• Categories

  • Archives

  • Join Bangladesh Army

    "Ever High Is My Head" Please click on the image

  • Join Bangladesh Navy

    "In War & Peace Invincible At Sea" Please click on the image

  • Join Bangladesh Air Force

    "The Sky of Bangladesh Will Be Kept Free" Please click on the image

  • Blog Stats

    • 315,721 hits
  • Get Email Updates

  • Like Our Facebook Page

  • Visitors Location

    Map
  • Hot Categories

Let`s Eliminate Indian Terrorists in Bangladesh

By: Abu Zafar Mahmood, USA

Hasina-Monmohan cry wolf jointly. As they could not eliminate the Mosques and transform the Islamic nation in Deen-e-Elahee, Could not impose Hindi instead of Bangla in Bangladesh. Indian interests are to keep Muslim countries unstable as it needs Bangladesh-Pakistan-Afghanistan under their knees for grabbing wealth. Moreover the rapid growth of Bangladesh in terms of modernization and wealth influences over the North-East border Indian districts. It also bring the Delhi`s discrimination to that huge region too. So, Indian strategy of collapsing Bangladesh becomes their one of prime Military agenda. That matches Indian expansionist design. But the USA-European flows of winds turn for Bangladesh. A slogan, “Let`s eliminate Indian Terrorists in Bangladesh” shines on posters.

https://i1.wp.com/www.topyaps.com/wp-content/uploads/2010/04/raw.jpeg

The Bangladesh administration is controlled by Indian Intelligence-RAW. It already collapsed BDR, weakened Armed-forces. Highest to lowest courts run under the same control. Prime Minister office is treated as RAW regional co-coordinating office. Ministry of Home-Foreign Affairs are directly dictated by the Indian officers. Indian trained Four Lac Eighty six thousand Nine Hundred Sixty (4, 86,960) Fanatic Hindu terrorists are the key fighters that are engaged in Government positions to collapse the sovereignty and Independence at the time sabotage in USA interests. These terrorists are all Indian trained. They instigate the instability of Bangladesh from inside the government. A surprising technique!

India has a long history of using terrorists and sending the hordes across borders. It captured Hyderabad, Junagarh and Manvadar illegally through police actions. It forced many smaller states to join the Indian Union by force of arms. It sent its forces to illegally capture Srinagar, using a fake article of accession which it now claims is lost–as if it ever existed. It sent militants to Tibet and Aksai Chin instigating a ferocious attack from China. It sent terrorists into Sikkim, and Bhutan and eventually illegally occupied Sikkim. It sent LTTE terrorists into Lanka trying to bifurcate the small peaceful Buddhist Island. It even tried terrorism in Myanmar and Maldives. It motivated the Hindu youths in Refugee camps, armed and engaged the Mukti Bahinee guerrilla groups across the border into East Pakistan in 1971. It than tried to incorporate Bangladesh using the Rakshi Bahinee after Awami League climbed on the government.

Now, Whatever Hasina, Rehana, Sajeeb Joy, Dipu Moni, Sahara and Ashraf are painting as friendlier relation with India is in real annexation procedure with India that the Fakhruddin-Moinuddin-Iftekharinitiated. Obviously, India needs terrorist regiments as Pakistani Army and ISI are rock to them  to defeat whereas Bangladesh is so rootless to them that it purchases the pillars as it needs. Indian officers train and control the civil and military officers in Bangladesh.

An article in one of Canada’s national magazines, Macleans, reported on an interview with a Pakistani ISI spy Farouk, who claimed that

India’s intelligence services, Research and Analysis Wing (RAW), have “tens of thousands of RAW agents in Pakistan.”

Many officials inside Pakistan were convinced that,

“India’s endgame is nothing less than the breakup of Pakistan. And the RAW is no novice in that area. In the 1960s, it was actively involved in supporting separatists in Bangladesh, at the time East Pakistan. The eventual victory of Bangladeshi nationalism in 1971 was in large part credited to the support the RAW gave the secessionists.”http://www2.macleans.ca/2009/04/23/new-delhi%E2%80%99s-endgame/


In September of 2008, the editor of Indian Defence Review wrote an article explaining that a stable Pakistan is not in India’s interests:

“With Pakistan on the brink of collapse due to massive internal as well as international contradictions, it is matter of time before it ceases to exist.” He explained that Pakistan’s collapse would bring “multiple benefits” to India, including preventing China from gaining a major port in the Indian Ocean, which is in the mutual interest of the United States. The author explained that this would be a “severe jolt” to China’s expansionist aims, and further, “India’s access to Central Asian energy routes will open up.”http://www.indiandefencereview.com/2008/09/stable-pakistan-not-in-indias-interest.html

In August of 2009, Foreign Policy Journal published a report of an exclusive interview they held with former Pakistani ISI chief Lieutenant General Hamid Gul, who was Director General of the powerful intelligence services (ISI) between 1987 and 1989, at a time in which it was working closely with the CIA to fund and arm the Mujahedeen. Once a close ally of the US, he is now considered extremely controversial and the US even recommended the UN to put him on the international terrorist list. Gul explained that he felt that the American people have not been told the truth about 9/11, and that the 9/11 Commission was a “cover up,” pointing out that, “They [the American government] haven’t even proved the case that 9/11 was done by Osama bin Laden and al Qaeda.” He said that the real reasons for the war on Afghanistan were that:

“The U.S. wanted to “reach out to the Central Asian oilfields” and “open the door there”, which “was a requirement of corporate America, because the Taliban had not complied with their desire to allow an oil and gas pipeline to pass through Afghanistan. UNOCAL is a case in point. They wanted to keep the Chinese out. They wanted to give a wider security shield to the state of Israel, and they wanted to include this region into that shield. And that’s why they were talking at that time very hotly about ‘greater Middle East’. They were redrawing the map.” http://www.foreignpolicyjournal.com/2009/08/12/ex-isi-chief-says-purpose-of-new-afghan-intelligence-agency-rama-is-%E2%80%98to-destabilize-pakistan%E2%80%99/

He also stated that part of the reason for going into Afghanistan was “to go for Pakistan’s nuclear capability,” as the U.S. “signed this strategic deal with India, and this was brokered by Israel. So there is a nexus now between Washington, Tel Aviv, and New Delhi.” When he was asked about the Pakistani Taliban, which the Pakistani government was being pressured to fight, and where the financing for that group came from; Gul stated:

“Yeah, of course they are getting it from across the Durand line, from Afghanistan. And the Mossad is sitting there, RAW is sitting there — the Indian intelligence agency — they have the umbrella of the U.S. And now they have created another organization which is called RAMA. It may be news to you that very soon this intelligence agency — of course, they have decided to keep it covert — but it is Research and Analysis Milli Afghanistan. That’s the name. The Indians have helped create this organization, and its job is mainly to destabilize Pakistan.”

He explained that the Chief of Staff of the Afghan Army had told him that he had gone to India to offer the Indians five bases in Afghanistan, three of which are along the Pakistani border. Gul was asked a question as to why, if the West was supporting the TTP (Pakistani Taliban), would a CIA drone have killed the leader of the TTP. Gul explained that while Pakistan was fighting directly against the TTP leader, Baitullah Mehsud, the Pakistani government would provide the Americans where Mehsud was, “three times the Pakistan intelligence tipped off America, but they did not attack him.” So why all of a sudden did they attack?

Because there were some secret talks going on between Baitullah Mehsud and the Pakistani military establishment. They wanted to reach a peace agreement, and if you recall there is a long history of our tribal areas, whenever a tribal militant has reached a peace agreement with the government of Pakistan, Americans have without any hesitation struck that target.

… there was some kind of a deal which was about to be arrived at — they may have already cut a deal. I don’t know. I don’t have enough information on that. But this is my hunch, that Baitullah was killed because now he was trying to reach an agreement with the Pakistan army. And that’s why there were no suicide attacks inside Pakistan for the past six or seven months.

Further, there were Indian consulates set up in Kandahar, the area of Afghanistan where Canadian troops are located, and which is strategically located next to the Pakistani province of Baluchistan, which is home to a virulent separatist movement, of which Pakistan claims is being supported by India. Macleans reported on the conclusions by Michel Chossudovsky, economics professor at University of Ottawa, that,

“the region’s massive gas and oil reserves are of strategic interest to the U.S. and India. A gas pipeline slated to be built from Iran to India, two countries that already enjoy close ties, would run through Baluchistan. The Baluch separatist movement, which is also active in Iran, offers an ideal proxy for both the U.S. and India to ensure their interests are met.”

Even an Afghan government adviser told the media that India was using Afghan territory to destabilize Pakistan. http://www.app.com.pk/en_/index.php?option=com_content&task=view&id=72423&Itemid=2

In September of 2009, the Pakistan Daily reported that captured members and leaders of the Pakistani Taliban have admitted to being trained and armed by India through RAW or RAMA in Afghanistan in order to fight the Pakistani Army. http://www.daily.pk/proof-captured-ttp-terrorists-admit-to-being-indian-raw-agents-11015/

The Council on Foreign Relations published a backgrounder report on RAW, India’s intelligence agency, founded in 1968

“primarily to counter China’s influence, [however] over time it has shifted its focus to India’s other traditional rival, Pakistan.” For over three decades both Indian and Pakistani intelligence agencies have been involved in covert operations against one another. One of RAW’s main successes was its covert operations in East Pakistan, now known as Bangladesh, which “aimed at fomenting independence sentiment” and ultimately led to the separation of Bangladesh by directly funding, arming and training the Pakistani separatists. Further, as the Council on Foreign Relations noted, “From the early days, RAW had a secret liaison relationship with the Mossad, Israel’s external intelligence agency.”http://www.cfr.org/publication/17707/

https://i0.wp.com/im.rediff.com/news/2003/sep/08spec.gif

Bangladesh is in the endgame of destabilization. The Indian trained militants are already positioned to damage and eliminate the patriotic elements and collapse the sovereignty and independence of Bangladesh. The next scene is waiting to appear as it faces challenges. Indian terrorization and collapsing Bangladesh is far different than Pakistan-Afghan battle field in more cases.

Of course, the Obama administration has opened a new strategy on Bangladesh and it`s near that the real Bangladeshi nationalists are sourcing supports recently. Ex-Prime Minister Khaleda Zia`s significant visit in Washington DC, NewJersy and New York as the leader of the opposition in Bangladesh National parliament in last week will bring face to face the Indian terrorists and Bangladeshi nationalists in Dhaka. The professionals and Journalists are desperate under the leadership of renowned Journalist Mahmudur Rahman called for up rise to topple down the government. The World super power prefers to see the down fall of the Hasina government soon that`s the observers assumption. India is taken in partnership on Afghanistan and Pakistan sector with NATO and on the other hand the Bangladesh and up to China will be controlled by USA direct. That will come up.

(Writer is free-lancer Journalist and political analyst.E-mail:rivercrossinternational@yahoo.com & azmnyc@gmail.com Date: Washington DC, June 04, 2011.)

Source:

https://i0.wp.com/newsfrombangladesh.net/images/a1_04.gifhttps://i0.wp.com/newsfrombangladesh.net/images/a1_05.gif

পার্বত্য চট্রগ্রামকে পুর্ব-তিমুর/দক্ষিণ সুদানের মতো বিচ্ছিন্ন করে আরেকটি ইসরাইল বানানো হবে ?

দেশের এক-দশমাংশ এলাকা নিয়ে গঠিত পার্বত্য চট্টগ্রাম কি পুর্ব-তিমুর, দক্ষিন সুদানের মতো বিচ্ছিন্ন করা হবে নাকি আরেকটি ইসরাইল বানানো হবে

ছবিঃ দেশের এক-দশমাংশ এলাকা নিয়ে গঠিত পার্বত্য চট্টগ্রাম কি পুর্ব-তিমুর, দক্ষিন সুদানের মতো বিচ্ছিন্ন করা হবে নাকি আরেকটি ইসরাইল বানানো হবে

আমাদের ক্লাসের সুদানী মেধাবী মেয়ে রাগাত। বাবা-মায়ের সাথে সৌদিতে পড়ালেখা করলেও এখন মাষ্টার্স ছাত্র হিসেবে পড়াশুনা করে সুইজারল্যান্ডের জুরিখে ইউনিভার্সিটিতে। গত মধ্য ফ্রেব্রয়ারীতে তিউনেশিয়া, মিশর বিপ্লবের তাজা ও উদ্দিপনামুলক খবরের মাঝেও তার মন বেশ খারাপ। কারন জিজ্ঞেস করলেই বললো, বিশাল সুদানকে ভেজ্ঞে টুকরো টুকরো করা হচ্ছে। শুধু মাত্র খৃষ্টান অধ্যুষিত হওয়ার কারনেই দক্ষিণ সুদানকে পশ্চিমা শক্তি আলাদা করে এককালের আফ্রিকার বৃহত দেশ (আয়তনে) সুদান ভেজ্ঞে দুর্বল করে ফেললো। রাগাত আরো জানালো, দক্ষিণ সুদানে অনেক খনিজ সম্পদ আছে যা নিয়ন্ত্রন করার জন্য দেশটিকে বহুবছর থেকে পশ্চি্মা খৃষ্টানরা নানা প্রচেষ্টার মাধ্যমে ধর্মান্তরিকরনের কাজটি করেছে। দক্ষিণ সুদানকে বিশ্বমোড়ল একদিন স্বাধীন করেই দিবে এটা এতোদিন আমরা বিশ্বাস করতে ও বুঝতে না পারলেও এখন বুঝি।যখন বুঝি, তখন কিছুই করার নেই। এরা আসলেই আমাদের টুকুরো টুকরো করার জন্য এতোদিন ধরে কাজ করেছিল।


সদ্য বিচ্ছিন্ন করে ফেলা খৃষ্টান অধ্যষিত দক্ষিণ সুদান

ছবিঃ সদ্য বিচ্ছিন্ন করে ফেলা খৃষ্টান অধ্যষিত দক্ষিণ সুদান

বাসার ফিরতে ফিরতে রাগাতের কথাই ভাবছিলাম। মনে হলো, তার কাছে থেকে দক্ষিণ সুদান সম্পর্কে আরো কিছু জেনে নেই। সাথে মনে পড়ে গেল দুবছর আগে, আমাদের পার্বত্য চট্রগ্রাম নিয়ে আরেকটি পুর্ব-তিমুর বানানো আশংকার কথা, যা নিয়ে সেই সময় সোনার বাংলাদেশ ম্যাগাজিনে একটি লেখাও লিখেছিলাম। পার্বত্য চট্টগ্রাম কি পূর্ব তিমুরের মতো স্বাধীন হতে যাচ্ছে? দেখুন এখানে, Click this link… । দৈনিক নয়া দিগন্ত সেটা ছেপেও ছিল, দেখুন এখানে, Click this link… । সেটিওকেই রিভাইজ করে মুলত আজকের লেখা।

দেশের এক-দশমাংশ এলাকা নিয়ে গঠিত পার্বত্য চট্টগ্রাম। শুরু থেকেই সেখানে বাংলা ভাষাভাষী ও পাহাড়ি লোকেরা পাশাপাশি বসবাস করছে। পাশাপাশি বসবাসের পরও সেখানে বাঙালি-পাহাড়িরা তাদের ঐতিহ্য ও সংস্কৃতির স্বাতন্ত্র্য সব সময় বজায় রেখেছে। স্বাধীন দেশের নাগরিক হিসেবে পাহাড়িদের সে অধিকারে কখনোই কেউ হস্তক্ষেপ করেনি। পাহাড়ি জনপদে মাঝে মাঝেই কিছু অপ্রীতিকর পরিস্থিতির উদ্ভব হয়। উদ্ভূত পরিস্থিতি মোকাবেলায় সেখানে সাধারণ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী তথা পুলিশ বাহিনীর পাশাপাশি দেশের ভূখণ্ডগত নিরাপত্তার দায়িত্ব পালন করছে আমাদের গর্বিত সেনাবাহিনীও। পার্বত্য এলাকা হওয়ায় এবং দুটি দেশের সীমান্তে অবস্থিত হওয়ায় জায়গাটির কৌশলগত গুরুত্বও অনেক।

এই সরকার ক্ষমতায় আসার পর পরেই বিগত আমলের কথিত শান্তিচুক্তি বাস্তবায়নের নামে পার্বত্য চট্টগ্রাম থেকে সেনাবাহিনীর তিনটি পদাতিক ব্যাটালিয়নসহ একটি সম্পূর্ণ ব্রিগেড এবং ৩৭টি নিরাপত্তা বাহিনীর ক্যাম্প প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। বলা হচ্ছে, শান্তি চুক্তি স্বাক্ষরের ধারাবাহিকতায় পার্বত্য চট্টগ্রামের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি পর্যালোচনা সাপেক্ষে সরকার পার্বত্য চট্টগ্রাম থেকে আরো ৩৫টি নিরাপত্তা বাহিনীর ক্যাম্প এবং তিনটি পদাতিক ব্যাটালিয়নসহ একটি সম্পূর্ণ ব্রিগেড প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এ পর্যন্ত পার্বত্য চট্টগ্রাম হতে এটিই হবে সর্ববৃহৎ এবং উল্লেখযোগ্য সেনা প্রত্যাহার।

ছবিঃ ধারনা করা হচ্ছে কৌশলগত কারনের পাশাপাশি, পার্বত্য চট্রগ্রামের এই নয়নাভিরাম দৃশ্যের নিচে আছে অঢেল প্রাকৃতিক সম্পদ

কিন্তু কোনো কথাবার্তা আলাপ-আলোচনা ছাড়াই হঠাৎ কেন এত তাড়াহুড়ো করে পার্বত্য চট্টগ্রাম থেকে সেনা প্রত্যাহার করা হলো। এর পেছনে কোনো পর্যায় থেকে কি কোনো চাপ বা বাধ্যবাধকতা আছে? অনেকে বলছেন, আন্তর্জাতিক রাজনীতির কেন্দ্রবিন্দু এবং তৎপরতা মধ্যপ্রাচ্য থেকে নিকট ভবিষ্যতে দক্ষিণ এশিয়ায় স্থানান্তরিত হবে। আমরা খারাপ দিন অতিক্রম করছি এবং ভবিষ্যতে আরো খারাপ দিন আসছে। শান্তিচুক্তির মাধ্যমে রাষ্ট্রের ভেতরেই পাহাড়িদের আরেকটি রাষ্ট্র বানিয়ে দেয়া হলো। মাত্র ২০ বছরের মাথায় পূর্ব তিমুরকে ইন্দোনেশিয়া থেকে আলাদা করে দিয়ে জাতিসঙ্ঘের নেতৃত্বে একটি আলাদা রাষ্ট্র করে দেয়া হয়। কারণ, পূর্ব তিমুরের অধিকাংশ মানুষ খ্রিষ্টান। এভাবেই হয়ত আগামীতে পার্বত্য চট্টগ্রাম পূর্ব তিমুরের মডেলে স্বাধীন করে দেওয়া হবে।
এগুলো এতো দিন ছিল জল্পনা-কল্পনা। এনিয়ে খোদ দেশপ্রেমিক সেনাবাহিনী আশংকা প্রকাশ করেছে আনুষ্টানিকভাবে, দেখুন দৈনিক আমার দেশে প্রকাশিত আজকের (১০ এপ্রিল ২০১১)

সেনা সদরের সতর্কবাণী : পার্বত্য চট্টগ্রাম যেন পূর্ব তিমুর না হয়
Click this link…

১.

পার্বত্য চট্টগ্রাম অদুর ভবিষ্যতে কি হতে যাচ্ছে তার একটা ধারনা পেতে নিচের কিছু টুকরো খবরের দিকে নজর দিতে হবে।

ক. বাংলাদেশের ভিতর থেকে ইসরাইলের মতো আলাদা রাষ্ট্র হবে?

বাংলাদেশে সংখ্যালঘুদের আলাদা রাষ্ট্র গঠনে সহায়তা চেয়ে সিআইএর কাছে চিঠি দিয়েছেন মাইনরিটি কংগ্রেস পার্টির আন্তর্জাতিক সম্পাদক বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর সাবেক ক্যাপ্টেন শচীন কর্মকার। ভারতের পূর্ব সীমানা সংলগ্ন বাংলাদেশ ভুখন্ডে ইরাকের কুর্দিস্তানের অনুরূপ হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টানদের জন্য একটি পৃথক স্বায়ত্তশাসিত সংখ্যালঘু এলাকা প্রতিষ্ঠায় মার্কিন গুপ্তচর সংস্থা সিআইএর সহায়তা চেয়েছে দলটি। সাবেক ক্যাপ্টেন শচীন কর্মকার গত ২৭ জুলাই ২০০৭ এক ই-মেইল মেসেজের মাধ্যমে সিআইএ পরিচালকের কাছে এই সাহায্য চেয়ে পাঠিয়েছেন। তিনি বলেছেন, সংখ্যালঘুরা বাংলাদেশে মুসলিম মৌলবাদের বিরুদ্ধে সেফটিক ভালভ। তাই �আজ আমাদের সাহায্য করো, আগামীকাল আমরা তোমাদের সহায়তা করবো। দ্বিতীয় মহাযুদ্ধের সবচেয়ে বড় অর্জন হচ্ছে নাৎসি জার্মানির পরাজয় ও মধ্যপ্রাচ্যে ইসরাইল রাষ্ট্রের সৃষ্টি। গত প্রায় ৬০ বছর যাবৎ এই ইসরাইল মৌলবাদী আরব রাষ্ট্রগুলো ও গণতান্ত্রিক পাশ্চাত্যের মধ্যে সাফল্যজনকভাবে একটি বাফার রাষ্ট্র হিসেবে কাজ করে আসছে। যদি ইসরাইল না থাকত, তাহলে এর মধ্যেই আরবরা পাশ্চাত্যের বিরুদ্ধে আরেকটি ক্রুসেড বা মহাযুদ্ধ চাপিয়ে দিত।

ই-মেইল বার্তায় আরও বলা হয়, সিআইএর সামনে বাংলাদেশে দুটি পথ রয়েছে। এ দুটি পথ হচ্ছে- হয় বাংলাদেশকে বহুমাত্রিক গণতন্ত্রের জন্য চাপ দাও, অথবা কুর্দিস্তানের মতো পূর্ব ভারত সীমান্ত ঘেঁষে সংখ্যালঘুদের জন্য একটি আলাদা স্বায়ত্তশাসিত রাষ্ট্র গঠন কর। যদি এই দল ইউরোপ ও আমেরিকা থেকে রাজনৈতিক ও আর্থিক সাহায্য পায়, তাহলে তারা সহজেই এটা পালন করেতে পারবে। (আমার দেশ, ১২ নভেম্বর ২০০৭)

খ. পার্বত্য চট্টগ্রামে পাচ ইউরোপীয় রাষ্ট্রদূতদের গোপন বৈঠক

ইউরোপীয় ইউনিয়নভুক্ত ৫টি দেশের রাষ্ট্রদূতরা ২০০৭ সালে রহস্যজনকভাবে পার্বত্য সফর করেন। ২০ থেকে ২২ মার্চ ২০০৭ পর্যন্ত ৩ দিন ফ্রান্স, সুইডেন, নেদারল্যান্ড, ডেনমার্ক ও জার্মানির রাষ্ট্রদূতরা পার্বত্য জেলা রাঙ্গামাটির বিভিন্ন এলাকা ঘুরে যান। এ ব্যাপারে স্থানীয় প্রশাসনের সঙ্গে উল্লেখযোগ্য কোনো আলোচনা হয়নি। সফরকালে রাষ্ট্রদূতরা পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির সভাপতি (জেএসএস) ও আঞ্চলিক পরিষদের চেয়ারম্যান জ্যোতিরিন্দ বোধিপ্রিয় লারমা ওরফে সন্তু লারমার সঙ্গে দুদফা গোপন বৈঠক করেন। বৈঠককালে জনসংহতি সমিতির শীর্ষ নেতা রুপায়ন দেওয়ানসহ অনেকেই উপস্থিত ছিলেন। এ প্রসঙ্গে রাঙ্গামাটি জেলা প্রশাসক হারুনুর রশিদ খান ইউরোপীয় ইউনিয়নভুক্ত ৫টি দেশের রাষ্ট্রদূতের পার্বত্য চট্টগ্রাম সফরের কথা স্বীকার করেন। তিনি বলেন, রাষ্ট্রদূতরা আমাদের কাছে শুধু নিরাপত্তা চান। তারা আমাদের সঙ্গে সংক্ষিপ্ত সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন। এছাড়া তাদের সঙ্গে আনুষ্ঠানিক কোনো বিষয়ে আলোচনা হয়নি।

ইউরোপীয় ইউনিয়নভুক্ত রাষ্ট্রদূতদের মধ্যে রয়েছেন ডেনমার্কের জেনসন, নেদারল্যান্ডের মেজিংন্ডার, সুইডেনের ব্রিট হারসন, ফ্রান্সের জেকস এন্ডার, জার্মানির ফ্রাঙ্ক মিয়াকি। এদের নেতৃত্বে ছিলেন ইউরোপীয়ান ইউনিয়নের ইসি ডেলিগেশন ড:স্টিফেন প্রোইন। জানা গেছে, ২০ মার্চ বিকাল ৩টায় ও ২১ মার্চ বিকাল ৫টায় জেএসএস নেতাদের সঙ্গে তারা দুদুফা মিটিং করেন। ২২ মার্চ এনজিও প্রতিনিধিদের সঙ্গে তারা মতবিনিময় করেন। ৩টি বাঙালি এনজিওকে আমন্ত্রণ জানালেও রহস্যজনক কারণে মতবিনিময় থেকে তারা বিরত থাকে। বাঙালি ৩টি এনজিও হচ্ছে পাহারা, গেস্নাবাল ভিলেজ ও সাইনিং হিল। (আমার দেশ, ৩১ মার্চ ও ৪ এপ্রিল ২০০৭)

গ. পাহাড়ি জনপদে খ্রিষ্ট্রধর্মে ধর্মান্তরিত করার হিড়িক

নতুন সমস্যা ধর্ম পরিবর্তন, পাহাড়ি জনপদে- ২ তৌফিকুল ইসলাম বাবর প্রেরিত দৈনিক সমকালের এক রিপোর্টে বলা হয়, পাবর্ত্য চট্টগ্রামে শত শত উপজাতীয় লোক ধর্মান্তরিত হচ্ছে। পাংখোয়া, লুসাই ও বোমাংসহ আরো অনেক উপজাতীয় মানুষের মধ্যে সাম্প্রতিক সময়ে এ প্রবণতা বেড়েছে। কিছুসংখ্যক চাকমাও আদি ধর্ম ছেড়ে গ্রহণ করেছে খ্রিষ্ট্রধর্ম। ভূমি সংক্রান্ত বিরোধে বাঙালি-পাহাড়িদের মধ্যে সংঘাতময় পরিস্তিতিতে অস্থির রয়েছে পাবর্ত্য চট্টগ্রাম। তার ওপর গহিন অরণ্যে পাহাড়িদের মধ্যে ধর্মান্তরিত হওয়ার প্রবণতা বেড়ে যাওয়ায় উদ্বিগ্ন উপজাতি নেতারা। কারণ এতে পাহাড়িদের মধ্যেই সম্প্রীতিতে ফাটল ধরছে। উপজাতি নেতাদের অভিযোগ, গহিন অরণ্যের দরিদ্র লোকদের ধর্মান্তরিত হতে প্রলোভন দেখিয়ে উৎসাহিত করা হচ্ছে। এ কাজে জড়িত কিছু এনজিও, মিশনারি ও আন্তর্জাতিক সংস্থা।

খাগড়াছড়িতে পাহাড়িদের ধর্মান্তরের ঘটনা বেশি। রাঙ্গামাটি ও বান্দরবানেও আছে। বিষয়টির প্রতি দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদের সদস্য রুইথি কারবারি সমকালকে বলেন, সেবার নামে এসে পাহাড়িদের ধর্মান্তরিত করতে প্রকাশ্যে কাজ করছে কিছু এনজিও, মিশনারি সংস্থা। ধর্মান্তরিত করার ক্ষেত্রে কাজে লাগানো হচ্ছে দরিদ্র মানুষদের দুবর্লতাকে। ইতিমধ্যে তাদের প্রলোভনের টোপ গিলেছে বহুসংখ্যক পাংখোয়া, লুসাই, বোমাং এবং কিছুসংখ্যক চাকমা ধর্মাবলম্বী অন্যান্য উপজাতিকে টাগের্ট করেও সংস্থা গুলো কাজ করছে বলে তিনি উল্লেখ করেন। এ পর্যন্ত কত লোক আদি ধর্ম ছেড়ে খিষ্ট্রান হয়েছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এ হিসাব বলা মুশকিল। তবে ধর্ম পরিবর্তনের ঘটনা ঘন ঘন ঘটছে কোনো না কোনো পাহাড়ি জনপদে। সংখ্যাটা বড়ই হবে।�

তিন পার্বত্য জেলায় রয়েছে ১৪টি জাতিসত্তা। এর মধ্যে চাকমা, মারমা, রাখাইন, তংচইঙ্গা, পাংখোয়া, লুসাই ও বোমাং উল্লেখযোগ্য। তবে সাম্প্রতিক সময়ে পাংখোয়া, লুসাই ও বোমাং উপজাতীয়দের মধ্যে সবচেয়ে বেশিসংখ্যক লোক ধর্মান্তরিত হয়েছে। খাগড়াছড়ির পানছড়ি, মহালছড়ি, লক্ষ্মীছড়ি, মানিকছড়ি, বাঘাইছড়ি ও সাজেক এলাকায় গভীর পাহাড়ে বসবাসকারী মানুষজনই আকৃষ্ট হচ্ছে ভিন্নধর্মে। এনজিও এবং মিশনারিদের সহায়তায় ধর্ম পরিবর্তনকারী মানুষের জীবনযাত্রার মান বাড়ছে। অন্ন, বস্ত্র, চিকিৎসা ও বাসস্থানসহ বিভিন্ন সুবিধা পাচ্ছে অবহেলিত এসব পাহাড়িবাসী। মিশনারিগুলো সেই দুবর্লতাকে কাজে লাগাচ্ছে। বলা হচ্ছে, খিস্ট্রান হলেই কেউ তাদের জায়গাজমি থেকে উচ্ছেদ করতে পারবে না। খিস্ট্র ধর্ম গ্রহণকারীরা স্বেচ্ছায় গ্রহণ করছে বলে জানান। (সমকাল, ১০ মার্চ ২০০৮)

ছবিঃ পুর্ব-তিমুরের মত আদিবাসী ধুয়া তুলে পার্বত্য-চট্রগ্রামকে বিচ্ছিন্ন করা হবে?

ঘ. Free Jummaland (CHT, Chittagong Hill Tracts) in line with East Timor

পার্বত্য চট্টগ্রামকে যে আরেকটি পূব তিমুর বানানোর চেষ্টা হচ্ছে, এটা প্রথম দেখা যায় Peace Campaign Group নামের পার্বত্য বিছিন্নতাবাদীদের একটি গ্রুপের ইমেইলে ও ওয়েব সাইটে। তাদের মতে পার্বত্য অঞ্চলের গেরিলারা আবার সংগঠিত হচ্ছে একটি নতুন মন্ত্রে, আর সেটি হচ্ছে, পূব তিমুরের আদলে এলাকাটি স্বাধীন করা। ইমেইলটির কিছু অংশ দেখুন, বিশেষ করে শেষ লাইন….
(Peace Campaign Group, Fri Apr 25, 2008, Free Jummaland (CHT) in line with East Timor, Bappi Chakma, Over two and one half decades, the indigenous people of the Chittagong Hill Tracts, mostly Buddhists, Hindus and Christians by faith, fought with Bangladesh for autonomy and for protection of their distinct identity and culture threatened with extinction for the latter�s policy of so-called national integration, locally called �Islamization policy�.
The terrors unleashed by Bangladeshi military forced the indigenous people to accommodate with the state-policy of �islamization� without any protest. It is breeding new problems in the CHT which may drag Bangladesh into a vicious and long-standing cycle of violence and instability. One of such problems is, as developments suggest, regrouping of former guerrillas coupled with new and hot bloods completely dedicated to a new idea – Free CHT or Jummaland in line with East Timor)

ই-মেইলটির পুরোটি দেখুন, Click this link…

 

পার্বত্য-চট্রগ্রাম পুর্ব-তিমুর হতে পারে এমন আশংকা প্রকাশ করেছেন খোদ সরকারের অন্যতম শরীক জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান সাবেক সেনাপ্রধান হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ। তিনি বলেন,

পার্বত্য চট্টগ্রামকে নিয়ে বিদেশী ষড়যন্ত্র চলছে উল্লেখ করে এরশাদ বলেন, ‘পার্বত্য চট্টগ্রামকে নিয়ে ষড়যন্ত্র চলেছে। আমরা এখানে পূর্ব তিমুর বা ইসরাইল হতে দিতে চাইনা। কারো হস্তক্ষেপ সহ্য করবো না। বাঙালীরা এখানে থাকবে কি থাকবেনা এটা দেখা আমাদের দায়িত্ব।’ এ কথাটা খুবই তাৎপর্যপূর্ণ উল্লেখ করে এরশাদ আর কোন কিছু বলতে অপারগতা প্রকাশ করেন। (সুত্র, আরটিএনএন, ১৮/০৯/২০০৯) বিস্তারিত দেখুন এখানে, Click this link…

ঙ. এলাকাটিকে ধীরে ধীরে বাংঙ্গালী শূন্য করা

পাহাড়ী সন্ত্রাসীদের হাত থেকে বাঙ্গালীদেরকে রক্ষা করার জন্য পুর্ববর্তী সরকার গুলো চালূ করেছিল গুচ্ছগ্রাম । গুচ্ছগ্রামগুলোর বর্তমান অবস্থা অকল্পনীয়। বর্তমানে বৃদ্ধ পিতা-মাতার সাথে স্বামী-স্ত্রী ও সন্তান তাদের পালিত পশুসহ একই ঘরে পশুর মতই গাদাগাদি করে থাকছে।
পার্বত্য বাঙালিরা বলেছেন, এ অঞ্চল থেকে সেনাক্যাম্প প্রত্যাহার হলে ওই এলাকায় তারা আর বসবাস করতে পারবেন না। তাদেরকে পার্বত্য অঞ্চল ছেড়ে চলে যেতে হবে। এখনো বাঙালিরা পার্বত্য অঞ্চলে চাঁদা দিয়ে বসবাস করেন। কিন্তু সেনাবাহিনী থাকায় পাহাড়ি সন্ত্রাসীরা বাঙালিদের কথায় কথায় মারধর করে না। সেনাবাহিনী প্রত্যাহার হলে উপজাতীয় সন্ত্রাসীরা বাঙালিদের মারধর করে তাদের ভিটেমাটিছাড়া করবে বলে তারা আশঙ্কা প্রকাশ করেন।

ছবিঃ গরুর গোয়াল ঘরে গাদাগাদি করে বসবাস করছে পার্বত্য বাংগালী জনগোষ্টি

সেনাবাহিনী প্রত্যাহারের ফলে তাদের নিরাপত্তা নিয়ে সমস্যার সৃষ্টি হয়েছে। এখন তাদের নিরাপত্তা কে দেবে? তারা তখন বিএসএফর আক্রমণের শিকারে পরিণত হবে। ফলে নিরাপত্তার জন্য বাঙালি রিফুজিরা ভেতরে চলে আসছে। ওই এলাকা বাঙালিশূন্য হয়ে যাচ্ছে। আর পার্বত্য এলাকাকে বাঙালিশূন্য করাই ইউরোপীয় ইউনিয়নের লক্ষ্য। মজার ব্যপার হলো খোদ সন্তুলারমা স্বীকার করেছে, ইউরোপীয় ইউনিয়ন সরকার ও স্থানীয় পার্বত্য প্রশাসনক প্রচুর অর্থ দিতে চেয়েছিল, যা দিয়ে পার্বত্য বাঙ্গালীদের সরিয়ে দেশের অন্য জায়গায় পুনর্বাসন করা হয়, এনিয়ে সন্তু লারমার সাক্ষাতটির পড়ুন (প্রথম আলো, ১৬/০৮/২০০৯)কথা হলো পার্বত্য-চট্রগ্রামে ইউরোপীয় ইউনিয়নের এমন কি স্বার্থ আছে যার কারনে প্রচুর টাকা ঢেলে বাংগালীদের ভিটেমাটি ছাড়া করে শুধু চাকমাদের রাখতে হবে?

কৌশলে বাঙালিদের অর্থনৈতিকভাবে পঙ্গু করা হচ্ছে। তাদের কোনো উন্নয়নমূলক কাজে অংশগ্রহণ করতে দেয়া হচ্ছে না। নিজ দেশে পরদেশী হয়ে আছে। যারা এতদিন একরাতে তিন-শ ঘুমন্ত বাঙালিকে হত্যা করে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পুরস্কারে ভূষিত হয়েছে। এরাই যদি আবার শান্তিচুক্তি অনুযায়ী পাহাড়ি পুলিশ বাহিনীতে যোগ দেয়, তবে বাঙালি নিধনে কোনো সন্ত্রাসী বাহিনী লাগবে না। তারাই বৈধ অস্ত্র দিয়ে সব বাঙালি নিধন করতে পারবে।

অনেকের মতে, ইউএনডিপি পার্বত্য চট্টগ্রামে হাজার হাজার কোটি টাকার একটি প্রকল্প হাতে নিয়েছে। পার্বত্য চট্টগ্রাম থেকে সেনা প্রত্যাহারের পর দরিদ্র বাঙালিদের মাথাপিছু ৫ লাখ টাকা করে দিয়ে বলা হবে, তোমাদের তো এখানে কিছু নেই। থাকো কুঁড়েঘরে, চালাও রিকশা, তোমরা এ টাকা নিয়ে সমতলে চলে যাও। সেখানে তোমরা ভালোভাবে থাকতে পারবে। এভাবে কৌশলে বাঙালিদের বিতাড়ন করে সেখানে উপজাতি খ্রিষ্টানদের আধিপত্য প্রতিষ্ঠা করবে।

চ. বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে প্রচার যুদ্ধ

পার্বত্য চট্টগ্রাম নিয়ে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে প্রচার যুদ্ধ নতুন নয়। ১/১১ পর এই প্রচারনা নতুন মাত্রা পেয়েছে। ইন্টারনেট সহ সকল মিডিয়াতে এমন একটি ধারণা প্রচার করা হচ্ছে যে, বাংলাদেশ তাদেরকে পরাধীন করে রেখেছে এবং বাংলাদেশ সেনাবাহিনী সেখানে ব্যাপক ভাবে মানবাধিকার লংঘন করেছে।

২৪ এপ্রিল ২০০৯ সম্প্রীতি মঞ্চ আয়োজিত এক মতবিনিময় সভায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক অজয় রায় পার্বত্য চট্টগ্রাম থেকে সেনাবাহিনী ও বাঙালি অধিবাসীদের সরিয়ে আনার আহ্বান জানান। অনুষ্ঠানে রাজা দেবাশীষ রায় বলেছেন, আদিবাসীদের সম্পত্তি তথা জমি হস্তান্তরের ক্ষেত্রে সরকারের অনুমতি নেয়ার বিধান রহিত হওয়া উচিত। �বাংলাদেশে আদিবাসী জনগণের প্রচলিত আইনসমূহের সংক্ষিপ্তসার� শীর্ষক এ মতবিনিময় সভায় অধ্যাপক অজয় রায় বলেন, বছরের পর বছর ধরে ঔপনিবেশিক দৃষ্টিভঙ্গি থেকে পার্বত্য এলাকায় সামরিক বাহিনী মোতায়েন সম্পূর্ণ অবাঞ্ছিত।
দেখুন এখানে, Click this link…

এদিকে The Peace Campaign Group নামের পার্বত্য বিছিন্নতাবাদীদের একটি গ্রুপ বাংলাদেশের উন্নয়ন সহযোগী দেশ গুলোর কাছে স্বারকলিপি দিয়ে দাবী করেছে বাংলাদেশ সরকার, বাংলাদেশ সেনাবাহিনী মিলে পার্বত্য অঞ্চলে ইসলামীকরন চালাচ্ছে ও বাংলাদেশ একটি মৌলবাদী রাষ্ট্র হয়ে গেছে। দেখুন The Peace Campaign Group গ্রুপের ওয়েব সাইটে(Chittagong Hill Tracts: The Peace Campaign Group � Meeting on Bangladesh)
To Bangladesh Development Partners Participating in A Special Meeting on Bangladesh, 23-24 February 2005, Washington
21 February 2005, Our paper, “BANGLADESH DEVELOPMENT FORUM 2004 AND CHALLENGES FOR DEVELOPMENT IN THE CHITTAGONG HILL TRACTS”, that we had emailed to some of the representatives of Bangladesh development partners prior to the start of the last year’s Forum in Dhaka, foretold: “Islamic fundamentalism is on increase in the CHT to an alarming extent”. Within a short span of time this prediction has manifested itself as a real threat not only to the Jumma indigenous people in the CHT, but also to all democratic institutions in Bangladesh. Today, it is the main challenge to any Bangladesh development planning.
The government has been engaged in doing all appropriate for its hidden program of islamization in the CHT. The government, who defines Bangladesh as an “Islamic democracy” to qualify for international aid, has miserably failed to meet its commitments made at the previous Bangladesh Development Forums for good governance, law and order, establishment of a national human rights commission, separation of the judiciary from the legislative and administrative organs of the government and setting up an ombudsmen or anti-corruption mechanism, among others. Prajnalankar Bhikkhu General Secretary)

০০০০—বাংলাদেশ সরকার, সেনাবাহিনীকে মৌলবাদী আখ্যাদিয়ে পার্বত্য-গ্রুপের প্রচারনা,
Click this link…

০০০০— বাংলাদেশ সেনাবাহিনীকে জড়িয়ে ইন্ডিয়ান মিডিয়া অপপ্রচার,
Click this link…

০০০০— পার্বত্য অঞ্চলের বাংগালী নিহত হওয়ার ঘটনাকে “জেনোসাইড” হিসেবে চালানো হলেও, চাকমা সন্ত্রাসীদের দ্বারায় বাংগালী নিধনকে বেমালুম চেপে যায় এই মিডিয়াগুলো,
Click this link…

০০০০— সেনাবাহিনী বিরোধী প্রচারনায় এ্যামনেষ্টি ইন্টারন্যাশনাল, Click this link…

০০০০—পার্বত্য- এলাকায় বাংগালীদের বসবাসকে বলা হচ্ছে বৌদ্ধ বিতাড়ন করে মুসলিম আগ্রাসন হিসেবে,
Click this link…

২.

পার্বত্য চট্টগ্রাম নিয়ে উপরের কয়েকটি টুকরো খবর বিশ্লেষনের দাবি রাখে। খরবগুলো আসলেই কোন বিচ্ছিন্ন ঘটনা নাকি একটি আরেকটির সাথে অতপ্রতভাবে জড়িত। এগুলো বিশ্লেষন করা যায় এভাবে…

ক. আরেকটি পুর্ব তিমূর কেন দরকার?

পাশ্চাত্যের বিভিন্ন থিংক ট্যাংক বা গবেষনা প্রতিষ্টান গুলোর ভাষ্যমতে এই শতাব্দীতে অর্থনৈতিক উন্নয়নের কেন্দ্র বিন্দু ইউরোপ-আমেরিকা থেকে স্থানান্তর হয়ে চলে আসছে ও আসবে দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায়। নির্দিষ্ট করে বলতে গেলে চায়না, আসিয়ান ও দক্ষিণ এশিয়া অঞ্চলে (দেখুনঃ Mapping the Global Future, CIA Report, 2020, Click this link… )। সম্প্রতি জার্মানীতে প্রকাশিত এক রি্পোর্টে বলা হয়, ইউরোপীয় ইউনিয়নের কর্মদক্ষ জনশক্তি দিন দিন মারাত্নকভাবে হ্রাস পাচ্ছে, যা মুলত অনেকটাই পুরুন করবে দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পুর্ব থেকে আসা একঝাক মেধাবী তরুণ। জার্মান সমাজবিঙানীরা তাই দক্ষিণ-এশিয়ার নাম দিয়েছে Future Land South Asia (জার্মান ভাষায় বলা হয়, Zukunft Land Sued Asien)। চীন, আসিয়ান অঞ্চল ও দক্ষিণ এশিয়াকে যেখান থেকে নিয়ন্ত্রন করা যায়, এমন একটি �বাফার রাষ্ট্র� আমেরিকা ও তার সহযোগী ইউরোপীয় ইউনিয়ন সব সময়েই খুছতেছিল। এ ক্ষেত্রে সেই রাষ্ট্রটি খৃষ্টান রাষ্ট্র হলেতো সোনায় সোহাগা। ফিলিপিনস, পুর্ব তিমুর ছাড়া এশিয়ায় আর কোন খৃষ্টান সংখ্যাগরিষ্ট রাষ্ট্র নেই। ফিলিপিনসে বহু বছর মার্কিন বাহিনী ঘাটি গেড়ে থাকতে পেরেছিল ও চেয়েছিল তার অন্যতম কারন ছিল দেশটি খৃষ্টান সংখ্যাগরিষ্ট। ওদিকে খবরে প্রকাশ, মায়ানমার চীনের সহযোগীতায় পরমানু অস্ত্র নির্মানের দিকে অগ্রসর হচ্ছে। খবরটি সত্য হলে মার্কিনীদের কাছে বাংলাদেশে তথা পার্বত্য চট্টগ্রামের ভূ-কৌশলগত গুরুত্ব অনেক বেড়ে যাবে তা বলার অপেক্ষা রাখে না।

আরেকটি বিষয় এখানে উল্লেখ করা দরকার, পশ্চিমা শক্তি চীনকে কাউন্টার দেওয়ার জন্য কিছু দিনের জন্য ভারতের সাথে সখ্য গড়েছে, কিন্ত এই সখ্য বেশি দিন স্থায়ী হবে বলে মনে হয় না। এই সখ্য তত দিন পর্যন্ত থাকবে যতদিন পশ্চিমা শক্তি এই অঞ্চলে তাদের নিজ ধর্মের একটি (খৃষ্টান সংখ্যাগরিষ্ট) বাফার রাষ্ট্র না পাচ্ছে। ভারতের সেভেন সিসর্টাস এর মনিপুরসহ অনেক রাজ্যই অদুর ভবিষ্যতে খৃষ্টান সংখ্যাগরিষ্ট রাষ্ট্র হতে যাচ্ছে। সেক্ষেত্রে পশ্চিমা শক্তি এসব রাজ্যের পুর্ব তিমুরের মতো হস্তক্ষেপ করতে চাইলে ভারত সেটা মেনে নেবে না। তাছাড়া ভারতে উগ্র হিন্দু জাতীয়তাবাদী বিজেপির উথ্যান পশ্চিমা বিশ্বের মাথা ব্যাথার কারনও বটে। সম্প্রতি বিজেপির ভাবী প্রেসিডেন্ট হিসেবে যাকে কল্পনা করা হচ্ছে সেই নরেন্দ মোদীকে আমেরিকা দশ বছরের মধ্যে ভিসা দিতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে। উগ্র হিন্দু জাতীয়তাবাদীদের দ্বারা ভারতের বিভিন্ন রাজ্যে খৃষ্টানদের নির্যাতন, এমনকি পুড়িয়ে মারার ঘটনা ঘটছে অহরহ।

অর্থনৈতিকভাবে দুর্বল, রাজনৈতিকভাবে বিভক্ত বাংলাদেশে পুর্ব তিমুরীয় বা দক্ষিণ সুদান মডেল বাস্তবায়ন যত সহজ দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার অন্য কোন দেশে তা সম্ভব নয়। তাছাড়া পার্বত্য চট্টগ্রামের ভূ-রাজনৈতিক ও ভূ-কৌশলগত অবস্থানের (geo-political and geo-strategic location) মত আর দ্বিতীয় কোন লোকেশান এই মুহূর্তে পশ্চিমাদের হাতে নেই। ভারতের সেভেন সিসটার্সের সব রাজ্যই ল্যান্ড লকড (যে সব দেশের মূল ভূ-ভাগের সাথে সরাসরি কোন সমুদ্র সংযোগ থাকে না তাদেরকে ল্যান্ড লকড রাষ্ট্র বলা হয়, যেমন, নেপাল, ভুটান, মঙ্গোলিয়া)। সব মিলিয়ে বলা যায়, আন্তর্জাতিক রাজনীতির কেন্দ্রবিন্দু এখন দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় স্থানান্তরিত হয়েছে।

খ. আরেকটি পুর্ব তিমূর বা ইসরাইল কি সম্ভব?

১৯৭৫ সালে পূর্ব তিমুরে ক্যাথোলিক খ্রীষ্টানের হার ছিল ৩০-৪০% যা ১৯৯০ এর দিকে বেড়ে দাড়ায় ৯০%। ঠিক তেমনি বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর থেকেই বিভিন্ন খ্রিষ্টান মিশনারি এনজিও পশ্চিমা শক্তি বিশেষ করে ইউরোপীয় ইউনিয়নের সহতায় তৎপরতা চালাচ্ছে পার্বত্য চট্টগ্রামে। খ্রিষ্টানাইজেশান প্রক্রিয়ার মাধ্যেমে মাত্র ২০ বছরের মাথায় পূর্ব তিমুরকে ইন্দোনেশিয়া থেকে আলাদা করে দিয়ে জাতিসঙ্ঘের নেতৃত্বে একটি পৃথক রাষ্ট্র করে দেয়া হল। অথচ কাশ্মীরের মানুষ মুসলমান হওয়ায় তারা ৬০ বছর ধরে সংগ্রাম করলেও জাতিসঙ্ঘ তাদের রাষ্ট্র গঠনে কার্যকর কোনো উদ্যোগ নেয়নি।

ছবিঃ ভুমধ্যসাগরের তীর ঘেষে ইসরাইল (উপরে)। ঠিক সাগরের কাছাকাছি পার্বত্য চট্রগ্রামও। আয়তনেও কাছাকাছি।

২০০০ শুরূতে নতুন শতাব্দীর জন্য এক বাণীতে ততকালীন ক্যাথলিক খ্রিষ্টানদের ধর্মগূরু পরলোকগত পোপ জন পল একটা গুরূত্বপুর্ন ইঙ্গিত দিয়েছিলেন। তিনি বলেছিলেন, �গত শতাব্দীতে আমরা আফ্রিকাতে নজর দিয়েছিলাম। আফ্রিকাতে আমাদের মিশন অনেকটাই শেষ। এই শতাব্দীতে আমাদের নজর থাকবে এশিয়ার দিকে�। পোপ জন পল ঠিকই বলেছেন। আফ্রিকার এককালের অধিকাংশ মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ট রাষ্ট্র এখন খ্রষ্টান সংখ্যাগরিষ্ট দেশে পরিনত হয়েছে। আফ্রিকাতে আগের মত যুদ্ধ বিগ্রহ নেই বললেই চলে। এই শতাব্দীর শুরু থেকে ইরাক দখল করে এককালের সম্পদশালী একটি দেশকে মিসকিনে পরিনত করা হল। আফগানিস্তান দখল করা হলো। মজার ব্যাপার হলে, এই দুটি মুসলিম দেশ দখল ও ধবংস করে বলতে গেলে জোর করে ব্যাপক ভাবে ঢুকিয়ে দেওয়া হয়েছে খ্রিষ্টান মিশনারি এনজিও গুলোকে। আফগানিস্তানে তো খোদ মার্কিন ও ন্যাটো বাহিনীকে জনগনের মাঝে বাইবেল বিতরন ও জোর করে খ্রীষ্ট ধর্ম গ্রহন করানোর অভিযোগ উঠছে ব্যাপক ভাবে।

কাকতালীয় ভাবে দেখা যায় বাংলাদেশের পার্বত্য চট্টগ্রাম (আয়তন ১৪,০০০ বর্গ কিলোমিটার), পূর্বতিমুর ( আয়তন ১৪,৫০০ বর্গ কিলোমিটার) ও ইসরাইলের (দখলকৃত আরব ভূমিসহ বর্তমান আয়তন ২০,৫০০ বর্গ কিলোমিটার) আয়তন প্রায় কাছাকাছি। এছাড়া পার্বত্য চট্টগ্রামের রয়েছে চমতকার ভূরাজনৈতিক অবস্থান যা ইসরাইল ও পূর্বতিমুরের সাথেই সহজেই তুলনা করা যায়। পার্বত্য চট্টগ্রামকে দ্বিতীয় পুর্ব তিমুর বানিয়ে সহজেই ইসরাইল স্ট্যাইলে চট্টগ্রাম ও কক্সবাজারের কিছু অংশ দখল করে নিতে পারলেই খুব সহজে বঙ্গপোসাগরের সাথে সংযোগ স্থাপিত হবে এই সম্ভাব্য খ্রিষ্টান সংখ্যাগরিষ্ট রাষ্ট্রটির। অনেকের ধারনা, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র টেকনাফে ২০-৫০ মেয়াদী পরিক্ল্পনা নিয়ে একটি গভীর সমুদ্র বন্দের জন্য বাংলাদেশকে বার বার চাপ দিচ্ছে মুলত ভাবী এই খ্রিষ্টান সংখ্যাগরিষ্ট রাষ্ট্রটির কথা মাথায় রেখেই।

গ্লোবাল পলিটিশিয়ান (global politician) নামক ম্যাগাজিনে বলা হচ্ছে, পার্বত্য চট্টগ্রামের অধিবাসীরা একইসাথে বৌদ্ধ ধর্ম, খ্রীষ্ট ধর্ম, হিন্দু ধর্ম ও তাদের নিজস্ব ধর্ম পালন করে থাকে। এখানে উপজাতিদের কত ভাগ খ্রীষ্ট ধর্ম গ্রহন করেছে তার সঠিক পরিসংখ্যান কারও কাছেই নেই। বিশ্লেষকদের মতে, পার্বত্য চট্টগ্রাম ইতিমধ্যেই খ্রিষ্টান সংখ্যাগরিষ্ট এলাকায় পরিনত হয়েছে। কৌশলগত কারনে (আরও কিছু সময় দরকার পরিপুর্ন খ্রিষ্টানাইজেশান প্রক্রিয়া শেষ করতে)পশ্চিমা শক্তির পরার্মশে তা কম করে দেখানো হচ্ছে।

গ. উপজাতি যখন আদিবাসী

আমরা এতদিন থেকে অবাংগালী অধিবাসীদের উপজাতি (Tribal) হিসেবেই জানতাম। ইতিহাসবিদ ও নৃবিঙানীরাও (anthropologists) বলেন, পার্বত্য অঞ্চলের অধিবাসীরা এদেশের উপজাতি । বাংগালীরা হাজার বছর ধরে এখানে বসবাস করছেন। পার্বত্য চট্টগ্রামের অবাংগালীরা মাত্র তিন-চার শত বছর আগে সেখানে বসবাস শুরু করেন। বাংলাদেশ সংবিধানও বলে এরা উপজাতি। বিশ্ববি্দ্যালয় পড়ার সময় শুনেছি পার্বত্য চট্টগ্রামের কিছু সহপাঠী উপজাতী কোটায় ভর্তি হয়েছে। কোন দিন ওদের আদিবাসী বলা হত বলে জানতাম না। ১৫-২০ আগেও এদের উপজাতি বলা হতো। এখন দাবী করা হচ্ছে এরা নাকি আদিবাসী (Aborginals)। আর এই কোরাসের সাথে যোগ দিয়েছে মস্তিক বিক্রি কারি কিছু মিডিয়া। যাই হোক উপজাতি- আদিবাসী নিয়ে বির্তক করা আমাদের এই লেখার মুল থিম নয়।

মুলত গত এক দশক ধরে ঢাক ডোল পিটিয়ে এদের বলা হচ্ছে আদিবাসী। প্রতিদিনেই যাক-জমকের সাথে পালন করা নানান কিছিমের অনুষ্টান। তোলা হচ্ছে নানান সব দাবী দাওয়া। তাদের দিতে হবে আলাদা সংবিধান, আলাদা ভাষা। তার পর আলাদ রাষ্ট্র। এসব দাবীর উপর দেওয়া হচ্ছে ব্যাপক মিডিয়া কভারেজ। ভাবখানা দেখে মনে হয় এত দিন উপজাতিরা বাংলাদেশে সুখে শান্তিতে বসবাস করতো। হটাত করে কিছু দিন আগে বাংগালীরা বাংলাদেশে এসে তাদের (কথিত আদিবাসীদের )বিতাড়ন করেছে, তাই আমেরিকা-ইউরোপ আসুক, দেখুক আর তাদের জন্য একটা স্বাধীন রাষ্ট্রের ব্যাবস্থা করে দিক। বিদেশের টাকায় পরিচালিত কিছু এনজিও, মস্তিক বিক্রি কারি কিছু মিডিয়া ও বুদ্ধিজীবীদের অবিরত প্রচেষ্টা বৃথা যায়নি। সম্প্রতি সরকার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকারী সব নথি পত্রে উপজাতি শব্দের পরিবর্তে আদিবাসী সংযোজন করা হবে।

মনে করা হয়, সন্তু লারমারা মুলত স্বশত্র সংগ্রাম ত্যাগ করেন ইউরোপীয় ইউনিয়ন ও তাদের থিংক ট্যাংক বা গবেষনা প্রতিষ্টান গুলোর পরার্মশে। তারা বুঝে যায় স্বশত্র সংগ্রাম করে পার্বত্য চট্টগ্রাম স্বাধীন করা সম্ভব নয়। এক্ষেত্রে চাল দিতে হবে ধীরে ধীরে খ্রিষ্টানাইজেশান প্রক্রিয়া ও আদিবাসী কার্ড। এই দুটি বিষয়কে হাইলাইটস করলেই আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় এগিয়ে এসে বাংলাদেশকে বাধ্য করবেন পার্বত্য চট্টগ্রামের স্বাধীনতা দিতে। ঠিক যেমন করা হলো পূর্ব তিমুরে।

উপজাতীয়দের নামে মূলত সব সুযোগ-সুবিধা ভোগ করছে চাকমারা। তারা ৮৬ শতাংশ শিক্ষিত। বাঙালিরা মাত্র ৩ শতাংশ শিক্ষিত এবং অন্যান্য যেসব উপজাতি রয়েছে তারা কোনো হিসাবের মধ্যে পড়ে না। রাষ্ট্রের যেকোনো জায়গায় জমি অধিগ্রহণ করার ক্ষমতা রাখে রাষ্ট্র। কিন্তু শান্তিচুক্তির নামে রাষ্ট্র নিজের পাহাড়ে এ অধিকার হারিয়েছে। এমনকি খনিজসম্পদ উত্তোলনের বিষয়ে বিদেশীদের সাথে চুক্তি করারও ক্ষমতা দেয়া হয়েছে সন্তুদের।

উল্লেখ্য পার্বত্য চট্রগামের উপজাতিরা কখনোই আদিবাসী (Indigeneous) ছিলো না। ইতিপুর্বের কোন নথিপত্রে এদের আদিবাসী হিসেবে দেখনো হয়নি, বলা হয়েছে এরা মুলত উপজাতি (Tribal/Sub-caste)।

০০০০এনিয়ে দেখুন, বাংলাদেশ সরকারের পার্বত্য-বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের ওয়েবসাইট। সেখানে উপজাতিদের (Tribals) আদিবাসি (Indigeneous) বলা হয়নি,
এমনকি ১৯৯৭ সালের শান্তি চুক্তিতেও উপজাতিদের আদিবাসি বলা হয়নি
Click this link…

oooo—রা উপজাতি, আদিবাসী নয়, এনিয়ে বিশিষ্ট গবেষক চট্রগ্রাম বিশ্বদ্যালয়ের অধ্যাপক ড হাসান মোহাম্মদের কলামটি পড়ুন,
Click this link…

০০০০—-প্রখ্যাত নৃবিজ্ঞান গবেষক, ড এবনে গোলাম সামাদ, পার্বত্য তিন জেলা নিয়ে ষড়যন্ত্র রুখোঃ দেশবাসী সচেতন হও, শীর্ষক কলামে

এখানে এমন অনেক উপজাতির বাস, যারা ইংরেজ আমলের আগে ছিল না। ইংরেজ আমলে প্রধানত আরাকান থেকে এখানে উপনিবিষ্ট হয়েছে। এদিক থেকে বিচার করলে এখানে তাদের বলতে হয় পরদেশি। ওই অঞ্চলের ভুমিজ সন্তান তারা নয়। অনেকে না জেনে তাদের মনে করেন আদিবাসী। চাকমা, মারমা প্রভৃতিকে আদিবাসী হিসেবে চিহ্নিত করা খুবই বিভ্রান্তিকর।
(দেখুন, আমার দেশ, ২০০৯-০৫-০৬)

০০০০—সেকুলার (আওয়ামী)পন্থি বুদ্ধিজীবী, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগের প্রফেসর, বাংলা একাডেমীর সাবেক মহাপরিচালক সৈয়দ আনোয়ার হোসেন লিখেছেন, ‘Most of the tribal people move into this land from areas now in Myanmar (former Burma) during the period from the 15th to the mid-nineteenth centuries. The tribes belonging to the Koki group were the earliest to settle, and the Chakmas came much later (War and Peace in the Chittagong Hill Tracts, P.5, published by Agamee Prakashni Dhaka, 1999).

০০০০—-নৃতত্তবিদ T.H Lewin-এর মতে, ‘A great portion of the Hill tribes, at present living in the Chittagong Hills, undoubtedly came about two generations ago from Arakan. This is asserted both by their own traditions and by records in the Chittagong Collectroate (1869, P. 28)„

রাঙামাটিতে সাংস্কৃতিক উৎসব সংবিধানে ‘আদিবাসী’ না বলায় যোগ দেননি অনেকে
Click this link…

ঘ. পুর্ব তিমূর বাস্তবায়নে সহযোগী যারা

আরেকটি পূর্ব তিমূর বাস্তবায়নে সহযোগী হিসেবে কাজ করছেন সুশীল সমাজ, গণমাধ্যম, ইউরোপীয় কমিশন, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ভারত ও তার প্রচার মাধ্যম। বিপুল সার্কুলেশানের অধিকারী একটি পত্রিকা, তার ইংরেজী সহযোগীসহ প্রায় সব প্রিন্ট, ইলেট্রনিক ও অনলাইন মিডিয়া। টেলিভিশন অনবরত বলছে, পাহাড়িরা নিগৃহীত। তাদের রক্ষা করতে হবে। ইউএনডিপি সেখানে পাহাড়িদের পক্ষে প্রকাশ্যে প্রচারণা চালাচ্ছে। খবরে প্রকাশ, দু�টি প্রভাবশালী দেশের গোয়েন্দা সংস্থা সেখানে এজেন্সি খুলে বসেছে। চরম বাংলাদেশ বিরোধী হিসেবে পরিচিত বৃটিশ লর্ড সভার মানবাধিকার বিষয়ক কমিটির চেয়ারম্যান লর্ড এরিক এভেরি্র নেতৃতে গঠিত কথিত পার্বত্য চট্টগ্রাম আন্তর্জাতিক ভূমি কমিশান সারা বিশ্বে বিশেষ করে ইউরোপীয় ইউনিয়নের দেশ গুলোতে ব্যাপক প্রচারনা চালাচ্ছে, বাংলাদেশের আদিবাসী(?)দের ভূমি থেকে উচ্ছেদ করা হচ্ছে। সেখানে ব্যাপকভাবে মানবাধিকার লংঘন হচ্ছে ইত্যাদি।

 

ছবিঃ শেখ হাসিনার সাথে সাক্ষাত করছেন লর্ড এভেরি
Click this link…

লর্ড এরিক এভেরি সম্পর্কে জানুন এখানে,
Click this link…

তার ব্লগেই দেখুন, লেখা হয়েছে তিনি Founder, Parliamentarians for East Timor, 1988; এই এভেরী ১৯৮৮ সালে আন্তর্জাতিক ভূমি কমিশন গঠন করে পুর্ব তিমুর বিচ্ছিন্ন করার ক্ষেত্রে অন্যতম ভুমিকা পালন করেছিলেন।

এরিক এভেরির কমিশন নিয়ে আরো পড়ুন,
Click this link…

 

 

 

ছবিঃ পার্বত্য চট্টগ্রাম আন্তর্জাতিক ভূমি কমিশানে লর্ড এরিক এভেরি্র সাথে আছেন এদেশীয় ড. জাফর ইকবাল (উপরে), এ্যাড সুলতানা কামাল চক্রবর্তী (স্বামী শ্রী রঞ্জন চক্রবর্তী) (২য় ছবি), ড. স্বপন আদনান (সিঙ্গাপুর জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়), ব্যারিষ্টার সারা হোসেন (স্বামী ডেভিড বার্গমান) (৩য় ছবি), ড. মেঘনা গুহ ঠাকুরদা (শেষের ছবিতে বাম পাশের মহিলা) প্রমুখ

এর সাথে যোগ হয়েছে মুক্তমনা নামের পার্শ্ববর্তী দেশের গোয়েন্দা সংস্থার অর্থে পরিচালিত কিছু গ্রুপ, যাদের মুল কাজেই হচ্ছে বাংলাদেশ, বাংলাদেশ সেনাবাহিনী ও ইসলামের বিরুদ্ধে বিদ্বেষ ছড়ানো। সম্প্রীতি মঞ্চ ও অজয় রায়রা (বামপন্থি বুদ্ধিজীবী অজয় রায় ইন্টারনেট ভিত্তিক গ্রুপ মুক্ত-মনার প্রধান উপদেষ্টা। এদের মুল কাজেই হচ্ছে বাংলাদেশ, বাংলাদেশ সেনাবাহিনী ও ইসলামের বিরুদ্ধে বিদ্বেষী ছড়ানো) হচ্ছেন সেই গ্রুপ গুলোর বাংলাদেশী সহযোগী। তাদের দাবির প্রেক্ষিতে বলা যায়, পার্বত্য অঞ্চলে সেনাবাহিনীর সদস্যদের রাখা হয়েছে শুধু নিরাপত্তার জন্য, সেখানে কোনো উপনিবেশ কায়েমের জন্য নয়। তারা সেখানে কোনো ধরনের অন্যায় কাজেও লিপ্ত নয়। একটি দেশের সেনাবাহিনী নিজের দেশের নিরাপত্তার দায়িত্ব পালন করতে পারবে না। �এ কেমন দাবি!

ভারতীয় সেভেন সিস্টার্সে ৪০ বছর ধরে প্রায় ৪ লাখ সৈন্য মোতায়েন আছে। কাশ্মীরে গত দুই দশক ধরে পাচ লাখেরও বেশী ভারতীয় সেনা মোতায়েন আছে। এসবের বিরুদ্ধে কথিত কোন মানবাধিকার গ্রুপ টু শব্দ করতেও দেখা যায় না। আর পাহাড়ে আমাদের সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে কোনো গুরুতর অভিযোগও নেই। তাহলে কেন তাদের সেখান থেকে প্রত্যাহার করা হবে? তাহলে সম্প্রীতি মঞ্চের এ দাবির উদ্দেশ্য কী? তারা কি দেশের এক-দশমাংশ ভূমির নিরাপত্তা চায় না? তারা কী বাংলাদেশের এক-দশমাংশ এলাকা অরক্ষিত অবস্থায় পেলেই খুশি হবে?

ঙ. ১/১১ কি একটি রিহার্সেল ছিল?

বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর উপস্থিতির কারনেই গত তিন দশকে সন্তু লারমাদের ব্যাপক সন্ত্রাসী কার্যকলাপের পরেও পার্বত্য চট্টগ্রাম বিছিন্নতাবাদীদের স্বর্গ রাজ্য হতে পারেনি। এক্ষেত্রে পাহাড়ী ও বাংগালীরা সেনাবাহিনীর কারনে নিরাপদে নিজস্ব জীবনযাত্রা, ইতিহাস, ঐতিহ্য ও সংস্কৃতি নিয়ে পাশা পাশি বসবাস করছে। বলতে গেলে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীই অনেক ত্যাগের বিনিময় পার্বত্য চট্টগ্রামকে রক্ষা করেছে। সুতরাং বাংলাদেশ সেনাবাহিনী এ অঞ্চলটি রক্ষার অন্যতম শক্তি। তাই তাদেরই মেরুদন্ড ভেঙ্গে দিতে হবে। এ কাজ করা হয়েছে মুলত ১/১১ আগে ও পরে। জাতি সংঘের শান্তি মিশন থেকে সেনা ফিরিয়ে দেওয়া হবে এই ভয়ে (যদিও অনেকে বলছেন ভয়টি ছিল ভুয়া) যদি বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর মইন টাইপের উচ্চাভিলাষী ব্যক্তি বিদেশী কূটনৈতিক সহায়তায় ১/১১ তৈরী করতে পারে, তাহলে তো সত্যি সত্যি শান্তি মিশন থেকে সেনা ফিরিয়ে দিলে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর সব সেনা পার্বত্য চট্টগ্রামের অস্থায়ী ক্যাম্প থেকে তো বটেই খোদ স্থায়ী ক্যান্টনমেন্ট ছেড়েই চলে আসবে।

মজার ব্যাপার হলো, ১/১১ পরপরেই পাচ ইউরোপীয় রাষ্ট্রদূত গোপন সফরে পার্বত্য চট্টগ্রাম গেছেন। ১/১১ পর থেকেই উপজাতিদের আদিবাসী হিসেবে মিডিয়াতে ব্যাপক প্রচার করা হচ্ছে। লর্ড এরিক এভেরি নেতৃতে গঠিত কথিত পার্বত্য চট্টগ্রাম আন্তর্জাতিক ভূমি কমিশানও বেশ জোরে শোরে সারা বিশ্বে চিতকার শুরু করেছে সেখানে মানবাধিকার গেল বলে। তাহলে কি বলা যায় ১/১১ শুধু বাংলাদেশে বিদেশী কুটনৈতিকদের অবাদ বিচরণ ক্ষেত্রই করেনি, পার্বত্য চট্টগ্রামকে আরেকটি পুর্ব তিমূর, দক্ষিণ বা ইসরাইল করার পথও সুগম করে দিয়েছে?

ছবিঃ এভাবেই দেশের এক-দশমাংশ এলাকা পার্বত্য-চট্রগ্রামকে বিচ্ছিন্ন করে ফেলা হবে? আর আমরা সুদানী রাগাতের মত চেয়ে চেয়ে দেখবো?

বাংলাদেশের দুর্দশার কারণ

সুনন্দ কে দত্ত-রায়

ইএম ফরস্টারের একটি বিখ্যাত উক্তি হচ্ছে, দেশ ও কোন বন্ধুকে বেছে নিতে বলা হলে ‘দেশের সঙ্গে প্রতারণা করার মতো সাহস থাকতে হবে’। সেটাই আজ আমাকে এমন একজন সম্পর্কে লিখতে অনুপ্রাণিত করেছে যে, যার বিষয়ে ভারত ও বাংলাদেশে অনেকেরই শিরঃপীড়া রয়েছে। বাংলাদেশের ঘটনাবলী ভারতের মূল্যায়নের একটি প্রবণতা হচ্ছে দ্বিপক্ষীয় নীতিতে দেখা। সালাহউদ্দিন কাদের চৌধুরী একজন ব্যারিস্টার। ৩২ বছর ধরে তিনি সংসদ সদস্য। তিনি বন্ধু হিসেবে স্বীকৃত নন। সে কারণে তিনি দুঃখ-দুর্দশায় নিপতিত হলে সেটাকে স্বাগত জানানো হয়।

এ ধরনের বোকামি আমেরিকার ঐতিহ্যবাহী নীতিকেই স্মরণ করিয়ে দেয়। ফ্রাঙ্কলিন ডি রুজভেল্ট ক্ষুদ্র রাষ্ট্রগুলোর প্রতি মার্কিন দৃষ্টিভঙ্গি ব্যক্ত করেছিলেন। বিশেষ করে নিকারাগুয়ার নির্দয় স্বৈরশাসক সমোজা সম্পর্কে তার উক্তি ছিল- ‘এ সন অব এ বিচ’, কিন্তু ‘আমাদের সন অব এ বিচ’। ভারতের শ্রেষ্ঠ বন্ধু হতে পারে বাংলাদেশ। কিন্তু তা সত্ত্বেও পুরনো হিসাব চুকেবুকে যাবে না। বরং অতীতের আলোকেই সেটা পরীক্ষিত হবে। শান্তি প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রেও একই কথা।
সেই কালো রাতের বয়োবৃদ্ধ চক্রান্তকারী, যাদের ফাঁসিতে ঝোলানো হয়েছে, তারা কেউ শুধু আততায়ী ছিল না, তারা দেশটির মনস্তত্ত্বের প্রতিনিধিত্ব করেছে। খোন্দকার মোশ্‌তাক আহমেদের দায়মুক্তি অধ্যাদেশও সেটাই করেছিল। ১৯৯৬ সালের ২রা অক্টোবরের আগ পর্যন্ত ১৯৭৫ সালের ১৫ই আগস্টের হত্যাকাণ্ডের একটি পুলিশ প্রতিবেদন পর্যন্ত ছিল না। জিয়াউর রহমান সাম্প্রদায়িক দল নিষিদ্ধ থাকার বিধান সংবিধান থেকে বিলোপ করেছিলেন। ধর্মনিরপেক্ষ চরিত্র মুছে দিয়েছিলেন। এবং হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ ইসলামকে রাষ্ট্রধর্ম করেছিলেন।
অন্য একটি পর্যায়ে বেগম খালেদা জিয়া, জামায়াতে ইসলামী ও জাতীয় পার্টি যাদের ভোট টানতে পেরেছিল তার সবটাই কি গোঁজামিল ছিল? বিএনপি নেতৃত্বাধীন জোট এখনও ৩২টি সংসদীয় আসনে জয়ী হতে সক্ষম। ১৮ আসন থেকে জামায়াতে ইসলামী যদিও মাত্র দু’টিতে নেমে এসেছে, কিন্তু তারা প্রায় ৬৫ হাজার মাদরাসা স্থাপন করেছে। তারা যতটা না একটি রাজনৈতিক দল তার চেয়ে বেশি এক চিন্তাধারা- যার অনুরণন কখনও কখনও পাওয়া যায় আওয়ামী লীগের এক শ্রেণীর নেতাকর্মীর মধ্যেও।
শেখ মুজিবুর রহমানের দ্বিতীয় বিপ্লব আদর্শবাদীদের অন্তর জয় করতে পারেনি- যারা স্বপ্ন দেখেছিলেন স্বাধীনতা একটি নতুন সভ্যতার সূচনা ঘটাবে। একদলীয় স্বৈরশাসন, স্বাধীন সংবাপত্রের দলন এবং দক্ষতা নষ্ট করে দেয়া একটি বিচার বিভাগ- সেই স্বপ্নকে দুঃস্বপ্নে পরিণত করেছিল। ১৯৭৪ সালে লরেন্স লিফশুলজ ‘ফার ইস্টার্ন ইকোনমি রিভিউ’তে লিখেছিলেন ‘মুজিবের অধীনে দুর্নীতি, ক্ষমতার অপব্যবহার এবং জাতীয় সম্পদের অপচয় ছিল নজিরবিহীন’।
এই হলো প্রেক্ষাপট। আমি সাইফুদ্দিন ও হুমাম কাদের চৌধুরীর কাছ থেকে ই-মেইল বার্তা পেয়েছি। তারা যথাক্রমে সাকা চৌধুরীর ভাই ও ছেলে। সাকা নিশ্চিত যে তার পিতা মুসলিম লীগ নেতা ও পাকিস্তানের জাতীয় সংসদের স্পিকার ফজলুল কাদের চৌধুরীকে স্বাধীনতার বিরোধিতার কারণেই ঢাকার কারাগারে হত্যা করা হয়েছিল। তবে স্বাধীনতা প্রশ্নে তিনিও যে পিতার অনুসারী ছিলেন না, তা না বলাটা ঠিক হবে না।
একটা বিষয় আমি স্মরণ করতে পারি। তখন আমি হোটেল ইন্টার কন্টিনেন্টালে অবস্থান করছিলাম। তার ড্রাইভার অভ্যর্থনা কক্ষে একটি চিরকুট  রেখে যান। অভ্যর্থনাকারী তরুণটি পরে আমাকে বলেছিল, সাকা চৌধুরী ব্যক্তিগতভাবে অনেক মুক্তিযোদ্ধা হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত। এটা সত্য কিনা তা আমার জানা নেই। ঢাকা তখন গুজব ও উড়ো কথায় ভরপুর। তবে এসব অভিযোগের বহু আগেই বিচার বিভাগীয় পরীক্ষা হওয়া উচিত ছিল। বাংলাদেশ দক্ষিণ এশিয়ার প্রথম দেশ, যারা আন্তর্জাতিক ফৌজদারী আদালতের রোম সংবিধি সই করেছেন। আর তাতে মানবতার বিরুদ্ধে অভিযুক্তদের বিচার সম্পর্কে নিয়মকানুন বলে দেয়া আছে। কিন্তু সাকা চৌধুরী যুদ্ধাপরাধের জন্য অভিযুক্ত নন। তাকে একটি অগ্নিসংযোগের মামলায় অভিযুক্ত করা হয়েছে। নয় মাসে আগে সেই মামলাটি দায়ের করা হয়, যখন সেই মামলায় তার নাম ছিল না।
হুমামের চিঠি পড়তে আমার কষ্ট হলো। তাতে লেখা: ‘২০১০ সালের ১৬ই ডিসেম্বরের প্রথম প্রহরে সশস্ত্র বাহিনী ও গোয়েন্দা কর্মকর্তাদের ১২ সদস্যের একটি দল তার পিতার অ্যাপার্টমেন্টে প্রবেশ করে। এবং নির্দয়ভাবে তাকে নির্যাতন শুরু করে। তারা তাকে অব্যাহতভাবে লাঞ্ছিত করে এবং তাদের সঙ্গে আনা যন্ত্রপাতি দিয়ে প্রায় ৫ ঘণ্টা ধরে নির্যাতন চালায়। তারা অবশ্য সঙ্গে করে একজন চিকিৎসক নিয়েছিল। তার একমাত্র দায়িত্ব ছিল এটা নিশ্চিত করা যে তিনি যাতে সংজ্ঞাহীন না হয়ে পড়েন। আর দরকার হলে যাতে তাকে চাঙ্গা করতে পারেন। তিনি তিনবার সংজ্ঞাহীন হয়ে পড়েন এবং প্রতিবারই ইনজেকশন দিয়ে তার সংজ্ঞা ফেরানো হয়।’
আরও বর্ণনা এরকম: ‘প্রায় ১০ ঘণ্টা নির্যাতনের পর আদালতে তাকে নেয়া হয়, কিন্তু তার রক্তে ভেজা জামাকাপড়ও তাকে আরও পাঁচ দিনের জন্য রিমান্ডে পাঠাতে বিচারককে নিবৃত্ত করেনি।’
সালাহউদ্দিন দাবি করেছিলেন,

১৯৭৩ সালে তার পিতার মৃত্যুর পর তিনি তাজউদ্দিন আহমেদ এবং আওয়ামী লীগের তার অন্যান্য সহকর্মীর পরামর্শ দিয়েছিলেন যে তাদের  জন্যও একদিন আসবে। তাই কারাগারে যেন শীতাতপ নিয়ন্ত্রণ ও অন্যান্য সুবিধা নিশ্চিত করা হয়। সেটা এসেছিল বর্বরোচিত নিষ্ঠুরতায়।

এ ধরনের প্রতিশোধপরায়ণ হত্যাকাণ্ডের শৃঙ্খল ভাঙা সম্ভব না হলে সোনার বাংলা গঠনের স্বপ্ন কখনওই বাস্তবায়িত হবে না।

লেখক প্রবীণ ভারতীয় সাংবাদিক, কলকাতার দ্য স্টেটসম্যান পত্রিকার  সাবেক সম্পাদক।

Source : http://www.mzamin.com/index.php?option=com_content&view=article&id=4948:2011-03-13-16-39-34&catid=51:2010-09-02-11-25-57&Itemid=86

১৯৭৪ সালের দূর্ভিক্ষ : Wikipedia বনাম বাস্তবতা

১৯৭৪ সালের ভয়াবহ দূর্ভিক্ষে ১০ লাখের বেশি মানুষ মারা গেছে। অথচ, উইকি অত্যন্ত দায়সারা ভাবে ভুল তথ্য দিয়ে বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে। আমরা এখানে প্রমাণ সহকারের বাস্তবতাকে তুলে ধরার চেষ্টা করবো।

Wiki information

ইংরেজী উইকির ১৯৭৪ সালের বাংলাদেশের এই দূর্ভিক্ষের উপর Bangladesh famine of 1974 শীর্ষক ৫-৬ লাইনের ছোট লেখাটি পড়ে যে কেউ ৭৪ এর দুর্ভিক্ষের ঘটনাকে গুরুত্বহীন মনে করবেন এবং ভূল তথ্য পাবেন। এর পেছনে যে প্রকৃতপক্ষে সদ্য স্বাধীনতা প্রাপ্ত বাংলাদেশ সরকার ও প্রশাসনের সীমাহীন দূর্নীতি ও লুটপাট, দ্রব্যমূল্যের উর্ধগতি, মুক্তিযুদ্ধে সাহায্যকারী ভারত সরকারের লুটপাট – এরকম কারণগুলো মূলত দায়ী – উইকির নিবন্ধে সে সব কিছুই আসেনি।

উইকির নিবন্ধে দূর্ভিক্ষের জন্য দায়ী করা হয়েছে দু’টি কারণ:১) a combination of natural disasters (cyclones, droughts and floods) in the early 1970’s: আশ্চর্য ব্যাপার! ১৯৭০ এর ঘুর্নিঝড়ের পরপর ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধের ৯ মাসে এদেশের মানুষ না খেয়ে মরেনি। তাহলে ১৯৭০ সালের ঘুর্নিঝড়ের কারণে কেন ১৯৭৪ সালে মানুষ মরবে। পাগলেও একথা বিশ্বাস করবে না। আর কারণ যদি তাই হয়ে থাকে, তাহলে ১৯৭২-৭৪ পর্যন্ত ৩ বছরে বাংলাদেশ সরকার কি করেছিল? (এ আলোচনায় পরে আসছি)২) various local and internationally influenced socio-political factors: the U.S. had withheld 2.2 million tonnes of food aid: মানুষ এতো কান্ডজ্ঞানহীন কিভাবে হয়? আমেরিকর সাহায্যের জন্য কেন আমাদের বসে থাকতে হবে? এরা ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের বিরুদ্ধে ছিল, হেনরী কিসিন্জার বাংলাদেশকে তলাবিহীন ঝুড়ি উপাধি দিয়েছে, তারা পাকিদের দোসর — কেন বাংলাদেশ সরকার আমেরিকার সাহায্যের আশায় বসেছিল? কেন ভারত-রাশিয়া-ইসরাঈল-ভুটান, যারা বাংলাদেশের প্রাথমিক স্বীকৃতিদাতা, সাহায্য নিয়ে এগিয়ে এলনা? এরাই তো তৎকালীন বাংলাদেশের পরীক্ষিত বন্ধু!

মজার ব্যাপার হলো, socio-political factors গুলোর মধ্যে প্রকৃত কারণগুলো উইকি লিখেনি!

বাস্তবতা:

এবার আসুন দেখি ১৯৭৪ সালের দূর্ভিক্ষের জন্য তৎকালীন বাংলাদেশ সরকার ও ভারতীয় আগ্রাসন কতটুকু দায়ী।

১) ৫০০০ কোটি টাকার সম্পদ ভারতে পাচার:

দুইশ বছরের ব্রিটিশ সাম্রাজ্যবাদ যা পারেনি, ২৫ বছরে পাকিরা যা করার সাহস পায়নি, মাত্র ৩ বছরে হিন্দুস্হানী মাড়োয়ারী বঙ্গবন্ধুরা (!) তাই করেছে। লুটপাটের খতিয়ান:ক. ধান-চাল-গম (৭০-৮০ লাখ টন, গড়ে ১০০ টাকা ধরে): ২১৬০ কোটি টাকা।

খ. পাট (৫০ লাখ বেলের উপরে): ৪০০ কোটি টাকা।

গ. ত্রাণ-সামগ্রী পাচার: ১৫০০ কোটি টাকা।

ঘ. যুদ্ধাস্ত্র, ঔষধ, মাছ, গরু, বনজ সম্পদ: ১০০০ কোটি টাকা।

————————————-

সর্বমোট: ৫০০০ কোটি টাকা (প্রায়) (সূত্র: জনতার মুখপত্র, ১ নভেম্বর ১৯৭৫)ভারতীয় অমৃতবাজার দৈনিক (১২ মে ১৯৭৪) থেকে, ভারত সরকার ২-২.৫ শত রেলওয়ে ওয়াগন ভর্তি অস্ত্র-শস্ত্র স্হানান্তর করেছে, যার বাজার মূল্য আনুমানিক ২৭০০ কোটি টাকা। এছাড়াও, চীন থেকে জয়দেবপুর অর্ডিনেন্স ফ্যাক্টরী থেকে অস্ত্র নির্মানের কোটি কোটি টাকার যন্ত্রপাতি ভারতে স্হানান্তরিত হয়। (অলি আহাদ: জাতীয় রাজনীতি ১৯৪৫ থেকে ‘৭৫, পৃ:৫২৮-৫৩১)

২) পাটের মুকুট স্হানান্তর:

বাংলাদেশের পরিবর্তে রাতারাতি আন্তর্জাতিক বাজারে পাটের মুকুট পরল ভারত। ফারাক্কা চুক্তির নামে বাংলাদেশকে মরুভূমি করার চক্রান্ত, টাকা বদলের নামে অর্থনীতি ধ্বংস, বর্ডার বাণিজ্যের নামে ভারতের বস্তপঁচা মালের বাজার। বাংলাদেশের শিল্প কারখানা থেকে যন্ত্রাংশ চুরি করে আগরতলায় পাঁচটি নতুন পাটকল স্হাপন! (আখতারুল আলম, দু:শাসনের ১৩৩৮ রজনী, পৃ: ১১৫-১১৬)

৩) সৌখিন দেশপ্রেমিকদের অর্থনৈতিক শোষণ:

স্বাধীনতার পর কি হলো? এক সংঘবদ্ধ প্রচেষ্টা চলল অর্থনীতি ধ্বংসের। উৎপাদন কমে গেল, শ্রমিক অসন্তোষ বেড়ে গেল। কলকারখানা ধ্বংস হলো। গুপ্ত হত্যা শুরু হল। কোন এক অশুভ শক্তি যেন বাংলার মানুষকে নিয়ে রক্তের হোলি খেলায় মেতে উঠল। সেসব সৌখিন মানুষ চারখার করে দিল বাংলার মানুষের স্বপ্নসাধ। চোরা কারবারের লাইন তারা আগেই করে রেখেছিল। প্রত্যক্ষভাবে জড়িত সরকারী কর্মচারী, অসাধু ব্যবসায়ী ও রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ। সরকারী সমর্থনপুষ্ট না হলে এমন অবৈধ ব্যবসা সম্ভব না … শুধু তাই নয়, ভেজালে চেয়ে গেল সারা দেশ।

দীর্ঘ ৩ টি বছর আমরা এমনটি প্রত্যক্ষ করেছি। আমাদের চোখের সামনে চাল-পাট পাচার হয়ে গেছে সীমান্তের ওপারে, আর বাংলার অসহায় মানুষ ভিক্ষার ঝুলি নিয়ে বিশ্বের দ্বারে দ্বারে। (মেজর অব: মো: রফিকুল ইসলাম বীরোত্তম: :শাসনের ১৩৩৮ রজনী, পৃ: ১১৯-১২৬)

৪) শক্তিশালী চোরাচালানী সিন্ডিকেট:

সীমান্তের ১০ মাইল এলাকা ট্রেডের জন্য উম্মুক্ত করে দেয়া হলো। এর ফলে ভারতের সাথে চোরাচালানের মুক্ত এলাকা গড়ে উঠে। পাচার হয়ে যায় দেশের সম্পদ। (আবুল মনসুর আহমদ: আমার দেখা রাজনীতির ৫০ বছর, পৃ: ৪৯৮)

এর ফলে চোরাচালানীদের যে শক্তিশালী সিন্ডিকেট গড়ে উঠেছিল, তা আজও আছে এবং তা দেশের অনুন্নত অর্থনীতির জন্য দায়ী।

৫) তাজুদ্দীন কর্তৃক মুদ্রামান হ্রাস:

এক অভাবনীয় ও অচিন্তনীয় ঘটনা। ১ জানুয়ারী ১৯৭২ সালে তাজুদ্দিন এক আদেশ বলে দেশের মুদ্রামান ৬৬% হ্রাস করেন। এর আগে বাংলাদেশের মুদ্রামান ভারতের চেয়ে বেশি ছিল। তাজুদ্ধীনের আদেশে দেশের অর্থনীতি মুদ্রাস্ফিতি বেড়ে গেল ও জনজীবনে দ্রব্যমূল্য হল আকাশচুম্বী।

এছাড়া ভারত-বাংলাদেশের অর্থনীতি সম্পূরক আখ্যা দিয়ে ভারতে পাট বিক্রির নিষেধাজ্ঞা উঠে গেল। নাম মাত্রমূল্যে বা জালটাকায় পাট পাচার শুরু হল। (অলি আহাদ: জাতীয় রাজনীতি ১৯৪৫ থেকে ‘৭৫, পৃ:৫২৮-৫৩১)

৬) ভারত জালনোট ছেপে অর্থনীতি ধ্বংসের আয়োজন করে:

বাংলাদেশ থেকে পাচার হয়ে যাওয়া ধনসম্পদের পরিবর্তে আরো যে সব মহামূল্যমান (!) ধনসম্পদ আসত সেগুলোর মধ্যে ছিল ভারতে ছাপা বাংলাদেশী জাল নোট। এর পরিণাম এতই ভয়াবহ যে তাজুদ্দীন বলতে বাধ্য হয়েছেন, ‘জালনোট আমাদের অর্থনীতি ধ্বংস করিয়া দিয়াছে’। (আব্দুর রহিম আজাদ: ৭১ এর গণহত্যার নায়ক কে: পৃ: ৫২)

৬) ক্ষমতাসীনদের স্বীকারোক্তি:

বাংলাদেশের কতিপয় নেতার বিদেশে ব্যাংক ব্যালান্স রয়েছে, তারা অনবরত দেশ থেকে মুদ্রা পাচার করে দিচ্ছে। ফলে দেশের অর্থনৈতিক মেরুদ্ন্ড ভেঙ্গে পড়ছে। দেশের মানুষ কাপড়ের অভাবে মরছে, আর এক শ্রেণীর মানুষ লন্ডনে কাপড়ের কল চালু করছে। (তাজুদ্দীন, জনপদ ১১ মার্চ ১৯৭৪)দেশ স্বাধীনের দুদিনেই শুরু হল হরিলুট। শিল্প কারখানায় অস্তিত্বহীন শ্রমিকের নামে মাহিনা লুট, পাটকলগুলিতে যন্ত্রাংশ ক্রয়ের নামে লুট, বস্রশিল্পে তুলা ও সুতা কেনায় কোটি কোটি টাকা লুট, ১৯৭১ এর অবাঙ্গালীদের পরিত্যক্ত সম্পত্তিতে লুট, ১৬ ডিভিশন নামের ভূয়া মুক্তিযোদ্ধার নামে সরকারী সম্পদ লুট। (এম এ মোহায়মেন: বাংলাদেশের রাজনীতিতে আওয়ামীলীগ, পৃ ১৪, ৪৪)

৭) কলকাতায় রাজনৈতিক নেতাদের যৌন ট্রিপ, গায়ক ও নর্তকী আমদানী:

‘কয়েকদিন আগে তোমাদের কিছু নেতা কলকাতা এসেছিল কিছু নমকরা গায়ক-নর্তকী ভাড়া করার জন্য। যুদ্ধ বিধ্বস্ত দেশে এরকম কাজ শুধু অনৈতিকও নয়, অমার্জনীয়। দু:খ হয়, তোমাদের স্বাধীনতা সংগ্রামে আমারও কিছু অবদান ছিল।’ (কবি বুদ্ধদেব বসু, আমার দেশ : আমার স্বাধীনতা, পাক্ষিক পালাবদল)লুটপাট সমিতির সদস্যরা তখন কোলকাতার অভিজাত পাড়ার হোটেল, বার, রেস্তোরায় বেহিসেবী খরচের জন্য ‘জয় বাংলার শেঠ’ উপাধী পেয়েছিল। সেখানে মুক্তহস্তে খরচ করতো, বিলাসবহুল ফ্লাটে থাকতো। সন্ধ্যের পরে হোটেল গ্র্যান্ড, প্রিন্সেস, ম্যাগস, ব্লু ফক্স, মলিন র্যু, হিন্দুস্হান ইন্টারন্যাশনালে দামী পানীয় ও খাবারের সঙ্গে পাশ্চাত্য সংস্কৃতি উপভোগ করতো। সারার রাত পার করে ভোর বেলা ফিরতো নিজেছের বিলাসবহুল ফ্লাটে। (শরীফুল হক ডালিম, যা দেখেছি যা বুঝেছি যা করেছি, পৃ ১২০-১২২। নোট: ডালিম বঙ্গবন্ধুর স্বঘোষিত খুনি, বিতর্কিত। তার বক্তব্যের সাথে কবি বুদ্ধদেব বসুর বক্তব্য মিলে যাওয়ায় এই সূত্র রাখা হলো।)পরিশেষে, উইকি কি ১৯৭৪ সালের দূর্ভিক্ষের উপরের প্রকৃত কারণগুলো লিখবে, নাকি গঁদবাঁধা দু-একটি দূর্বল ও মিথ্যা তথ্য দিয়ে মানুষদের বিভ্রান্ত করবে? তবে উইকি যাই করুক, আমাদের আমাদের ইতিহাস জেনে শিক্ষা নিতে হবে।

(লেখক.গবেষক)

http://www.facebook.com/topic.php?uid=33138223345&topic=6784

দীপু মনির একটি সাক্ষাত্কার প্রসঙ্গে দুটি কথা

ডা. দীপু মনি আমাদের পররাষ্ট্রমন্ত্রী। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার যথেষ্ট আস্থাভাজন। না হলে অনভিজ্ঞ দীপু মনিকে তিনি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব কেন দিলেন। আমি পররাষ্ট্রনীতি নিয়ে একটু লেখালেখি করি। এ বিষয়ে আমার কিছু গবেষণাও আছে। ছাত্রদের পড়াইও এ বিষয়ে। গত ২০ বছরে ঢাকায় পররাষ্ট্র তথা নিরাপত্তা নিয়ে যেসব সেমিনার হয়েছে, আমি সেখানে অবশ্যম্ভাবী ভাবে থাকার চেষ্টা করেছি। আন্তর্জাতিক রাজনীতি, বাংলাদেশের পররাষ্ট্রনীতি নিয়ে আমার বেশ ক’টি বই, গবেষণা প্রবন্ধও রয়েছে। তাই আমাদের পররাষ্ট্রমন্ত্রী যখনই কোনো সেমিনারে যান, বক্তব্য রাখেন, আমি আগ্রহভরে তা থেকে জানার ও শেখার চেষ্টা করি কিছু। বুঝতে চেষ্টা করি আমাদের পররাষ্ট্রনীতিতে আদৌ কোনো পরিবর্তন আসছে কি না কিংবা নয়া বিশ্বব্যবস্থার আলোকে আমাদের পররাষ্ট্রনীতির সাফল্য কোথায়। গত ২৫ ডিসেম্বর চ্যানেল আইতে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর একটি সাক্ষাত্কার প্রচারিত হয়েছে। দৈনিক মানবজমিন-এ ওই সাক্ষাত্কারটি প্রকাশিত হয় ২৬ ডিসেম্বর। আর সাক্ষাত্কারটি যিনি নিয়েছেন, তিনি আর কেউ নন, স্বয়ং মতিউর রহমান চৌধুরী, যিনি মানবজমিন পত্রিকার প্রধান সম্পাদক। খুব আগ্রহ সহকারে সাক্ষাত্কারটি আমি পড়েছি। কিন্তু দুঃখের সঙ্গে আমি বলতে বাধ্য হচ্ছি, বাংলাদেশের পররাষ্ট্রনীতির প্রেক্ষাপটে যেসব বিষয় আমার জানার দরকার ছিল, পররাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছ থেকে তা আমি পাইনি। বাংলাদেশের পররাষ্ট্রনীতির আলোকে এমন অনেক বিষয় রয়ে গেছে, সেসব প্রশ্ন কেন যে মতি ভাই পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে করলেন না, আমি বুঝতে অক্ষম। মতি ভাইকে আমি চিনি ও জানি অনেক অনেক দিন থেকে। তিনি শুধু সিনিয়র কিংবা সাহসী একজন সাংবাদিক, এটা বললে ভুল হবে। তিনি পররাষ্ট্রনীতি তথা কূটনীতি ভালো বোঝেন। দীর্ঘদিন কূটনৈতিক সংবাদদাতা হিসেবে কাজ করেছেন। অনেক বিষয় তিনি জানেন ও বোঝেন। এসব প্রশ্ন তিনি কেন পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে করলেন না, আমি সত্যিই বুঝতে অক্ষম। সাংবাদিকদের কাজ তো এটাই। ইতালির মহিলা সাংবাদিক প্রয়াত অরিআনা ফাল্লাসির কথা আমার মনে পড়ে। আয়াতুল্লা খোমেনি তখন বেঁচে আছেন। মাথায় ‘চাদর’ জড়িয়ে তিনি খোমেনির কাছে গিয়েছিলেন; কিন্তু শক্ত প্রশ্ন করতে এতটুকুও পিছপা হননি ফাল্লাসি। মতি ভাইর মধ্যে আমি একজন ফাল্লাসিকে দেখতে চাইনি বটে; কিন্তু আমি হলে যে প্রশ্নগুলো ডাক্তার দীপু মনিকে করতাম, মতি ভাই তা করেননি। পাঠক, আসুন মতি ভাইর সঙ্গে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর আলাপচারিতা নিয়ে কিছুটা আলোচনা করা যাক।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছেন, ১৯৫৪ সালে তত্কালীন আওয়ামী লীগের যে পররাষ্ট্রনীতি, সেই নীতিই আওয়ামী লীগ এখন অনুসরণ করছে। তাই? ১৯৫৪ সালের নীতি, ২০১০ সালে? ১৯৫৪ সালে তত্কালীন পূর্বপাকিস্তানে সাধারণ নির্বাচন হয়েছিল। নির্বাচনে যুক্তফ্রন্ট বিজয়ী হয়েছিল (ইসলামপন্থী দল নেজামে ইসলামীর সঙ্গে আওয়ামী লীগ যুক্তফ্রেন্ট ছিল)। যুক্তফ্রন্টের ২১ দফায় বৈদেশিক নীতি সম্পর্কে কোনো কথা বলা হয়নি। তবে উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি হয়েছিল ১৯৫৫ সালের ২১, ২২ ও ২৩ অক্টোবর তারিখে অনুষ্ঠিত পূর্বপাকিস্তান আওয়ামী মুসলিম লীগের কাউন্সিল অধিবেশন। ওই কাউন্সিল অধিবেশনে পাক-মার্কিন সামরিক চুক্তির বিরোধিতা করা হয়েছিল; কিন্তু দেখা গেল আওয়ামী লীগের একটা অংশ ১৯৫৬ সালে ক্ষমতা পেয়ে ওই সামরিক চুক্তির সমর্থক বনে যায়। অলি আহাদ লিখেছেন, ‘গদির মোহে পড়িয়া জনাব আতাউর রহমান খান ও শেখ মুজিবুর রহমান প্রমুখ আওয়ামী লীগ পার্লামেন্টারি পার্টি সদস্যই প্রধানমন্ত্রী শহীদ সোহরাওয়ার্দীর নির্দেশিত পথে সংগঠনের বৈদেশিক নীতির বরখেলাপে পাক-মার্কিন সামরিক চুক্তি, বাগদাদ চুক্তি ও সিয়াটো চুক্তির গোঁড়া সমর্থকে পরিণত হন’ (জাতীয় রাজনীতি, ১৯৪৫ থেকে ১৯৭৫, পৃষ্ঠা : ১৭৯)।

দীপু মনি কি এ কথাটাই বলতে চাচ্ছেন? সেদিন কিন্তু কাগমারী সম্মেলনে (১৯৫৭) পূর্বপাকিস্তান আওয়ামী লীগের সভাপতি মওলানা ভাসানী পাক-মার্কিন সামরিক আঁতাতের সমালোচনা করেছিলেন। ভাসানী হচ্ছেন সেই ব্যক্তি, যিনি ১৯৫৫ সালের ১৭ জুন ঢাকার পল্টন ময়দানে উচ্চারণ করেছিলেন ‘আসসালামু আলাইকুম’। জানিয়ে দিয়েছিলেন পাকিস্তানি শাসকচক্র যদি শোষণ-শাসনের মনোবৃত্তি ত্যাগ না করে, তাহলে পূর্বপাকিস্তান আলাদা হয়ে যাবে। এসব তো ইতিহাস। ইতিহাস তো অস্বীকার করা যায় না। দীপু মনি যদি সেই পাক-মার্কিন ‘মৈত্রী’ ও আওয়ামী লীগের সমর্থনের কথা আমাদের স্মরণ করিয়ে দেন, তাহলে কি তা ১৯৭২ সালের মূল সংবিধানের রাষ্ট্র পরিচালনার (৮ নং অনুচ্ছেদ) নীতির সঙ্গে সাংঘর্ষিক নয়? আওয়ামী লীগ তো এখন ১৯৭২ সালের মূল সংবিধানেই ফিরে যেতে চাইছে। দীপু মনি আমাদের স্মরণ করিয়ে দিয়েছেন সংবিধানের ২৫নং ধারার কথা, যেখানে বৈদেশিক নীতির মূলনীতির কথা বলা হয়েছে। আমি খুশি হতাম যদি মতি ভাই পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে ২৫(২) ধারা নিয়ে একটা প্রশ্ন করতেন। এখানে বলা হয়েছে, ‘রাষ্ট্র ইসলামী সংহতির ভিত্তিতে মুসলিম দেশগুলোর মধ্যে ভ্রাতৃত্ব সম্পর্ক সংহত, সংরক্ষণ এবং জোরদার করিতে সচেষ্ট হইবেন।’ প্রশ্ন হচ্ছে উচ্চ আদালতের রায় অনুসরণ করে সংবিধান এখন সংশোধন করা হচ্ছে। রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম (সংবিধানের ২ক) এখন আর থাকছে না। খুব সঙ্গত কারণেই তাই ২৫(২) ধারাটাও থাকছে না।

আমি খুশি হতাম যদি পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ সম্পর্কে কোনো কথা বলতেন। পররাষ্ট্রমন্ত্রীর আরেকটি বক্তব্য—‘আমাদের সম্পর্কের ১২ আনাই ভারতের সঙ্গে নয়। তবে বড় কথা আমাদের মনোজগতে ভারতের সঙ্গে সম্পর্ক বড় অবস্থানে আছে। সেটা একটা বড় দিক’ এই বক্তব্যে আমার বিবেচনায় ভারতের সঙ্গে ‘বিশেষ সম্পর্ক’-এর কথা তিনি স্বীকার করলেন। বাংলাদেশ তো সবার সঙ্গে বন্ধুত্বের নীতি অনুসরণ করে আসছে। সংবিধানে এমন কথাই আছে। তাহলে ‘ভারতের সঙ্গে বিশেষ সম্পর্ক’ কেন? এতে করে কি বর্তমান সরকারের ভারতপ্রীতির কথাই প্রকারান্তরে দীপু মনি স্বীকার করলেন না? আমরা অবশ্যই ভারতের বন্ধুত্ব চাই। কিন্তু প্রায় প্রতিদিনই যখন ভারতীয় বিএসএফ বাংলাদেশীদের সীমান্তে হত্যা করে, তা কি বন্ধুত্বের নিদর্শনের কথা বলে? বাংলাদেশের সঙ্গে ভারতের যে একাধিক সমস্যা, তার সমাধানের উদ্যোগ কি ভারত কখনও নিয়েছে? দীপু মনি যখন ভারতের সঙ্গে বিশেষ সম্পর্কের কথা বলেন, তখন কি মতি ভাই তাকে বাংলাদেশ-ভারত সমস্যাগুলো নিয়ে প্রশ্ন করতে পারতেন না? কেন করলেন না তিনি? ভারতের সঙ্গে যৌথ বিদ্যুকেন্দ্র হচ্ছে খুলনায়। খসড়া চুক্তিতে উপেক্ষিত হয়েছে পিডিবির স্বার্থ (কালের কণ্ঠ, ১১ ডিসেম্বর)। বহুল আলোচিত ভারতের ১০০ কোটি ডলারের ঋণ এখন ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অনুমোদিত প্রকল্পের জন্যই কেবল ব্যয় হবে। ৮৫ ভাগ পণ্য ও সেবা কিনতে হবে ভারত থেকে। বাকি ১৫ ভাগ কিনতে হবে ভারতের পরামর্শে। ইট-বালু পর্যন্ত ভারত থেকে আনতে হবে (আমার দেশ, ২৭ ডিসেম্বর)। এটা কি বন্ধুত্বের নিদর্শন? পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে এ ব্যাপারে প্রশ্ন করা হলো না কেন? আমি জানতে চাই সরকারের নীতি-নির্ধারক একজন যিনি, তিনি কী বলেন এ সম্পর্কে। তাকে প্রশ্ন করা হলো না। আমরা জানলামও না।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী আমাদের জানালেন ট্রানজিট নিয়ে কোনো চুক্তি হয়নি। এটা বলে তিনি কী বোঝাতে চেয়েছেন, আমরা জানি না; কিন্তু আমরা তো এরই মধ্যে জেনে গেছি ভারতকে ট্রানজিট দেয়াসংক্রান্ত একাধিক চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে। এমনকি ট্রানজিটের জন্য কি ‘ফি’ নির্ধারণ করা হবে কিংবা আদৌ ফি নেয়া হবে কি না, সে সম্পর্কে খোদ সরকারের মধ্যেই দ্বিমত আছে। সরকার ট্রানজিট ১১ খাতের লাভ-ক্ষতির হিসাব শুরু করে দিয়েছে (কালের কণ্ঠ, ১২ ডিসেম্বর)। এডিবি এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, ট্রানজিট চালু হলে বছরে সরকার পাবে এক হাজার ৮০০ কোটি টাকা। আর বিআইডিএসের মতে, এই টাকার পরিমাণ ৪০০ কোটি টাকা; কিন্তু ভারত আদৌ ট্রানজিট ‘ফি’ দিতে রাজি নয়। যখন প্রধানমন্ত্রীর দিল্লি সফরের সময় ট্রানজিটসংক্রান্ত একটি চুক্তি করেন, তখন পররাষ্ট্রমন্ত্রী কী করে বলেন ‘কোনো চুক্তি হয়নি’। সরকারের বাণিজ্যমন্ত্রী যখন বলেন, ‘ভারতের মতো বড় রাষ্ট্র সক্রিয় না হলে সাফটা অকেজো হয়ে পড়বে’ (যুগান্তর, ২৬ ডিসেম্বর), সেখানে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর ভারতপ্রীতি চোখে লাগার মতো বৈকি! কে না জানে শুধু ভারতের কারণেই সার্ক কার্যকর হচ্ছে না। সার্ক হয়ে পড়ছে একটি কাগুজে প্রতিষ্ঠানে। বর্তমান সরকার ক্ষমতাসীন হওয়ার পর গত দুই বছরে অর্ধশত উলফা নেতাকে ভারতের কাছে হস্তান্তর করেছে (আমার দেশ, ২৫ ডিসেম্বর); কিন্তু কই আমরা কি একজনও বাংলাদেশী সন্ত্রাসীকে ভারত থেকে বাংলাদেশে ফেরত নিয়ে আসতে পেরেছি? সঞ্চালক একবারের জন্যও পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে প্রশ্নটা করলেন না। টিপাইমুখ নিয়ে এত শঙ্কা ও উত্কণ্ঠা বাংলাদেশের মানুষের। সিলেটের মানুষ এক ধরনের ভয় ও আশঙ্কার মাঝে আছেন। খোদ ভারতেই (আসামের শিলচরে) টিপাইমুখ বাঁধের বিরুদ্ধে আন্দোলন ও জনমত সংগঠিত হচ্ছে (আমার দেশ, ২৬ ডিসেম্বর), সেখানে সিলেটের মানুষ মতিউর রহমান চৌধুরী ভুলে গেলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে এ কথাটা জিজ্ঞেস করতে? এটা কি ইচ্ছাকৃত?

গঙ্গার পানিচুক্তি অনুযায়ী আমরা পানি পাচ্ছি না। এ কথাটা স্বীকার করলেন না পররাষ্ট্রমন্ত্রী। বললেন, বিশেষজ্ঞরা তো এমন কথা বলেন না! মাননীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রী দয়া করে ১২ ডিসেম্বরের সংবাদপত্রটি দেখবেন কি? সেখানে বিশেষজ্ঞদের উদ্ধৃতি দিয়েই বলা হচ্ছে, জানুয়ারির (২০১০) ৩ কিস্তিতে বাংলাদেশ ৫৬ হাজার ৩৭১ কিউসেক কম পানি পেয়েছে। আর গত বছর (২০০৯) কম পেয়েছে ৬০ হাজার কিউসেক। পত্রিকায় ২০০৫, ২০০৬ ও ২০০৭ সালের পরিসংখ্যানও আছে (নয়া দিগন্ত)। দেখে নিতে পারেন। এবারও কি বলবেন, কই বিশেষজ্ঞরা তো কিছু বলছে না!

মাননীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রী আমাকে ক্ষমা করবেন—গোয়েবলসের সেই বিখ্যাত উক্তিটি আমরা জানি। মাননীয় মন্ত্রী বললেন, শ্রমবাজার সম্প্রসারিত হচ্ছে। সঞ্চালক, নিজে একজন সম্পাদক, পারতেন ১৩ ডিসেম্বরের একটি প্রতিবেদনের কথা উল্লেখ করতে। তিনি করেননি, আমি করছি। কালের কণ্ঠ আমাদের জানাচ্ছে, মধ্যপ্রাচ্যে জনশক্তি রফতানি কমেছে, এবং রেমিট্যান্সও কমে গেছে। কত কমেছে তার তথ্যও আছে এই প্রতিবেদনে। যারা জনশক্তি নিয়ে গবেষণা করে, সেই রামরুর একটি প্রতিবেদন বিবিসির বাংলা বিভাগ উপস্থাপন করেছে গত ২৫ ডিসেম্বর সকালে। সেখানে জনশক্তি রফতানি কমছে বলেই রামরু আমাদের জানাচ্ছে। দৈনিক যুগান্তরও রামরুর প্রতিবেদনটি ছাপা হয়েছে গত ২৯ ডিসেম্বর। তাহলে দীপু মনি, আপনার কথা কি সত্য হলো?

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বিদেশ সফর করতে ভালোবাসেন। যখন এই লেখাটি ছাপা হবে, ধারণা করছি তিনি তখন বিদেশে। তার এই ঘন ঘন বিদেশ সফর কি আমাদের পররাষ্ট্রনীতিতে আদৌ কোনো সাফল্য আনতে পেরেছে? জলবায়ু কূটনীতিতেও আমরা ব্যর্থ। এনজিওর প্রতিনিধিরা, যারা কানকুনে গিয়েছিলেন, তারা এসে বলেছেন আমাদের ব্যর্থতার কথা। পররাষ্ট্রনীতিতে আমাদের ‘সাফল্য’ এক জায়গায়। আর তা হচ্ছে ভারতের ওপর অতি নির্ভরতা, যা পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বক্তব্যের মধ্য দিয়েই প্রমাণিত হয়। পররাষ্ট্রনীতিতে জাতীয় স্বার্থকে প্রাধান্য দেয়া হয়। দুঃখজনক হলেও সত্য, মহাজোট সরকারের দুই বছরের পররাষ্ট্রনীতিতে এই জাতীয় স্বার্থ রক্ষিত হয়নি।

Source : http://blog.priyo.com/2011/jan/02/678.html

Re-writing স্বাধীনতার ইতিহাস by Sarmila Bose: যশোর গনহত্যার প্রকৃত ঘটনা

http://www.sonarbangladesh.com/blog/speechless/32559

এমন এক আজিব দেশে আমাদের জন্ম,যেখানে স্বাধীনতার ইতিহাস দুই ধরনের এবং পরস্পর বিরোধী।পৃথিবীতে এমন নজির আর আছে কিনা আমাদের জানা নেই।অনেক নতুন নতুন তথ্য এখন বেরিয়ে আসছে।

The massacre may have been genocide, but it wasn’t committed by the Pakistan army. The dead men were non-Bengali residents of Jessore, butchered in broad daylight by Bengali nationalists, reports Sarmila Bose.

BITTER TRUTH: Civilians massacred in Jessore in 1971 ? but by whom?

The bodies lie strewn on the ground. All are adult men, in civilian clothes. A uniformed man with a rifle slung on his back is seen on the right. A smattering of onlookers stand around, a few appear to be working, perhaps to remove the bodies.

RECOGNITION DENIED: Father and son killed in Dhaka in 1971

The caption of the photo is just as grim as its content: ‘April 2, 1971: Genocide by the Pakistan Occupation Force at Jessore.’ It is in a book printed by Bangladeshis trying to commemorate the victims of their liberation war.

It is a familiar scene. There are many grisly photographs of dead bodies from 1971, published in books, newspapers and websites.

Reading another book on the 1971 war, there was that photograph again ? taken from a slightly different angle, but the bodies and the scene of the massacre were the same. But wait a minute! The caption here reads: ‘The bodies of businessmen murdered by rebels in Jessore city.’

The alternative caption is in The East Pakistan Tragedy, by L.F. Rushbrook Williams, written in 1971 before the independence of Bangladesh. Rushbrook Williams is strongly in favour of the Pakistan government and highly critical of the Awami League. However, he was a fellow of All Souls College, Oxford, had served in academia and government in India, and with the BBC and The Times. There was no reason to think he would will fully mislabel a photo of a massacre.

And so, in a bitter war where so many bodies had remained unclaimed, here is a set of murdered men whose bodies are claimed by both sides of the conflict! Who were these men? And who killed them?

It turns out that the massacre in Jessore may have been genocide, but it wasn’t committed by the Pakistan army. The dead men were non-Bengali residents of Jessore, butchered in broad daylight by Bengali nationalists.

It is but one incident, but illustrative of the emerging reality that the conflict in 1971 in East Pakistan was a lot messier than most have been led to believe. Pakistan’s military regime did try to crush the Bengali rebellion by force, and many Bengalis did die for the cause of Bangladesh’s independence. Yet, not every allegation hurled against the Pakistan army was true, while many crimes committed in the name of Bengali nationalism remain concealed.

Once one took a second look, some of the Jessore bodies are dressed in salwar kameez ? an indication that they were either West Pakistanis or ‘Biharis’, the non-Bengali East Pakistanis who had migrated from northern India.

As accounts from the involved parties ? Pakistan, Bangladesh and India ? tend to be highly partisan, it was best to search for foreign eye witnesses, if any. My search took me to newspaper archives from 35 years ago. The New York Times carried the photo on April 3, 1971, captioned: ‘East Pakistani civilians, said to have been slain by government soldiers, lie in Jessore square before burial.’ The Washington Post carried it too, right under its masthead: ‘The bodies of civilians who East Pakistani sources said were massacred by the Pakistani army lie in the streets of Jessore.’ “East Pakistani sources said”, and without further investigation, these august newspapers printed the photo.

In fact, if the Americans had read The Times of London of April 2 and Sunday Times of April 4 or talked to their British colleagues, they would have had a better idea of what was happening in Jessore. In a front-page lead article on April 2 entitled ‘Mass Slaughter of Punjabis in East Bengal,’ The Times war correspondent Nicholas Tomalin wrote an eye-witness account of how he and a team from the BBC programme Panorama saw Bengali troops and civilians march 11 Punjabi civilians to the market place in Jessore where they were then massacred. “Before we were forced to leave by threatening supporters of Shaikh Mujib,” wrote Tomalin, “we saw another 40 Punjabi “spies” being taken towards the killing ground?”

Tomalin followed up on April 4 in Sunday Times with a detailed description of the “mid-day murder” of Punjabis by Bengalis, along with two photos ? one of the Punjabi civilians with their hands bound at the Jessore headquarters of the East Pakistan Rifles (a Bengal formation which had mutinied and was fighting on the side of the rebels), and another of their dead bodies lying in the square. He wrote how the Bengali perpetrators tried to deceive them and threatened them, forcing them to leave. As other accounts also testify, the Bengali “irregulars” were the only ones in central Jessore that day, as the Pakistan government forces had retired to their cantonment.

Though the military action had started in Dhaka on March 25 night, most of East Pakistan was still out of the government’s control. Like many other places, “local followers of Sheikh Mujib were in control” in Jessore at that time. Many foreign media reported the killings and counter-killings unleashed by the bloody civil war, in which the army tried to crush the Bengali rebels and Bengali nationalists murdered non-Bengali civilians.

Tomalin records the local Bengalis’ claim that the government soldiers had been shooting earlier and he was shown other bodies of people allegedly killed by army firing. But the massacre of the Punjabi civilians by Bengalis was an event he witnessed himself. Tomalin was killed while covering the Yom Kippur war of 1973, but his eye-witness accounts solve the mystery of the bodies of Jessore.

There were, of course, genuine Bengali civilian victims of the Pakistan army during 1971. Chandhan Sur and his infant son were killed on March 26 along with a dozen other men in Shankharipara, a Hindu area in Dhaka. The surviving members of the Sur family and other residents of Shankharipara recounted to me the dreadful events of that day. Amar, the elder son of the dead man, gave me a photo of his father and brother’s bodies, which he said he had come upon at a Calcutta studio while a refugee in India. The photo shows a man’s body lying on his back, clad in a lungi, with the infant near his feet.

Amar Sur’s anguish about the death of his father and brother (he lost a sister in another shooting incident) at the hands of the Pakistan army is matched by his bitterness about their plight in independent Bangladesh. They may be the children of a ‘shaheed,’ but their home was declared ‘vested property’ by the Bangladesh government, he said, in spite of documents showing that it belonged to his father. Even the Awami League ? support for whom had cost this Hindu locality so many lives in 1971 ? did nothing to redress this when they formed the government.

In the book 1971: documents on crimes against humanity committed by Pakistan army and their agents in Bangladesh during 1971, published by the Liberation War Museum, Dhaka, I came across the same photo of the Sur father and son’s dead bodies. It is printed twice, one a close-up of the child only, with the caption: ‘Innocent women were raped and then killed along with their children by the barbarous Pakistan Army’. Foreigners might just have mistaken the ‘lungi’ worn by Sur for a ‘saree’, but surely Bangladeshis can tell a man in a ‘lungi’ when they see one! And why present the same ‘body’ twice?

The contradictory claims on the photos of the dead of 1971 reveal in part the difficulty of recording a messy war, but also illustrate vividly what happens when political motives corrupt the cause of justice and humanity. The political need to spin a neat story of Pakistani attackers and Bengali victims made the Bengali perpetrators of the massacre of Punjabi civilians in Jessore conceal their crime and blame the army. The New York Times and The Washington Post “bought” that story too. The media’s reputation is salvaged in this case by the even-handed eye-witness reports of Tomalin in The Times and Sunday Times.

As for the hapless Chandhan Sur and his infant son, the political temptation to smear the enemy to the maximum by accusing him of raping and killing women led to Bangladeshi nationalists denying their own martyrs their rightful recognition. In both cases, the true victims ?Punjabis and Bengalis, Hindus and Muslims ? were cast aside, their suffering hijacked, by political motivations of others that victimised them a second time around.

সোর্স:http://www.telegraphindia.com/1060319/asp/look/story_5969733.asp

Biography of Dr Sarmila Bose(http://www.politics.ox.ac.uk/index.php/profile/sarmila-bose.html), তার অন্যতম পরিচয় হল; সে নেতাজি শুভাস চন্দ্র বসুর নাতনি। আমার মতে প্রথম কোন ভারতীয় লেখক যে কিনা বাংলাদেশের স্বাধীনতার উপর Objective Research করেছে।

নোট: স্বাধীনতার ব্যবসায়ীগন ইতমধ্যে শর্মিলা বোস কে বিতর্কিত করার জন্য উঠে পরে লেগেছে কিন্তু কোনভাবেই তাকে পাকিস্তানি বানাতে পারছেনা,না পারছে রাজাকার বানাতে।

Massacres in Chandraghona, Rangamati

http://www.storyofbangladesh.com/ebooks/blood-and-tears.html?start=5

Behind the myth of 3 million

http://www.storyofbangladesh.com/ebooks/myth-of-3-million/download.html

 

http://www.facebook.com/note.php?note_id=198103130220806

দ্রষ্টব্য: লেখাটি আমাদের নয়। তাই প্রকাশের জন্য আমরা দায়ী নই।


Farakka’s Vicious Aggression

Source : nEWS BD71

undefined

1. Farakka Barrage project looked innocent :

Farakka is a hangover project not seriously taken up earlier until by independent India since 1949 , that is immediately after Indian partition and Pakistan founded in two parts, the West in northern British India and East in East Bengal. Though the founding of the new innovative state of Pakistan was founded through popular votes of the people and in consensus agreement of the three main parties then involved active in Indian politics– the British, the Congress and the Muslim League- the powerful actors the British colonialist and the caste ridden elitist Brahmanist Congress had set their targets very much at the beginning to dismember Pakistan and eat that up at some opportune moment. The first target being East Bengal for many vulnerable reasons against East Bengal, such as, its geographical location almost encircled by big India and economic over dependence on West Bengal and bigger Indian merchants and businessmen. The set hidden target being so, India’s Farakka Barrage Project just 11 miles up from the agreed international land border across the mighty river Ganges/ Padma must have had the additional hidden agenda for hegemony and throttle East Bengal in the down stream flowing through East Bengal ( East Bengal/East Pakistan) to the Bay of Bengal. Apparently the project for control and diversion into the river Bhagirathi to flash out and keep fit for deeper draught vessel into the Haldia river port near Calcutta looked innocent and of big utility to India.

2. Pakistan kept on objecting then off :

Although Pakistan since almost the beginning in mid August 1947 had leadership crisis, India had both experienced and more efficient leadership and continuity of old colonial administration obtained almost intact, Pakistan had kept on objecting to erecting the Barrage across river Ganges in upstream for that was taken to affect adversely the water flow along the Padma in the down stream through East Bengal to the Bay of Bengal. That is why almost no substantial progress of the work was made in nearly two decades. But as soon as East Pakistan was in political turmoil in late 1960 s the project got a quick accomplishment. Whether there was any close connection between the Jalao Porao or put on arson and burn- of East Pakistan mainly engineered by Sheikh Mujib’s six point ‘ autonomy’ formula launched in mid 1966 need be looked into depth. Soon in midst of the anarchy and chaos, civil war in 1971 , secession and independence of East Pakistan naturally left Bangladesh on its own in all matters and so the Farakka matter, as well.

3. Advantage taken by India and Delhi :

Ganges/Padma river route and farakka barrage (which also disturbed Hilsha Fish Movement) in map. Click to enlarge.

The friendly governments of Delhi and Calcutta took the best advantage of the period of turmoil of Bangladesh and completed the Farakka Barrage construction left only to just begin its operation. Even so, they could not do so unilaterally because the Ganges/Padma happened to be not only India’s river but also of sovereign Bangladesh’s that made it a serious matter for water sharing subject to rules, regulations and norms of international river waters under several statutes. However, India took another advantage of close friendship with Dhaka to get the barrage operation for diverting and withdrawal of water at the upstream. They had little difficulty in making Dhaka agree to their programs that they did in May 1975. Even so, the operation was meant for ‘40 experimental days’ and to get things viewed for adverse effects in the down stream. Unfortunately the top leader’s fall from power in mid August 1975 that kept things ahead not only in uncertainly but also hardening of Delhi’s attitude to Dhaka on all matters.

4. Prelude to 1977 water treaty :

Bangladesh was no match in anything with bigger India. The changes of government in Dhaka through army coup and counter coup one after another, the national army being in the driving position and General Zia to the top, was unpalatable to India that made things very difficult for Dhaka to move ahead. But the people were united and so were the people for the due share of water down the Farakka Barrage. On 16 May 1976 the oldest and the most experienced politician and mass leader Maolana Abdul Hamid Khan Bhashani organized and led a road march of hundreds of thousands of people towards the Indian border nearest to the Farakka point. Obviously the procession was stopped at the border by Indian security forces. He addressed the rally there and asked India to give our share of water or face serious other consequences. The threat on behalf of the huge mass of people gathered there produced some result that made the 1977 water sharing agreement for five years possible with minimum guarantee clause of 34 ,500 cusecs of water to be released at the Farakka point for Bangladesh’s needs.
https://i0.wp.com/upload.wikimedia.org/wikipedia/en/thumb/f/f7/Maulana_Bhasani.jpg/220px-Maulana_Bhasani.jpg

The most experienced politician and mass leader Maolana Abdul Hamid Khan Bhashani organized and led a road march of hundreds of thousands of people towards the Indian border nearest to the Farakka point. He addressed the rally there and asked India to give our share of water or face serious other consequences.

5. President Zia killed in May 1981 :

President General Zia had a stronger spine that made the 1977 treaty with guarantee clause for minimum flow during lean season for five months (January to May).

Once President General Zia was killed, many alleged the killing by Indian Intelligence R&AW operatives and under Indian PM Indira Gandhi’s direct planning and order, the water sharing for three years set had passed. The renewal of the agreement was not made. Bangladesh suffered for loss of everything of life and economy due to lower quantum of flow. There was nothing except a MOU made in 1982 , India arrogantly refused to make any agreement to enjoy scope to withdraw water unilaterally at will until the 1996 treaty that in fact unfortunately flouted rules and norms of international water sharing bodies like Helsinki Rules or treaty conditions that existed for other river waters elsewhere like the Nile, Danube, Indus Water between India and Pakistan, etc.

6. Hasina made an agreement in December 1996 for 30 years with no guarantee clause :

PM Sheikh Hasina says as also her own men in top administration that the Tipaimukh would be so done and operated that it would do no ‘ harm’ to Bangladesh That was what the assurance she has got from Indian PM Monmohon Singh.

Shaikh Hasina on assuming the position of PM in 1996 for the first time through indecent and immoral league with the Jamaat and the Jatiya Party leader imprisoned Ershad for high degree corruption, made a high sounding agreement for 30 years. The additional suicidal clue was ‘ dependent on availability of water’ at the Farakka point, being other mass withdrawn at points still up in the stream caring nothing much less taking consent of Bangladesh. It sounded high but having no clause for minimum guarantee for the down stream flow during the leanest season (April-May) it remained suicidal for Bangladesh for all encompassing adverse effects due to non availability of water for basic sustenance of lives, economy and environment. For thirteen years India has been even more aggressive not only in matters of Farakka but also in matters of Teesta, its seven tributaries, and now newly started Tipaimukh Barrage in the upstream of Surma and Kusiara that flow down to the Meghna another big river of Bangladesh. This is certain to have ill fate of Farrakka’s adverse effects on one fourth of the country in the south west region just as one third of Bangladesh in the south east of Bangladesh due to the Tipaimukh Multi- purpose Barrage. Hasina says as also her own men in top administration that the Tipaimukh would be so done and operated that it would do no ‘ harm’ to Bangladesh That was what the assurance she has got from Indian PM Monmohon Singh, but unfortunately nothing in written much less in document of treaty. Pity for Hasina for the harsh reality is that they cared little for written documents possibly for their bigness and bigger muscle power, how could Delhi be trusted for verbal sweet words!

Tipaimukh Multipurpose Barrage Project

7. Questions to ponder and to rise :

On the Farakka March’s 34 th anniversary this year on the 16 th May some pertinent questions have been raised by some quarters. The points are- (1) whether Bangladesh must raise the issue at the United Nations for arbitration for the quantum of water; (2) whether Bangladesh must seek for compensation to India for the huge loss incurred during the lat 35 years of the barrage operation at the upstream against lives, economy and environment; (3) whether Bangladesh must make enumeration of losses incurred in terms of money ( I made a calculation of loss in 2008 March that came to a figure of 49 lakhs crores, in May 2010 it might rise further 3 lakhs crores making the total as of now at 52 lakhs crore Taka that comes to US$ 7 , 400 billion at the current exchange rate) and seek the amount for the compensation from India; (4) whether comprehensive plans for joint development of river water sources in the Himalayan region for augmenting water flows through construction of dams in the upper region and for water management sharing with other neighboring countries like Nepal, Bhutan, Bangladesh and India be pursued for the total river basin as a unit in a cooperative approach, (5) whether, in case all the above four options unrealized satisfactorily, Bangladesh must opt for military option, the brief and the most likely would be bombing by our Air Force at the Farakka installations proper and so ensure natural flow of water in the downstream to Bangladesh.

Whether, in case all the above four options unrealized satisfactorily, Bangladesh must opt for military option, the brief and the most likely would be bombing by our Air Force at the Farakka installations proper and so ensure natural flow of water in the downstream to Bangladesh.

8. Strength of the spine :

Bangladesh has no strong spine to take up the 5 th option against mighty India. But a sniper action should not be ruled out. The Padua/Roumary battle in 2001 had been a good lesson for India. One would point out though that since the 25-26 February massacre of the 57 commissioned army officers in matter of hours in the capital city Dhaka in the well secured BDR HQ must have taught the army that how much deeply helpless they could be in face of India sponsored massacres meekly eaten up here for weaker spine and personal lust for power hungriness and as such any probable air attack on the Farakka Barrage installations could be countered with mightier attacks. The further issue that caused worry is that they have gained additional moral strength by dismissing at some one’s will many other senior army officers in addition to those faced the judicial murder of five in late January 2010 due only to vengeance and hardly for upholding rule of law that have had additionally chilled the spines of Bangladesh army. Otherwise India would have had chilled her spines, I can confidently guess.

Any probable air attack on the Farakka Barrage installations could be countered with mightier attacks. So, Bangladesh Army should make its spine stronger then now.

9. Pakistan’s instance :

India played havoc with Pakistan in the initial years and soon after the Kashmir war in October 1947 in that India had stopped all canals in the upstream in order for Pakistan to get lost in the lifeline for agriculture through irrigation in the Pakistan part of the Punjab that developed long before the British period, loss of drinking water supply and huge damage to environment. But Pakistan’s spine though relatively weaker then even so India got to the table and made 10 years treaty permitting Pakistan exclusive rights of full three rivers’ waters- Sind, Jehlum and Chenab, and India secured similar rights of another three – Ravi, Beas and Sutlej for her. On expiry of the ten year period the treaty was renewed forever that runs till today. The World Bank though made the mediation Pakistan’s spine was an important factor to force India to sit down across the negotiating table and their leaders Ayub and Nehru in September 1960 did the formal signing. Again Pakistan had the Army General with stronger spine in leadership and Nehru the founding leader of independent India and top boss of the Congress party. We experienced President General Zia had a stronger spine that made the 1977 treaty with guarantee clause for minimum flow during lean season for five months (January to May) at 34 ,500 cusecs.

10. 1996 treaty clauses flouted consistently by India :

The treaty made by Dhaka in 1996 with weaker spine facing Delhi’s stronger one and cunning sweet words obviously fell flat and Bangladesh has not in the last 13 years got the due share agreed then unfairly though agreed for Bangladesh in the agreement. It is very much clear that unless the spine is made stronger there is in store all sufferings, misfortune and misery continuing for 35 years of water aggression now against Bangladesh not only for the Indian Farakka Barrage but also for the Teesta’s Gazaldoba, Tipaimukh Dam etc, that is, in all 53 common rivers unfortunately Bangladesh geographically positioned in the down stream of the Indian location being in the upstream that must bring along in future many other for the country due mainly to spineless rulers running the country. May I say at the end that unless one is deeply aware of the aggressive and hegemonic attitude of the Indian rulers against the smaller countries in the region one must fail to understand the common river waters downstream flows and sharing in its proper perspective.
%d bloggers like this: