• Categories

  • Archives

  • Join Bangladesh Army

    "Ever High Is My Head" Please click on the image

  • Join Bangladesh Navy

    "In War & Peace Invincible At Sea" Please click on the image

  • Join Bangladesh Air Force

    "The Sky of Bangladesh Will Be Kept Free" Please click on the image

  • Blog Stats

    • 314,020 hits
  • Get Email Updates

  • Like Our Facebook Page

  • Visitors Location

    Map
  • Hot Categories

Final plea from a Judge’s son

Baba,

Chances are you’ll never read this because you don’t get online. In fact, you stay as far away from computers as I am away from you now. But I don’t know how to talk to you in a way that will “make” you understand. And I need to get out what I have to say because it’s eating me up inside to not say it.

First of all, this letter isn’t meant to hurt you or to upset you. It’s meant more to say things that you declined to listen over telephone despite my best of efforts. And neither mum nor Ronju would help me out to convey my message to you. I totally understand their helplessness but not surprised at all.

I wanted to tell you why it is once in a lifetime opportunity for you to restore the honour and dignity of a person like Dr.Yunus. I hope you can recall my goose bump feelings after meeting Dr.Yunus in 2007 in the corridor of US Capitol Hill. I told you how proud I felt when I saw, in my own eyes, not less than half a dozen US Senators were waiting for about an hour to meet none other than our Dr.Yunus. As I told it many times, but could not resist saying it again, US Senators are the modern day Monarch. One US Senator is way more influential than a King or a Monarch in the Gulf. Our Presidents and Prime Minister find it hard, despite using all the privileges of a Head of State, to get to meet a single Senator when they visit USA. (Sheikh Hasian came two times in the USA since became Prime Minister but could not manage to meet one single senator!)

I told you, by coincidence, it was me, who, Dr.Yunus, whispered to tell the Aide of Senator Hillary (Yes, she was senator then), that it will take another 15/20 minutes before he could wrap the hearings. In case you forgot, Dr.Yunus was attending Senate Finance Committee’s Hearings on Trade Preference and Least Developed Country on May 16, 2007 as a witness. I think you can still find out the letter that I wrote you giving the details of my encounter. I wrote you the names of all those Senators-Late Senator Robert Kennedy, Senator Joe Biden (now Vice President), Senator Hillary Clinton (now secretary of state), Senator John McCain (former Presdientil candidate), Senator Charles Schummer and Senator Bob Casey. (Although not a regular note keeper, I duly noted these names in my diary in far more greater details than my infamous incident of visiting you with Lucy). I also told you how Chairman Senator Max Baucus and Ranking Member Senator Charles Grassly broke protocol when they came down to Witness Table to pay regards to our Yunus. Could you, Baba, tell me who else would give us a moment like this in our lifetime?

I could not resist reminding you another goose bump evoking memory. It was on Wednesday, February 4, 2009   when Dr. Yunus spoke at George Washington University, Washington DC to launch his book World Without Poverty. In an auditorium which hold over a thousand people, I failed to get a seat although I was there about an hour early. I don’t have any memory as inspiring as this one where I have seen thousands of Americans were listening to one of our fellow Bangladeshi in pin drop silence. Not only they listened to his lecture with awe and humility, they queued up as soon as the Q & A session finished to collect a signed copy of Dr.Yunus’s book.  It was past mid-night when Dr.Yunus signed last copy of his book costing US$25.00 each in addition to US$15.00 as admission fee. I can tell you Baba Dr.Yunus could live rest of his life like our erstwhile Zaminders if he wants using the royalties and earnings from his lecture and royalties from his book. And of course, you heard how Presidents of China, Japan, Peru, Mexico etc were in a race, each with their own private/chartered flights to get him in their country as guest speaker.

Baba, among my many failings, you always appreciated my sentiment for the country and my ability to see things apolitically. I don’t know how many people in Bangladesh support the removal of Dr.Yunus, but I haven’t come across one singly non-resident Bangladeshi who is supportive of this move. How can they be? Here in the USA, we are known more by the name of Dr.Yunus, than any other things. And I can tell you, Baba, among those NRBs there are good number who are supporter of the government but at pain to see the way our best son of the country is being treated.

I told you several times, how foolishly we refrained from using such an asset like Dr.Yunus to be a good will Ambassador for Bangladesh around the globe. Just think Baba, had we availed his good will we could have gotten duty free access of our garments to USA long before.

If a man of the reputation of Dr. Yunus, who could muster the US secretary of state to make a personal call to our Prime Minister on his behalf, can be treated with such contempt, what lies ahead for us? God forbid, if US President also follow up on the reactions thus far expressed by Secretary of State Hillary Clinton, all nonresident Bangladeshis in the USA should be scared.

Baba, I know in your legal exercise it matters little whether or not Dr.Yunus is the only Bangladeshi who has had the rare distinction of attending leading US TV programmes like Oprah Winfrey Show ,  Jon Stewart Show,  News hour with Jim Lehrer, Charlie Rose Show, C-SPAN, CNN, MSNBC etc. I can tell you, Baba, a President as popular as Obama could not manage to cover the number of networks that our “Yunus” did. I know it matters little to you to know that a simple google search for Yunus produce almost ten times more hits that what our Prime Minister Hasina. [To be precise in less than o.9 second Yunus produced about 18,500,000 results while Prime Minister “Hasina” produced  1,860,000 results (0.15 seconds) ]

But Baba, even if you dispel my submission as mere emotional baggage, but how would you not consider:

What harm it will cause to the country or for that matter to Grameen Bank if Dr.Yunus were to continue as its Managing Director or even in an Advisory capacity if the majority owner/share holder of the bank wants him there.

A person who established this bank with his own sweat and blood would be forced to leave in such an ignominious manner when the fact remains he is no harm to anyone but to a handful of political egoists.

Why the court is so precariously listening to the most dormant owner-Government-but not to the major share holders-26 thousand workforce and 8 million borrowers – of the bank.

Why would not court take into cognizance the failed attempt of the government to remove Dr.Yunus through a Board Room vote on 02 March 2011. (on the day, the government appointed chair Muzammel Huq spring a surprise motion, supported by a letter from the finance ministry, seeking to remove Dr.Yunus from his position of managing director on the grounds of age. But this motion was voted down by all other members of the board including the two other government appointees and nine women borrowers.)

Why would not court invoke its inherent authority, what you so ably applied in case of Journalist Mahamudur Rahman, to consider Attorney General’s public statement as the motive of this case. Attorney General made it clear when he said publicly that if anyone is eligible to get Noble Peace Prize in Bangladesh it is Sheikh Hasina and Shantu Larma.

Whether or not age is a factor should be decided by the Grameen share holders not by the government. (By the way Baba, your favourite Judge Antonin Scalia  of US Supreme Court is now aged 75, while Judge Ms Ruth Bader Ginsburg is aged &000000000000007700000077 and Anthony Kennedy is aged 74. If age is not a matter for them, why it should be the single most criterion Dr.Yunus.)

Baba, you always advised us to be upright, remain vertical. Now would you please care to listen if we, all the people of Bangladesh and global community, barring a few egoists, urge you to act vertically too. So many times, you explained your preference for what you call doctrine of vertical stare decisis. I just want you to follow up with what you preached thus far.

Let me conclude you with what Lucy told me when she read Joy’s letter. She said what kind of people we are where people like Joy prevails while Dr. Yunus is trodden to the lowest zenith. You are aware she knew Joy back from her days in Texas.

Lastly, would you Baba, care to read, once again, Judge Posner’s fascinating book How Judges Think . I thank Afzal Uncle for allowing me the privilege of carrying this book for you. Had I read this book five years earlier than I did, I would have chosen Law as my major  to your liking. This book, as I understood, illustrated in layman’s term “how dreadful it is when the right judge judges wrong. I don’t want to see you in that club.

I thought long and hard before writing this letter, but knowing the chances of you reading it were so slim, and knowing that even writing down what I’m feeling will help me release my frustration, I wrote it.

I guess that’s all I want to tell you now, Baba. I know this will probably hurt or upset you. That was NOT my intention. I’m kind of scared that I won’t find the courage to tell you to your face what I’ve told you here. I hope that this doesn’t destroy our relationship. We’ve been able to disagree before and still remain father/son. I hope that can continue.

I love you, Baba

A request to my fellow members of Judge’s family:

Please make a copy of this letter and make sure your it reaches to your father or mother. Make it sure to let them know how the society would treat us if we fail to stop this miscarriage of justice. We are already close to becoming ostracized by the society, but if we could not stop this we  may have to prepare our own funeral. No matter how hard we try, given the cultural trend, we don’t have a way out to avoid the onslaught of societal humiliation if our parents continue to act for the government, but not the people.

ড. ইউনূসের বিরুদ্ধে শেখ হাসিনা থলের বিড়াল বেরিয়ে পড়েছে

ড. ইউনূস অপসারণ রহস্য মোটামুটি উদঘাটিত হয়েছে। সেই সাথে বেরিয়ে পড়েছে থলের বিড়াল। সেই কাহিনী আজ বলার ইচ্ছা আছে। তার আগে ‘দৈনিক সংগ্রামের’ সম্মানিত পাঠক-পাঠিকা ভাইবোনদের অবগতির জন্য দ্ব্যর্থহীন ভাষায় বলতে চাই যে, হয়ত এই বিষয়টি অবতারণা করার কোনো প্রয়োজনই হতো না যদি আওয়ামী সরকার নীতি নিষ্ঠতার কারণে তাকে অপসারণ করত। গ্রামীণ ব্যাংককে বলা যেতে পারে গরীব মানুষের রক্তচোষা ভ্যাম্পায়ার। যদি গ্রামীণ ব্যাংকের রক্তচোষা সুদের হার কমানোর উদ্দেশ্যে গ্রামীণ ব্যাংক তথা তার প্রধান ড. ইউনূসের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হতো, যদি সেই ঋণের টাকা উসুলের জন্য ঋণ গ্রহীতার ভিটামাটির ওপর চড়াও হওয়ার কারণে গ্রামীণ ব্যাংকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হতো, তাহলে হয়ত দেশে এত প্রতিবাদের ঝড় উঠত না। কিন্তু এখন দেখা যাচ্ছে যে, হাসিনার সরকার শুধুমাত্র ব্যক্তির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিয়েই সব দায়দায়িত্ব শেষ করেছে। সুতরাং ড. ইউনূসের অপসারণকে শিক্ষিত সচেতন মানুষ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ব্যক্তিগত প্রতিহিংসা চরিতার্থের কাজ বলে অভিহিত করছেন। যতই দিন যাচ্ছে ততোই দেখা যাচ্ছে যে, গ্রামীণ ব্যাংকের ব্যাপারে রাজনীতি, বিশেষ করে আওয়ামী লীগের রাজনীতি, উৎকটভাবে প্রকাশ পাচ্ছে। ইতোমধ্যেই এ ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রবাসী পুত্র সজিব ওয়াজেদ জয়, দলের জেনারেল সেক্রেটারি এবং স্থানীয় সরকার মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম ও এ্যাটর্নি জেনারেল এডভোকেট মাহবুবে আলমও এ ব্যাপারে কথা বলেছেন। এখানে উল্লেখ করা যেতে পারে যে, সৈয়দ আশরাফুল ইসলামকে দলের রাজনৈতিক মুখপাত্র হিসেবে কাজ করারও দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। সুতরাং তিনি যখন কোনো কথা বলেন তখন সেই কথাকে গুরুত্বের সাথে গ্রহণ করতেই হবে। এছাড়া কিছুদিন আগে ইংল্যান্ডের নামকরা পত্রিকা ‘ইকোনোমিস্টও’ এ ব্যাপারে সুনির্দিষ্ট তথ্য প্রকাশ করেছে। এই সবকিছু এক দিকেই অঙ্গুলী নির্দেশ করে। আর সেটি হলো, শেখ হাসিনার ব্যক্তিগত আক্রোশ চরিতার্থ করা।
প্রথমে শুরু করছি এডভোকেট মাহবুবে আলমকে দিয়ে। তিনি কোনো রাখঢাক না করে বলেই ফেলেছেন যে বাংলাদেশ থেকে যদি কাউকে নোবেল প্রাইজ দিতেই হয় তাহলে সেটা দেয়া উচিত ছিলো প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং পার্বত্য চট্টগ্রামের নেতা সন্তু লারমাকে। কারণ, ১৯৯৬ সালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং বিদ্রোহী উপজাতীয় নেতা হিসেবে সন্তু লারমা শান্তি চুক্তি সম্পাদন করে বাংলাদেশের অশান্ত পার্বত্য অঞ্চলে শান্তি প্রতিষ্ঠা করেছেন। মাহবুবে আলম সাংবাদিকদের বলেন, ‘‘আপনারা নোবেল প্রাইজকে এত বড় করে দেখছেন কেন? বাংলাদেশে যদি শান্তির জন্য নোবেল প্রাইজ পেতে হয়, তাহলে আমি বলব, দু’জনের পাওয়া উচিত ছিলো। শেখ হাসিনা আর সন্তু লারমার। কারণ একটি বিরাট এলাকা সশস্ত্র সংগ্রামে লিপ্ত ছিলো। যেখানে সেনাবাহিনী ছাড়া আমাদের যাওয়ার অবস্থা ছিলো না। সেখানে আজ আমরা স্বাধীনভাবে বিচরণ করছি। শান্তি ফিরে এসেছে। এই শান্তি ফিরিয়ে আনার জন্য দু’জন কাজ করেছেন, শেখ হাসিনা আর সন্তু লারমা। তারা নোবেল প্রাইজ পাননি বলে কি শান্তি প্রতিষ্ঠার ব্যাপারে তাদের যে কাজ, তা কম হয়ে যাবে?’’
দুই.

চলতি মাসের প্রথম সপ্তাহে প্রকাশিত ‘ইকোনোমিস্টের’ এক রিপোর্টে বলা হয়েছে, ২০০৭ সালে শান্তিতে নোবেল জয়ী ড. ইউনূসের বিরুদ্ধে গত তিন মাস যাবত চলা গণমাধ্যমভিত্তিক অপপ্রচার ও আওয়ামী লীগ সরকারের হয়রানির অংশ হিসেবে তাকে তার পদ থেকে জোরপূর্বক অব্যাহতি দেয়া হয়েছে। ২০১০ সালের নবেম্বরে নরওয়ের রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনে গ্রামীণ ব্যাংকের সম্পদ স্থানান্তরের অভিযোগে ড. ইউনূসকে জড়িয়ে একটি ডকুমেন্টারি প্রচার করা হয়। ওই ডকুমেন্টারিতে বলা হয়, ১৫ বছর আগে অধ্যাপক ইউনূস গ্রামীণ ব্যাংক থেকে কয়েক মিলিয়ন ডলার তার ব্যক্তি মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠানে স্থানান্তর করেন। পরবর্তীতে নরওয়ে সরকার এ বিষয়ে একটি তদন্ত কার্যক্রম পরিচালনা করে এবং এ অভিযোগ যে পুরোপুরি ভিত্তিহীন ছিলো তা ওই তদন্তে বেরিয়ে আসে। তদন্ত প্রতিবেদন সম্পর্কে নরওয়ে কর্তৃপক্ষ তখনই বিষয়টি বাংলাদেশ সরকারকে অবহিত করে। ‘দ্য ইকোনমিস্টের’ প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, এরপরও সরকার ওই নোবেল বিজয়ী অর্থনীতিবিদের আচরণ ও অপপ্রচার অব্যাহত রাখে। প্রতিবেদনে শেখ হাসিনা সম্পর্কে ১৪ বছর আগের একটি প্রসঙ্গের উল্লেখ করা হয়। তিনি তখন প্রথমবার ক্ষমতায় আসেন। সময়টা ছিলো ১৯৯৭ সালের ফেব্রুয়ারি। মাইক্রোক্রেডিট কাউন্সিল সম্মেলনে তিনি সহসভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। ঐ সম্মেলনে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রপ্রধানরা উপস্থিত ছিলেন। সকলের সামনে শেখ হাসিনা সেদিন গর্ব করে বলেছিলেন, দারিদ্র্য দূরীকরণে ড. ইউনূস ও গ্রামীণ ব্যাংকের অসামান্য অবদানের জন্য বাংলাদেশের সাধারণ মানুষের সঙ্গে আমি নিজেও গর্ব অনুভব করছি। প্রতিবেদনে আরো একটি বিষয়ের অবতারণা করা হয়। ১৯৯৭ সালের ২ ডিসেম্বর পার্বত্য চট্টগ্রাম শান্তি চুক্তি স্বাক্ষরের প্রেক্ষিতে শেখ হাসিনারও নোবেল পাওয়ার কথা ছিলো এবং নোবেল পুরস্কার পাওয়ার জন্য তিনি আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সমর্থন পেতে সরকারের উচ্চ পর্যয়ের আমলাদের লবিংয়ের জন্য পাঠিয়েছিলেন। যদিও তখন তিনি তা পেতে ব্যর্থ হন।
মাত্র এক দশক পরেই ড. ইউনূস ওই পুরস্কার অর্জন করেন এবং তার খ্যাতি খুব দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে। কিন্তু নোবেল পুরস্কার পাওয়ার ৫ মাস পরেই তিনি একটি রাজনৈতিক দল গঠনের ঘোষণা দেন। ওই সময় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের হাতে দেশের শাসনভার ন্যস্ত ছিলো। প্রতিবেদন মতে, প্রচলিত রাজনৈতিক ব্যবস্থার পরিবর্তন ও রাষ্ট্রব্যবস্থার প্রতিটি পর্যায়ে থেকে দুর্নীতি দূর করার উদ্দেশ্যে ড. ইউনূস একটি রাজনৈতিক দলের দর্শন দেশবাসীর সামনে তুলে ধরেন। আর এ জন্যই প্রতিহিংসায় জ্বলে ওঠেন আওয়ামী নেতৃবৃন্দ।

তিন.

এভাবে থলের বিড়াল যখন বেরিয়ে আসতে শুরু করে যখন আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দের সঠিক চেহারা উন্মোচিত হতে থাকে। তখন ড. ইউনূসকে বধ করার জন্য মাঠে নামানো হয় প্রধানমন্ত্রীর পুত্র সজীব ওয়াজেদ জয়কে। এই সরকার ক্ষমতা গ্রহণ করার পরপরই প্রধানমন্ত্রী তনয়কে একটি রাষ্ট্রীয় পদ দেয়া হয়েছে। কিন্তু প্রকাশ্যে তিনি এই পদটি এবং সেই সুবাদে সেই পদের ক্ষমতা কদাচিৎ ব্যবহার করেন বা প্রয়োগ করেন। পদটির নাম হলো ‘প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা’। ‘প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা’ হিসাবে তিনি ড. ইউনূস এবং গ্রামীণ ব্যাংক সম্পর্কে গুরুতর অভিযোগ এনে একটি বিবৃতি দেন। ই-মেইল যোগে প্রেরিত এই বিবৃতিতে তিনি ড. ইউনূসের বিরুদ্ধে ‘জালিয়াতি’, ‘চুরি’, ‘কর ফাঁকি’, ‘ঋণ পুনরুদ্ধারে দানবীয় ব্যবস্থা’ এবং ‘ক্রিমিনাল অপরাধের’ অভিযোগ আনেন। এই ই-মেইলটি কয়েকটি দৈনিক পত্রিকার সম্পাদক, আন্তর্জাতিক সংস্থা, মানবাধিকার সংস্থা, মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তাবৃন্দ এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে তার কতিপয় সহপাঠীর নিকট প্রেরণ করেন। এই ই-মেইল বিবৃতিতে ড. ইউনূস এবং তার পরিবারের বিরুদ্ধে সজীব ওয়জেদ জয় অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ আনেন। ‘ইউনূসের বন্ধুরা’ শীর্ষক একটি সংগঠন গত মঙ্গলবার বলেন যে, এই মানহানিকর বিবৃতির মাধ্যমে ড. ইউনূসের বিরুদ্ধে সরকারের শাস্তিমূলক ব্যবস্থার রহস্য উদঘাটিত হয়েছে। একটি ইংরেজি দৈনিক পত্রিকার প্রতিনিধির কাছে জনাব জয় বলেন যে, ড. ইউনূসের বিরুদ্ধে তিনি যেসব অভিযোগ উত্থাপন করেছেন তার সূত্র হলো দু’টি আইনগত ডকুমেন্ট। এসব ডকুমেন্ট প্রণয়ন করেছেন আইনজীবীরা। মি. জয় বলেন, তার কাছে প্রেরণের পূর্বে এসব সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়সমূহে অনুমোদন লাভের পর তার কাছে প্রেরণ করা হয়।
মি. জয়ের এই ই-মেইলে ড. ইউনূসের বিরুদ্ধে যে আক্রমণ চালানো হয়েছে তার প্রধান উপজীব্য ছিলো নরওয়ের একটি টেলিভিশনে প্রচারিত ইউনূসের বিরুদ্ধে অর্থ পাচারের টেলিফিল্ম। সজীব ওয়াজেদ জয় বলেছেন যে, গ্রামীণ ব্যাংক থেকে ৭০ মিলিয়ন ডলার বা ৪ হাজার ৯০০ কোটি টাকা স্থানান্তর করা হয়েছিলো। ঐ টাকা আর গ্রামীণ ব্যাংকে ফেরৎ দেয়া হয়নি। ড. ইউনূসের বিরুদ্ধে সরাসরি অভিযোগ এনে সজীব ওয়াজেদ জয় বলেন, যেসব ব্যক্তিগত প্রকল্পে বিনিয়োগের ইকুয়িটি জমা দেয়া হয়েছে সেগুলোতে দাতাদের অর্থ ব্যবহার করা হয়েছে। দাতাদের এসব অর্থ গ্রামীণ ব্যাংকের নামে জমা না দেখিয়ে ড. ইউনূস এবং তার পরিবারের নামে দেখানো হয়েছে। এ প্রসঙ্গে জনাব জয় বলেন, ‘‘এটি সম্পূর্ণ বেআইনী এবং অর্থ আত্মসাতের শামিল।’’ এ প্রসঙ্গে মি. সজীব আরো বলেন, ‘‘আমার ধারণা, এই বিদেশী অর্থের মধ্যে গ্রামীণ ফোনে যা বিনিয়োগ করা হয়েছে তারও একটি অংশ অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। আলোচ্য ই-মেইলে প্রধানমন্ত্রী তনয় কতগুলো অপ্রিয় সত্যকথা বলেছেন। সজীব ওয়াজেদ জয় বলেন, বিপুল প্রচারণা সত্ত্বেও গরীবের দারিদ্র্য নিরসনে ক্ষুদ্র ঋণ কোনো ভূমিকা রাখতে পেরেছে, তেমন কোনো প্রমাণ নাই। গ্রামীণ ব্যাংক বাংলাদেশে ৩০ বছর ধরে ক্ষুদ্র ঋণের ব্যবসা করছে। তারপরও বাংলাদেশ পৃথিবীর দরিদ্রতম দেশগুলোর অন্যতম বলে পরিচিত হয়েছে। তিনি আরো বলেন, ঋণের ওপর গ্রামীণ ব্যাংক সুদ আরোপ করে ৩০ শতাংশ। এছাড়াও বাধ্যতামূলক সঞ্চয়ের ওপর আরোপ করে ১০ শতাংশ সুদ। চড়া সুদ আরোপ করা হয় গ্রামের দরিদ্র মানুষের ওপর। গ্রামীণ ব্যাংক অবশ্য বলছে যে, দারিদ্র্য নিরসনের দায়িত্ব তো এককভাবে গ্রামীণ ব্যাংকের নয়। মি. জয় প্রশ্ন রেখেছেন যে, গ্রামীণ ফোনের মত একটি বিরাট লাভজনক প্রতিষ্ঠানে গ্রামীণ ব্যাংকের ৩৫ শতাংশ ইকুইটি থাকা সত্ত্বেও কেন তারা এই দরিদ্র জনগণের ওপর এত উচ্চ হারে সুদ আরোপ করে সেটা বোধগম্য নয়। উল্লেখ্য, গ্রামীণ ফোনের বাৎসরিক রাজস্ব আয় ১০০ কোটি ডলার অর্থাৎ ৭ হাজার কোটি টাকারও বেশি এবং তাদের লাভ বছরে শত শত কোটি টাকা।
প্রধানমন্ত্রীর পুত্র সজীব ওয়াজেদ জয়ের এই ই-মেইলের সবচেয়ে চাঞ্চল্যকর তথ্য এই যে গ্রামীণ ব্যাংকের প্রতিষ্ঠাতা কে, সেটি নিয়ে তিনি প্রশ্ন তুলেছেন। তিনি স্পষ্ট ভাষায় ঘোষণা করেছেন, ‘‘সাধারণ মানুষের মনে এমন একটি প্রশ্ন বিরাজ করছে যে, ড. ইউনূসই হলেন গ্রামীণ ব্যাংকের প্রতিষ্ঠাতা। কিন্তু কঠোর বাস্তব হলো এই যে, বাংলাদেশ সরকারই গ্রামীণ ব্যাংক প্রতিষ্ঠা করেছেন।’’ মি. জয়ের ই-মেইলের এই অংশটি অসাধারণ গুরুত্বের সাথে বিবেচনার দাবি রাখে। কারণ, ঐ ই-মেইল বার্তায় নিজেকে তিনি পরিচিত করেছেন ‘বাংলাদেশের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপদেষ্টা’ হিসাবে। ঐ বার্তায় তিনি দাবি করেছেন যে, তিনি যা কিছুই বলেছেন সেটি বাংলাদেশের সরকারি অবস্থানেরই প্রতিফলন ঘটায়। ঐ ই-মেইলে বলা হয়েছে, ‘‘এখন আমি গ্রামীণ ব্যাংক এবং ড. ইউনূস সম্পর্কে যেসব তথ্য দিচ্ছি সেগুলো বাংলাদেশ সরকারের তথ্য। গত বছর নরওয়ের টেলিভিশন ড. ইউনূসের নেতৃত্বাধীন গ্রামীণ ব্যাংকের অর্থনৈতিক অনিয়মের দলিলপত্র প্রকাশ করে নরওয়ের একটি টেলিভিশন।’’

চার.

শেষ করার আগে আমরা আবার আগের কথায় ফিরে যাচ্ছি। ড. ইউনূসকে অপসারণ নিয়ে আমাদের কোনো মাথা ব্যথা নাই। অপসারণকে সমর্থন করা বিরোধিতা করার মধ্যে আমরা নিজেদেরকে জড়িত করছি না। মি. জয় তার ই-মেইলে সরকারি তথ্যের বরাত দিয়ে-নিজেই বলেছেন, গ্রামীণ ব্যাংক গরীব মানুষদের নিকট থেকে ৩০ শতাংশ হারে সুদ নেয় এবং বিগত ৩০ বছর ধরে ব্যবসা করার পরেও গ্রামীণ ব্যাংক অথবা ক্ষুদ্র ঋণ বাংলাদেশের দারিদ্র্য দূর করতে পারেনি। যদি এসব কারণে বাংলাদেশ বাংকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হতো এবং দরিদ্র মানুষদের ওপর থেকে সুদের গুরুভার লাঘব করা যেত তাহলে হয়ত জনগণ সরকারি ব্যবস্থাকে সমর্থন জানাতে পারতেন। কিন্তু সেদিকে না গিয়ে নোবেল প্রাইজ না পাওয়ার জ্বালা জুড়ানোর জন্য অথবা মাইনাস-টু ফর্মূলা সমর্থন করার জন্য যদি তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা করা হয়ে থাকে তাহলে সেই ব্যবস্থার সাথে জনগণের কোনো সংশ্রব থাকতে পারে না।

http://www.dailysangram.com/news_details.php?news_id=49897

 

Yunus victim of petty jealousy (Video)

http://www.shahriar.info/post-item/3883.html (শাহরিয়ারের স্বপ্নবিলাস)

Dhaka, 08 March 2011

Dr. Muhammad Yunus, the first Noble laureate of Bangladesh, has been ousted from Grameen Bank, the microfinance institution he founded nearly 30 years ago. Dhaka High Court on Tuesday rejected Nobel laureate Muhammad Yunus’s writ petition challenging the legality of his removal as managing director of Grameen Bank. Critics say, the cause behind his ouster from Grameen Bank is for his winning Nobel Peace Price.

‘Why give so much importance to Yunus’ Nobel prize, if anybody in Bangladesh deserves the Nobel Peace Prize, they are, I will say, Sheikh Hasina (Prime Minister) and Santu Larma (Separatist Leader), because they brought peace in the hill districts where no one could enter before without the help of the army,’ Attorney General Mahbubey Alam told reporters in a briefing.

‘Does Hasina and Larma’s not winning the Nobel Peace Prize belittle their contributions to bringing peace to Chittagong Hill Tracts?’ Mahbubey Alam asked.

 

ড. ইউনূস ১০ বছরের ক্ষমতা চেয়েছিলেনঃ প্রধান উপদেষ্টা হওয়ার প্রস্তাবে তিনি এই শর্ত দেন

পীর হাবিবুর রহমান

https://i1.wp.com/nobelprize.org/nobel_prizes/peace/laureates/2006/yunus3_museum_photo.jpg

নোবেল বিজয়ী ড. মুহাম্মদ ইউনূস

https://i2.wp.com/www.abload.de/img/340xs8v.jpg

জেনারেল মাসুদ

https://i0.wp.com/upload.wikimedia.org/wikipedia/commons/3/3f/General_Moeen.jpg

জেনারেল মইন উ আহমেদ

নোবেল বিজয়ী ড. মুহাম্মদ ইউনূস ১০ বছরের জন্য রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা চেয়েছিলেন। ওয়ান-ইলেভেন-পরবর্তী তত্ত্বাবধায়ক সরকারের প্রধান উপদেষ্টা হওয়ার প্রস্তাব নিয়ে গেলে ইউনূস বলেছিলেন, তিনি রাজি তবে শর্ত হলো তাকে ১০ বছরের জন্য সরকারপ্রধান থাকার গ্যারান্টি দিতে হবে। ইউনূসের কাছে প্রস্তাব নিয়ে গিয়েছিলেন সেই সময়ের প্রভাবশালী সেনা কর্মকর্তা লে. জে. মাসুদউদ্দিন চৌধুরী। জবাবে জেনারেল মাসুদ বলেছিলেন, স্যার, আমরা অনেকেই দুই-তিন বছরের মধ্যে অবসরে চলে যাব। যেখানে আমাদেরই গ্যারান্টি নেই সেখানে আপনাকে ১০ বছরের গ্যারান্টি কীভাবে দেই। দিতে হলে দুই-তিন বছরের জন্য দিতে পারি, ১০ বছরের গ্যারান্টি দিতে পারি না। ড. ইউনূস মাসুদকে বলেছিলেন ১০ বছর ক্ষমতা পেলে তিনি সবকিছু ঢেলে সাজাতে পারবেন। না হয় সম্ভব নয়। ইউনূস বলেন, দয়া করে আপনার বন্ধুদের সঙ্গে পরামর্শ করুন, চিন্তা করুন এবং আমাকে জানান। তবে মনে রাখবেন কম সময়ের জন্য দায়িত্ব নিতে আমি রাজি নই। এই মুহূর্তে গ্রামীণ ব্যাংকের এমডি পদ থেকে অপসারণ, উচ্চ আদালতে রিট করে হেরে গিয়ে বহুল আলোচিত ড. মুহাম্মদ ইউনূস ও তৎকালীন ওয়ান-ইলেভেন নায়কদের একজন জেনারেল মাসুদের কথোপকথনের তথ্যটি ই-মেইলে যুক্তরাষ্ট্রে ছড়িয়ে পড়েছে। এতে মানুষের কৌতূহল বাড়ছে। ওয়ান-ইলেভেনের পর যুক্তরাষ্ট্রের হাওয়াইয়ে সামরিক বাহিনীর একটি কর্মশালায় বর্তমান সরকারের নীতিনির্ধারকদের একজনের কাছে নাকি জে. মাসুদ এ বিষয়ে আলোকপাত করেছিলেন। যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক নিউজ এজেন্সি এনা এ সংবাদের কিছুটা পরিবেশন করলে তোলপাড় সৃষ্টি হয়। এ ব্যাপারে কথা বলতে বর্তমানে অস্ট্রেলিয়ায় নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার জেনারেল মসুদকে ফোন করলেও পাওয়া যায়নি। অস্ট্রেলিয়ায় তখন মধ্যরাত। গভীর ঘুমে ছিলেন মাসুদ। টেলিফোন অ্যানসারিং মেশিনে পাওয়া যাচ্ছিল তার কণ্ঠস্বর। তবে ওয়ান-ইলেভেনে তৎকালীন তিন বাহিনীর প্রধান ও নবম ডিভিশনের জিওসি জেনারেল মাসুদের সঙ্গে বঙ্গভবনে যাওয়া আরেক চৌকস সেনা কর্মকর্তা বাংলাদেশ প্রতিদিনকে নাম প্রকাশ না করার শর্তে অনেক কথা বলেছেন। তিনি বলেন, বঙ্গভবনে রাষ্ট্রপতি কর্তৃক বিতর্কিত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের পদত্যাগ, দেশে জরুরি অবস্থা ঘোষণা ও জাতির উদ্দেশে ইয়াজউদ্দিনের ভাষণ চূড়ান্তের পর সেনাপ্রধান জেনারেল মইন উ আহমেদ সেনানিবাসে চলে যান। যাওয়ার আগে তত্ত্বাবধায়ক সরকারপ্রধান হিসেবে তাদের ফার্স্ট চয়েজ ড. মুহাম্মদ ইউনূসকে টেলিফোন করেন। তিনি অভিনন্দন জানিয়ে জেনারেল মাসুদ তার বাসভবনে যাচ্ছেন এই বার্তা দেন। পরে জেনারেল মাসুদ সহকর্মী কর্মকর্তাদের নিয়ে ড. ইউনূসের কাছে গিয়ে দেশের এই সংকটকালীন মুহূর্তে তত্ত্বাবধায়ক সরকারপ্রধান হওয়ার প্রস্তাব দেন। ইউনূসকে তখন উৎফুল্ল দেখাচ্ছিল। পরনে ছিল গ্রামীণ চেক ফতুয়া, ট্রাউজার ও স্লিপার। তিনি মেহমানদের মিষ্টি ও ফলমূল দিয়ে আপ্যায়ন করেছিলেন। দেশের পরিস্থিতি নিয়ে তিনি অনেক কথা বলেছিলেন। কিছু কিছু স্বপ্ন পূরণের জন্য সময়কে কাজে লাগাতেও পরামর্শ দিয়েছিলেন। একপর্যায়ে ইউনূস কমপক্ষে ১০ বছরের জন্য ক্ষমতা চাইলে জেনারেল মাসুদ ও তার সহকর্মীরা উল্টো বিব্রত অবস্থায় পড়ে যান। তারা তাকে ওই সময়ের পরিস্থিতি মোকাবেলায় হাল ধরতে বললেও তিনি গোটা দেশের পরিস্থিতি পাল্টে দিতে দীর্ঘ সময় চান। অন্যথায় কম সময়ের শুধু রুটিনওয়ার্কের জন্য হলে বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. ফখরুদ্দীনের দরজায় কড়া নাড়ার পরামর্শ দেন। সেখান থেকে বেরিয়ে তারা সেনাপ্রধান জেনারেল মইন উ আহমেদকে ফোনে বিস্তারিত জানালে তিনি মন্তব্য করেছিলেন, এ তো দেখি পাহাড়ের ওপর দাঁড়ানো এক উচ্চাভিলাষী মানুষ! আপনারা ফখরুদ্দীন সাহেবের কাছেই যান। জেনারেল মাসুদ তার সহকর্মীদের নিয়ে ড. ফখরুদ্দীন আহমদের বাড়িতে যান এবং তাকে রাজি করাতে সক্ষম হন।

এদিকে জানা যায়, ড. ইউনূসের পক্ষে সরকারবিরোধী যে প্রচারণা দেশে দেশে চলছে মিডিয়ায় তার যুক্তিসঙ্গত জবাব দিতে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত সব দেশের দূতাবাসকে সাত পৃষ্ঠার একটি চিঠি দিয়েছেন। বলেছেন, ওইসব দেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে প্রকৃত সত্য তুলে ধরতে হবে। সরকারের অবস্থান এবং ড. ইউনূসের অবৈধভাবে গ্রামীণ ব্যাংকের দায়িত্বে অব্যাহতভাবে থাকার চেষ্টার বিষয়টি বোঝাতে। বলা হয় সরকার বারবার ইউনূসকে ১১ বছর আগে মেয়াদ পার হওয়ার বিষয়টি সতর্ক করে তাকে সম্মানজনক বিদায়ের প্রস্তাব দিয়ে এলেও তিনি নিয়মবহির্ভূতভাবে একগুয়েমি করে থাকতে গিয়ে বর্তমান পরিস্থিতির সৃষ্টি করেছেন এবং সরকার প্রতিহিংসা নয়, আইনের পথে অগ্রসর হয়।

Book Review : Origins of the Bangladesh Army

Title : ORIGINS OF THE BANGLADESH ARMY

Author : Sabir Abdus Samee

Category : New (Academic)

First Published : May 2010

Publishers : Bornali Book Center

Type of book : Historical / Political / Military History

General Subject Matter : History of the Bangladesh Army

Price : Taka 120.00

ISBN : 978-984-645-056-9

This is the first book on the history of the Bangladesh Army. If you are interested about Bangladeshi history, politics and Bangladesh Army, you will enjoy this book.

“Origins of the Bangladesh Army” is available in the following places:

Boi Bichitra
House No- 141, Road-12,
Block-E, Banani
Dhaka

Boi Bichitra
Rupayon Golden Age
Gulshan-2
Dhaka

Shotabdi
Prokashoni
491/1 Mogbazar, Wireless Rail Gate
Dhaka-1217

You can ask any salesperson to give you a copy, if you do not find the book in display.

If you have any problem in finding the book, you can contact the author at sabir_samee@yahoo.co.uk

Book Review

http://www.botomul.com/ad_file/ad_file~2112.jpg

Origins of the Bangladesh Army by Sabir Abdus Samee

Amalia Macris

Sabir Abdus Samee’s work Origins of the Bangladesh Army brings a new take on historical and political events, as seen through his eyes and interpreted by him. As the son of a Bangladeshi army officer, he spent his childhood in Bangladeshi cantonments. It is clearly a topic close to his heart that he has tried to bring more light to for outsiders.

The book is divided into five chronological parts starting from 1757 with the Legacy left from the British Raj, followed by the Pakistani years (1947 – 1971) and the war of Independence which took place in 1971 and saw the foundation of the Bangladesh Army. The book continues with the subsequent victory that came in the same year and ends with the Bangladesh Army after Independence (1972 to present). Through this account the author has tried to bring out the truth and challenge views of intellectuals and politicians regarding the Bangladesh Army. Full of references to other sources and quotes from politicians and Army Officials that add colour and dimension to the text Origins of the Bangladesh Army tells the story of those who fought for the Army, those who were sacrificed and those who were victorious. The role of the Bangladeshi media is also analysed in this book, examining the political affiliations of each source and their portrayal of events.

This is a book suitable for anyone who has an interest in military books and reading about historical facts, or for someone carrying out research on the history of Bangladesh to present date. Books on the topic do exist but a Western point of view is often presented, it is therefore interesting and useful to have a book in English giving a Bangladeshi’s perspective of events.

Amalia Macris is a Communication Consultant and Writer. She lives in Cyprus.

You can reach the Author at :

BANGLADESH ARMY (FaceBook)


%d bloggers like this: