের সর্বোচ্চ সতর্কতামূলক অবস্থায় থাকার নির্দেশ দিয়েছি।”

https://wakeupbd.files.wordpress.com/2011/02/bsf_logo.gif?w=289

ভারত সরকার মৈত্রী এক্সপ্রেসের নিরাপত্তার জন্য বিএসএফ-কে শান্তিরক্ষী বাহিনী হিসাবে বাংলাদেশে পাঠানোরও প্রস্তাব দিয়েছিল

৩.বিভিন্ন সংবাদ সংস্থার মাধ্যমে জানা যায় ঘটনার পরপরই সীমান্তে ভারতীয় কর্তৃপক্ষ বেনাপোলসহ বিভিন্ন স্থলবন্দর ও গুরুত্বপূর্ণ সীমান্ত এলাকায় ভারি অস্ত্রশস্ত্রসহ বিপুলসংখ্যক বিএসএফ সদস্যের পাশাপাশি বিশেষ কমান্ডো বাহিনী ব্লাকক্যাট মোতায়েন করে। একই সাথে সমস্ত সীমান্ত জুড়ে রেডএলার্ট জারি করে।

৪.ভারতের প্রিন্ট মিডিয়ার মাধ্যমে জানা যায় ভারত সরকার মৈত্রী এক্সপ্রেসের নিরাপত্তার জন্য বিএসএফ-কে শান্তিরক্ষী বাহিনী হিসাবে বাংলাদেশে পাঠানোরও প্রস্তাব দিয়েছে

স্বাভাবতই প্রশ্ন আসে, বাংলাদেশে ঘটে যাওয়া বিডিআর বাহিনীর অভ্যন্তরীণ এই বিদ্রোহকে ঘিরে ভারতের মতো একটি বিশাল রাষ্ট্রের এতো প্রস্তুতি কেন। আর যাই হোক এই বিদ্রোহ কোনভাবেই ভারতের জন্য নিরাপত্তা হুমকি ছিলো না। আর তাছাড়া যে বিদ্রোহের গুরুত্ব ও ভয়াবহতা (প্রধানমন্ত্রীর সংসদে প্রদত্ত ভাষ্য অনুযায়ী) প্রধানমন্ত্রী স্বয়ং বুঝতে ব্যর্থ হয়েছেন, যে জন্য তারা সেনা অফিসারদের রক্ষায় দ্রুত সামরিক অভিযানে না গিয়ে ৩৬ ঘন্টা যাবত হত্যাকারীদের সাথে একের পর এক বৈঠক করে ধীর স্থিরতার সাথে রাজনৈতিকভাবে সামরিক বিদ্রোহ দমন করলেন, সেই বিদ্রোহের গুরুত্ব বা ভয়াবহতা ভারত সরকারই বা কিভাবে বুঝে  ফেললো ? এছাড়া এ দেশের সামরিক বাহিনীর মধ্যকার যে কোন বিদ্রোহ দমনে এ দেশীয় দক্ষ সেনাবাহিনীই যথেষ্ট, এতে সন্দেহের কোন অবকাশ নেই। তাহলে, ভারতের মিশন কী? বাংলাদেশের বর্তমান বন্ধু সরকারকে রক্ষা করা? বাংলাদেশের সরকারকে রক্ষা করবে ভারতীয় বাহিনী। কেন? আমাদের নিরাপত্তা বাহিনী নেই?  নাকি প্রধানমন্ত্রী তাদের বিশ্বাস করেন না?

৩.৩ ভারতের মিডিয়ার প্রতিক্রিয়া

২৭ ফেব্রুয়ারীর পূর্ব পর্যন্ত এদেশের জনগণও পুরোপুরিভাবে তথাকথিত এই বিদ্রোহের আসল রূপ বুঝতে পারেনি। অথচ পুরো সময়ে ভারতীয় মিডিয়া ছিল অত্যন্ত তৎপর:

https://i1.wp.com/news.xinhuanet.com/english/2009-02/27/xin_232020627170629681248.jpg

আমাদের গোয়েন্দা সংস্থা যেখানে দুই দিনেও শাকিল আহমেদের মৃত্যু নিশ্চিত করতে পারেনি, সেখানে সুদূর ভারতে বসে ভারতীয় মিডিয়া জেনারেল শাকিল আহমেদসহ ১২ জন অফিসারের নিহত হবার বিষয়ে কি করে নিশ্চিত হলো?

১.বিডিআর জেনারেল শাকিল আহমেদসহ আরও ১১ জন সেনা কর্মকর্তার নিহত হবার সংবাদ ভারতীয় গোয়েন্দা সংস্থা নিয়ন্ত্রিত চ্যানেল এনডিটিভিতেই সর্বপ্রথম প্রচার করা হয়েছে। আমাদের গোয়েন্দা সংস্থা যেখানে দুই দিনেও শাকিল আহমেদের মৃত্যু নিশ্চিত করতে পারেনি, সরকারের মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রী ঘন ঘন বিডিআর হেডকোর্য়াটারে যাতায়াত করে হত্যাকারীদের সাথে দফায় দফায় দেনদরবার করেও যেখানে গণহত্যার খবর পায়নি, সেখানে সুদূর ভারতে বসে ভারতীয় মিডিয়া ১২ জন অফিসারের নিহত হবার বিষয়ে কি করে নিশ্চিত হলো? তাহলে কি তাদের গোয়েন্দা সংস্থার এজেন্টরা বিডিআর হেডকোর্য়াটারের ভেতরে অবস্থান করছিলো?

২.ভারতীয় গোয়েন্দা সংস্থা ‘র’ এর সাবেক শীর্ষ পর্যায়ের কর্মকর্তা বি. রমন ২৭ ফেব্রুয়ারী ভারতের বিখ্যাত ম্যাগাজিন আউটলুকে বলেন ভারতের প্রতি বিডিআর সদস্যদের বৈরী মনোভাব বাংলাদেশের সাথে সম্পর্কের ক্ষেত্রে বাধা।

৩.ঘটনার পরপরই ভারতের প্রিন্ট মিডিয়ায় বিডিআরকে একটি অত্যন্ত ভয়ঙ্কর বাহিনী হিসাবে উপস্থাপন করা হয়েছে।

৪.আর আনন্দবাজার, টেলিগ্রাফ এর মত পত্রিকাগুলো বাংলাদেশের বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলোকে আক্রমণ করে ধারাবাহিকভাবে সংবাদ প্রচার করেছে। এমনকি বিডিআর-এর ঘটনায় জঙ্গী কানেকশন ভারতীয় মিডিয়াই প্রথম আবিষ্কার করে। পরবর্তীতে একই ধরণের কথা আমরা এদেশের মন্ত্রীদের মুখে শুনতে পাই।

https://i0.wp.com/www.bangladeshrifles.com/--BDR_Logo-medium.jpg

ভারতীয় গোয়েন্দা সংস্থা ‘র’ এর সাবেক শীর্ষ পর্যায়ের কর্মকর্তা বি. রমন ২৭ ফেব্রুয়ারী বলেন ভারতের প্রতি বিডিআর সদস্যদের বৈরী মনোভাব বাংলাদেশের সাথে সম্পর্কের ক্ষেত্রে বাধা।

৪. সরকারের ভূমিকা

৪.১ ফেব্রুয়ারী ২৫-২৬

পরিস্থিতির বিশ্লে−ষণ থেকে বুঝা যায় ঘটনার শুরু থেকেই ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ সরকার রহস্যজনক ভূমিকা পালন করেছেএতো বড় ঘটনার পরিকল্পনা চলছিল আর সরকার তা জানে না, একথা মেনে নেয়া যায় না। তাছাড়া জাতীয় নিরাপত্তার সাথে সংশি−ষ্ট অতি গুরুত্বপূর্ণ এই পরিস্থিতিতে কেন শুরুতেই অনভিজ্ঞ প্রতিনিধিদের পাঠানো হয়েছে যারা কতিপয় বিদ্রোহীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করেছে? অথচ তারা সেনা সদস্য ও তাদের পরিবারের জান-মাল-ইজ্জতের নিরাপত্তা নিশ্চিত করেনি। সেনাসদস্য ও তাদের পরিবারবর্গের নিরাপত্তা নিশ্চিত না করেই সরকার কি উদ্দেশ্যে তড়িঘড়ি করে সাধারণ ক্ষমা ঘোষণা করলো? যে ঘোষণার সুযোগ নিয়ে তারা দেড় দিন ধরে লাশ গুম, ব্যাপক লুটতরাজ ও সেনা কর্মকর্তাদের পরিবারবর্গের উপর নির্যাতন করেছে। ২৬ ফেব্রুয়ারী বিকালে বিডিআর সদর দপ্তরের আশেপাশের লোকজনকে সরে যাওয়ার আহ্বান জানিয়ে এবং বিদ্যুত সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে প্রকৃতপক্ষে কি ঘাতকদের পালিয়ে যাওয়ার সুযোগ করে দেয়া হয়নি? সাহারা খাতুন ২৫ ফেব্রুয়ারী অস্ত্র জমা নিলেন, তারপরও বিপুল পরিমাণ অস্ত্র বাইরে গেল কিভাবে? যেসব বিদেশী নাগরিক আইডিসহ ধরা পড়েছিল, তাদেরকে ছেড়ে দেয়া হল কেন? বিমানে করে কারা পালালো? দেশবাসী ও সেনা কর্মকর্তারা এই রকম অসংখ্য প্রশ্নের উত্তর জানতে চায়। দেশবাসী ও সেনা কর্মকর্তাদের এই সব মৌলিক প্রশ্নের উত্তর এখনো পাওয়া যায়নি।

https://i0.wp.com/barta24.net/uploads/editoruploads/sahara-khatun-on-mobile-phone.jpg

সাহারা খাতুন ২৫ ফেব্রুয়ারী অস্ত্র জমা নিলেন, তারপরও বিপুল পরিমাণ অস্ত্র বাইরে গেল কিভাবে?

সেক্টর কমান্ডার লে. জে. মীর শওকত এক টকশোত বললেন, “সেনাবাহিনী আসতে পনের মিনিট, বিদ্রোহ দমন করতে পাঁচ মিনিট…”।

https://i0.wp.com/www.thedailystar.net/photo/2010/11/21/2010-11-21__fro22.jpg

সেক্টর কমান্ডার লে. জে. মীর শওকত এক টকশোত বলেছিলেন, “সেনাবাহিনী আসতে পনের মিনিট, বিদ্রোহ দমন করতে পাঁচ মিনিট...” এই অভিজ্ঞতাসম্পন্ন জেনারেল অনেকবার এর আগে সেনা বিদ্রোহ, বিমান বাহিনীর বিদ্রোহ দমন করেছেন।

লে. জে. শওকত অনেকবার এর আগে সেনা বিদ্রোহ, বিমান বাহিনীর বিদ্রোহ দমন করেছেন। একই ধরণের কথা আরো অনেকেই বলেছেন। তাহলে আধা ঘন্টার সামরিক সমাধানের পরিবর্তে ৩৬ ঘন্টার তথাকথিত রাজনৈতিক সমাধান হলো কেন? এর আগে জনাবা সাহারা খাতুন ও নানক সাহেব কয়টি বিদ্রোহ দমন করেছেন? ধানমন্ডির এমপি তাপস সাহেব মিডিয়ায় বললেন, ‘চমক আছে’! কী চমক? বাষট্টি সেনা কর্মকর্তার লাশ? নাকি সকল হত্যাকারীর পলায়ন! এখানে আরো একটি প্রশ্ন থেকে যায়। প্রধানমন্ত্রী সংসদে দাঁড়িয়ে বলেছেন যে বিদ্রোহের সংবাদ জানার পর তিনি সেনাপ্রধানকে প্রশ্ন করে জেনেছেন সেনাবাহিনী আসতে দুই ঘন্টা লাগবে? কোনটা সত্য? আধা ঘন্টা না দুই ঘন্টা? রাজনৈতিক সমাধানের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী নাকি ‘গৃহযুদ্ধ’ ঠেকিয়েছেন। আসলে কি তাই? প্রধানমন্ত্রীর সাথে যে ১৪ জন মিটিং করেছিল, তারা সবাই কি গ্রেফতার হয়েছে? তাদের তালিকা কোথায়? অনেকে বলেছে সরকার দক্ষতার সাথে পরিস্থিতি সামাল দিয়েছে। এর তুলনা করা যেতে পারে এভাবে – অপারেশন সাকসেস্‌ ফুল, কিন্তু রোগী মারা গিয়েছে। বাস্তবতা হলো বিদ্রোহ দমন করা যেত, দমন করা হয়নি। সেনা কর্মকর্তাদের বাঁচানো যেত, বাঁচানো হয়নি।

আমরা বীর সেনা কর্মকর্তা হারালাম, বিডিআরের চেইন অব কমান্ড ধ্বংস হলো, হত্যাকারীরা পালালো -এইসব কারণেই সরকারের ভূমিকা প্রশ্নবিদ্ধ।

৪.২ ঘটনা পরবর্তী সরকারের ভূমিকা

যে মন্ত্রী তথাকথিত বিদ্রোহীদের সাথে দর কষাকষি করেছে সে জাতির সামনে বলেছেন যে, বিডিআর সদর দপ্তরে ঘটে যাওয়া ঘটনার পিছনে একটি গভীর ষড়যন্ত্র ছিল এবং এই ষড়যন্ত্র বাস্ত বায়নের জন্য লক্ষ-কোটি টাকা ব্যয় করা হয়েছে। তিনি সকল তদন্ত শুরু হবার আগেই এবং ঘটনার দুই দিনের মাথায় প্রকাশ্য সমাবেশে এই বক্তব্য দিয়েছিলেন। স্বাভাবিকভাবে প্রশ্ন জাগে তবে কি তিনি আগে থেকেই ষড়যন্ত্রের বিষয়টি জানতেন। তার এই বক্তব্যের সূত্র ধরে এখন সরকার ক্রমাগত ষড়যন্ত্রের কথা বলে প্রকৃত দোষীদের আড়াল করার চেষ্টা করছে।

প্রধানমন্ত্রী সংসদসহ বিভিন্ন জায়গায় বিডিআরের ঘটনায় বক্তব্য দিয়ে যাচ্ছেন যা অসংলগ্নতায় পরিপূর্ণ এবং বাস্তব ঘটনার সাথে অসামঞ্জস্যপূর্ণ। এসবের উদ্দেশ্যই হচ্ছে জনগণকে বিভ্রান্ত করা। যেমন তিনি বলেছেন সরকারকে বিব্রত করতে এই ঘটনা ঘটানো হয়েছে অথচ জনগণের কাছে পরিষ্কার যে বাংলাদেশের প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা দূর্বল করার জন্যই এই ঘটনা ঘটানো হয়েছেপ্রধানমন্ত্রী সংসদে বলেছেন যে, সকাল ১১টার মধ্যে সেনা কর্মকর্তাদের হত্যাকান্ড ঘটানো হয়েছে। এটা জেনে প্রধানমন্ত্রী কিভাবে দু’দুবার সাধারণ ক্ষমা ঘোষণা করেন।

প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা এবং পুত্র সজীব ওয়াজেদ জয়, আল-জাজিরাকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে বলেন যে, বিডিআরের তথাকথিত বিদ্রোহের পিছনে বৈধ কারণ রয়েছে

https://i1.wp.com/neawamileague.com/elements/joy.jpg

প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা এবং পুত্র সজীব ওয়াজেদ জয়

যেভাবে তথাকথিত বিদ্রোহীরা প্রথম দিন টিভি ক্যামরার সামনে এসে তাদের দাবী দাওয়ার কথা বলে দেশবাসীকে বিভ্রান্ত করেছিল, একই প্রক্রিয়াই সজীব জয় দেশবাসীকে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করছেন

ঘটনা তদন্তের জন্য এফবিআই ও স্কটল্যান্ড ইয়ার্ড বাংলাদেশে এসেছে। অর্থাৎ আমেরিকা ও বৃটেন বাংলাদেশের ঘটনার তদন্ত করবে। অথচ এই মার্কিন-বৃটিশরা সারা বিশ্বে মুসলিম নিধনে ব্যস্ত। শুধু তাই নয়, এরা সবাই সরকারকে সমর্থন করার কথা ঘোষণা করেছে। উপরন্তু, এটা বিশ্বাসযোগ্য নয় যে এই বিদেশী গোয়েন্দা সংস্থাগুলো এই ঘটনার সাথে সংশি−ষ্ট ভারত ও ভারতের এদেশীয় দোসরদের ভূমিকার দিকে আঙ্গুলি নির্দেশ করতে পারে।

সরকার মিডিয়াকে দায়িত্বশীল আচরণের কথা বলে এখন সত্য প্রকাশের পথে বাধা সৃষ্টি করছে। প্রধানমন্ত্রীর সাথে সেনা কর্মকর্তাদের বৈঠকের একটি অংশ ইন্টারনেটের মাধ্যমে জনগণের কাছে পৌছে যাওয়ায় সরকার ঐ ওয়েব সাইটগুলো বন্ধ করে দিয়েছে। হিযবুত তাহ্‌রীর, বাংলাদেশ এই ঘটনার বিশে−ষণ করে ভারতকে দায়ী করায় ও সরকারের ভূমিকার সমালোচনা করায় সরকার ৩১ জনকে গ্রেফতার করে এবং তাদের বিরুদ্ধে মামলা করেছে। জনগণ এমনকি সেনা অফিসারদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে না পারলে কিছুই হয়না আর রাষ্ট্র রক্ষার জন্য রাজপথে নামলে হয় মামলা আর হয়রানি!

সরকার জনগণের দায়িত্ব নেয়ার কথা বলেছে, বর্তমান পরিস্থিতিতে সকলকে দায়িত্বশীল হতে বলছে, অথচ তারা অন্যের উপর দায় চাপানোর চেষ্টা করছে। আমরা দেখেছি সরকারের স্তাবকেরা বাংলাদেশের মিডিয়ায় ভারতীয় মিডিয়ার বক্তব্য হুবহু তুলে ধরছে, জঙ্গিবাদকে দায়ী করার চেষ্টা করছে, এমনকি সরকারের বয়স মাত্র পঞ্চাশ দিন ইত্যাদি বলে ঘটনার দায়দায়িত্ব অন্যের ঘাড়ে চাপানোর আপ্রাণ চেষ্টা করছে। তদন্ত কমিটির কোন রিপোর্ট প্রকাশ না হতেই সরকারের মন্ত্রীবর্গ ও মিডিয়া জঙ্গী গোষ্ঠীদেরকে এই ঘটনার জন্য দায়ী করা শুরু করেছে। আবার একই মন্ত্রী পরবর্তীতে বলছে যে জঙ্গীরা ছাড়া অন্যান্য গোষ্ঠীও এই ঘটনার সাথে জড়িত।

যেখানে ভারতে কিছু ঘটলেই ভারত সরকার পাশ্ববর্তী দেশের দিকে অঙ্গুলি নির্দেশ করে, সেখানে সরকার পরিকল্পনা করেই দেশের রাজনৈতিক অঙ্গনে বিভেদ সৃষ্টি করছে।

বিশ্লেণের উপসংহারে এসে আমরা বলতে পারি যে এই তথাকথিত বিদ্রোহ একটি দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনার অংশ, যার সাথে ভারত এবং সরকারের ভিতরে ও বাইরের ভারতীয় দোসর শক্তিসমূহ সংশি−ষ্ট। সেনাবাহিনীর মেধাবী কর্মকর্তাদের হত্যাযজ্ঞে লাভবান হবে মুশরিক শত্রু রাষ্ট্র ও তাদের দোসররা। বিভিন্ন দাবির আড়ালে বিডিআর এর চেইন অব কমান্ড ভেঙ্গে দেয়া হয়েছে এবং সেনাবাহিনীর কমান্ড থেকে বিডিআরকে বিচ্ছিন্ন করার নীলনক্‌শা বাস্তবায়নের প্রচেষ্টা চালাচ্ছে ষড়যন্ত্রকারীরা। এই দাবি বাস্তবায়িত হলে সামগ্রিকভাবে দেশের প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা হুমকির মধ্যে পড়বে। দেশের নিরাপত্তা রক্ষায় সেনা-বিডিআর এর যৌথ ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। বলার অপেক্ষা রাখে না যে বাংলাদেশের সেনাবাহিনী অথবা বাংলাদেশ রাইফেল্‌স এর যে কোন দুর্বলতা অথবা এই দুই প্রতিরক্ষা বাহিনীর পারস্পরিক সম্পর্কের দুর্বলতার সবচেয়ে বড় সুবিধাভোগী আমাদের শত্রু রাষ্ট্র ভারত। ……..(চলবে)

 

New Book : Terrorism And The Illuminati

Terrorism And The Illuminati

A Three Thousand Year History

Downlaod entire book as PDF

About the Book

Contrary to myth being fabricated, Islam does not pose a threat to the West. Rather, Islamic “terrorist” organizations have been created to serve Western imperialistic objectives. These groups are intertwined with Western power through a network of occult secret societies. This relationship dates back to sixth century BC, and the birth of the Kabbalah, in Babylon; a plot to seek world domination through the use of magic and deception.

Herod the Great incepted a series of cooperative dynastic relationships. Their first conspiracy: to corrupt the emerging Christian movement, imposed upon the Roman Empire  as Catholicism, with which they would struggle ever since for supremacy over Western civilization.

During the Crusades, these dynastic families associated with their counterparts in the East, members of the heretical Ismaili Muslims of Egypt, known as the Assassins. Templars were believed to have “rescued” a number of these “Eastern Mystics”, and brought them to Scotland, being the basis Scottish Rite Freemasonry.  The legend also led to the formation of the “Asiatic Brethren”, founded by followers of the infamous Jewish false-messiah, Shebbetae Zevi.  The Asiatic Brethren then became the successors of the Illuminati, and became involved in the development of Egyptian Rite Freemasonry.

With Napoleon’s conquest of Egypt, Freemasons in his army reconnected with their brethren in Egypt, sparking a relationship that was pivotal to the development of the Occult Revival of the late nineteenth century.

These associations were part of a grand strategy, as outlined by Albert Pike, who originally devised a plot for three world wars, culminating in a third against the Muslim world. However, because the Islamic world had been successfully dismantled, both through the instigations of the West, and by way of their own corruption, they were incapable of mobilizing any kind of threat.  It therefore had to be contrived.

This was the agenda of the Oxford Movement, to spread Scottish Rite Freemasonry in the Middle East, headed by Lord Palmerston, Benjamin Disraeli and Edward Bullwer-Lytton, a leading occult figure, as head of the SRIA, or English Rosicrucians, which evolved directly from the Asiatic Brethren.

The agent of this strategy was a notorious impostor by the name of Jamal ud Din al Afghani, who became the founder of what is called the Salafi “reform” movement of Islam. According to K. Paul Johnson, it was Afghani, as head of the occult Hermetic Brotherhood of Luxor, or HB of L, who was responsible for teaching Helena Blavatsky her central doctrines. Helena P. Blavatsky, the famous medium and mystic, was the godmother of the New Age movement, whose books are considered the “bibles” of Freemasonry. Numerous other leading occultists affiliated with the English Rosicrucians and Egyptian Rite Freemasonry travelled to Egypt at the time, and on their return, established branches of the HB of L, out of which emerged the Ordo Templi Orientis (OTO), the most notorious member of which was Aleister Crowley.

The Nazis were the result of a merging of the O.T.O of Crowley and the Thule Gesselschaft of Germany. It is presumably for this reason that Hitler, when he wished to create an arm of German Intelligence in Egypt, contacted a leading Salafi and Freemason, named Hasan al Banna. With the demise of the Nazis following WWII, control of the organization was transferred to the CIA.  It was its eventual head, Allen Dulles who spearheaded the move to hire ex-Nazis to train the terrorists.

In 1954, after it was discovered that the Muslim Brotherhood was responsible for an attack on his life, President Gamal Nasser of Egypt ordered a crackdown. Fleeing members of the Muslim Brotherhood were then shuttled to the CIA’s ally, Saudi Arabia.

The Salafi movement has since come to be spearheaded by Saudi Arabia, and identified as one and the same as the heresy of Wahhabism.  Wahhabism was created by the British, in the eighteenth century to undermine the Ottoman Empire, and to achieve Western control of the world’s primary oil resource.  Today, the promotion of Wahhabism is part of a larger Western agenda, involving the CIA, to denigrate Islam. According to William Engdahl, it was Henry Kissinger who orchestrated the Oil Crisis of 1973.  The subsequent wealth achieved by Saudi Arabia then served as a hidden slush fund for CIA covert operations.

When John Loftus, a Justice Department official in the eighties, was permitted to peruse classified government documents, he discovered that the British Secret Service convinced American intelligence that the Arab Nazis of the Muslim Brotherhood would be indispensable as “freedom fighters” in preparation for the next major war, which was anticipated against the Soviet Union.

And so, when the Americans wished to lure the Soviets into their own version of Vietnam, they did so by funding factions of the Muslim Brotherhood in Afghanistan.  Financed and coordinated through the assistance of the Pakistani secret service, the ISI, it became the largest CIA covert operation in history.

It was all part of the larger the Iran-Contra Operation.  Through the devious activities of the Aspen Institute and the Club of Rome, in collaboration with the Muslim Brotherhood, British agent the Ayatollah Khomeini was installed in Iran.  The Americans then began illegally trading arms with the country, proceeds of which were used to fund the right-wing Contra thugs of Nicargua, in return for cocaine which sparked America’s crack epidemic.  These funds, in addition to growing heroin trade in Afghanistan, were used to fund the US’s covert war in Afghanistan.

Through this strategy, not only did the Americans succeed in bankrupting the Soviet Union, but they also managed to create a budding network of Islamic terrorists, brainwashed in the radical ideologies of Wahhabism and Salafism, who dispersed across the world, and who were then blamed as responsible for the great false flag operation known as 9/11, which allowed its hidden planners to embark on their War on Terror, Samuel Huntington’s “Clash of Civilizations”, or the beginnings of Pike’s WWIII.

French, U.S. imams talk about being Muslim military chaplains

Source : Reuters

imams-threeBoth are Muslims. Both are chaplains. Both are in the military. But one is French and one is American. That alone ensured there would be enough to talk about when Mohamed-Ali Bouharb and Abu- hena Saifulislam met in Paris to discuss their work with chaplains and academics from the United States.

(Photo: Bouharb (l) and Saifulislam with CIEE’s Hannah Taieb. Note the Islamic crescents on Bouharb’s cap and Saifulislam’s sleeves, 7 June 2009/Tom Heneghan)

Muslim chaplaincies are relatively new additions to the armed forces in Europe and North America. Establishing their place alongside the traditional Catholic, Protestant and Jewish offices of religious services has not always been easy, even though both imams reported the top brass in their countries strongly supported the effort. While they tend to the spiritual needs of their co-religionists in the ranks, as other chaplains do, these imams also spend much time explaining their religion and its practices to their non-Muslim superiors.Both spoke of the obvious issues such as getting halal food or having time and space for Muslim prayers. Both had encountered questions from both within the forces and outside in the Muslim community asking why they had agreed to work as imams in the military. Their presentations were part of a seminar entitled “Religious Diversity in Everyday Life in France” organised by the U.S.-based Council on International Educational Exchange (CIEE) and the Institute for the Study of Islam and the Societies of the Muslim World in Paris.Bouharb, 32, is a French-born Muslim with Tunisian roots who studied Islam at a private Muslim institute in Paris and graduated from a special training course for imams at the Catholic Institute here. He is chaplain to the National Gendarmerie, which comes under the Defence Ministry. France only launched its Muslim chaplain corps in 2005 and it is still finding its way. “I first got a two-year contract. It’s just been extended by four years. Nothing is certain. We’ll see the results in 20 years,” he told the meeting on Sunday. Bouhard stressed how tricky the issues he faces can be as he discussed the delicate bridge function he has to play with the example of five French Muslim soldiers who refused to go to Afghanistan:

“If a Muslim soldier doesn’t want to go to Afghanistan for religious reasons, that’s his right. My role is not to convince him. But if he doesn’t want to go, he shouldn’t be in the army. That’s not a religious opinion. Sometimes the Muslim chaplain has to put aside his religious role and deconstruct what is religious and what is not. What I do is go see the soldier and ask him about his vision of Islam. I can help him to understand things better, but not to make a decision… If a soldier’s not clear in his mind (about shooting at Taliban), he might hesitate for a moment. That could endanger the troops around him…“To the commanders, I say I’m not the representative of a Muslim soldiers’ trade union. When those five refused to go, people said the Muslim chaplains weren’t doing their jobs. It was all over the media. But the chaplain’s duty is not to ensure the cohesion of the troops. (The doubting soldier) could endanger others. My religious duty is not to put those others in danger… We Muslim chaplains asked for a right to reply to the media but the Defence Ministry press office said it was not worth the effort… They were right. A few weeks later, all was forgotten.”

Another issue was whether Muslim soldiers due for commando training had to fast if the session occurred during Ramadan. “They get up at 3 a.m. and march for 25 kms with backpacks weighing 25 kilos. It’s very difficult to fast,” he said. Muslim soldiers asked him what to do. “I told them that, if you signed up to do this training, you have to respect that contract. You can stop your fast and catch up on those days after Ramadan is over.” Ten Qatari soldiers in France for advanced training could not understand why the session was not rescheduled, as it would be in their majority Muslim society, but Bouharb said it could not be and the Muslim soldiers had to adjust. “There is only one Islam, but there are many ways of expressing it,” he said.imams-twoSaifulislam, who emigrated to the U.S. from Bangladesh in 1989 and became a U.S. Navy imam 10 years later, had a slightly different approach. “If there is special training during Ramadan, I ask the commander if it can be moved to another date,” he said, stressing he was giving his personal opinion and not speaking in an official capacity. “I tell the Muslims that they’re away from home while on training so they can not fast and make it up later. It’s his or her call. I provide the counsel.”

(Photo: Bouharb and Saifulislam, 7 June 2009/Tom Heneghan)

He said there were about a dozen imams in the U.S. armed forces, which appointed their first Muslim chaplain in 1993. That compares to over 800 Christian and Jewish chaplains in the Navy alone, he said. “They don’t necessarily need us for the number of Muslim soldiers but to advise them on religious inclusiveness, like about how Islamic practices can affect a mission, before they deploy to Iraq or Afghanistan. They get training in cultural sensitivity.”Possibly because imams have served in the U.S. military for longer than in the French, the American Muslim chaplains seemed more integrated into the overall chaplain corps. Saifulislam said:

Ninety-nine percent of the people who come to me for counselling are from another faith. They come to you with issues, it could be about family, stress or violence. People can get more religious in boot camp, also in prison. I’ve also been trained in suicide prevention, PTSD recognition and crisis management. We also do grief counselling, regardless of the religion. Of course, we don’t perform services for other religions. You’re not going to see me baptise a baby! But we facilitate things. If someone comes to me as a Wiccan and asks for a place to pray, I help them. The Department of Defense recognises over 290 different religions and denominations. If a Muslim asks one of the other chaplains to help him get a copy of the Koran, he has to help him.”

%d bloggers like this: