• Categories

  • Archives

  • Join Bangladesh Army

    "Ever High Is My Head" Please click on the image

  • Join Bangladesh Navy

    "In War & Peace Invincible At Sea" Please click on the image

  • Join Bangladesh Air Force

    "The Sky of Bangladesh Will Be Kept Free" Please click on the image

  • Blog Stats

    • 315,721 hits
  • Get Email Updates

  • Like Our Facebook Page

  • Visitors Location

    Map
  • Hot Categories

পিলখানা হত্যাকান্ডঃ বাংলাদেশের প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা ধ্বংসের ভারতীয় ষড়যন্ত্র [অধ্যায়-১]

184686_203377896344888_169748906374454_855995_6571003_n.jpg

১. সূচনা

বিডিআর সদর দপ্তরে ঘটে যাওয়া দুঃখজনক ঘটনা, বিশেষ করে পরিকল্পিতভাবে সেনা কর্মকর্তাদের নৃশংস হত্যাকান্ডে দেশবাসী মর্মাহত ও বিক্ষুদ্ধ। আমরা এই মর্মান্তিক ঘটনায় নিহত সকলের রূহের মাগফেরাত কামনা করি ও শোকাহত পরিবারের সদস্যদের প্রতি আন্তরিক সমবেদনা জানাই। নিরস্ত্র সেনা কর্মকর্তাদের নির্মমভাবে হত্যা করা, স্ত্রী ও সন্তানদের নির্যাতন ও হত্যা, গর্ভবতী মাকে খুন, লাশ পোড়ানো ও গণকবর তৈরী ইত্যাদি পৈশাচিক কর্মকান্ড নিঃসন্দেহে ক্ষমার অযোগ্য অপরাধ। গত ২৫-২৬ ফেব্রুয়ারী পিলখানায় সংঘটিত হত্যাকান্ড নিয়ে ইতিমধ্যে অনেক আলোচনা ও পর্যালোচনা হয়েছে। রহস্য উদঘাটনে গঠন করা হয়েছে তদন্ত কমিটি। পরবর্তীতে নিরপেক্ষ তদন্ত কমিটি গঠনের কথা বলে সরকারের মন্ত্রীদের বাদ দিয়ে নতুন কমিটি করা হয়। এরপর আবার সরকারের এক মন্ত্রীকে গঠিত কমিটিগুলোর সমন্বয়কারী হিসেবে ঘোষণা দেয়া হয়, যার উদ্দেশ্য তদন্ত কার্যক্রমকে নিয়ন্ত্রণ করা এবং সত্যকে আড়াল করা ছাড়া আর কিছুই নয়। আমাদের অবশ্য স্মরণ আছে অতীতে কোন তদন্ত কমিটির মাধ্যমে কখনোই প্রকৃত রহস্য উদঘাটিত হয়নি, হলেও দেশবাসী তা জানতে পারেনি। ঘটনার মূল পরিকল্পনাকারীরা সবসময় আড়ালেই থেকে গেছে। তবুও আমরা দাবি করব জঘন্য এ হত্যাযজ্ঞের সাথে জড়িত ব্যক্তিদের খুঁজে বের করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে হবে এবং মূল পরিকল্পনাকারীদের মুখোশও উম্মোচন করতে হবে।

ইতিমধ্যে সম্ভাব্য ষড়যন্ত্রকারীদের তালিকায় ভারতীয় গোয়েন্দা সংস্থা ‘র’, আইএসআই, বিএনপি-জামায়াত জোট, জেএমবি, ক্ষমতাসীন সরকারের মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রী ইত্যাদি বহু নাম মিডিয়ায় এসেছে। কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য, জাতির এই চরম দুর্দিনেও আমরা ক্ষমতাসীন সরকারকে অত্যন্ত দায়িত্বজ্ঞানহীনের মত আচরণ করতে দেখছি। প্রধানমন্ত্রী এবং তার একনিষ্ঠ সমর্থকরা যেভাবে কোনরকম দলিল-প্রমাণ ছাড়াই আক্রমণাত্মক কথার মাধ্যমে বিরোধী রাজনৈতিক শক্তিসমূহকে দায়ী করছে তাতে মনে হচ্ছে, সরকার প্রকৃত অপরাধীকে আড়াল করতে অথবা যেনতেনভাবে দায় মুক্ত হতে চায়।


২. ঘটনার বিশেষণ – সন্দেহের তালিকার শীর্ষে ভারত

২.১ ভূ-রাজনৈতিক প্রেক্ষাপট

পিলখানা ষড়যন্ত্রের মূল রহস্য উদঘাটন করতে হলে প্রথমে সমগ্র বিষয়টিকে ভূ-রাজনৈতিক প্রেক্ষাপট থেকে দেখতে হবে। দেশের অস্তিত্ব বিরোধী এতো বড় একটি ষড়যন্ত্রের পেছনে বাইরের শক্তির সম্পর্ক থাকার সম্ভাবনা খুবই প্রবল। সাম্রাজ্যবাদী বিশ্ব সমপ্রতি বিশ্ব রাজনীতির স্পটলাইট মধ্যপ্রাচ্য থেকে সরিয়ে দক্ষিণ এশিয়াতে স্থাপন করেছে। এজন্য, যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্যসহ ভারতের কাছে বাংলাদেশের কৌশলগত গুরুত্ব বহুলাংশে বৃদ্ধি পেয়েছে। ভারত ও চীনের মাঝামাঝি অবস্থানের কারণে যুক্তরাষ্ট্রের কাছে বাংলাদেশের কৌশলগত গুরুত্ব অনেক। যুক্তরাষ্ট্র বঙ্গোপসাগরের গভীরে সামরিক ঘাঁটি তৈরী করতে (যাকে তারা এখন বলছে বঙ্গোপসাগরে নৌ-টহল দেয়া) সর্বাত্মক প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। আর যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশে একটি তাঁবেদার সরকার বসাতে চেষ্টা করছে, যে তাদের স্বার্থ রক্ষা করবে। ভারত ও যুক্তরাষ্ট্র ইদানীং পরস্পরের মিত্রশক্তিতে পরিণত হলেও দক্ষিণ এশিয়াকে ঘিরে ভারতের আছে নিজস্ব কিছু পরিকল্পনা। বস্তুতঃ ভারত এই উপমহাদেশে নিজেকে চালকের আসনে দেখতে চায়, আঞ্চলিক শক্তি হিসেবে নিজের অবস্থান সুসংহত করতে চায় এবং এ উদ্দেশ্য অর্জনের লক্ষ্যেই নেপাল, শ্রীলংকা, ভুটান, মিয়ানমার কিংবা বাংলাদেশের মতো রাষ্ট্রগুলোকে ক্রমশঃ ভারতের মধ্যে অন্তর্ভূক্ত করে নেয়ার রয়েছে তার সুদূরপ্রসারী পরিকল্পনা।

আধিপত্যবাদী এই নীতি থেকেই ভারত সবসময় প্রতিবেশী রাষ্ট্রগুলোকে অস্থিতিশীল দেখতে চায়, পরিণত করতে চায় ব্যর্থ রাষ্ট্রে। যেন ভুটানের মতো বাংলাদেশ, শ্রীলংকা ও নেপালও রাষ্ট্র হিসাবে ব্যর্থতার গ−ানি কাঁধে নিয়ে একসময় ভারতের অর্ন্তভূক্ত হয়ে যায়। এ লক্ষ্যে ভারত সবসময়ই প্রতিবেশী দেশগুলোর রাজনৈতিক পরিস্থিতিকে অশান্ত করতে চালিয়েছে তাদের বিরুদ্ধে নানারকম অপতৎপরতা বা অপপ্রচার। বিগত বেশ ক’বছর যাবত বাংলাদেশকে রাষ্ট্র হিসাবে ব্যর্থ প্রমাণ করতেও চলছে একই রকম অপতৎপরতা। প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা দূর্বল করতে সেনাবাহিনীর ইমেজ নষ্ট করারও চেষ্টা চালানো হয়েছে বিভিন্নভাবে। এই প্রসঙ্গে গত ১৯নভেম্বর ২০০৮ প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা ও পুত্র সজিব ওয়াজেদ জয় ও কার্ল জে সিওভাক্কো কর্তৃক লিখিত ও Harvard International Review নামক পত্রিকায় প্রকাশিত Stemming the Rise of Islamic Extremism in Bangladesh শীর্ষক নিবন্ধের সারমর্ম উলে−খ করা যেতে পারে। ২৯ ডিসেম্বর ২০০৮ এর নির্বাচনের পূর্বে লিখিত এই নিবন্ধে জয় বলেছে ÒThe Islamists cleverly began growing their numbers within the Army by training for the Army Entrance Exams at madrassas.Ó অর্থাৎ সেনাবাহিনীতে চালাকি করে মাদ্রাসার ছাত্ররা ঢুকে পড়ছে; এটা হচ্ছে মাদ্রাসা পর্যায়ে সেনাবাহিনীর ভর্তি পরীক্ষার প্রশিক্ষণের মাধ্যমে। তিনি ঐ নিবন্ধে এ সম্পর্কে অসংখ্য তথ্য (তথাকথিত) উপস্থাপন করেছিলেন যার কোন সূত্র উলে−খ করা ছিল না। সেনাবাহিনীর ইসলামীকরণ ঠেকানোর জন্য তিনি Toward Renewal: A Secular Plan শিরোনামে অনেক কিছুর মাঝে সেনাবাহিনী পূনর্গঠনের পরিকল্পনাও উপস্থাপন করেছিলেন। এছাড়াও ভারতের এ দেশীয় দালালরা বিভিন্ন টকশো বা সভা-সেমিনারে এ দেশের সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে ক্রমাগত বিষোদগার করেছে এবং জনগণ ও সেনাবাহিনীর মাঝে দূরত্ব সৃষ্টি করার চেষ্টা চালানো হয়েছে।

শক্তিশালী নেতৃত্ব, শাসনব্যবস্থা ও প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার মাধ্যমে বাংলাদেশ যদি একটি শক্তিশালী রাষ্ট্রে পরিণত হয়, তবে তা হবে ভারতের আধিপত্যবাদী নীতির জন্য হুমকি স্বরুপ কারণ, তাহলে অন্যান্য প্রতিবেশী রাষ্ট্রগুলোর জন্য তা অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে এবং তারাও ভারতের প্রভাববলয় থেকে বের হয়ে আসার আপ্রাণ চেষ্টা করবে। পরিণতিতে ভারতের ‘অখন্ড ভারত’ প্রতিষ্ঠার স্বপ্ন চুরমার হয়ে যাবে। ১৯৪৭ সালে ভারত ভাগের পরক্ষণেই কংগ্রেস সভাপতি আচার্য কৃপানলি বলেছিলেন : Neither the Congress nor the nation has given up its claim of United India’ -কংগ্রেস কিংবা জাতি অখন্ড ভারতের দাবি পরিত্যাগ করেনি। ভারতের তৎকালীন প্রথম স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সরদার বল−ভ ভাই প্যাটেল বলেছিলেন : ‘Sooner than later, we shall again be united in common allegiance to our nation.’ অর্থাৎ অতি সত্বর আমরা জাতি হিসেবে আবার একীভূত হব। ল্যাবি কলিন্স ও ডমিনিক লেপিয়ার লেখা বই মাউন্ট ব্যাটেন অ্যান্ড দ্য পার্টিশন অব ইন্ডিয়া-য় বলা হয়েছে, স্বাধীন বাংলার তখনকার দাবির বিরুদ্ধে হিন্দু মহাসভার আপত্তি সমর্থন করেছিলেন পন্ডিত জওহর লাল নেহেরু। এ প্রসঙ্গে মাউন্ট ব্যাটেন উলে−খ করেন: Pundit Neheru has stated that he would not agree to Bengal being independent… In his opinion, East Bengal was likely to be a great embarrassment to Pakistan. Presumably, Pundit Neheru considered East Bengal was bound sooner or later to rejoin India.’ অর্থাৎ পন্ডিত নেহেরু বলেছেন যে তিনি স্বাধীন বাংলা মেনে নেবেন না। … তার মতে পূর্ব বাংলা পাকিস্তানের জন্য বিব্রতকর পরিস্থিতির সৃষ্টি করবে। পন্ডিত নেহেরু মনে করতেন যে পূর্ব বাংলা এক সময় ভারতের সাথে যোগ দিবে। এখানে ইন্ডিয়া ডকট্রিনের প্রতিফলন রয়েছে। ইন্ডিয়া ডকট্রিনের সারকথা হচ্ছে – দক্ষিণ এশিয়া হচ্ছে একটা স্ট্র্যাটেজিক ইউনিট, যার নিয়ন্ত্রণ থাকবে ভারতের হাতে; আর ভারতই এ অঞ্চলের জন্য একটি আঞ্চলিক নীতি প্রণয়নের অধিকার রাখে। আমরা শুনেছি গুজরাল ডকট্রিনের কথাও – ভারত তার স্বার্থের প্রতি আঘাত সৃষ্টিকারী যেকোনো দেশের ওপর আক্রমণ চালানোর অধিকারও রাখে।

২.২ বাংলাদেশের প্রতি ভারতের ঐতিহাসিক আচরণ

এ দেশের বামঘরানা ও ধর্মনিরপেক্ষ প্রজাতির মানুষেরা কোন এক রহস্যজনক কারণে ভারতের ব্যাপারে অত্যন্ত রক্ষণশীল ভূমিকা পালন করে থাকেন। তাই গত ৩৮ বছর যাবত বাংলাদেশের প্রতি ভারতের তীব্র শত্রুভাবাপন্ন মনোভাব ও চরম বিমাতাসুলভ আচরণের পরও তারা সকল ক্ষেত্রে ভারতকে ষড়যন্ত্রকারীদের তালিকার বাইরে রাখেন। প্রয়োজনে দেশের স্বার্থ বিকিয়ে দিয়ে হলেও তারা ভারতমাতার স্তুতি গাওয়াকেই অধিক যুক্তিযুক্ত মনে করেন। আশ্চর্যজনক হলেও সত্য, আমাদের দেশের অনেক বিজ্ঞ রাজনীতিবিদ ও ভারত প্রেমিক বুদ্ধিজীবি ভারতমাতার পায়ে জীবন উৎসর্গ করতে চান। মেনে নিতে চান ভারতের সকল অন্যায় ও অযৌক্তিক দাবী-দাওয়া। কিংবা, ভারতের আধিপত্যবাদী ও আগ্রাসনমূলক কার্যকলাপকে দেখেন মাতৃসুলভ স্নেহের দৃষ্টিতে। গত ৩৮ বছরে বাংলাদেশের সাথে ভারত যে বন্ধুপ্রতিম (?) আচরণ করেছে তার সারসংক্ষেপ নিম্নরূপ:

১.প্রায় ৪ হাজার কি.মি. দীর্ঘ ভারত-বাংলাদেশ সীমান্ত অঞ্চলে স্বাধীনতার পর থেকেই ভারতের ভূমিকা আগ্রাসনমূলক। বিএসএফ গড়ে প্রতি তিনদিনে একজন করে বাংলাদেশী হত্যা করছে বলে তথ্য পত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছে। এদের বেশীর ভাগই নিরীহ গ্রামবাসী। এমনকি ভারতীয় সীমান্তরক্ষীরা প্রতিনিয়ত অবৈধভাবে বাংলাদেশের অভ্যন্তরে প্রবেশ করে নিরীহ গ্রামবাসীদের সম্পদ লুটপাট, হত্যা, ধর্ষণ ইত্যাদি জঘন্য কার্যকলাপ চালিয়ে যাচ্ছে।

২.আন্তর্জাতিক আইন লঙ্ঘন করে ভারত সীমান্তে দীর্ঘ কাঁটাতারের বেড়া তৈরী অব্যাহত রেখেছে।

৩.মুজিব-ইন্দিরা চুক্তি অনুযায়ী বাংলাদেশ ভারতকে বেরুবাড়ি হস্তান্তর করলেও, বাংলাদেশ এখনো তিনবিঘা করিডোর ফেরত পায়নি। উপরন্তু, এ সব অঞ্চলের মানুষেরা স্বধীন দেশের নাগরিক হয়েও গত ৩৮ বছর যাবত উম্মুক্ত জেলখানায় বন্দী হিসাবে দিন কাটাচ্ছে।

৪.বাংলাদেশের সীমানায় জেগে উঠা তালপট্টি দ্বীপকে ভারত জোরপূর্বক দখল করে রেখেছে। নীলফামারী, পঞ্চগড়সহ বিভিন্ন পয়েন্টে এখনো এদেশের হাজার হাজার একর জমি ভারতের দখলে রয়েছে।

৫.আন্তর্জাতিক নিয়ম নীতিকে বুড়ো আঙ্গুল দেখিয়ে ভারত আমাদেরকে পানির ন্যায্য হিস্যা থেকে বঞ্চিত করেছে। তারা ফারাক্কা বাঁধ, টিপাইমুখী বাঁধসহ উজানে আরও ডজন খানেক বাঁধ দিয়ে এদেশকে পুরোপুরি মরুভূমি করার প্রক্রিয়া সম্পন্ন করেছে। ভারতের ‘আন্তঃনদী সংযোগ প্রকল্প’ বাস্তবায়িত হলে তা বাংলাদেশের ভূপ্রকৃতি ও অর্থনীতিতে ডেকে আনবে চরম বিপর্যয়। কমে যাবে নদীর নাব্যতা, মিঠা পানির মাছের উৎপাদন হ্রাস পাবে, আর্সেনিক সমস্যা প্রকট আকার ধারণ করবে এবং ক্রমশ: বাংলাদেশের বিশাল এলাকা পরিণত হবে ধূ ধূ মরুভূমিতে।

৬.চোরাকারবারীদের মাধ্যমে ভারত এদেশে মাদক, জালমুদ্রাসহ ভারতীয় বিভিন্ন নিম্নমানের সামগ্রী ঠেলে দিচ্ছে। আর, অপরদিকে এদেশ থেকে পাচার হয়ে যাচ্ছে তেল ও সার। বিভিন্ন দৈনিকে প্রকাশিত রির্পোট থেকে জানা যায়, পিলখানা ট্রাজেডির পর সীমান্তে বিডিআরের অনুপস্থিতির সুযোগে এদেশ থেকে বিপুল পরিমাণ জ্বালানি তেল, ভোজ্যতেল ও সার ভারত ও মিয়ানমারে পাচার হয়ে গেছে। আর দেশে প্রবেশ করেছে মাদকসহ বিভিন্ন নিম্নমানের ভারতীয় সামগ্রী।

৭.ভারত সবসময়ই এদেশীয় কুখ্যাত সন্ত্রাসীদের আশ্রয়-প্রশ্রয় দিয়েছে। নানাভাবে উস্‌কে দিয়েছে পার্বত্য চট্টগ্রামের বিচ্ছিন্নতাবাদী আন্দোলনকে। ২০০৭ সালের ১৭ আগষ্ট সিরিজ বোমা হামলার সাথেও ভারতের সংশি−ষ্টতার প্রমাণ পাওয়া গেছে এবং সেইসাথে জেএমবি নেতাদের বহুবার ভারত যাওয়া আসার প্রমাণ মিলেছে।

৮.খোদ ভারতের মাটিতেই ভারতীয় কর্তৃপক্ষের নাকের ডগায় ‘নিখিল বঙ্গ সংঙ্ঘের’ ব্যানারে চলছে বাংলাদেশকে বিভক্ত করার এক জঘন্য ষড়যন্ত্র। সমপ্রতি কলকাতার বঙ্গসেনারা এদেশের ১৯টি জেলা নিয়ে কলকাতায় পশ্চিমবঙ্গ কেন্দ্রিক একটি প্রবাসী বঙ্গভূমি সরকার গঠনের প্রকাশ্য ঘোষণা দিয়েছে। উদ্বোধন অনুষ্ঠানে তাদের শে−াগান ছিল ‘বঙ্গভূমির দখল চাই’। তারা ভারত সরকারের চোখের সামনে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে এই হীন অপতৎপরতা চালাচ্ছে।

৯.বাংলাদেশের যুবসমাজকে ধ্বংস করার জন্য ভারত দীর্ঘ এই সীমান্ত অঞ্চলে অসংখ্য ফেনসিডিলের কারখানা তৈরী করেছে এবং অবৈধ উপায়ে তা বাংলাদেশে পাচার করছে। ফলে মাদকের মরণনেশায় ধ্বংস হচ্ছে এ দেশের যুবসমাজ।

কিন্তু দূর্ভাগ্যজনকভাবে এদেশের বিরুদ্ধে ভারতের এত ষড়যন্ত্র ও অপতৎপরতার পরও বিগত ৩৮ বছর ক্ষমতাসীন প্রতিটি সরকার ভারতকে বন্ধুর মর্যাদায় আসীন করে তার প্রতি নতজানু পররাষ্ট্রনীতি  করেছে। শুধু তাই নয়, তারা বিভিন্ন সময় ভারতকে এদেশের রাজনীতি ও অর্থনীতিতে সরাসরি হস্তক্ষেপেরও সুযোগ তৈরী করে দিয়েছে।

২.৩ সন্দেহের তালিকার শীর্ষে ভারত কেন?

বর্তমান সরকার ও তাদের ভারতপন্থী বুদ্ধিজীবীরা যুক্তি দিচ্ছেন – ভারত বাংলাদেশকে অস্থিতিশীল করবে না, কারণ আওয়ামী লীগ ক্ষমতায়; যারা বর্তমান সরকারকে হটাতে চায় তারাই এসব করেছে; এসবের পিছনে জঙ্গিরাও থাকতে পারে – তাদের এসব কথার কোন ভিত্তি নেই:

প্রথমত: বাংলাদেশের প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা দুর্বল করা ভারতের দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনার অংশ, যা আমরা ইতিপূর্বে আলোচনা করেছি। অতীতেও ভারত এই প্রচেষ্টা চালিয়েছে। এর মাধ্যমে ভারতের ‘অখন্ড ভারত’ ও অপ্রতিদ্বন্দ্বী আঞ্চলিক শক্তির মর্যাদা লাভের পথ সুগম হয়।

দ্বিতীয়ত: মুসলিমপ্রধান দেশ হিসেবে বাংলাদেশের সেনাবাহিনী সবসময়ই ভারতের নিরাপত্তার জন্য হুমকি। বিডিআর বিদ্রোহের মাধ্যমে সবেচেয়ে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে আমাদের সেনাবাহিনী। এখানেও লাভবান একমাত্র ভারত। যেসব মেধাবী সেনা কর্মকর্তাদের নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়েছে তাদের মত সেনা কর্মকর্তা তৈরী করতে দীর্ঘ সময় প্রয়োজন। উপরন্তু এই সেনা হত্যাকান্ডের মাধ্যমে বিডিআর ও সেনাবাহিনীর মধ্যে যে সন্দেহ এবং ভুল বুঝাবুঝির সৃষ্টি হবে, তার দীর্ঘ মেয়াদী সুবিধাও যাবে ভারতের পকেটে।

তৃতীয়ত: দেশের সীমান্ত অরক্ষিত হলে সবচেয়ে সুবিধা হবে ভারতের। ভারত এ সুযোগে অনেক পুশ ইন করবে, যার মধ্যে রয়েছে ফেনসিডিল, ইয়াবা, ভারতীয় মটর সাইকেল এবং কিছু মানুষ, যারা কোন ঘটনা ঘটাবার অপেক্ষায় থাকবে। অন্যদিকে বিডিআরের চেইন অব কমান্ড ধ্বংসের মাধ্যমে বাংলাদেশের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। বিডিআরকে তার পূর্বের শক্তিশালী অবস্থায় ফিরিয়ে আনতেও দীর্ঘ সময় প্রয়োজন। ……..

Source : http://www.facebook.com/notes/we-are-muslims-in-bangladesh/pilkhana-hottakando-government-and-indian-conspiracypart-1/167677773283764

Egypt: Setting the Stage for World War 3?

Source : Pakalert Press

by Henry Makow Ph.D.

Muslim Brotherhood: Prepare for War With Israel

Egypt’s Future; War With Israel

Israel Supplies Egypt With Crowd Dispersing Gas

US Neo Cons Fear Islamist Takeover

Obama Effectively Withdraws Support for Mubarak

undefinedIn order to make sense of the day’s headlines, we need to recall the big picture. Long ago, the London-based Masonic Jewish (Illuminati) central banking cartel realized that to enslave humanity, they needed to use guile.

Their unvarnished goal would meet universal opposition, so instead they fostered myriad false conflicts in order to divide and conquer.

Their main strategy was to use their control of both sides to foment gratuitous but extremely costly wars. The First World War, Second World War, Cold War, Korean and Vietnam Wars etc.  were all means of increasing their power and wealth while debilitating humanity in countless ways, including death, destruction, demoralization and debt.

The Illuminati may be setting the stage for a new world war. The template for the popular uprisings in Tunisia, Egypt (and potentially Jordan and Saudi Arabia) is the 1979 Iranian Revolution. Here the Illuminati replaced a loyal puppet, the Shah Reza Pahlavi with the “fanatical” Islamist Ayatollah Khomeini resulting in the  trademarked “Clash of Civilizations.” This is documented in Robert Dreyfuss’ book “Hostage to Khomeini.”

Now they may be replacing loyal puppet Hosni Mubarak with a Muslim Brotherhood/ Islamist regime, ratcheting up the tension.

Muslim Brotherhood who serve the Illuminati bankers.

All our “leaders” are essentially stuffed suits. They’re puppets. The masses do not rebel unless they’re organized and financed by Masonic bodies like the Muslim Brotherhood who serve the Illuminati bankers. This is what happened in the American, French and Russian Revolutions.

All of this is bad news for the ordinary Jew-on-the-Street in Tel Aviv. It presages another major war in the Middle East, possibly heralding a world war.

It is not bad news for the leaders of Israel or America, who are Freemasons just like the Muslim Brotherhood. These “leaders” want a deadly conflagration: Masonic Islamists vs. Masonic Zionists! They’re all satanists sticking it to humanity.

Have you noticed how calmly Israel has accepted a Hezbollah government in Lebanon? All the better for war!

“The Third World War must be fomented by taking advantage of the differences caused by the “agentur” of the “Illuminati” between the political Zionists and the leaders of Islamic World,” Masonic Grand Commander Albert Pike wrote in 1871.

“Agentur” means “agent.” The same term is used in another Illuminati document The Protocols of the Elders of Zion which dates from the same period.

The Illuminati may be setting the stage for a new world war.

The key point here is these wars are contrived. They are “caused by agentur of the Illuminati” on both sides. These agents owe their first loyalty to the Illuminati not to their countries.

Their aim is to destroy their respective countries and profit from the carnage. Pike continues:

“The [third] war must be conducted in such a way that Islam (the Muslim Arabic World) and political Zionism (the State of Israel) mutually destroy each other.”

The rest of the world will be drawn in.

“Meanwhile the other nations, once more divided on this issue will be constrained to fight to the point of complete physical, moral, spiritual and economical exhaustion…”

At this point they will be constrained to accept the Luciferian one-world government.

So this is the hidden agenda which explains our leaders’ reactions to the demonstrations in Cairo. The Israelis give support to Mubarak because it is the kiss-of-death. But the Americans discreetly signal for him to go, better to advance the Illuminati’s lethal hidden agenda.

Egypt’s future: War with Israel

Source : pravda.ru

43224.jpegRecent developments in Egypt clearly indicate that Mubarak has effectively lost control over the situation in the country. The police were unable to control people’s anger and simply fled. Introduction of curfews and bringing the army into the streets did not work either. The army has virtually split. In the best for Mubarak case, the military take a neutral position, at worst they make friends with the people.

The latter was a particularly unpleasant discovery for the head of the state. Coming from the military background, he was convinced that the military would support him. In the past Mubarak headed the Egyptian air force and used to personally fly to attack the positions of Israeli troops. In addition, before bringing the military into the streets to fight the demonstrators, Mubarak generously gave them money. Yet, this has not made them more willing to shoot at their brothers and fathers who are protesting against corruption and poverty.

The position of the current Egyptian President is worsened by the fact that all the opposition forces – the Islamists, leftists, and democrats – are united against him. There is also a respected authority claiming the power in the country – the former head of the IAEA Mohamed ElBaradei.

One of the major mistakes of the current Egyptian President was that he was afraid of competition with moderate Islamists, and in the elections in the end of 2010 simply did not let the “Muslim Brotherhood” into the Parliament. Earlier, when they were sitting there delineating responsibilities for making certain decisions with the “party of power,” the radicals were not to be afraid of. Emerging contradictions were resolved one way or the other.

One of the major mistakes of the current Egyptian President was that in the elections in the end of 2010 simply he did not let the "Muslim Brotherhood" into the Parliament.

Yet, now the Islamists have nowhere to retreat, the more so because the situation is not in favor of Mubarak. Given that 40 percent of Egypt’s population is poor (with a monthly income less than 50 dollars a month), the opposition is supported by tens of millions of Egyptians.

Finally, the last blow was struck by the West. Many European and American leaders virtually took the side of the opposition. Mubarak was criticized for excessive use of force and pointed to the need for democratic reforms in the country.

In essence, what we are witnessing now can be described as a collapse of the government. This is confirmed by the fact that Mubarak has decided to replace the cabinet. The opposition sees this as a sign of weakness and at the same time as a strategic trick whose goal is to let people blow off steam and stay in power until the fall when the next election is scheduled. However, even if Mubarak somehow miraculously manages to stay in power, it is clear that the operation “Successor” has already failed.

Hosni Mubarak‘s age does not play is his favor either. It is no secret that even in the best case scenario he does not have much time left. Few people are willing to dance to the tune of his non-authoritative and politically weak son Gamal.

Meanwhile, there are fears that the fall of Mubarak’s regime would lead to chaos in the country. So far the opposition is united under the banner “overthrow Hosni and then we’ll see.” Further down the road there will be initially insoluble conflict between Islamists and liberals, Muslims and Christians, and finally, among Islamists who are divided into moderates and radicals. In addition, the army also has its ambitions for power.

In the short term the fall of Mubarak will cause a chain reaction and lead to the collapse of secular and monarchical regimes in other countries in the region, especially in Yemen. Jordan, Syria, and Algeria are among other candidates for the implementation of the domino effect.

Most importantly, the change of power in Egypt will radically change the balance of power in the region. It is worth mentioning that Israel remains the only country that continues to strongly support the Mubarak regime. Tel Aviv is easy to understand: the current President is the guarantor of friendly neutrality of Egypt. This country with the largest in the Arab world people resources is involved in every Arab-Israeli war. However, now Egypt’s foreign policy orientation may change dramatically.

Israel is traditionally considered to be an enemy, and should be preparing for the worst.

This has nothing to do with the classic anti-Israel stance of the Muslim Brotherhood, who after the current events will dramatically increase its influence in the country. The matter is that the only way for Egypt’s future will be the external expansion. In fact, it is programmed by the current demographics of the country. Over the past quarter century, the country’s population has doubled, and it continues to grow exponentially.

According to the most conservative estimate, the current Egyptian population that, according to unofficial data, is now at 90 million will grow by two million annually.

Whoever comes to power in the country will not be able to solve the issue of the progressive poverty. This creates long-term instability of the Egyptian authorities.

Inevitably, the power will be taken by the radical Islamists whose ideas are finding a greater understanding among youth. The gist of the concept is simple: “We live so poorly because we have forgotten about the real Islam.” Yet, the establishment of Sharia law will not be a way out from the disastrous economic situation.

There is only one way out – a war. To divert people’s discontent from the authorities, it has to be directed at an external enemy – the Zionists, who, according to the ideas of the Islamists, want no more than harming Arabs and Muslims. Israel is traditionally considered to be an enemy, and should be preparing for the worst.

Sergei Balmasov
Pravda.Ru

%d bloggers like this: